ইব্রাহীমের সহিফা

উইকিপিডিয়া, মুক্ত বিশ্বকোষ থেকে

ইব্রাহিমের সহিফা (আরবি: صحف إبراهيم‎‎, (সুহুফ ইব্রাহিম)[১] হলো ইব্রাহিমের ওপর অবতীর্ণ কুরআনে দু'বার উল্লেখিত ধর্মগ্রন্থ। সহিফাগুলো ইব্রাহিমের নিজের এবং তাঁর অনুসারীদের দ্বারা লিখিত যা তাঁর নবুয়ত জীবনে লিখিত কিছু প্রকাশনা (স্রষ্ঠাপ্রদত্ত) শিক্ষার অংশ।[তথ্যসূত্র প্রয়োজন] এগুলো ইসলামের ধর্মীয় ধর্মগ্রন্থগুলোর (আসমানি কিতাবের) অন্যতম। ইসলামি বিশ্বাসমতে সেসব কিতাব সময়ের সাথে সাথে বিকৃত হয়েছে বা হারিয়ে গিয়েছে।

পটভূমি[সম্পাদনা]

কুর’আনে দুটি মক্কি সূরায়, ইব্রাহিমের এবং মূসার কিতাবের কথা উল্লেখ করা হয়েছে। এগুলোকে ঐশ্বরিক গ্রন্থ হিসেবে বিবেচনা করা হয়। উক্ত সূরা ইশ্বরের বার্তার সত্যতা এবং ইব্রাহিম ও মূসার কাছে প্রেরিত বিধি-বিধানের অস্তিত্বের সত্যতা উল্লেখ করে। এগুলোকে সচরাচর সুহুফ বা (বহুবচনে) সহিফা বলে উল্লেখ করা হলেও আবদুল্লাহ ইউসুফ আলি, মারমাদুখে পিকথল প্রমূখ অনুবাদকগণ এগুলোকে "ইব্রাহিম ও মূসার কিতাব" হিসেবে অনুবাদ করেছেন।[২]

কুর'আনে উল্লেখ[সম্পাদনা]

কুরআন ইব্রাহিমের নির্দিষ্ট কিছু সহিফার কথা উল্লেখ করে, যাকে বিকল্পভাবে ইব্রাহিমের কিতাব হিসাবে অনুবাদ করা হয়েছে। সমস্ত মুসলিম আলেমরা সাধারণত একমত হয়ে গেছেন যে আজ অবধি ইব্রাহিমের কোনও লিপিবদ্ধ সহিফা সুরক্ষিত নেই এবং কুরআনে লুপ্ত হয়ে যাওয়া ধর্মগ্রন্থের একটি উল্লেখ করা হয়েছে মাত্র।[৩] ইব্রাহিমের সহিফা বলতে মুসলমানরা আব্রাহামের আল্লাহর কাছ থেকে প্রাপ্ত কিতাবকেই বোঝেন। সে সহিফার সকল বিষয়বস্তু কুরআনে বিস্তারিত বর্ণিত হয়নি।

কুরআনের ৮৭ তম তম অধ্যায় (সূরা) সূরা আল-'আলার সমাপ্তিতে বলা হয়েছে যে সূরাটির (আল আলা) বিষয়বস্তু আব্রাহাম ও মূসার পূর্ববর্তী শাস্ত্রে রয়েছে। ইসলামে পূর্ববর্তী শাস্ত্রে যা ছিল তা সামান্যই উল্লেখ করে:

উপদেশ ফলপ্রসূ হলে উপদেশ দান করুন, যে ভয় করে, সে উপদেশ গ্রহণ করবে, আর যে, হতভাগা, সে তা উপেক্ষা করবে, সে মহা-অগ্নিতে প্রবেশ করবে। অতঃপর সেখানে সে মরবেও না, জীবিতও থাকবে না। নিশ্চয় সাফল্য লাভ করবে সে, যে শুদ্ধ হয় এবং তার পালনকর্তার নাম স্মরণ করে, অতঃপর নামায আদায় করে। বস্তুতঃ তোমরা পার্থিব জীবনকে অগ্রাধিকার দাও, অথচ পরকালের জীবন উৎকৃষ্ট ও স্থায়ী। 'এটা লিখিত রয়েছে পূর্ববতী কিতাবসমূহে; ইব্রাহীম ও মূসার কিতাবে।

কুরআনের ৫৩তম অনুচ্ছেদ সূরা আন-নাজম ইব্রাহীম ও মূসার পূর্ববর্তী ধর্মগ্রন্থের আরও কিছু বিষয় সম্পর্কে উল্লেখ করেছে:

তাকে কি জানানো হয়নি যা আছে মূসার কিতাবে, এবং ইব্রাহীমের কিতাবে, যে তার দায়িত্ব পালন করেছিল? কিতাবে এই আছে যে, কোন ব্যক্তি কারও গোনাহ নিজে বহন করবে না। এবং মানুষ তাই পায়, যা সে করে, তার কর্ম শীঘ্রই দেখা হবে। অতঃপর তাকে পূর্ণ প্রতিদান দেয়া হবে। তোমার পালনকর্তার কাছে সবকিছুর সমাপ্তি, এবং তিনিই হাসান ও কাঁদান এবং তিনিই মারেন ও বাঁচান, এবং তিনিই সৃষ্টি করেন যুগল-পুরুষ ও নারী। একবিন্দু বীর্য থেকে যখন স্খলিত করা হয়। পুনরুত্থানের দায়িত্ব তাঁরই, এবং তিনিই ধনবান করেন ও সম্পদ দান করেন। তিনি নক্ষত্রের মালিক। তিনিই প্রথম আদ সম্প্রদায়কে ধ্বংস করেছেন, এবং সামুদকেও; অতঃপর কাউকে অব্যহতি দেননি। এবং তাদের পূর্বে নূহের সম্প্রদায়কে, তারা ছিল আরও জালেম ও অবাধ্য। তিনিই জনপদকে শুন্যে উত্তোলন করে নিক্ষেপ করেছেন। অতঃপর তাকে আচ্ছন্ন করে নেয় যা আচ্ছন্ন করার। অতঃপর তুমি তোমার পালনকর্তার কোন অনুগ্রহকে মিথ্যা বলবে? অতীতের সতর্ককারীদের মধ্যে সে-ও একজন সতর্ককারী। কেয়ামত নিকটে এসে গেছে। আল্লাহ ব্যতীত কেউ একে প্রকাশ করতে সক্ষম নয়। তোমরা কি এই বিষয়ে আশ্চর্যবোধ করছ? এবং হাসছ-ক্রন্দন করছ না? তোমরা ক্রীড়া-কৌতুক করছ, অতএব আল্লাহকে সেজদা কর এবং তাঁর এবাদত কর।

পরিচিতি[সম্পাদনা]

কিছু পণ্ডিত ইব্রাহিমের সহিফাগুলোকে সেফার ইয়েতজিরা (ইহুদি রহস্যবাদ সম্পর্কিত গ্রন্থ) বলে উল্লেখ করেছেন, যার কারণ ইহুদি ঐতিহ্য সাধারণত তাকে (সেফার ইয়েতজিরা) আব্রাহামের কাছে এর অবতীর্ণ হওয়া কিতাব বলে অভিহিত করে।[৬] অন্যান্য আলেমগণ অবশ্য এটিকে ইব্রাহীমের প্রাপ্ত শরিয়ত বলেও উল্লেখ করেছেন, যা মুহাম্মাদের সমসাময়িক কালেও বিদ্যমান ছিল।[৭]

কুরআনে ইব্রাহিম, তাঁর জীবন, প্রার্থনা ও ঐতিহ্যের বিষয়ে অনেক উল্লেখ রয়েছে এবং ইব্রাহিম (১৪) নামে একটি নিবেদিত অধ্যায় বা সূরা রয়েছে। আবার সূরা আল-কাহাফ (১৮) আল্লাহর কাছ থেকে ইহুদীদের প্রতি উত্তর হিসাবে অবতীর্ণ হয়েছিল যারা মুহাম্মদকে অতীত ঘটনা সম্পর্কে জিজ্ঞাসা করেছিল। এখানে আল্লাহ মুহাম্মাদকে সূরা আল-কাহাফের (১৮ঃ২২) সরাসরি নির্দেশ দিয়েছিলেন, যা সম্পর্কে তারা (ইহুদিরা) জিজ্ঞাসাবাদ করেছিল তা যাচাই করার জন্য ইহুদিদের সাথে পরামর্শ না করার জন্য।

অজ্ঞাত বিষয়ে অনুমানের উপর ভিত্তি করে এখন তারা বলবেঃ তারা ছিল তিন জন; তাদের চতুর্থটি তাদের কুকুর। একথাও বলবে; তারা পাঁচ জন। তাদের ছষ্ঠটি ছিল তাদের কুকুর। আরও বলবেঃ তারা ছিল সাত জন। তাদের অষ্টমটি ছিল তাদের কুকুর। বলুনঃ আমার পালনকর্তা তাদের সংখ্যা ভাল জানেন। তাদের খবর অল্প লোকই জানে। সাধারণ আলোচনা ছাড়া আপনি তাদের সম্পর্কে বিতর্ক করবেন না এবং তাদের অবস্থা সম্পর্কে তাদের কাউকে জিজ্ঞাসাবাদ ও করবেন না।

— কুরআন, সূরা ১৮ (আল কাহফ), আয়াত ২২[৮]

সূরায় আরো বলা হয়েছে:

আপনার কাছে তাদের ইতিবৃত্তান্ত সঠিকভাবে বর্ণনা করছি। তারা ছিল কয়েকজন যুবক। তারা তাদের পালনকর্তার প্রতি বিশ্বাস স্থাপন করেছিল এবং আমি তাদের সৎপথে চলার শক্তি বাড়িয়ে দিয়েছিলাম।

— কুর’আন, সূরা ১৮ (আল-কাহফ), আয়াত ১৩[৯]

আহলে কিতাবগণের সাথে পরামর্শ সম্পর্কে একটি হাদিস আবু হুরায়রাও বর্ণনা করেছেন:

আহলে কিতাবের লোকেরা (ইহুদিদের) হিব্রু ভাষায় তাওরাত পাঠ করত এবং তারা তা আরবিতে মুসলমানদের কাছে ব্যাখ্যা করত। এ সম্পর্কে রাসূলুল্লাহ সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম বলেছেন, "আহলে কিতাবের লোকদের প্রতি বিশ্বাস স্থাপন করো না বা তাদেরকে অস্বীকার করো না, বরং বলবে:" আমরা আল্লাহ এবং আমাদের প্রতি যা অবতীর্ণ হয়েছে তাতে বিশ্বাসী।

— সহীহ আল-বুখারি, খণ্ড-০৬, অধ্যায় ৬০, হাদিস ১২

সুতরাং, এই দৃষ্টিভঙ্গিতে, মুসলমানদের সেফার ইয়েতজিরাহকে সমর্থন করার প্রয়োজন হবে না, এমনকি এটি যদি ইব্রাহিমের পুস্তক হিসাবে চিহ্নিতও হত। তবে, মুসলিম ধর্মতত্ত্ব ইতোমধ্যে ইহুদি উৎস যেমন তাওরাত, মূসার (মুসা) বা দাউদ এর প্রতি প্রকাশিত সাম (জাবুর) হিসাবে প্রকাশিত হিসাবে গ্রহণ করেছে, যদিও তারা কুরআনের প্রাধান্যকে জোর দেয়।[১০]

আরও দেখুন[সম্পাদনা]

তথ্যসূত্র[সম্পাদনা]

  1. অথবা: আরবি: صُحُفِ إِبْرَاهِيم‎‎ সুহুফি ইব্রাহিম এবং/অথবা الصُّحُفِ ٱلْأُولَىٰ আস-সুহুফিল ‘উলা - "পূর্বে অবতীর্ণ কিতাব/পূর্ববর্তীদের কিতাব"
  2. Marmaduke Pickthall, The Meaning of the Glorious Qur'an [মহিমান্বিত কুর’আনের অর্থ]; Abdullah Yusuf Ali, The Holy Qur'an: Text, Translation and Commentary [পবিত্র কুর’আন: পাঠ, অনুবাদ, ব্যাখ্যা]
  3. A-Z of Prophets in Islam and Judaism, B. M. Wheeler, Abraham
  4. কুরআন ৮৭:৯–১৯
  5. কুরআন ৫৩:৩৬–৬২
  6.  এক বা একাধিক পূর্ববর্তী বাক্য এখন পাবলিক ডোমেইনের একটি প্রকাশনার পাঠ্য অন্তর্ভুক্ত করে: Singer, Isidore; ও অন্যান্য, সম্পাদকগণ (১৯০১–১৯০৬)। "YEẒIRAH, SEFER"The Jewish Encyclopedia। New York: Funk & Wagnalls। সংগ্রহের তারিখ ১৬ এপ্রিল ২০১৩ 
  7. Tafsir and Commentary on 87: 18-19 & 53: 36-37, Abdullah Yusuf Ali and Muhammad Asad
  8. কুরআন ১৮:২২
  9. কুরআন ১৮:১৩
  10. Friedmann (2003), p. 35

গ্রন্থপঞ্জি[সম্পাদনা]

ইহুদি এনসাইক্লোপিডিয়া গ্রন্থপঞ্জি[সম্পাদনা]