বনু আউস

উইকিপিডিয়া, মুক্ত বিশ্বকোষ থেকে
পরিভ্রমণে ঝাঁপ দিন অনুসন্ধানে ঝাঁপ দিন

বনু আউস (আরবী: بنو أوس অর্থ আউসের পুত্র ) অথবা শুধুমাত্র আউস(আরবী: أوس) হচ্ছে মদিনার আরব গোত্রসমূহের মধ্যে প্রধান একটি গোত্র। মুহাম্মদ এর হিজরত[১][২][৩] এর পরে বনু আউস অন্য আরেকটি গোত্র বনু খাজরাজ এর সাথে মিলিত হয়ে সাহায্যকারী আনসার বাহিনী গঠন করে। প্রাক ইসলামী যুগে আইস এবং খাজরাজ গোত্র একত্রে বনু ক্বয়েলা ( بنو قيلة) নামে পরিচিত ছিলো।[১]

নামকরণ[সম্পাদনা]

আল আউস শব্দের অর্থ উপহার। খুব সম্ভবত এটি আউস মানাত শব্দের সংক্ষিপ্ত রূপ। আউস মানাত(أوس مناة‎) অর্থ মানাতের উপহার। ইসলামী যুগে আউস গোত্রের নাম পরিবর্তন করে রাখা হয় আউস আল্লাহ ( أوس الله‎ আল্লাহর উপহার)।[১]

ইতিহাস[সম্পাদনা]

প্রাক ইতিহাস[সম্পাদনা]

৩০০ খ্রিস্টাব্দের দিকে[৪] মা'রিব বাঁধের বড় বন্যার কারণে ইয়েমেন থেকে কাহলানে অভিবাসিত হওয়ার সময়ে তালাবা বিন আমর, সকল আইসের পূর্ব পুরুষ, নিজের গোত্র থেকে আলাদা হয়ে যান এবং ইয়াসরিবে (মদিনা) বসবাস শুরু করে।[৫] এই এলাকা তখন ইহুদিতে শাসনাধীন ছিলো। বনু কয়লা গোত্র কিছুদিন ইহুদিদের প্রজা হিসেবে ছিলো। খাজরাজ গোত্রের মালিক বিন আজলান ইহুদিদের কাছ থেকে স্বাধীনতা আদায় করে নেন। ফলে আউজ এবং খাজরাজ গোত্র খেঁজুর বাগানের মালিকানা(শেয়ার) লাভ করে।[১] ৫ম শতকে বনু ক্বয়েলা গোত্র ইয়াসরিবকে নিজেদের নিয়ন্ত্রণে নিতে সক্ষম হয় এবং ইহুদি গোত্রগুলো এক শতাব্দীর জন্য ইতিহাসের আড়ালে চাপা পড়ে।[৩]

ইসলামের আগমন[সম্পাদনা]

হিজরত (৬২২ খ্রিস্টাব্দ)[সম্পাদনা]

মুহাম্মদ (সঃ) মক্কা কাফেরদের (মক্কার মূর্তিপুজারীগণকে ইসলামে কাফের নামে অভিহিত করা হয়) অত্যাচারে হিজরত করে মদিনা চলে আসেন। মদিনার বনু আউস এবং বনু খাজরাজ গোত্রের মধ্যকার বিরোধ নিরসনে তিনি সক্রিয় ভূমিকা পালন করেন। মদিনা সনদ এর ৩০-৩১ ধারায় বনু আউস গোত্রকে মুসলমানদের মিত্র হিসেবে ঘোষণা করা হয়।[৬] এর পর থেকে বনু আউস সহ মদিনার অন্যান্য গোত্রগুলো আনসার নামে পরিচিত পায়। ৬২৪ খ্রিস্টাব্দে কাব ইবনে আল আশরাফ বনু আউসের লোকের হাতে নিহত হয়।

বনু কুরাইজাহ - ৬২৭[সম্পাদনা]

বনু কুরাইজা ছিলো মদিনায় বসবাসরত একটি ইহুদি গোত্র। এই গোত্রের কিছু লোক ধর্মান্তরিত হয়। বনু কুরাইজা গোত্র মদিনার অন্যান্য গোত্রের সাথে মদীনা সনদে স্বাক্ষর করে। কিন্তু তারা গোপনে মক্কার কুরাইশদের সঙ্গে আঁতাত করে। মক্কার কুরাইশগন মদিনার মুসলমানদের আক্রমণ করে। যা খন্দকের যুদ্ধ নামে পরিচিত। ৬২৭ সালের এই যুদ্ধে কুরাইশগণ পরাজিত হয়ে মক্কায় পালিয়ে যায়। অন্যদিকে মদিনার অধিবাসী এবং মক্কা থেকে আগত মুসলিম অভিবাসীদের হাতে বনু কুরাইজা গোত্রের ইহুদিদের বড় অংশ নিহত হয়।

বনু কুরাইজা গোত্র আগের একটি যুদ্ধে বনু আউসের মিত্র বাহিনী ছিলো। মদিনাবাসীগণ যখন বনু কুরাইজাকে বিশ্বাস ঘাতকতার জন্য বন্দি করলো তখন তারা বিচারের জন্য আউস গোত্রের প্রধান সাদ ইবনে মুয়াধ কে বিচারক নির্বাচন করলো।[৭] সাদ অভিযুক্ত গোত্রের পুরুষকে হত্যা এবং নারী ও শিশুকে দাস হিসেবে বন্দী করার রায় দেন।[৩] সাদ খন্দকের যুদ্ধে মারাত্বক আহত হয়েছিলেন। এর অল্প কিছুদিন পরে তিনি মারা যান।

বনু আউস গোত্রের কয়েকজন ব্যক্তি[সম্পাদনা]

আরো পড়ুন[সম্পাদনা]

তথ্য উৎস[সম্পাদনা]