বাংলাদেশ ক্রিকেট বোর্ড

উইকিপিডিয়া, মুক্ত বিশ্বকোষ থেকে
সরাসরি যাও: পরিভ্রমণ, অনুসন্ধান
বাংলাদেশ ক্রিকেট বোর্ড
বিসিবি
বাংলাদেশ ক্রিকেট বোর্ডের লোগো.svg
ক্রীড়া ক্রিকেট
প্রতিষ্ঠাকাল ১৯৭২
অনুমোদন আন্তর্জাতিক ক্রিকেট কাউন্সিল
অনুমোদন তারিখ ২৬ জুন ২০০০, পূর্ণ সদস্য
আঞ্চলিক অনুমোদন এশিয়ান ক্রিকেট কাউন্সিল
অনুমোদিত বছর ১৯৮৩, পূর্ণ সদস্য
সদর দফতর ঢাকা, বাংলাদেশ
সভাপতি নাজমুল হাসান, এফসিএ, সংসদ সদস্য
সহ সভাপতি আ জ ম নাছির উদ্দিন
কোচ চণ্ডিকা হাথুরুসিংহা
সম্প্রচারস্বত্ত্ব জিটিভি
অফিসিয়াল ওয়েবসাইট
www.tigercricket.com.bd
বাংলাদেশ

বাংলাদেশ ক্রিকেট বোর্ড (বিসিবি) বাংলাদেশের ক্রিকেটের সর্বোচ্চ ক্রীড়া নিয়ন্ত্রক সংস্থা।[১] বিসিবি মূলত ১৯৭২ সালে প্রতিষ্ঠিত হয়। ঢাকায় এর প্রধান সদর দফতর। বাংলাদেশের ক্রিকেটের মানোন্নয়ন, মাঠ পরিচালনা, খেলার মাঠ নির্ধারণ, দলের সফর, দল পরিচালনা ও ক্রিকেট খেলার মানোন্নয়ন বৃদ্ধি ঘটানোসহ জাতীয় দল নির্বাচনে প্রধান ভূমিকা রাখছে এ সংস্থাটি। এছাড়াও, দলের পৃষ্ঠপোষকতার বিষয়েও বোর্ড দায়বদ্ধ। বর্তমানে বিসিবি’র সভাপতি হিসেবে দায়িত্ব পালন করছেন নাজমুল হাসান। বর্তমানে দলীয় পোশাক সরবরাহের দায়িত্বে রয়েছে রবি

ইতিহাস[সম্পাদনা]

১৯৭২ সালে প্রতিষ্ঠিত এ সংস্থাটি বাংলাদেশ ক্রিকেট কন্ট্রোল বোর্ড নামে পরিচিত ছিল।[২] ১৯৭৬ সালে সংস্থার খসড়া গঠনতন্ত্র প্রণয়ন করা হয়।[৩] জানুয়ারি, ২০০৭ সালে বোর্ড কর্তৃপক্ষ ‘কন্ট্রোল’ শব্দটি বিলুপ্ত করে।[৪] বাংলাদেশ সরকার বিসিবি’র সভাপতি নিয়োগ করে থাকেন।[৫]

কার্যাবলী[সম্পাদনা]

২০০৩ সাল থেকে টেলিযোগাযোগ কোম্পানি গ্রামীণফোন কর্তৃপক্ষ পুরুষ ও মহিলাদের জাতীয় ক্রিকেট দলের পৃষ্ঠপোষক হিসেবে কাজ করছে। তারা ২০০৭ থেকে ২০১১ সালের মধ্যে ৳১৫১.৫ মিলিয়ন টাকা বাংলাদেশের ক্রিকেট খেলার মানোন্নয়নে বিনিয়োগ করে।[৬]

২০০৬ সালে বিসিবি কর্তৃপক্ষ কিশোর ও অনভিজ্ঞতাসম্পন্ন খেলোয়াড়দের জন্য একটি একাডেমি প্রতিষ্ঠা করে।[৭] জাতীয় দলের খেলোয়াড়দেরকে উৎসাহিত করার জন্য কেন্দ্রীয়ভাবে চুক্তিবদ্ধ করা হয় ও ম্যাচ ফি প্রদান করা হয়। ২০০৫ সালে প্রতি টেস্টে মাথাপিছু $১,০০০ মার্কিন ডলার ও একদিনের আন্তর্জাতিক খেলায় অংশগ্রহণের জন্য $৫০০ মার্কিন ডলার প্রদান করে।[৮]

আইসিসি বিশ্ব টুয়েন্টি২০[সম্পাদনা]

২০১৪ সালে আইসিসি বিশ্ব টুয়েন্টি২০ ক্রিকেট প্রতিযোগিতা আয়োজনে বাংলাদেশ স্বাগতিক দেশের মর্যাদা পায়।[৯] উল্লেখ্য যে, ২০১১ সালে ভারতশ্রীলঙ্কার পাশাপাশি বাংলাদেশও বিশ্বকাপ ক্রিকেট প্রতিযোগিতায় যৌথভাবে স্বাগতিক দেশ মনোনীত হয়েছিল এবং সফলভাবে খেলা পরিচালনা করে।

মাঠসমূহ[সম্পাদনা]

ওডিআই এবং টেস্ট
  1. শের-ই-বাংলা ক্রিকেট স্টেডিয়াম, মিরপুর, ঢাকা
  2. জহুর আহমেদ চৌধুরী স্টেডিয়াম, চট্টগ্রাম
  3. এম এ আজিজ স্টেডিয়াম, চট্টগ্রাম
  4. শহীদ চান্দু স্টেডিয়াম, বগুড়া
  5. খান সাহেব ওসমান আলী স্টেডিয়াম, ফতুল্লা, নারায়ণগঞ্জ
  6. শেখ আবু নাসের স্টেডিয়াম, খুলনা
সাবেক মাঠসমূহ
  1. বঙ্গবন্ধু জাতীয় স্টেডিয়াম, মতিঝিল, ঢাকা
  2. খায়রুল আলম রাফি স্টেডিয়াম, ঢাকা

তথ্যসূত্র[সম্পাদনা]

  1. Bangladesh Cricket Team। Bangladesh Cricket। 
  2. About BCB। Bangladesh Cricket Board। সংগৃহীত ১১ মার্চ ২০১১ 
  3. "Bangladesh cricket at the crossroad"The Independent। ১২ নভেম্বর ২০১০। সংগৃহীত ১১ মার্চ ২০১১ 
  4. Board's name amended by government notification। Cricinfo। ১৩ জানুয়ারি ২০০৭। সংগৃহীত ১১ মার্চ ২০১১ 
  5. Samiuddin, Osman (৩০ জুন ২০১১)। ICC gives boards two years to fall in line। Cricinfo। সংগৃহীত ৮ জুলাই ২০১১ 
  6. GP Official Sponsors of Bangladesh National Men & Womens Cricket Teams। Grameenphone। ১৭ ডিসেম্বর ২০০৯। সংগৃহীত ২২ আগস্ট ২০১১ 
  7. Bangladesh to set up academy। ৪ এপ্রিল ২০০৬। সংগৃহীত ২২ সেপ্টেম্বর ২০১১ 
  8. BCB announce 'perform and earn more' payroll। Cricinfo। ২০ অক্টোবর ২০০৫। সংগৃহীত ২২ সেপ্টেম্বর ২০১১ 
  9. Bangladesh To Host World Twenty20 2015 Cricinfo

বহিঃসংযোগ[সম্পাদনা]