আ হ ম মোস্তফা কামাল

উইকিপিডিয়া, মুক্ত বিশ্বকোষ থেকে
পরিভ্রমণে ঝাঁপ দিন অনুসন্ধানে ঝাঁপ দিন
মোস্তফা কামাল
বাংলাদেশের অর্থমন্ত্রী
দায়িত্বাধীন
অধিকৃত কার্যালয়
জানুয়ারি ২০১৮
পূর্বসূরীআবুল মাল আবদুল মুহিত
আন্তর্জাতিক ক্রিকেট কাউন্সিলের সভাপতি
কাজের মেয়াদ
২০১৪ – ২০১৫
পূর্বসূরীঅ্যালান আইজ্যাক
উত্তরসূরীজহির আব্বাস
জাতীয় সংসদ সদস্য, কুমিল্লা-১০
দায়িত্বাধীন
অধিকৃত কার্যালয়
২০১৪
ব্যক্তিগত বিবরণ
জন্ম (1947-06-15) ১৫ জুন ১৯৪৭ (বয়স ৭২)
জাতীয়তাবাংলাদেশী
রাজনৈতিক দলবাংলাদেশ আওয়ামী লীগ

আ হ ম মোস্তফা কামাল (জন্ম: ১৫ জুন, ১৯৪৭) বাংলাদেশের প্রখ্যাত রাজনীতিবিদক্রিকেট সংগঠক। তিনি বাংলাদেশের জাতীয় সংসদে কুমিল্লা-১০ সংসদীয় আসন থেকে বাংলাদেশ আওয়ামী লীগের নির্বাচিত সংসদ সদস্য। পূর্বে তিনি গণপ্রজাতন্ত্রী বাংলাদেশ সরকারের পরিকল্পনা মন্ত্রী হিসেবে নিযুক্ত ছিলেন। এছাড়াও মোস্তফা কামাল ২০১৪-১৫ মেয়াদে আইসিসি’র সভাপতির দায়িত্ব পালন করেন। তিনি বর্তমানে বাংলাদেশের অর্থমন্ত্রী হিসেবে দায়িত্ব পালন করছেন। সংবিধান অনুযায়ী দশম জাতীয় সংসদের স্পিকার ড. শিরীন শারমিন চৌধুরীর কাছে ৩ জানুয়ারী ২০১৯ তারিখে একাদশ সংসদের সংসদ সদস্য হিসেবে তিনি শপথবাক্য পাঠ করেন।[১]

শিক্ষাজীবন[সম্পাদনা]

লোটাস কামাল দত্তপুর প্রাথমিক বিদ্যালয় থেকে প্রাথমিক শিক্ষা, ১৯৬২ সালে বাগমারা উচ্চ বিদ্যালয় থেকে এসএসসি, পরে কুমিল্লা ভিক্টোরিয়া সরকারি কলেজ থেকে এইচএসসি, ১৯৬৪-১৯৬৭ সালে চট্টগ্রাম সরকারি কমার্স কলেজ থেকে বিকম (অনার্স) ডিগ্রি লাভ করেন। ১৯৬৭-৬৮ শিক্ষাবর্ষে তিনি ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় থেকে একাউন্টেন্সি ও আইন বিভাগে স্নাতকোত্তর ডিগ্রি লাভ করেন এবং ১৯৭০ সালে তদানীন্তন পুরো পাকিস্তানে চার্টার্ড একাউনটেন্সি(সিএ) পরীক্ষায় মেধা তালিকায় সম্মিলিতভাবে প্রথম স্থান অর্জন করেন।[২]

কর্মজীবন[সম্পাদনা]

পেশায় চার্টার্ড একাউন্ট্যান্ট মোস্তফা কামাল এ পর্যন্ত তিনবার এমপি হিসেবে জাতীয় সংসদে প্রতিনিধিত্ব করেছেন। ২০১৮ সালে চতুর্থ মেয়াদে বাংলাদেশের জাতীয় সংসদের সদস্যরূপে কুমিল্লা-১০ সংসদীয় আসন থেকে নির্বাচিত হন তিনি। বাংলাদেশ আওয়ামী লীগের কুমিল্লা জেলা (দক্ষিণ)-এর সভাপতির দায়িত্বে রয়েছেন। এছাড়াও, তিনি বাংলাদেশ আওয়ামী লীগের অর্থ ও পরিকল্পনা সচিব পদে আসীন।[৩][৪] বর্তমানে তিনি গণপ্রজাতন্ত্রী বাংলাদেশ সরকারের অর্থ মন্ত্রণালয়ের মন্ত্রী হিসেবে রয়েছেন। ২০১৪ সালের জানুয়ারি থেকে সরকারের পরিকল্পনা মন্ত্রণালয়ের মন্ত্রীর সঙ্গে দায়িত্ব পালন করেন। এরপূর্বে ২০০৯ থেকে ২০১৩ পর্যন্ত অর্থ মন্ত্রণালয়ের সংসদীয় স্থায়ী কমিটির সভাপতির দায়িত্ব পালন করছেন তিনি।[৫]

ক্রিকেট প্রশাসন[সম্পাদনা]

গত ত্রিশ বছর ধরে ক্রিকেটের সাথে সম্পৃক্ত থেকে এর উন্নয়নে বিভিন্ন দায়িত্বে অংশ নিয়েছেন। ১৯৯০-এর দশকে লোটাস কামাল পেস বোলিং ক্রিকেট একাডেমী প্রতিষ্ঠা করেন। ১৯৯১ থেকে ২০০৭ সাল পর্যন্ত বাংলাদেশের প্রথিতযশা ক্রিকেট ক্লাব আবাহনী লিমিটেডের সাবেক পরিচালক মোস্তফা কামাল ১৯৯১ থেকে ২০০৬ সাল পর্যন্ত ক্লাবগুলোর ক্রিকেট কমিটির সভাপতি ছিলেন। বাংলাদেশের টেস্ট ক্রিকেটে অংশগ্রহণের পূর্বকালীন সময়ে ঢাকা প্রিমিয়ার ডিভিশন ক্রিকেট লীগে আন্তর্জাতিক ক্রিকেট খেলোয়াড় অন্তর্ভুক্তিতে নেতৃত্ব দেন তিনি। ২০১২-১৩ মৌসুমে ঘরোয়া প্রথম-শ্রেণীর ক্রিকেটে সকল খেলোয়াড়কে বিসিবি’র কেন্দ্রীয় চুক্তির আওতায় নিয়ে আসেন।

আইসিসি সভাপতি[সম্পাদনা]

আইসিসি’র সহ-সভাপতির দায়িত্ব পালনের পূর্বে তিনি সেপ্টেম্বর, ২০০৯ থেকে অক্টোবর, ২০১৩ সাল পর্যন্ত বাংলাদেশ ক্রিকেট বোর্ডের সভাপতি হিসেবে দায়িত্ব পালন করেন।[৬] এ দায়িত্ব পালনকালে ২০১২ - ২০১৪ মেয়াদে আন্তর্জাতিক ক্রিকেট কাউন্সিলের সহ-সভাপতি হিসেবে মনোনীত হন। আইসিসি’র অডিট কমিটির সভাপতির দায়িত্ব পালন করেন। ২০১০ থেকে ২০১২ মেয়াদকালে এশিয়ান ক্রিকেট কাউন্সিল (এসিসি)’র সভাপতি ছিলেন তিনি।[৭] ২৬ মে, ২০১৪ তারিখে আইসিসি’র ১১শ সভাপতি হিসেবে নির্বাচিত হয়েছেন তিনি। বিদায়ী সভাপতি নিউজিল্যান্ডের অ্যালান আইজ্যাকের স্থলাভিষিক্ত হন মোস্তফা কামাল।[৮][৯]

২০১৫ সালের ক্রিকেট বিশ্বকাপে বাংলাদেশ-ভারতের মধ্যকার দ্বিতীয় কোয়ার্টার ফাইনালে আম্পায়ারিংয়ের মানের বিষয়ে তিনি সংক্ষুদ্ধ হন ও সভাপতির পদ থেকে পদত্যাগের হুমকি দেন।[১০][১১][১২] এরপর বাংলাদেশের প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা বলেছেন যে, ভারতীয় দল খেলায় জয়লাভ করেছে কেননা আম্পায়ারিংয়ে ত্রুটি ছিল।[১৩] এর পরপরই আইসিসি কর্তৃপক্ষ দ্রুত সংবাদ সম্মেলনের আয়োজন করে এবং মোস্তফা কামালের মন্তব্যটি ভিত্তিহীন বলে জানায় ও ব্যক্তিগত আবেগ-অনুভূতির বহিঃপ্রকাশ হিসেবে মন্তব্য করে। আইসিসি’র প্রধান নির্বাহী ডেভ রিচার্ডসন মনে করেন যে, অভিযোগটি ভিত্তিহীন ও আম্পায়ারদের ভুলের বিষয়টি অপ্রত্যাশিত ঘটনা।[১৪] ৫০% - ৫০% অনুপাতে থাকায় আম্পায়ারের সিদ্ধান্তই চূড়ান্ত হিসেবে বিবেচিত হয়।[১৪][১৫]

এরপর এপ্রিল ১, ২০১৫ তারিখে সভাপতির পদ থেকে পদত্যাগ করেন তিনি৷ ২০১৫ সালের শুরুতে আইসিসির নিয়ম-কানুনের অপব্যবহারের বিষয়ের কারণেই পদত্যাগের ঘটনাটি ঘটেছে বলে ধারণা করা হয়। এছাড়াও, বৈশ্বিক প্রতিযোগিতা হিসেবে বিশ্বকাপ ট্রফি হস্তান্তরে সভাপতিকে এড়িয়ে যাওয়ার ফলেই তিনি এর প্রতিবাদস্বরূপ পদত্যাগ করেছেন।[১৬] তাঁর পরিবর্তে বর্তমান সভাপতি হিসেবে দায়িত্ব পালন করছেন পাকিস্তানের সাবেক জনপ্রিয় ব্যাটিং তারকা জহির আব্বাস। তাঁকে ২৫ জুন, ২০১৫ তারিখে এ পদে মনোনয়ন দেয়া হয়।[১৭][১৮]

তথ্যসূত্র[সম্পাদনা]

  1. "শপথ নিলেন নবনির্বাচিত সংসদ সদস্যরা"www.prothomalo.com। সংগ্রহের তারিখ ৩ জানুয়ারি ২০১৯ 
  2. "সিএ পরীক্ষায় মেধা তালিকায় প্রথম স্থান অর্জন করেন লোটাস কামাল"www.bangladeshtoday.net। সংগ্রহের তারিখ ২০১৯-০১-০৭ 
  3. "Constituency 258"। Bangladesh Parliament। ২ জুন ২০১২ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ৩০ অক্টোবর ২০১২ 
  4. "Mustafa Kamal"। Bangladesh Cricket Board। ৯ অক্টোবর ২০১২। ১১ অক্টোবর ২০১২ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ২৬ জুন ২০১৪ 
  5. "চার্টার্ড একাউন্টেন্সি পরীক্ষায় প্রথমস্থান অর্জন করেছিলেন আ হ ম মুস্তফা কামাল"। ২০১৯-০১-০৯। সংগ্রহের তারিখ ২০১৯-০১-০৯ 
  6. "Mustafa Kamal to be ICC Vice-President for 2012-14"Wisden India। FW Sports and Media India Private Limited। ৯ অক্টোবর ২০১২। ১৮ ডিসেম্বর ২০১৪ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ২৬ জুন ২০১৪ 
  7. "Presidents of the Asian Cricket Council"। Asian Cricket Council। সংগ্রহের তারিখ ৩০ অক্টোবর ২০১২ 
  8. "Mustafa Kamal's nomination as ICC Vice-President 2012-14 accepted"। International Cricket Council। ৯ অক্টোবর ২০১২। 
  9. "Mustafa Kamal to be ICC Vice-President for 2012-14"The Times of India। ৯ অক্টোবর ২০১২। 
  10. "Bangladeshi ICC prez threatens to quit over Rohit 'no-ball'"Hindustan Times। সংগ্রহের তারিখ ২০ মার্চ ২০১৫ 
  11. "ICC president claims QF was 'fixed'"sport24। সংগ্রহের তারিখ ২০ মার্চ ২০১৫ 
  12. "World Cup: ICC President threatens to quit alleging foul play in India-Bangladesh QF"IBN Live। IBN। সংগ্রহের তারিখ ২১ মার্চ ২০১৫ 
  13. "Sheikh Hasina says India won against Bangladesh in World Cup QF due to 'umpiring errors'"Hindustan Times। সংগ্রহের তারিখ ২২ মার্চ ২০১৫ 
  14. "ICC Boss Slams Bangladesh President Mustafa Kamal For Fixing Accusations On Umpires"The Huffington Post। সংগ্রহের তারিখ ২১ মার্চ ২০১৫ 
  15. "ICC disappointed with Kamal comments; says no-ball was a 50/50 call"। Cricbuzz। ২০ মার্চ ২০১৫। সংগ্রহের তারিখ ২২ মার্চ ২০১৫ 
  16. Cricket World Cup: AHM Mustafa Kamal quits ICC after butting heads with N Srinivasan over trophy snub, foxsports, 1 May 2015.
  17. "Pakistan legend Zaheer Abbas takes over as ICC President"। firstpost.com। ২৫ জুন ২০১৫। সংগ্রহের তারিখ ৭ জুলাই ২০১৫ 
  18. "Ex-Pakistan and Gloucestershire batsman Zaheer Abbas named ICC president"। theguardian.com। ২৫ জুন ২০১৫। সংগ্রহের তারিখ ৭ জুলাই ২০১৫ 

আরও দেখুন[সম্পাদনা]

পূর্বসূরী:
অ্যালান আইজ্যাক
আইসিসি সভাপতি
২০১৪-২০১৫
উত্তরসূরী:
জহির আব্বাস