মমিনুল হক

উইকিপিডিয়া, মুক্ত বিশ্বকোষ থেকে
পরিভ্রমণে ঝাঁপ দিন অনুসন্ধানে ঝাঁপ দিন
মমিনুল হক
Mominul Haque (2) (cropped).jpg
ব্যক্তিগত তথ্য
পূর্ণ নামমমিনুল হক
জন্ম (1991-09-29) ২৯ সেপ্টেম্বর ১৯৯১ (বয়স ২৭)
কক্সবাজার, বাংলাদেশ
ডাকনামসৌরভ
উচ্চতা৫ ফুট ৩.৫ ইঞ্চি (১.৬১ মিটার)
ব্যাটিংয়ের ধরনবামহাতি
বোলিংয়ের ধরনধীরগতির বামহাতি অর্থোডক্স
ভূমিকাব্যাটসম্যান
আন্তর্জাতিক তথ্য
জাতীয় পার্শ্ব
টেস্ট অভিষেক
(ক্যাপ ৬৭)
৮ মার্চ ২০১৩ বনাম শ্রীলঙ্কা
শেষ টেস্ট৬ মে ২০১৫ বনাম পাকিস্তান
ওডিআই অভিষেক
(ক্যাপ ১০৪)
৩০ নভেম্বর ২০১২ বনাম ওয়েস্ট ইন্ডিজ
শেষ ওডিআই২৬ ফেব্রুয়ারি ২০১৫ বনাম শ্রীলঙ্কা
ওডিআই শার্ট নং৬৮
টি২০আই অভিষেক
(ক্যাপ ৩৪)
১০ ডিসেম্বর ২০১২ বনাম ওয়েস্ট ইন্ডিজ
শেষ টি২০আই১ এপ্রিল ২০১৪ বনাম অস্ট্রেলিয়া
ঘরোয়া দলের তথ্য
বছরদল
২০০৮-২০০৯ঢাকা বিভাগ
২০০৯-বর্তমানচট্টগ্রাম বিভাগ
২০১২বরিশাল বার্নার্স
২০১৩সিলেট রয়্যালস
খেলোয়াড়ী জীবনের পরিসংখ্যান
প্রতিযোগিতা টেস্ট ওডিআই টি২০আই এফসি
ম্যাচ সংখ্যা ৩০ ২৬ ৬৪
রানের সংখ্যা ২১৯০ ৫৪৩ ৬০ ৪৪২৮
ব্যাটিং গড় ৪২.১১ ২৩.৬০ ২০.০০ ৪২.৯৯
১০০/৫০ ৬/১২ ০/৩ ০/০ ১০/২৬
সর্বোচ্চ রান ১৮১ ৬০ ২৬* ১৮১
বল করেছে ৩১৯ ২১৬ ১৮ ৮৯২
উইকেট
বোলিং গড় ১৯২.০০ ২৫.০০ - ৮৪.৪০
ইনিংসে ৫ উইকেট
ম্যাচে ১০ উইকেট -
সেরা বোলিং ১/১০ ২/১৩ - ২/৪৩
ক্যাচ/স্ট্যাম্পিং ১২/– ৪/– ১/– ৪৭/–

মোমিনুল ‘সোহরাব’ হক (জন্ম: ২৯ সেপ্টেম্বর, ১৯৯১) সমুদ্র উপকূলীয় জেলা শহর কক্সবাজারে জন্মগ্রহণকারী বাংলাদেশী ক্রিকেটার। বামহাতি ব্যাটসম্যান হিসেবে বাংলাদেশ জাতীয় ক্রিকেট দলের অন্যতম খেলোয়াড় তিনি। ‘সৌরভ’ ডাকনামে পরিচিত মমিনুল হক ধীরগতিতে বামহাতি অর্থোডক্স বোলিং করে থাকেন। ঘরোয়া ক্রিকেটে চট্টগ্রাম বিভাগে খেলার পূর্বে ঢাকা বিভাগে খেলেছেন। পাশাপাশি বাংলাদেশ প্রিমিয়ার লীগে সিলেট রয়্যালস দলের হয়ে খেলছেন। টেস্টে দুই ইনিংসেই সেঞ্চুরি করা প্রথম বাংলাদেশি তিনি।

প্রারম্ভিক জীবন[সম্পাদনা]

বাংলাদেশের বৃহত্তম ক্রীড়া প্রশিক্ষণ কেন্দ্র বিকেএসপিতে ক্রিকেট বিষয়ে অধ্যয়ন করেন মমিনুল। ২০১১ সালে বিকেএসপি থেকে স্নাতক ডিগ্রী লাভ করেন।

শুরু থেকেই বয়সভিত্তিক ঘরোয়া ক্রিকেটে নির্ভরযোগ্য বামহাতি ব্যাটসম্যান হিসেবে আবির্ভূত হন তিনি। ২০০৮-০৯ মৌসুমে ঢাকা বিভাগীয় ক্রিকেট দলের হয়ে চট্টগ্রাম বিভাগীয় ক্রিকেট দলের বিপক্ষে প্রথম-শ্রেণীর ক্রিকেটে অভিষেক ঘটে মমিনুলের। ২০১০ সালে আইসিসি অনূর্ধ্ব-১৯ ক্রিকেট বিশ্বকাপে বাংলাদেশ ক্রিকেট দলের অন্যতম সদস্য হন তিনি। ২০১১ সালে বাংলাদেশ এ ক্রিকেট দলের পক্ষে ওয়েস্ট ইন্ডিজ সফরে যান ও প্রথম খেলাতেই দেড়শতাধিক রান সংগ্রহ করেন।

২০১২ সালে বাংলাদেশ প্রিমিয়ার লীগে বরিশাল বার্নার্স দলের সদস্য হন। খুলনা রয়্যাল বেঙ্গলসের বিপক্ষ ২৮ বলে অপরাজিত ৫৩ রান সংগ্রহ করে দলকে ৪ উইকেটের ব্যবধানে বিজয়ী হতে সাহায্য করেন।[১] ঘরোয়া ক্রিকেটে মাঝারি-সারির ব্যাটসম্যান হিসেবে খেলা চালিয়ে যাচ্ছেন। চারবছর পর ২০১৭ সালের অক্টোবরে সাউথ আফ্রিকা সফর ২০১৭ তে বলার হিসাবে মুমিনুল হক আবার ভালো ধরনের ক্রিকেট খেলে সবার নজড় কাড়তে সক্ষম হন। [২]

খেলোয়াড়ী জীবন[সম্পাদনা]

টেস্টে ধারাবাহিকভাবে অর্ধ-শতক লাভকারী ক্রিকেটার
দক্ষিণ আফ্রিকা এবি ডি ভিলিয়ার্স
১২
ক্রিকেট ওয়েস্ট ইন্ডিজ ভিভ রিচার্ডস
১১
ভারত গৌতম গম্ভীর
১১
ভারত বীরেন্দ্র শেওয়াগ
১১
বাংলাদেশ মমিনুল হক
১১
ইংল্যান্ড জন এডরিচ
১১
ভারত শচীন তেন্ডুলকর
১০

উৎস: ক্রিকইনফো
যোগ্যতা: খেলোয়াড়ী জীবনে ধারাবাহিকভাবে কমপক্ষে ১০ অর্ধ-শতক

৮ মার্চ, ২০১৩ তারিখে শ্রীলঙ্কার গালেতে অনুষ্ঠিত খেলায় অংশগ্রহণের মাধ্যমে টেস্টে অভিষিক্ত হন তিনি। অভিষেকেই ৫৫ রানের অর্ধ-শতক করেন ও সিরিজে ৫২.০০ রান গড়ে ১৫৬ রান সংগ্রহ করেন।

অক্টোবর, ২০১৩ সালে চট্টগ্রামের জহুর আহমেদ চৌধুরী স্টেডিয়ামে অনুষ্ঠিত ১ম টেস্টে সফরকারী নিউজিল্যান্ড দলের বিরুদ্ধে ৩য় দিনে ২৭৪ বলে ১৮১ রান সংগ্রহ করেন।[৩] এ রান করতে গিয়ে তিনি বেশ কিছু মাইলফলক তৈরী করেন -

১৫ নভেম্বর, ২০১৪ তারিখে সফরকারী জিম্বাবুয়ের বিপক্ষে ৩-টেস্ট সিরিজের তৃতীয় ও চূড়ান্ত টেস্টের চতুর্থ দিন তার চতুর্থ টেস্ট সেঞ্চুরি দলকে ৪৪৯ রানে এগিয়ে দন। পূর্বদিনের বিনা উইকেটে ২৩ রান নিয়ে খেলতে নেমে মমিনুল হকের ১৩ বাউন্ডারিতে ১৮৯ বলে অপরাজিত ১৩১* ও তামিমের ৬৫ রানের কল্যাণে বাংলাদেশ ৩১৯/৫ করে ইনিংস ডিক্লেয়ার করে। মমিনুল বাংলাদেশের ক্রিকেটের ইতিহাসে দ্রুততম সময়ে ১০০০ টেস্ট রান করেন। এ নিয়ে তিনি তার ১২ টেস্টের ১১ ইনিংসেই পঞ্চাশ বা তদূর্ধ্ব রান সংগ্রহ করেছেন।[৪] এরফলে তিনি এভারটন উইকস, অ্যালেক স্টুয়ার্ট, ম্যাথু হেইডেন, জ্যাক ক্যালিস, সাইমন ক্যাটিচকুমার সাঙ্গাকারা’র দলে প্রবেশ করেন যারা ধারাবাহিকভাবে নয় টেস্টে পঞ্চাশোর্ধ্ব রান করেছেন। এছাড়াও এভারটন উইকস, সুনীল গাভাস্কারমার্ক টেলরের পর চতুর্থ ব্যাটসম্যান হিসেবে তার প্রথম ১২ টেস্টে পঞ্চাশোর্ধ্ব রান করতে পেরেছেন। স্যার ডন ব্রাডম্যানের ৯৯.৯৪ গড় রানের পর মমিনুল হক দ্বিতীয় স্থানে রয়েছেন ৬৩.০৫ রান গড়ে যারা কমপক্ষে ২০ ইনিংস খেলেছেন।[৪]

২৮ এপ্রিল, ২০১৫ তারিখে সফরকারী পাকিস্তানের বিপক্ষে অনুষ্ঠিত ১ম টেস্টের ১ম ইনিংসে অষ্টম অর্ধ-শতক সংগ্রহ করে জুলফিকার বাবরের বলে এলবিডব্লিউ’র শিকারে পরিণত হন।[৫]

ক্রিকেট বিশ্বকাপ[সম্পাদনা]

২০১৫ সালের ক্রিকেট বিশ্বকাপ প্রতিযোগিতায় অংশগ্রহণের লক্ষ্যে ৪ জানুয়ারি, ২০১৫ তারিখে বিসিবি কর্তৃপক্ষ বাংলাদেশ দলের ১৫-সদস্যের চূড়ান্ত তালিকা প্রকাশ করে।[৬] এতে তিনিও দলের অন্যতম সদস্য মনোনীত হন।

পরিসংখ্যান[সম্পাদনা]

শীর্ষ টেস্ট ব্যাটিং গড়[সম্পাদনা]

অবস্থান ব্যাটসম্যান টেস্ট ইনিংস অপরাজিত রান সর্বোচ্চ গড়[৭] সময়কাল
অস্ট্রেলিয়া ডোনাল্ড ব্রাডম্যান ৫২ ৮০ ১০ ৬৯৯৬ ৩৩৪ ৯৯.৯৪ ১৯২৮-১৯৪৮
দক্ষিণ আফ্রিকা গ্রেইম পোলক ২৩ ৪১ ২২৫৬ ২৭৪ ৬০.৯৭ ১৯৬৩-১৯৭০
জ্যামাইকা জর্জ হ্যাডলি ২২ ৪০ ২১৯০ ২৭০* ৬০.৮৩ ১৯৩০-১৯৫৪
ইংল্যান্ড হার্বার্ট সাটক্লিফ ৫৪ ৮৪ ৪৫৫৫ ১৯৪ ৬০.৭৩ ১৯২৪-১৯৩৫
বাংলাদেশ মমিনুল হক ১৪ ২৪ ১৩৮০ ১৮১ ৬০.০০ ২০১৩-বর্তমান
ইংল্যান্ড এডি পেন্টার ২০ ৩১ ১৫৪০ ২৪৩ ৫৯.২৩ ১৯৩১-১৯৩৯
ইংল্যান্ড কেন ব্যারিংটন ৮২ ১৩১ ১৫ ৬৮০৬ ২৫৬ ৫৮.৬৭ ১৯৫৫-১৯৬৮
শ্রীলঙ্কা কুমার সাঙ্গাকারা ১৩০ ২২৫ ১৭ ১২২০৩ ৩১৯ ৫৮.৬৬ ২০০০-বর্তমান
বার্বাডোস এভারটন উইকস ৪৮ ৮১ ৪৪৫৫ ২০৭ ৫৮.৬১ ১৯৪৮-১৯৫৮
১০ ইংল্যান্ড ওয়ালি হ্যামন্ড ৮৫ ১৪০ ১৬ ৭২৪৯ ৩৩৬* ৫৮.৪৫ ১৯২৭-১৯৪৭

* অপরাজিত থাকাকে বুঝায়।

  • ছকে কমপক্ষে ২০ ইনিংস সম্পন্ন খেলোয়াড়দের দেখানো হয়েছে।
  • ১০ এপ্রিল, ২০১৫ অনুযায়ী, সূত্র: ক্রিকইনফো

টেস্ট শতকসমূহ[সম্পাদনা]

# রান খেলা প্রতিপক্ষ মাঠ শহর দেশ সাল ফলাফল
১৮১  নিউজিল্যান্ড জহুর আহমেদ চৌধুরী স্টেডিয়াম চট্টগ্রাম বাংলাদেশ ২০১৩ ড্র
১২৬*  নিউজিল্যান্ড শের-ই-বাংলা ক্রিকেট স্টেডিয়াম ঢাকা বাংলাদেশ ২০১৩ ড্র
১০০*  শ্রীলঙ্কা জহুর আহমেদ চৌধুরী স্টেডিয়াম চট্টগ্রাম বাংলাদেশ ২০১৪ ড্র
১৩১* ১২  জিম্বাবুয়ে জহুর আহমেদ চৌধুরী স্টেডিয়াম চট্টগ্রাম বাংলাদেশ ২০১৪ জয়
১৭৬ ২৬  শ্রীলঙ্কা জহুর আহমেদ চৌধুরী স্টেডিয়াম চট্টগ্রাম বাংলাদেশ ২০১৮ চলমান
১০১* ২৬  শ্রীলঙ্কা জহুর আহমেদ চৌধুরী স্টেডিয়াম চট্টগ্রাম বাংলাদেশ ২০১৮ চলমান

তথ্যসূত্র[সম্পাদনা]

  1. "Barisal Burners v Khulna Royal Bengals, 22 February 2012 - day/night (20-over match)"। সংগ্রহের তারিখ ২৪ ফেব্রুয়ারি ২০১২ 
  2. "চার বছর পর বোলার মুমিনুল"প্রিয়.কম। সংগ্রহের তারিখ ২০১৭-১০-০২ 
  3. Bangladesh v New Zealand, 1st Test, Chittagong, 3rd day, October 11, 2013, Mominul's boundaries, and Mushfiqur's landmark, collect: 12 October, 2013
  4. Isam, Mohammad (নভেম্বর ১৫, ২০১৪)। "Mominul ton sets target of 449; Bangladesh v Zimbabwe, 3rd Test, Chittagong, 4th day"espncricinfo। সংগ্রহের তারিখ নভেম্বর ১৫, ২০১৪ 
  5. Fuloria, Devashish (২৮ এপ্রিল ২০১৫)। "Mominul leads stable batting performance, Bangladesh v Pakistan, 1st Test, Khulna, 1st day April 28, 2015"ESPNCricinfo। ESPN। সংগ্রহের তারিখ ২৮ এপ্রিল ২০১৫ 
  6. Isam, Mohammad। "Soumya Sarkar in Bangladesh World Cup squad"ESPNCricinfo। ESPN। সংগ্রহের তারিখ ৪ জানুয়ারি ২০১৫ 
  7. "Test Career Highest Batting Averages"। Cricinfo। ২০০৭-০২-১২ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ২০০৭-০২-১২ 

আরও দেখুন[সম্পাদনা]

বহিঃসংযোগ[সম্পাদনা]