বাংলা ভাষাভাষী অনুযায়ী ভারতের রাজ্যসমূহ

উইকিপিডিয়া, মুক্ত বিশ্বকোষ থেকে
পরিভ্রমণে ঝাঁপ দিন অনুসন্ধানে ঝাঁপ দিন

নিচের তালিকাটি বাংলা-ভাষী জনসংখ্যা অনুযায়ী ভারতীয় রাজ্য ও কেন্দ্রশাসিত অঞ্চলগুলির তালিকা।

২০১১[১][সম্পাদনা]

শতকরা হার অনুযায়ী ক্রম রাজ্য / কেন্দ্রশাসিত অঞ্চল বাংলা-ভাষী জনসংখ্যার শতকরা হার বাংলাভাষীর সংখ্যা জনসংখ্যা অনুযায়ী ক্রম
পশ্চিমবঙ্গ ৮৬.২২% ৭৮৬৯৮৮৫২, চাকমা-১৭৫, হাজং-১৩ ১ম
ত্রিপুরা ৬৫.৭৩% ২৪১৪৭৭৪, চাকমা-৮৪২৬৯, হাজং-৮ ৪র্থ
অসম ২৮.৯২% ৯০২৪৩২৪, চাকমা-৩১৬৬, হাজং-২৭৫২১ ২য়
আন্দামান ও নিকোবর দ্বীপপুঞ্জ ২৮.৪৯% ১০৮৪৩২ ১৪তম
মিজোরাম ৯.৮৩% ১০৭৮৪০, চাকমা-৯২৮৫০, হাজং-১ ১৫তম
ঝাড়খণ্ড ৯.৭৩% ৩২১৩৪২৩, চাকমা-৩, হাজং-১ ৩য়
মেঘালয় ৭.৮৪% ২৩২৫২৫, চাকমা-১৫৯, হাজং-৪১৪১৪ ১০ম
অরুণাচল প্রদেশ ৭.২৭% ১০০৫৭৯, চাকমা-৪৭০৭৩, হাজং-২৭১১ ১৬তম
নাগাল্যান্ড ৩.৭৮% ৭৪৭৫৩, চাকমা-১৫৬, হাজং-২ ২০তম
১০ দমন ও দিউ ২.১৫% ৫২৩২ ৩৩তম
১১ উত্তরাখণ্ড ১.৫০% ১৫০৯৩৩, চাকমা-৯ ১২তম
১২ দিল্লী ১.২৯% ২১৫৯৬০, চাকমা-১০৩, হাজং-৬ ১১তম
১৩ ওড়িশা ১.২০% ৫০৪৫৭০, চাকমা-৫, হাজং-১ ৬ষ্ঠ
১৪ সিক্কিম ১.১৪% ৬৯৮৬, চাকমা-২, হাজং-৫১ ৩০তম
১৫ মণিপুর ১.০৭% ৩০৬১১, চাকমা-৩১, হাজং-৭ ২৩তম
১৬ ছত্তীসগঢ় ০.৯৫% ২৪৩৫৯৭, চাকমা-৭, হাজং-৪ ৮ম
১৭ দাদরা ও নগর হাভেলি ০.৯১% ৩১১৬, চাকমা-৪ ৩৪তম
১৮ বিহার ০.৭৮% ৮১০৭৭১, চাকমা-১৮ ৫ম
১৯ চণ্ডীগড় ০.৫৯% ৬২৩৬, চাকমা-৫ ৩১তম
২০ গোয়া ০.৪৯% ৭০৯৯ ২৯তম
২১ লাদাখ ০.৪২% ১১৪৬ ৩৭তম
২২ মহারাষ্ট্র ০.৩৯% ৪৪২০৯০, চাকমা-৪৬, হাজং-৫ ৭ম
২৩ হরিয়ানা ০.২৮% ৭০৯৪৮, চাকমা-৭ ২১তম
২৪ লাক্ষাদ্বীপ ০.২২% ১৫০৯ ৩৫তম
২৫ জম্মু ও কাশ্মীর ০.১৫% ১৮৬৮৪, চাকমা-১২, হাজং-৪ ২৭তম
২৬ মধ্য প্রদেশ ০.১৫% ১০৯১৮৫, চাকমা-৬ ১৩তম
২৭ কর্ণাটক ০.১৪% ৮৭৯৬৩, চাকমা-৫২, হাজং-১ ১৭তম
২৮ গুজরাট ০.১৩% ৭৯৬৪৮, হাজং-৩ ১৯তম
২৯ উত্তর প্রদেশ ০.১২% ২৪১০০৭, চাকমা-১৮, হাজং-৮ ৯ম
৩০ রাজস্থান ০.১২% ৮১৬৫৮, চাকমা-৫৫, হাজং-১ ১৮তম
৩১ পুদুচ্চেরি ০.১২% ১৫০৯ ৩৫তম
৩২ তেলেঙ্গানা ০.১২% ৪৪১৪৫, চাকমা-৫, হাজং-১ ২২তম
৩৩ পাঞ্জাব ০.১০% ২৭০৩০, চাকমা-৩, হাজং-৫ ২৫তম
৩৪ কেরালা ০.০৯% ২৯০৬১ ২৪তম
৩৫ হিমাচল প্রদেশ ০.০৯% ৬২১৪, চাকমা-২, হাজং-৪ ৩২তম
৩৬ তামিলনাড়ু ০.০৩% ২২৯৬৯, চাকমা-৩৮ ২৬তম
৩৭ অন্ধ্রপ্রদেশ ০.০৩% ১৩৬৫৯, চাকমা-২ ২৮তম
ভারত ৮.০৩% ৯৭২৩৭৬৬৯, চাকমা-২২৮২৮১(০.০১৯%), হাজং-৭১৭৬৯(০.০০৬%) দ্বিতীয় প্রচলিত ভাষা

পশ্চিমবঙ্গ[সম্পাদনা]

পশ্চিমবঙ্গ পূর্ব ভারতে অবস্থিত একটি বাঙালি অধ্যুষিত রাজ্য, যার ৮৬.২২% লোক বাংলাভাষী৷ রাজ্যটির জেলা অনুযায়ী বাংলাভাষীর সংখ্যা নিম্নরূপ -

জেলাটির ফারাক্কা, সামশেরগঞ্জ, সুতি ১ ও ২, রঘুনাথগঞ্জ ১ ও ২, লালগোলা, সাগরদীঘি, ভগবানগোলা ১ ও ২, রাণীনগর ১ ও ২, জলঙ্গী, ডোমকল, জিয়াগঞ্জ-মুর্শিদাবাদ, নবগ্রাম, খড়গ্রাম, কান্দি, বহরমপুর, হরিহরপাড়া, নওদা, বেলডাঙ্গা ১ ও ২, ভরতপুর ১ ও ২ এবং বড়ঞা ব্লকে বাংলাভাষী সংখ্যাগরিষ্ঠ৷

জেলাটির পাঁশকুড়া, কোলাঘাট, তমলুক, শহীদ মাতঙ্গিনী, নন্দকুমার, মহিষাদল, ময়না, পটাশপুর ১ ও ২, ভগবানপুর ১ ও ২, চণ্ডীপুর, সুতাহাটা, হলদিয়া, নন্দীগ্রাম ১ ও ২, খেজুরি ১ ও ২, কাঁথি ১ ও ২, দেশপ্রাণ, এগরা ১ ও ২ এবং রামনগর ১ ও ২ ব্লকে বাংলাভাষী সংখ্যাগরিষ্ঠ৷

জেলাটির হলদিবাড়ি, মেখলিগঞ্জ, মাথাভাঙা ১ ও ২, কোচবিহার ১ ও ২, তুফানগঞ্জ ১ ও ২, দিনহাটা ১ ও ২, সিতাই এবং শীতলকুচি ব্লকে বাংলাভাষী সংখ্যাগরিষ্ঠ৷

জেলাটিতে করিমপুর ১ ও ২, তেহট্ট ১ ও ২, কালীগঞ্জ, নাকাশিপাড়া, চাপড়া, কৃৃষ্ণনগর ১ ও ২, নবদ্বীপ, কৃৃষ্ণগঞ্জ, হাঁসখালি, শান্তিপুর, রাণাঘাট ১ ও ২, চাকদহ এবং হরিণঘাটা ব্লকে বাংলাভাষী সংখ্যাগরিষ্ঠ৷

জেলাটির ঠাকুরপুকুর-মহেশতলা, বজবজ ১ ও ২, বিষ্ণুপুর ১ ও ২, সোনারপুর, ভাঙড় ১ ও ২, ক্যানিং ১ ও ২, বারুইপুর, মগরাহাট ১ ও ২, ফলতা, ডায়মন্ড হারবার ১ ও ২, কুলপি, মন্দিরবাজার, মথুরাপুর ১ ও ২, জয়নগর ১ ও ২, কুলতলি, বাসন্তি, গোসাবা, কাকদ্বীপ, সাগর, নামখানা এবং পাথরপ্রতিমা ব্লকে বাংলাভাষী সংখ্যাগরিষ্ঠ৷

জেলাটির আউশগ্রাম ১ ও ২, মঙ্গলকোট, কেতুগ্রাম ১ ও ২, কাটোয়া ১ ও ২, পূর্বস্থলী ১ ও ২, মন্তেশ্বর, ভাতার, গলসি ১ ও ২, বর্ধমান ১ ও ২, মেমারি ১ ও ২, কালনা ১ ও ২, জামালপুর, রাইনা ১ ও ২ এবং খণ্ডঘোষ ব্লকে বাংলাভাষী সংখ্যাগরিষ্ঠ৷

জেলাটির মুরারই ১ ও ২, নলহাটি ১ ও ২, রামপুরহাট ১ ও ২, ময়ূরেশ্বর ১ ও ২, মহম্মদবাজার, রাজনগর, সিউড়ি ১ ও ২, সাঁইথিয়া, লাভপুর, নানুর, বোলপুর-শান্তিনিকেতন, ইলামবাজার, দুবরাজপুর এবং খয়রাশোল ব্লকে বাংলাভাষী সংখ্যাগরিষ্ঠ৷

জেলাটির হরিশ্চন্দ্রপুর ১ ও ২, রতুয়া ১ ও ২, চাঁচল ১ ও ২, গাজোল, বামনগোলা, হবিবপুর, পুরানো মালদা, ইংরেজবাজার, মানিকচক এবং কালিয়াচক ১, ২ ও ৩ ব্লকে বাংলাভাষী সংখ্যাগরিষ্ঠ৷

জেলাটির শালতোড়া, মেজিয়া, গঙ্গাজলঘাটি, ছাতনা, ইন্দপুর, বাঁকুড়া ১ ও ২, বড়জোড়া, সোনামুখী, পাত্রসায়ের, ইন্দাস, কোতুলপুর, জয়পুর, বিষ্ণুপুর, ওন্দা, তালডাংরা, সিমলাপাল, খাতড়া, হিড়বাঁধ, রাণীবাঁধ, রাইপুর এবং সারেঙ্গা ব্লকে বাংলাভাষী সংখ্যাগরিষ্ঠ৷

জেলাটির বাগদা, বনগাঁ, গাইঘাটা, স্বরূপনগর, হাবরা ১ ও ২, আমডাঙা, বারাকপুর ১ ও ২, বারাসাত ১ ও ২, দেগঙ্গা, বাদুড়িয়া, বসিরহাট ১ ও ২, হাড়োয়া, রাজারহাট, মিনাখাঁ, সন্দেশখালি ১ ও ২, হাসনাবাদ এবং হিঙ্গলগঞ্জ ব্লকে বাংলাভাষী সংখ্যাগরিষ্ঠ৷

জেলাটির গোঘাট ১ ও ২, আরামবাগ, পুরশুড়া, তারকেশ্বর, ধনিয়াখালি, পাণ্ডুয়া, বলাগড়, চুঁচুড়া-মগরা, পোলবা-দাদপুর, হরিপাল, সিঙ্গুর, শ্রীরামপুর-উত্তরপাড়া, চণ্ডীতলা ১ ও ২, জাঙ্গিপাড়া এবং খানাকুল ১ ও ২ ব্লকে বাংলাভাষী সংখ্যাগরিষ্ঠ৷

জেলাটির গড়বেতা ১ ও ২, চন্দ্রকোণা ১ ও ২, দাসপুর ১ ও ২, কেশপুর, শালবনী, মেদিনীপুর , খড়গপুর ১ ও ২, ডেবরা, পিংলা, সবং, নারায়ণগড়, কেশিয়াড়ী, দাঁতন ১ ও ২ এবং মোহনপুর ব্লকে বাংলাভাষী সংখ্যাগরিষ্ঠ৷

জেলাটির উদয়নারায়ণপুর, আমতা ১ ও ২,জগৎবল্লভপুর, ডোমজুড়, বালি-জগাছা, সাঁকরাইল, পাঁচলা, উলুবেড়িয়া ১ ও ২, বাগনান ১ ও ২ এবং শ্যামপুর ১ ও ২ ব্লকে বাংলাভাষী সংখ্যাগরিষ্ঠ৷

জেলাটির কুশমণ্ডি, গঙ্গারামপুর, বংশিহারী, হরিরামপুর, তপন, কুমারগঞ্জ, হিলি এবং বালুরঘাট ব্লকে বাংলাভাষী সংখ্যাগরিষ্ঠ৷

জেলাটির জয়পুর, পুরুলিয়া ১ ও ২, পাড়া, রঘুনাথপুর ১ ও ২, নেতুড়িয়া, সাঁতুড়ি, কাশীপুর, হুড়া, পুঞ্চা, আড়ষা, ঝালদা ১ ও ২, বাঘমুণ্ডি, বলরামপুর, বড়বাজার, মানবাজার ১ ও ২ এবং বান্দোয়ান ব্লকে বাংলাভাষী সংখ্যাগরিষ্ঠ৷

জেলাটিতে বিনপুর ১ ও ২, ঝাড়গ্রাম, জামবনী, গোপীবল্লভপুর ১ ও ২, নয়াগ্রাম এবং সাঁকরাইল ব্লকে বাংলাভাষী সংখ্যাগরিষ্ঠ৷

জেলাটির রাজগঞ্জ, মাল, ধুপগুড়ি, ময়নাগুড়ি এবং জলপাইগুড়ি ব্লকে বাংলাভাষী সংখ্যাগরিষ্ঠ৷

জেলাটির করণদিঘি, গোয়ালপোখর ২, চোপড়া, রায়গঞ্জ, হেমতাবাদ, কালিয়াগঞ্জ এবং ইটাহার ব্লকে বাংলাভাষী সংখ্যাগরিষ্ঠ৷

জেলাটির সালানপুর, বরবানি, জামুরিয়া, রাণীগঞ্জ, অন্ডাল, পান্ডবেশ্বর, দুর্গাপুর এবং কাঁকসা ব্লকে বাংলাভাষী সংখ্যাগরিষ্ঠ৷

জেলাটির কুমারগ্রাম, আলিপুরদুয়ার ১ ও ২ এবং ফালাকাটা ব্লকে বাংলাভাষী সংখ্যাগরিষ্ঠ৷

জেলাটির মাটিগাড়া, নাকশালবাড়ি, খড়িবাড়ি এবং ফাঁসিদেওয়া ব্লকে বাংলাভাষী সংখ্যাগরিষ্ঠ৷ সমগ্র জেলাটি নেপালীভাষী সংখ্যাগরিষ্ঠ৷

জেলাটিতে মূলত নেপালী, লেপচা, ভুটিয়া ইত্যাদি ভাষাভাষীর লোক বসবাস করে৷ এখানে বাঙালির সংখ্যা অতিনগন্য ও কোনো ব্লকেই বাঙালি সংখ্যাগরিষ্ঠ নয়৷

ত্রিপুরা[সম্পাদনা]

ত্রিপুরা ভারতের একটি বাঙালি জাতি সংখ্যাগরিষ্ঠ রাজ্য৷ রাজ্যটির আদিনিবাসীরা মুলত ত্রিপুরি ভাষাগোষ্ঠীর অন্তর্ভুক্ত হলেও দেশভাগের সময় ভারতে আশ্রিত বৈধ শরণার্থী, যারা প্রধানত বাঙালী, তারা রাজ্যটিতে সংখ্যাগরিষ্ঠতা লাভ করে[২]৷ ২০১১ খ্রিষ্টাব্দের জনগণনা অনুযায়ী ত্রিপুরা রাজ্যটিতে ৬৫.৭৩ শতাংশ বাঙালী বাস করেন৷ রাজ্যটির জেলা অনুযায়ী বাংলাভাষীর সংখ্যা নিম্নরূপ -

জেলাটির কুমারঘাট পৌরসভা ও কৈলাসহর পৌরসভাসহ কুমারহাট, পেচারথল ও গৌরনগর ব্লকে বাংলাভাষী সংখ্যাগরিষ্ঠ৷

জেলাটির রাণীরবাজার পৌরসভা ও আগরতলা পৌরসভাসহ জিরানিয়া, ডুকলি ও মোহনপুর ব্লকে বাংলাভাষী সংখ্যাগরিষ্ঠ৷

জেলাটির বিশালগড় পৌরসভা ও সোনামুড়া পৌরসভাসহ বিশালগড়, মেলাঘর, বক্সনগর ও কাঁঠালিয়া ব্লকে বাংলাভাষী সংখ্যাগরিষ্ঠ৷

জেলাটির ধর্মনগর পৌরসভাসহ কদমতলা ও পানিসাগর ব্লকে বাংলাভাষী সংখ্যাগরিষ্ঠ৷

জেলাটির শান্তিরবাজার পৌরসভা, বেলোনিয়া পৌরসভা ও সাব্রুম পৌরসভাসহ বোকাফা, ঋষ্যমুখ, রাজনগর, সাতচাঁদ ব্লকে বাংলাভাষী সংখ্যাগরিষ্ঠ৷

জেলাটির উদয়পুর পৌরসভা ও অমরপুর পৌরসভাসহ মাতারবাড়ি ও কাঁকড়াবন ব্লকে বাংলাভাষী সংখ্যাগরিষ্ঠ৷

জেলাটির খোয়াই পৌরসভা ও তেলিয়ামুড়া পৌরসভাসহ খোয়াই, তেলিয়ামুড়া ও কল্যাণপুর ব্লকে বাংলাভাষী সংখ্যাগরিষ্ঠ৷

জেলাটির কমলপুর পৌরসভা ও আম্বাসা পৌরসভা সহ সালেমা ব্লকে বাংলাভাষী সংখ্যাগরিষ্ঠ৷ জেলাটি বাঙালী সংখ্যাগরিষ্ঠ হলেও একক সংখ্যাগরিষ্ঠ নয় এবং প্রায় সমসংখ্যক ত্রিপুরী ভাষাগোষ্ঠী সহাবস্থান করে৷

আসাম[সম্পাদনা]

আসাম ভারতের উত্তর-পূর্বে(ঈশান কোণ) অবস্থিত একটি রাজ্য৷ রাজ্যটির সর্বাধিক প্রচলিত ও সরকারী ভাষা অসমীয়া হলেও বাংলা দ্বিতীয় বৃৃহত্তম প্রচলিত ভাষা, যা ২৮.৯২ শতাংশ লোকের মাতৃৃভাষা৷ এটি আসামের দক্ষিণে অবস্থিত বরাক উপত্যকা বিভাগের দাপ্তরিক ভাষা৷ জেলা অনুযায়ী বাংলাভাষীর সংখ্যা নিম্নরূপ -

জেলাটির করিমগঞ্জ, বদরপুর, নিলামবাজার, পাথারকান্দিরামকৃষ্ণনগর ব্লকে বাংলাভাষী সংখ্যাগরিষ্ঠ৷

জেলাটির হাইলাকান্দি, আলগাপুর, লালাকাটলীছড়া ব্লকে বাংলাভাষী সংখ্যাগরিষ্ঠ৷

জেলাটির শিলচর, কাটিগোরা, উধারবন্দ, সোনাইলক্ষীপুর ব্লকে বাংলাভাষী সংখ্যাগরিষ্ঠ৷

জেলাটির বড়নগর(অংশ), কলগাছিয়া, বাগবোর, চেঙ্গা, বরপেটাসারথেবাড়ি ব্লকে বাংলাভাষী সংখ্যাগরিষ্ঠ৷

জেলাটির হোজাইলংকা ব্লকে বাংলাভাষী সংখ্যাগরিষ্ঠ৷

জেলাটির ডালগাঁও(অংশ) ব্লকে বাংলাভাষী সংখ্যাগরিষ্ঠ৷

জেলাটির সৃজনগ্রাম ও বিজনি(অংশ) ব্লকে বাংলাভাষী সংখ্যাগরিষ্ঠ৷

জেলাটির দক্ষিণ শালমারা ব্লকটি বাংলাভাষী সংখ্যাগরিষ্ঠ৷

জেলাটির বিজনি(অংশ) ও কোকড়াঝাড়(অংশ) ব্লকে বাংলাভাষী সংখ্যাগরিষ্ঠ৷

জেলাটির লক্ষীপুর ব্লকে বাংলাভাষী সংখ্যাগরিষ্ঠ৷

জেলাটির গোঁসাইগাঁও(অংশ) ব্লকে বাংলাভাষী সংখ্যাগরিষ্ঠ৷

জেলাটির ভওরাগুড়ি ও গোলকগঞ্জ(অংশ) ব্লকে বাংলাভাষী সংখ্যাগরিষ্ঠ৷

জেলাটির মায়ং ব্লকে বাংলাভাষী সংখ্যাগরিষ্ঠ৷

জেলাটির বড়নগর(অংশ) ও রঙ্গিয়া(অংশ) ব্লকে বাংলাভাষী সংখ্যাগরিষ্ঠ৷

জেলাটির ঢেকীয়াজুলি(অংশ) ব্লকে বাংলাভাষী সংখ্যাগরিষ্ঠ৷

জেলাটির গরইমারি, চামারিয়া ও নাগেরবেরা ব্লকে বাংলাভাষী সংখ্যাগরিষ্ঠ৷

জেলাটির ঢেকীয়াজুলি ব্লকে বাংলাভাষী সংখ্যাগরিষ্ঠ৷

আন্দামান ও নিকোবর দ্বীপপুঞ্জ[সম্পাদনা]

আন্দামান ও নিকোবর দ্বীপপুঞ্জ ভারতের পূর্বে বঙ্গোপসাগরে অবস্থিত একটি দ্বীপরাজ্য তথা কেন্দ্রশাসিত অঞ্চল৷ অঞ্চলটিতে সর্বাধিক প্রচলিত ভাষা বাংলা, যা ২৮.৪৯% লোকের মাতৃৃভাষা৷ সর্বাধিক প্রচলিত হলেও অন্যান্য অনেক ভাষাগোষ্ঠীর উপস্থিতি থাকায় বাংলা ভাষা এ অঞ্চলের একক সংখ্যাগরিষ্ঠতা লাভ করেনি, বরং হিন্দীইংরাজী এখানকার মর্যাদাপ্রাপ্ত সরকারী ভাষা৷ কেন্দ্রশাসিত অঞ্চলটির জেলা অনুযায়ী বাংলাভাষীর সংখ্যা নিম্নরূপ -

জেলাটির ডিগলিপুর, মায়াবন্দররঙ্গত ব্লকে বাংলাভাষী সংখ্যাগরিষ্ঠ৷

জেলাটির ফেরারগঞ্জ ব্লকে বাংলাভাষী সংখ্যাগরিষ্ঠ৷

মিজোরাম[সম্পাদনা]

মিজোরাম উত্তর পূর্ব ভারতের সাত ভগিনী রাজ্যের একটি৷ রাজ্যটির সর্বাধিক প্রচলিত ভাষা হলো মিজো ভাষা৷ রাজ্যটির জনসংখ্যার ৯.৮৩% বাঙালী হলেও তাদের মধ্যে সিংহভাগই চাকমা উপজাতিভুক্ত৷ মিজোরামে জেলা অনুযায়ী বাংলা ভাষাভাষীর সংখ্যা নিম্নরূপ -

জেলাটির চংতে ব্লকে বাংলাভাষী সংখ্যাগরিষ্ঠ যার অধিকাংশই চাকমা জনগোষ্ঠীর৷

জেলাটির পশ্চিম বুঙ্ঘমুন ও লুংসেন ব্লকে বাংলাভাষী সংখ্যাগরিষ্ঠ যার অধিকাংশই চাকমা জনগোষ্ঠীর৷

অধিকাংশ বাঙালি চাকমা জনগোষ্ঠীর৷

এছাড়া সেরছিপ জেলাচাম্ফাই জেলাতে বাংলাভাষী অতিনগণ্য৷

ঝাড়খণ্ড[সম্পাদনা]

ঝাড়খন্ড পূর্ব ভারতে অবস্থিত একটি রাজ্য৷ রাজ্যটি পশ্চিমবঙ্গের সাথে অন্তর্দেশীয়ভাবে সর্বাধিক সীমানা ভাগ করে৷ রাজ্যটি হিন্দীভাষী প্রধান হলেও স্থানীয় ভাষা যেমন সাদরি, কুরমালী, খোরঠা প্রভৃতি হিন্দীর উপজাতিক উপভাষা হিসাবে পরিগণিত হয়৷ স্বাধীনতা-পরবর্তী বাংলা-বিহার অমিমাংশিত ভুমিবণ্টনের দরুণ জন্মলগ্ন থেকেই ঝাড়খণ্ডের পূর্বাংশ বাঙালীবহুল৷[৩] রাজ্যটির ৯.৭৩% লোকের মাতৃভাষা বাংলা৷ জেলা অনুযায়ী বাংলা ভাষাভাষীর সংখ্যা নিম্নরূপ -

জেলাটির চাণ্ডিল, ইছাগড়, কুকড়ু, নিমডি, গমহারিয়াসরাইকেল্লা ব্লকে বাংলাভাষী সংখ্যাগরিষ্ঠ৷

জেলাটির পাকুড় ব্লকে বাংলাভাষী সংখ্যাগরিষ্ঠ৷

জেলাটির বোরাম, পতমদা, ঘাটশিলা, পোটকা, ধলভূমগড়, চাকুলিয়াবাহারাগোরা ব্লকে বাংলাভাষী সংখ্যাগরিষ্ঠ৷

জেলাটির নালা ও কুণ্ডহিত ব্লকে বাংলাভাষী সংখ্যাগরিষ্ঠ৷

জেলাটির পাথনা, উধুয়ারাজমহল ব্লকে বাংলাভাষী সংখ্যাগরিষ্ঠ৷

জেলাটির বালিয়াপুর ও নিরসা-চিরকুন্ডা ব্লকে বাংলাভাষী সংখ্যাগরিষ্ঠ৷

জেলাটির চন্দনকিয়ারী ব্লকে বাংলাভাষী সংখ্যাগরিষ্ঠ৷

এছাড়া খুঁটি জেলা, গিরিডি জেলা, হাজারিবাগ জেলা, কোডারমা জেলা, লোহারদাগা জেলা, সিমডেগা জেলা, গুমলা জেলা, পালামৌ জেলা, চাতরা জেলা, লাতেহার জেলাগাড়োয়া জেলাতে বাংলা ভাষাভাষী অতিনগণ্য৷

মেঘালয়[সম্পাদনা]

মেঘালয় উত্তর পূর্ব ভারতের সাত ভগিনী রাজ্যগুলির একটি৷ রাজ্যটি বহুভাষিক হলেও মুলত খাসি, গারোজয়ন্তিয়া (বা প্নার) ভাষাভাষীর লোক দেখতে পাওয়া যায়৷ রাজ্যটিতে ৭.৮৪% লোকের মাতৃভাষা বাংলা৷ জেলা অনুযায়ী বাংলা ভাষাভাষীর গণনা নিম্নরূপ -

জেলাটির সেলসেলা ব্লকে বাংলাভাষী সংখ্যাগরিষ্ঠ৷

এছাড়া পশ্চিম খাসি পাহাড় জেলাতে বাংলা ভাষাভাষী অতিনগণ্য৷

অরুণাচল প্রদেশ[সম্পাদনা]

অরুণাচল প্রদেশ উত্তর পূর্ব ভারতের সাত ভগিনী রাজ্যগুলির একটি৷ রাজ্যটি বহুভাষিক৷ রাজ্যটিতে ৭.২৭% লোকের মাতৃভাষা বাংলা হলেও তাদের মধ্যে সিংহভাগই চাকমা উপজাতিভুক্ত৷ জেলা অনুযায়ী বাংলা ভাষাভাষীর গণনা নিম্নরূপ -

জেলাটির মিয়াউ ও দিয়ুঁ ব্লকে বাংলাভাষী সংখ্যাগরিষ্ঠ৷

এছাড়া কামলে জেলা, ক্রা দাদি জেলাকুরুং কুমে জেলাতে বাংলা ভাষাভাষী অতিনগণ্য৷

নাগাল্যান্ড[সম্পাদনা]

নাগাল্যান্ড উত্তর পূর্ব ভারতের সাত ভগিনী রাজ্যগুলির একটি৷ এটি একটি জনজাতি অধ্যুষিত বহুভাষিক রাজ্য৷ রাজ্যটিতে ৩.৭৮% লোকের মাতৃভাষা বাংলা৷ জেলা অনুযায়ী বাংলা ভাষাভাষীর গণনা নিম্নরূপ -

জেলাটির নিহোখু ও ডিমাপুর সদর ব্লকে বাংলা ভাষাভাষী সংখ্যাগরিষ্ঠ৷

এছাড়া জুনহেবটো জেলানোকলাক জেলাতে বাংলা ভাষাভাষী অতিনগণ্য৷

দমন ও দিউ[সম্পাদনা]

দমন ও দিউ পশ্চিম ভারতে অবস্থিত একটি কেন্দ্রশাসিত অঞ্চল৷ এর সর্বাধিক প্রচলিত ভাষা গুজরাটি৷ রাজ্যটিতে ২.১৫% লোকের মাতৃভাষা বাংলা৷ জেলা অনুযায়ী বাংলা ভাষাভাষীর গণনা নিম্নরূপ -

এছাড়া দিউ জেলাতে বাংলা ভাষাভাষী অতিনগণ্য৷

উত্তরাখণ্ড[সম্পাদনা]

উত্তরাখণ্ড উত্তর ভারতে অবস্থিত হিমালয় পর্বতসঙ্কুল একটি রাজ্য৷ রাজ্যটির প্রচলিত দুটি প্রধান ভাষা হলো গাড়োয়ালি ভাষাকুমায়ুনী ভাষা এবং হিন্দী ভাষা রাজ্যটির সরকারী ও সংযোগী ভাষা৷ রাজ্যটিতে ১.৫০% লোকের মাতৃভাষা বাংলা৷ জেলা অনুযায়ী বাংলা ভাষাভাষীর গণনা নিম্নরূপ -

এছাড়া উত্তরকাশী জেলা, হরিদ্বার জেলা, চম্পাবত জেলা, তেহরি গাড়োয়াল জেলা, চামোলি জেলা, আলমোড়া জেলা, পিথোরাগড় জেলা, পৌড়ী গাড়োয়াল জেলা, রুদ্রপ্রয়াগ জেলা, বাগেশ্বর জেলাতে বাংলা ভাষাভাষী অতিনগণ্য৷

দিল্লী[সম্পাদনা]

(২০১১ তে দিল্লীর ৯ টি জেলার তথ্যের ওপর নির্ধারিত)

দিল্লী উত্তর ভারতে অবস্থিত ভারতীয় প্রজাতন্ত্রের জাতীয় রাজধানী অঞ্চল। এটির প্রধান ও সরকারী ভাষা হিন্দী ও সহ সরকারী ভাষা ইংরাজী৷ জাতীয় রাজধানী অঞ্চলে ১.২৯% লোকের মাতৃভাষা বাংলা৷ জেলা অনুযায়ী বাংলা ভাষাভাষীর গণনা নিম্নরূপ -

  • ১) দক্ষিণ দিল্লী জেলা - ৬৭৯০৫(২.৪৯%)
  • ২) নতুন দিল্লী জেলা - ৩৩০৭(২.৩৩%)
  • ৩) পূর্ব দিল্লী জেলা - ২৯৭০৬(১.৭৪%)
  • ৪) দক্ষিণ পশ্চিম দিল্লী জেলা - ৩৯১৪২(১.৭১%)
  • ৫) কেন্দ্রীয় দিল্লী জেলা - ৭৪১০(১.২৭%)
  • ৬) উত্তর পশ্চিম দিল্লী জেলা - ৩২৩৫৩(০.৮৯%)
  • ৭) উত্তর পূর্ব দিল্লী জেলা - ১৫২২৪(০.৬৮%)
  • ৮) পশ্চিম দিল্লী জেলা - ১৬৬৭৫(০.৬৬%)
  • ৯) উত্তর দিল্লী জেলা - ৪২৩৮(০.৪৮%)

ওড়িশা[সম্পাদনা]

ওড়িশা বা উড়িষ্যা পূর্ব ভারতে অবস্থিত একটি রাজ্য৷ রাজ্যটির মুখ্য ও সরকারী ভাষা ওড়িয়া৷ রাজ্যটিতে ১.২০% লোকের মাতৃভাষা বাংলা৷ জেলা অনুযায়ী বাংলা ভাষাভাষীর সংখ্যা নিম্নরূপ -

জেলাটির কালিমেলা ব্লকে বাংলা ভাষাভাষী সংখ্যাগরিষ্ঠ৷

এছাড়া কোরাপুট জেলা, যাজপুর জেলা, পুরী জেলা, অনুগুল জেলা, রায়গড়া জেলা, ঢেঙ্কানাল জেলা, বারগড় জেলা, গঞ্জাম জেলা, বলাঙ্গির জেলা, কালাহান্ডি জেলা, দেবগড় জেলা, নূয়াপড়া জেলা, কন্ধমাল জেলা, বৌধ জেলা, নয়াগড় জেলা, গজপতি জেলা, সুবর্ণপুর জেলাতে বাংলা ভাষাভাষী অতিনগণ্য৷

সিকিম[সম্পাদনা]

সিকিম উত্তর পূর্ব ভারতে অবস্থিত হিমালয় পর্বতসংকুল একটি রাজ্য৷ রাজ্যটি প্রধান ভাষা নেপালী হলেও একাধিক পাহাড়ি জনজাতির বাস সিকিম৷ রাজ্যটিতে ১.১৪% লোকের মাতৃভাষা বাংলা৷ জেলা অনুযায়ী বাংলা ভাষাভাষীর সংখ্যা নিম্নরূপ -

এছাড়া পশ্চিম সিকিম জেলাতে বাংলা ভাষাভাষীর সংখ্যা অতিনগণ্য৷

মণিপুর[সম্পাদনা]

মণিপুর উত্তর পূর্ব ভারতের সাত ভগিনী রাজ্যগুলির একটি৷ এটি একটি মণিপুরী জনগোষ্ঠী অধ্যুষিত রাজ্য হলেও একাধিক অন্যান্য ভাষাভাষীর বাস এই জেলাতে৷ রাজ্যটিতে ১.০৭% লোকের মাতৃভাষা বাংলা৷ জেলা অনুযায়ী বাংলা ভাষাভাষীর গণনা নিম্নরূপ -

এই জেলার জিরিবাম ব্লকে বাংলাভাষী সংখ্যাগরিষ্ঠ৷

এছাড়া তেংনৌপাল জেলা, চূড়াচাঁদপুর জেলা, বিষ্ণুপুর জেলা, ইম্ফল পূর্ব জেলা, চান্দেল জেলা, উখরুল জেলা, কাংপোকপি জেলা, নোনি জেলা, কামজং জেলা, তামেংলং জেলা, সেনাপতি জেলাথৌবাল জেলাতে বাংলা ভাষাভাষীর সংখ্যা অতিনগণ্য৷

ছত্তীসগঢ়[সম্পাদনা]

ছত্তীসগঢ় মধ্যভারতে অবস্থিত একটি রাজ্য৷ রাজ্যটির প্রধান ভাষা ছত্তীসগঢ়ী, তাছাড়া সরগুজিয়াগোণ্ডি ভাষাও প্রচলিত এবং দাপ্তরিক ভাষা হিন্দী৷ রাজ্যটিতে ০.৯৫% লোকের মাতৃভাষা বাংলা৷ জেলা অনুযায়ী বাংলা ভাষাভাষীর সংখ্যা নিম্নরূপ -

জেলাটির পখাঞ্জুর ব্লকে বাংলা ভাষাভাষী সংখ্যাগরিষ্ঠ৷

এছাড়া বিজাপুর জেলা, বালোদ জেলা, রাজনন্দগাঁও জেলা, জাঞ্জগীর চাম্পা জেলা, জশপুর জেলা, মহাসমুন্দ জেলা, ধামতরি জেলা, বালোদা বাজার জেলা, গরিয়াবন্দ জেলা, কবীরধাম জেলা, বেমেতারা জেলা, মুঙ্গেলি জেলাতে বাংলা ভাষাভাষী অতিনগণ্য৷

দাদরা ও নগর হাভেলি[সম্পাদনা]

দাদরা ও নগর হাভেলি পশ্চিম ভারতে অবস্থিত একটি কেন্দ্রশাসিত অঞ্চল৷ ভিলি ভাষা এই অঞ্চলের সর্বাধিক প্রচলিত হলেও সরকারীভাবে হিন্দীগুজরাটী ভাষাও মান্যতাপ্রাপ্ত৷ অঞ্চলটিতে ০.৯১% লোকের মাতৃৃভাষা বাংলা৷

বিহার[সম্পাদনা]

বিহার পূর্ব ভারতে অবস্থিত একটি রাজ্য৷ রাজ্যটি একাধিক বৃৃহৎ ভাষার সমন্বয়ে গঠিত, তারমধ্যে মৈথিলী ভাষা, সুরজাপুরী ভাষা, ভোজপুরি ভাষা, মাগধী ভাষা, অঙ্গিকা ভাষা ইত্যাদি উল্লেখ্য৷ মৈথিলীরহিত অন্যান্য ভাষাগুলি হিন্দুস্তানী ভাষার অন্তর্ভুক্ত করে রাজ্যটির সরকারী ভাষা হিসাবে হিন্দী কে প্রতিষ্ঠিত করা হয়৷ রাজ্যটির ০.৭৮% লোকের মাতৃৃভাষা বাংলা৷ জেলা অনুযায়ী বাংলা ভাষাভাষীর গণনা নিম্নরূপ -

জেলাটির আমদাবাদ ব্লকে বাংলা ভাষাভাষী সংখ্যাগরিষ্ঠ৷

এছাড়া পূর্ব চম্পারণ জেলা, শিউহর জেলা, সীতামঢ়ী জেলা, মধুবনী জেলা, মাধেপুরা জেলা, সহর্সা জেলা, দ্বারভাঙা জেলা, মজঃফরপুর জেলা, গোপালগঞ্জ জেলা, সিওয়ান জেলা, সরন জেলা, বৈশালী জেলা, সমস্তিপুর জেলা, বেগুসরাই জেলা, খগড়িয়া জেলা, ভাগলপুর জেলা, বাঁকা জেলা, মুঙ্গের জেলা, লক্ষ্মীসরাই জেলা, শেখপুরা জেলা, নালন্দা জেলা, পাটনা জেলা, ভোজপুর জেলা, বক্সার জেলা, কাইমুর জেলা, রোহতাস জেলা, ঔরঙ্গাবাদ জেলা, গয়া জেলা, নওয়াদা জেলা, জামুই জেলা, জেহানাবাদ জেলা, আরোয়াল জেলাতে বাংলা ভাষাভাষীর সংখ্যা অতিনগণ্য৷

চণ্ডীগড়[সম্পাদনা]

চণ্ডীগড় উত্তর ভারতের পাঞ্জাবহরিয়ানার মধ্যবর্তী একটি বিশেষ অঞ্চল ও কেন্দ্রশাসিত অঞ্চল৷ অঞ্চলটির সরকারী ভাষা ইংরাজী৷ হিন্দী এখানকার সর্বাধিক প্রচলিত ভাষা ও পাঞ্জাবি ভাষা দ্বিতীয়৷ অঞ্চলটির ০.৫৯% লোকের মাতৃভাষা বাংলা৷

গোয়া[সম্পাদনা]

গোয়া ভারতের পশ্চিমে অবস্থিত একটি ছোট রাজ্য৷ রাজ্যটির সর্বাধিক প্রচলিত ও সরকারী ভাষাটি হলো কোঙ্কণী৷ রাজ্যটিতে ০.৪৯% লোকের মাতৃৃভাষা বাংলা৷ জেলা অনুযায়ী বাংলা ভাষাভাষীর সংখ্যা নিম্নরূপ -

এছাড়া উত্তর গোয়া জেলাতে বাংলাভাষীর সংখ্যা তুলনামুলকভাবে কম৷

অন্যান্য[সম্পাদনা]

২০০১[সম্পাদনা]

এই তালিকায় কেবলমাত্র সেই রাজ্য বা কেন্দ্রশাসিত অঞ্চলের নাম দেওয়া হয়েছে যেখানকার জনসংখ্যার কমপক্ষে ১% মানুষ বাংলা-ভাষী।[৪]

রাজ্য / কেন্দ্রশাসিত অঞ্চল বাংলা-ভাষী জনসংখ্যার শতকরা হার জনসংখ্যা
পশ্চিমবঙ্গ ৮৫.৩৪% ৬,৮৩,৬৯,২৫৫
ত্রিপুরা ৬৭.৩৫% ২১,৪৭,৯৯৪
অসম ২৭.৯১% ৭৩,৪৩,৩৩৮
আন্দামান ও নিকোবর দ্বীপপুঞ্জ ২৫.৯৫% ৯১,৫৮২
ঝাড়খণ্ড ৯.৬৯% ২৬,০৭,৬০১
অরুণাচল প্রদেশ ৯.৪% ৯৭,১৪৯
মিজোরাম ৯.১৮% ৮০,৩৮৯
মেঘালয় ৮.০৪% ৯৭,৩৭৮
নাগাল্যান্ড ৩.২৬% ৫৮,৮৯০
দিল্লি ১.৫১% ২,০৮,৪১৪
উত্তরাখণ্ড ১.৪৫% ১,২৩,১৯০
ওড়িশা ১.৩৪% ৪,৯০,৮৫৭
মণিপুর ১.৩% ২৭,১০০
সিক্কিম ১.১৮% ৬,৩২০
দমন ও দিউ ১.১৬% ১,৮১০
ছত্তীসগঢ় ১% ২,০৮,৬৬৯
জম্মু ও কাশ্মীর ১৪,৪১৬
হিমাচল প্রদেশ ৪,৭৭২
পাঞ্জাব ২০,৬৫৫
চণ্ডীগড় ৫,৪৯১
হরিয়ানা ৩৯,১৯৯
রাজস্থান ৫৪,১৭২
উত্তরপ্রদেশ ১,৮১,৬৩৪
বিহার ৪,৪৩,৪২৬
মধ্যপ্রদেশ ১,০৫,৩৯৯
গুজরাট ৪০,৭৮০
দাদরা ও নগর হাভেলি ১,৩৮২
মহারাষ্ট্র ৩,১০,১৩৭
অন্ধ্রপ্রদেশ ৪১,২৯৩
কর্ণাটক ৪১,২৫৬
গোয়া ৪,১১১
লক্ষদ্বীপ ২৪
কেরল ৩,৩৮৭
তামিলনাড়ু ৮,৮০৫
পুদুচেরি ১,১৮০
ভারত ৮.২% ৮,৩৩,৬৯,৭৬৯

পাদটীকা[সম্পাদনা]