কলম ও কাগজের হাদিস

উইকিপিডিয়া, মুক্ত বিশ্বকোষ থেকে
কলম ও কাগজের হাদীস
বৃহস্পতিবারের বিপর্যয়
সময়বৃহস্পতিবার
অবস্থানমদীনা, হেজাজ, আরব উপদ্বীপ

কলম ও কাগজের হাদীস (আরবি: رزية يوم الخميس‎, প্রতিবর্ণী. Raziyat Yawm al-Khamis‎) এমন একটি ঘটনাকে ইঙ্গিত করে যেখানে ইসলামের নবী মুহাম্মদ তাঁর মৃত্যুর কিছুক্ষণ পূর্বে একটি লিখিত বিবৃতি দেওয়ার ইচ্ছা প্রকাশ করেছিলেন, কিন্তু তাঁকে তা করতে বাধা দেওয়া হয়েছিল। বিবৃতিটির বিষয়বস্তু, প্রতিরোধের ধরন এবং তাতে মুহাম্মদের প্রতিক্রিয়া নিয়ে বিভিন্ন সূত্রের মধ্যে মতবিরোধ বিদ্যমান। এই ঘটনাটিকে বৃহস্পতিবারের বিপর্যয় নামেও অবিহিত করা হয়।[১]

বর্ণনা[সম্পাদনা]

মুহম্মদ ৬৩২ সালে অসুস্থ হয়ে পড়েন এবং এক বৃহস্পতিবার তাঁর স্বাস্থ্যের গুরুতর অবনতি ঘটে। কথিত আছে যে তিনি মুসলিমদের “চিরতরে পথভ্রষ্ট” হওয়া থেকে রক্ষা করতে পারে এমন একটি বিবৃতি প্রদান করার করার জন্য তাঁকে লেখার উপকরণ দিতে আদেশ করেন।[২][৩]

কিন্তু তাঁর কক্ষে উপস্থিত লোকজন এই আদেশ মানবেন কিনা তা নিয়ে বাদানুবাদ শুরু করেন। ইবনে সা‘দের মতে, যিনি এই ঘটনার একাধিক সংস্করণ সরবরাহ করেছেন, উপস্থিত লোকেদের মধ্যে একজন মুহম্মদকে বিকারগ্রস্ত বলাতে এই বিবাদের সূত্রপাত ঘটে। পরিস্থিতি উত্তপ্ত হতে শুরু করলে মুহাম্মদ তাদের তাঁর কক্ষ ত্যাগ করার নির্দেশ দেন এবং পরবর্তীকালে কিছুই লেখেননি। কিছু সূত্রমতে, মুহম্মদ তাঁর বিবৃতি দিতে ব্যর্থ হওয়ার পর বলেছিলেন যে তিনি এর পরিবর্তে উম্মাহর নিকট তিনটি সুপারিশ জারি করবেন। ইবনে সা’দের একটি সূত্রমতে, এর মধ্যে দুটি ছিল:[৪]

  • মুশরিকদের আরব থেকে বিতাড়ন।
  • তিনি যেভাবে প্রতিনিধিদল নিয়োগ করতেন ঠিক সেভাবে তা গ্রহণ।

তৃতীয় সুপারিশটি অনুপস্থিত। ইবনে সা‘দ বলেন যে, এর কারণ হয় মুহাম্মদ সুপারিশটি উল্লেখ করেননি নতুবা হাদীসটির বর্ণনাকারী তা ভুলে গিয়েছিলেন। আত তাবারিইবনে কাসিরের মতো লেখকেরাও এই ঘটনাটিকে একইভাবে বর্ণনা করেছেন। অন্য একটি বিকল্প সূত্রমতে, সুপারিশ তিনটি ছিল নামাজ, জাকাত এবং মা মালাকাত আইমানুকুম। এই সংস্করণটি মুহম্মদের চূড়ান্ত নির্দেশ শাহাদা প্রদানপূর্বক তাঁর মৃত্যুর সঙ্গে সমাপ্ত হয়।[৪]

বর্ণনাকারীদের পক্ষপাত অনুসারে হাদীসটির বিভিন্ন পুনরাবৃত্তি উপস্থিত লোকেদের পরিচয়ের— যেমন: জয়নব বিনতে জাহশ, উম্মে সালামাআবদুল্লাহ ইবনে আবু বকরের মতো ব্যক্তিত্বদের সন্নিবেশ বা অপসারণ—পাশাপাশি পরিবর্তিত হয়। একটি সূত্রে বর্ণিত হয়েছে যে মুহাম্মদ আলীর কোলে মাথা রেখে শুয়ে থাকাবস্থায় এই ঘটনাগুলি ঘটে।[৪] অন্যান্য সূত্র আরও বর্ণনা করে যে মুহম্মদকে বাধাদানকারী ব্যক্তি ছিলেন উমর ইবনুল খাত্তাব, যিনি বলেছিলেন যে কোরআনের বাইরে অন্য কোনো নির্দেশনার প্রয়োজন নেই।[২][৩]

ইবনু আব্বাস (রা.) থেকে বর্ণিত। তিনি বলেন, যখন রাসুলুল্লাহ সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লামের ইন্তেকালের সময় ঘনিয়ে এল, তখন ঘরের মধ্যে অনেক মানুষের সমাবেশ ছিল। যাদের মধ্যে উমর ইবনু খাত্তাব (রা.)-ও ছিলেন। তখন তিনি (রোগ যন্ত্রনায় কাতর অবস্থায়) বললেন, “লও, আমি তোমাদের জন্য কিছু লিখে দেব, যাতে পরবর্তীতে তোমরা বিভ্রান্ত না হও।” তখন উমর (রা.) বললেন, “নবী সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম-এর উপর বেশি যাতনা তীব্রতর হয়ে উঠেছে। আর তোমাদের নিকট কুরআন বিদ্যমান। আর আল্লাহর কিতাবই আমাদের জন্য যথেষ্ট।” এ সময়ে আহলে বাইতের মধ্যে মতানৈক্যের সৃষ্টি হল। তাঁরা বাদানুবাদে প্রবৃত্ত হলেন।

তারপরে কেউ কেউ বলতে লাগলেন, “নাবী সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম এর কাছে কাগজ পৌঁছিয়ে দাও এবং তিনি আমাদের জন্য কিছু লিখে দেবেন, যাতে পরবর্তীতে তোমরা কখনো পথভ্রষ্ট না হও।” আবার তাঁদের মধ্যে অন্যরা উমর (রা.) যা বললেন তা বলে যেতে লাগলেন। এভাবে নবী সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লামের কাছে তাঁদের বাকবিতণ্ডা ও মতানৈক্য বেড়ে চলল। তখন রাসুলুল্লাহ সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম বললেন, “তোমরা উঠে যাও।” উবায়দুল্লাহ (রহ.) বলেন, ইবনু আব্বাস (রা.) বলতেন, “বড় মুসীবত হল লোকজনের সেই মতানৈক্য ও তর্ক-বিতর্ক, যা নাবী সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম ও তার সেই লিখে দেওয়ার মধ্যে অন্তরায় সৃষ্টি করেছিল।” (সহীহ বুখারী, অধ্যায় ৬২/রোগীদের বর্ণনা, পরিচ্ছেদ ২২৬৬, হাদীস ৫২৬৭)[৫]

এই নিঃশব্দ আদেশটির প্রকৃতি সম্পর্কে ভিন্ন ভিন্ন দৃষ্টিভঙ্গি পরবর্তী রাজনৈতিক তর্কগুলিতে—বিশেষত মুহম্মদের স্থলাভিষেক বিষয়ক সংকটে—ব্যবহৃত হয়েছিল। আল-শেখ আল-মুফীদের মতো শিয়া পণ্ডিতেরা দাবি করেন যে, এর মাধ্যমে মুহম্মদ আলীকে তাঁর পরবর্তী খলিফা হিসেবে সরাসরি নিযুক্ত করতেন। অন্যদিকে আল বালাযুরির মতো সুন্নি পণ্ডিতেরা মনে করেন যে মুহম্মদ এর মাধ্যমে আবু বকরকে মনোনীত করতে চেয়েছিলেন।[৪]

তথ্যসূত্র[সম্পাদনা]

  1. Muhammad al-Tijani al-Samawi, Black Thursday, trans. S. Athar (Qum: Ansarian, n.d.).
  2. Hayaat al-Qulub, Volume 2। পৃষ্ঠা 998। 
  3. সহীহ বুখারী, ৭:৭০:৫৭৩ (ইংরেজি)
  4. Miskinzoda, Gurdofarid (২০১৪)। Farhad Daftary, সম্পাদক। The Story of Pen & Paper and its interpretation in Muslim Literary and Historical Tradition। The Study of Shi‘i Islam: History, Theology and Law। I.B.Tauris। আইএসবিএন 978-0-85773-529-4 
  5. "পরিচ্ছেদঃ ২২৬৬. তোমারা উঠে যাও, রোগীর এ কথা বলা"Hadithbd.com। ইসলামিক ফাউন্ডেশন। সংগ্রহের তারিখ ২৬ সেপ্টেম্বর ২০২০আমি তোমাদের জন্য কিছু লিখে দেব, যাতে পরবর্তীতে তোমরা বিভ্রান্ত না হও।