নমরুদ

উইকিপিডিয়া, মুক্ত বিশ্বকোষ থেকে
পরিভ্রমণে ঝাঁপ দিন অনুসন্ধানে ঝাঁপ দিন
চিত্রকর ডেভিড স্কটের অঙ্কনে নমরুদ গ্লাসগো জাদুঘরে সংরক্ষিত

নমরুদ (হিব্রু: נִמְרוֹדֿ, আধুনিক [Nimrod] error: {{transl}}: unrecognized transliteration standard: (সাহায্য) টিবেরিয়ান Nimrōḏ আরামীয়: ܢܡܪܘܕআরবি: النمرود, an-Namrood‎‎), আদি পুস্ককের বর্ণনা অনুযায়ী সিনারের রাজা। গনণাপুস্তক অনুযায়ী নূহ নবীর প্রপৌত্র কুশের পুত্র। বাইবেল অনুসারে নমরুদ ছিল ”এক মহাশক্তিধর ব্যক্তি যে ঈশ্বরকে শিকার করতে চেয়েছিল।”[১] টাওয়ার অব বাবেলের বর্ণনা অনুসারে নমরুদ ঈশ্বরের বিরুদ্ধে বিদ্রোহ ঘোষণা করেছিল।

নমরুদ শব্দের অর্থ খোদদ্রোহী। এর আর একটি অর্থ হলো বাঘিনী। আরব কিংবদন্তী অনুযায়ী নমরুদকে ছোটবেলায় এক বাঘিনী স্তন্যপান করিয়েছিল। কথিত আছে ইডিপাসের মতো নমরুদ তার পিতাকে হত্যা করে নিজ মাতাকে বিয়ে করে। কুরআনের বর্ণনামতে, একটি মশা তার মস্তিষ্কে প্রবেশ করলে তার মৃত্যু হয়। হযরত ইব্রাহীম (আঃ) এর জীবনীতে নমরুদ বাদশাহর উল্লেখ পাওয়া যায়। নমরুদ ষড়যন্ত্র করে নবীকে হত্যার উদ্দেশ্যে আগুনে নিক্ষেপ করেছিল। পবিত্র কুরআনে নমরুদের নাম উল্লেখ নেই। তবে সুরা বাকারার ২৫৮ নম্বর আয়াতে বলা হয়েছে “তুমি কি সেই ব্যক্তির কথা ভেবে দেখনি যে ইব্রাহীমের সঙ্গে তর্ক করেছিল, যেহেতু আল্লাহ তাকে রাজ্য দিয়েছিলেন? ‘তখন সে বলল, আমার প্রতিপালক তিনি যিনি জীবন দান করেন ও মৃত্যু ঘটান’, সে বলল, ‘আমিও তো জীবন দান করি এবং ও মৃত্যু ঘটাই।’[২]

পবিত্র বাইবেলে আব্রাহাম (নবী ইব্রাহীম) ও নমরুদের সাথে সাক্ষাতের ঘটনার বর্ণনা নেই। যদিও কিছু ইহুদী ও মুসলিম ঐতিহ্য অনুসারে তাদের মধ্যে বিরোধ সংগঠিত হয়েছিল বলে বলা হয়েছে। কিছু গল্পে দুইজন চরম সংঘাতে রত হয়েছিল বলে বর্ণনা করা হয়েছে। এসব কাহিনিতে ইব্রাহীম একাত্মবাদের মহিমা বর্ণনাকারী এবং নমরুদ তার বিরোধীতাকারী এবং নিজেকে স্বয়ং ঈশ্বর বলে দাবী করে।[১] একই রকম বর্ণনা মধ্যযুগের ইহুদী ধর্মগুরুদের লেখা কাহিনিতে পাওয়া যায়।[৩] হযরত ইবরাহীম (আ.) এর সময়ে নমরুদ ছিলেন স্বেচ্ছাচারী এক শাসক। তিনি হযরত ইবরাহীম (আ.) কে প্রতিমা ভেঙ্গে ফেলার অপরাধে অগ্নিকুন্ডে নিক্ষেপ করেছিলেন। কিন্তু আল্লাহর অসীম কৃপায় হযরত ইবরাহীম (আ.) নিরাপদে অগ্নিকুন্ড থেকে বের হয়ে আসতে সক্ষম হন।

হযরত ইবরাহীম (আ.) নিরাপদে অগ্নিকুন্ড থেকে বের হয়ে আসাতে নমরুদ প্রচন্ডভাবে ক্ষিপ্ত হয়। সে ইবরাহীম (আ.) কে বলে,

‘তোমার আল্লাহর যদি যথার্থই অস্তিত্ব থাকে, তবে তাকে আমার সাথে যুদ্ধ করার জন্য ডেকে আনো। আমি তোমার আল্লাহর ‍বিরুদ্ধে যুদ্ধ ঘোষণা করছি।’ আল্লাহর সাথে লড়াই করার জন্য পাপিষ্ঠ নমরুদ এক বিশাল বাহিনী গঠন করলো। এই বাহিনী নিয়ে সে ইবরাহীম (আ.) এর কাছে গিয়ে আল্লাহকে তার সাথে লড়াই করার জন্য আহবান জানায়। সে আকাশের দিকে তীর নিক্ষেপ করে এবং বলতে থাকে,

‘কোথায় তুমি হে ইবরাহীমের আল্লাহ? এসো আমার সাথে যুদ্ধ করো।’ আল্লাহ এই পাপিষ্ঠের সাথে মোকাবেলা করার জন্য এক ঝাঁক মশা প্রেরণ করলেন। ক্ষুদ্র এই মশা বাহিনীর আক্রমণে নমরুদের বিশাল বাহিনী ছিন্নভিন্ন হয়ে যায়। নমরুদও এই মশাবাহিনীর আক্রমণে ভয়ে যুদ্ধক্ষেত্র ছেড়ে পালায়। কিন্তু ঘটনাক্রমে একটি মশা তার নাক দিয়ে ঢুকে তার মস্তিষ্কে গিয়ে অবস্থান নেয়। আল্লাহ তার মস্তিষ্কের অভ্যন্তরে মশাটিকে জীবিত রাখেন।

মস্তিষ্কের ভিতরে অবস্থান নিয়ে মশাটি নমরুদকে সবসময় কামড়াতে থাকে। মস্তিষ্কে মশার কামড়ে অতিষ্ঠ হয়ে নমরুদ নিজের মাথায় নিজেই আঘাত করতে থাকে। কিন্তু যতই সে আঘাত করুক, মশা ততই তাকে কামড়াতে থাকে। নিজেকে নিজে আঘাত করতে করতে নমরুদ ক্লান্ত হয়ে পড়লো।

তাই সে তার একজন সৈনিককে ডেকে তাকে তার মাথায় আঘাত করতে বললো। কিন্তু মশার কামড় তাতে কোনো ক্রমেই কমে না। শেষে সৈনিকটি নমরুরদের মাথায় মুগুর দিয়ে আঘাত করলে মশা কিছু সময়ের জন্য কামড়ানো বন্ধ করলো।

মশা পরে আবার কামড়ানো শুরু করলে সৈনিকটি নমরুদের মাথায় আবার মুগুর দ্বারা আঘাত করলে মশা কিছু সময়ের জন্য কামড়ানো বন্ধ করে। এভাবে বারবার মশা কামড়ায় আর নমরুদকে মাথায় মুগুর দ্বারা আঘাত করতে হয়।

একদিন নমরুদের মাথায় মুগুর দ্বারা আঘাত করতে করতে সৈনিকটি নমরুদকে এত প্রচন্ডভাবে আঘাত করলো যে, তাতে নমরুদের মাথা ফেটে যায়। মাথা ফেটে গিয়ে নমরুদ মৃত্যুমুখে পতিত হয়।

সর্বশক্তিমান আল্লাহর সাথে লড়াই করার জন্য নমরুদ প্রচন্ড দম্ভ করে চ্যালেঞ্জ করেছিলো। কিন্তু আল্লাহর একটি ক্ষুদ্র সৃষ্টির কাছেই তাকে শেষ পর্যন্ত নির্মমভাবে পরাজিত হতে হলো।

তথ্যসূত্র[সম্পাদনা]

  1. "BibleGateway" 
  2. যার যার ধর্ম লেখক মোহাম্মদ হাবিবুর রহমান পৃষ্ঠা ২১৩ আইএসবিএন ৯৭৮ ৯৮৪ ৮৭৬৫ ৮০ ৭
  3. টেমপ্লেট:Daat enc