বিষয়বস্তুতে চলুন

সহিফা আস-সাজ্জাদিয়া

উইকিপিডিয়া, মুক্ত বিশ্বকোষ থেকে

আল-সহিফা আল-সাজ্জাদিয়াহ্ ( আরবি: ٱلصَّحِيفَة ٱلسَّجَّادِيَّة , aṣ-Ṣaḥīfah as-Sajjādīyah ,[asˤ.sˤa.ħiː.fah as.sad͡ʒ.d͡ʒaː.diː.jah] ; "সাজ্জাদের ধর্মগ্রন্থ") আল-সহিফা আল-সাজ্জাদিয়াহ্ একটি বিখ্যাত দুয়ার গ্রন্থ যা যঈন আল-আবিদীন ( আ. ) কর্তৃক লিখিত। গ্রন্থটি কারবালার যুদ্ধের পরে লিখিত হয়েছিল ( ৬৮০ খ্রি. ) এবং গ্রন্থটিতে মানুষ ও রবের মধ্যবর্তী আন্তঃসম্পর্ক তুলে ধরা হয়েছে। গ্রন্থটিতে ইমাম আল-সাজ্জাদ ( আ. ) এর ৫৪ টি দুয়া সংকলিত হয়েছে। শিয়া মাযহাবে  আল-কুরান এবং নাহজুল বালাঘার পরে এটির গুরুত্ব সর্বাধিক এবং এটি “ যাবুর আল-মুহাম্মদ " ( মুহাম্মদ ( সা. ) এর পবিত্র পরিবারের যাবুর ) এবং “ ইঞ্জীল আল-আহ্লুল বাইত " ( আহ্লুল বাইত ( আ. ) এর বাইবেল ) হিসেবেও পরিচিত।

এই গ্রন্থটিকে কেন্দ্র করে বহু ব্যাখ্যামূলক গ্রন্থ লিখিত হয়েছে৷ আল-যারী'আ ইলা তাসানিফ আল-শিয়া গ্রন্থে আকা বুজুর্গ তেহরানী ৫০ টি ব্যাখ্যা সংকলন করেছিলেন যাঁর মাঝে সবচেয়ে প্রচলিত ব্যাখ্যাটি রিয়াদ আল-সালিকীন গ্রন্থ হতে সংকলিত। আল-সহিফা আল-সাজ্জাদিয়্যাহ্ বিভিন্ন ভাষায় অনুবাদিত হয়েছে যেমন ইংরেজি, ফরাসি, তুর্কি, উর্দু, স্পেনিশ, বস্নিয়ান, আলবানিয়ান, তামিল ইত্যাদি। শিয়া মাযহাবের মধ্যে অধিক মর্যাদা ছাড়াও বহু সুন্নি আলেমগণ এই গ্রন্থের বাগ্মিতাকে প্রশংসা করেছেন।

গ্রন্থের উপাধিসমুহ

[সম্পাদনা]

কিছু মুসলিম আলেমগণ বিশ্বাস করেন কোরান এবং নাহজুল বালাঘার পরে আল-সহিফা আল-সাজ্জাদিয়াহ্ পবিত্র জ্ঞানের সর্বোৎকৃষ্ট নিদর্শন, অতএব এটিকে উখত আল-কুরান  ( কুরানের বোন ), ইঞ্জীল আহ্লুল বাইত ( আহ্লুল বাইত ( আ. ) এর বাইবেল ), যাবুর আল-মুহাম্মাদ ( মুহাম্মাদ ( সা. ) এর পরিবারের যাবুর ) এবং আল-সহিফা আল-কামীলা ( পরিপূর্ণ সহিফা )[১] হিসেবেও গণ্য করা হয়। বলা হয় যে যাইদীরা যখন থেকে এই গ্রন্থের একটি অসম্পূর্ণ অংশ রাখা আরম্ভ করলো, যা আসলে আল-সহিফা আল-কামীলার অর্ধেক, ঠিক তখন থেকে এটি আল-সহিফা আল-কামীলাহ্ হিসেবে পরিচিতি লাভ করা শুরু করে। অতএব ইমামিয়াহ্ শিয়ারা তাঁদের নিকট উপস্তিত সংকলনকে “ আল-সহিফা আল-কামীলাহ্ " হিসেবে নামকরণ করেন।[২]

[৩][৪]

বিষয়বস্তু

[সম্পাদনা]

প্রথম দুয়াতে ইমাম আল-সাজ্জাদ ( আ. ) আল্লাহ্ এবং আহ্লুল বাইত ( আ. ) কে প্রশংসা করেন, তাই প্রায় প্রতি দুয়া সালাওয়াত দিয়ে আরম্ভ হয়।[৫] দুয়ার শেষে, তিনি ( আ. ) আল্লাহর নিকট তাঁর ( আ. ) চাহিদা তুলে ধরেন।

আল-সহিফা আল-সাজ্জাদিয়ায় শুধুমাত্র খোদার নিকট দুয়া এবং চাওয়া পাওয়া প্রার্থনা নয়, বরং এটি একটি ইসলামিক শিক্ষা এবং জ্ঞানভাণ্ডারের সংগ্রহ যাতে আদর্শগত, সংস্কৃতিগত, সামাজিক, রাজনৈতিক এবং কিছু প্রাকৃতিক ও ধর্মীয় নীতিমালা দুয়ার আকারে সাজানো আছে৷

খোদার সঙ্গে আন্তঃসম্পর্ক তুলে ধরতে কিছু দুয়া কাল এবং পরিস্থিতিভেদে সংকলিত হয়েছে। কিছু দুয়া যেমন ‘আরাফা এবং রমযানের বিদা' ( বিদায় ) প্রতি বছর এবং কিছু দুয়া প্রতি মাস তেলাওয়াত করা হয়, যেমন নতুন চাঁদ দেখার দুয়া যা প্রতি সপ্তাহে অথবা প্রতিদিন তেলাওয়াত করা হয়।

আল-সহিফা আল-সাজ্জাদিয়ার প্রতিটি দুয়ার ভিন্ন ভিন্ন নাম রয়েছে। গ্রন্থটিতে দুয়াগুলোতে বিভিন্ন বিষয় উল্লিখিত আছে যেমন ধর্মতত্ত্ব, তত্ত্ববিদ্যা, অদৃশ্য জগৎ, ফেরেশতা, নবি ( সা. ) এর কার্যাবলী , নবি ( সা. ) এবং আহ্লুল বাইত ( আ. ) এর মর্যাদা, ইমামাহ্, আখলাকে হামিদাহ্, আখলাকে যামিমাহ্, ঈদসমুহ, সামাজিক এবং অর্থনৈতিক বিষয়বস্তু, ঐতিহাসিক দিকগুলি, খোদার বিভিন্ন নিয়ামত, দোয়া, তেলাওয়াত, যিকর, সালাত এবং অন্যান্য ইবাদত করার পদ্ধতি ইত্যাদি। আল-সহিফা আল-সাজ্জাদিয়ার সবচেয়ে বিখ্যাত দুয়া হলো মাকারিম আল-আখলাক

এই গ্রন্থটিতে তসবিহ্-এর মতবাদ প্রত্যাখ্যান করা হয়েছে।[৩][৬][৭][৮]

দোয়াগুলোর নাম

[সম্পাদনা]

আল-সহিফা আল-সাজ্জাদিয়ায় মূলত ৭৫টি দোয়া ছিল, যার মধ্যে কেবল ৫৪ টিই বেঁচে থাকতে পারে।[৯] তাদের শিরোনামগুলি নিম্নরূপ:[৩]

  1. আল্লাহর প্রশংসায়
  2. মুহাম্মদ ও আহ্লুল বাইতের প্রতি দোয়া করা
  3. আরশের বাহককে দোয়া করা
  4. রসূলগণের প্রতি অনুগ্রহকারীদের দোয়া করা
  5. তাঁর ও তাঁর অভিভাবকের অধীনে থাকা লোকদের জন্য দোয়া করা
  6. সকাল এবং সন্ধ্যায় প্রার্থনা
  7. উদ্বেগজনক কাজে প্রার্থনা
  8. শরণাপন্ন প্রার্থনা প্রার্থনা
  9. আকাঙ্ক্ষায় প্রার্থনা
  10. ইশ্বরের কাছে আশ্রয় প্রার্থনা প্রার্থনা
  11. ভাল আশীর্বাদের জন্য প্রার্থনা
  12. স্বীকারোক্তি প্রার্থনা
  13. ইশ্বরের কাছ থেকে প্রয়োজন প্রার্থনা
  14. অন্যায় কাজের জন্য ক্ষমা চাওয়া
  15. অসুস্থতার সমময় প্রার্থনা
  16. রেহাই চাওয়ার প্রার্থনা
  17. শয়তানের বিরুদ্ধে প্রার্থনা
  18. বিপদের সময় প্রার্থনা
  19. একটি খরার সময় জলের জন্য প্রার্থনা প্রার্থনা
  20. উত্তম এবং নৈতিক গুণালির জন্য প্রার্থ্না
  21. দু: খ ঘুচে যাওয়ার জন্য প্রার্থনাা
  22. কষ্টের সময় প্রার্থনা
  23. মঙ্গল কামনা
  24. তাঁর পিতা-মাতার জন্য দোয়া
  25. তাঁর সন্তানদের জন্য দোয়া
  26. তাঁর প্রতিবেশী এবং বন্ধুদের জন্য অনুরোধ
  27. সীমান্তের জনগণের জন্য দোয়া
  28. ইশ্বরের কাছে ছুটে যাওয়ার প্রার্থনা
  29. বিধান অনুসারে থাকাকালীন প্রার্থনা
  30. ঋণ পরিশোধে সহায়তার জন্য প্রার্থনা
  31. অনুতাপ প্রার্থনা
  32. রাতের প্রার্থনায় দোয়া
  33. সর্বোচ্চ আশার প্রার্থনা
  34. যখন কষ্ট হয় তখন প্রার্থনা
  35. আদেশ নিয়ে সন্তুষ্টি প্রার্থনা
  36. বজ্রপাত শোনার সময় প্রার্থনা
  37. ধন্যবাদ জানাতে দোয়া
  38. ক্ষমা চাওয়ার প্রার্থনা
  39. ক্ষমা প্রার্থনা এবং রহমত প্রার্থনা
  40. মৃত্যুর কথা উল্লেখ করা হলে দোয়া
  41. আচ্ছাদন এবং সুরক্ষার জন্য জিজ্ঞাসা প্রার্থনা
  42. কুরআন পাঠ শেষ করার সময় দোয়া
  43. প্রার্থনা যখন তিনি নতুন ক্রিসেন্ট চাঁদের দিকে তাকান
  44. রমজান মাস আসার জন্য দোয়া
  45. রমজান মাসকে বিদায় জানানোর প্রার্থনা
  46. রোজা এবং শুক্রবারে দোয়া
  47. আরাফার দিন দোয়া
  48. কোরবানি দিবসে এবং শুক্রবারে দোয়া
  49. শত্রুদের বিতাড়নে প্রার্থনা
  50. ভয়েরেসময় দোয়া
  51. দয়া ভিক্ষা চাওয়ার দোয়া
  52. ইশ্বরের কাছে প্রার্থনা
  53. নিজেকে বিরত রাখতে প্রার্থনা
  54. উদ্বেগ অপসারণের জন্য প্রার্থনা

আরো দেখুন

[সম্পাদনা]
  • ঘুরার আল-হিকাম ওয়া দুরার আল-কালিম (' আলীর জন্য দায়ী)
  • আলী ইবনে আবী তালিবের চিঠি মালিক আল-আক্তারকে
  • খুতবা
  • শিয়া বইয়ের তালিকা
    • আল-রিসালাহ আল-হক ('আলী জায়নুল-আবিদীনকে দায়ী)
    • পনেরো হুইস্পার্ড প্রার্থনা (জায়নুল-আবিদীনকে দায়ী)
    • আল-রিসালাহ আল-ধাবিয়াহ (' আলি রি-রিধায় দায়ী)
    • আল-সহিফাত আল-রিধা ('আলী আল-রিধাকে দায়ী)
    • আল জাফর (বই) (জাফর আল-সাদিক উল্লেখ করেছেন)
    • আল জামিয়াহ (জাফর আল সাদিক উল্লেখ করেছেন)
    • মুস-হাফ ফাতিমা (জাফর আল-সাদিক উল্লেখ করেছেন)
    • ঘুরার আল-হিকাম ওয়া দুরার আল-কালিম (' আলীর জন্য দায়ী)
  • মুশফ

তথ্যসূত্র

[সম্পাদনা]
  1. আয়াতুল্লাহ তেহরানীর, ব্যাখ্যা। "আকা বুজুর্গ তেহরানী, খণ্ড ১৫, পৃষ্ঠা ১৮-১৯"উইকিশিয়া 
  2. "আল-সহিফা আল-সাজ্জাদিয়াহ্, মারাশি নাজাফীর ব্যাখ্যা, পৃষ্ঠা ৪৬"। আল-সহিফা আল-সাজ্জাদিয়াহ্ 
  3. introduction, translated with an; Chittick, annotation by William C. (২০০০)। The perfect book of Imam Zaynul-A'abideen A'li Ibnul-Husayn as-Sajjad : as'-S'ah'eefatul-kaamilatus-sajjaadeeyah = aṣ-Ṣaḥīfa al-kāmila as-saǧǧādīya (1. সংস্করণ)। Ansariyan Publ.। আইএসবিএন 9780946079568 
  4. Shahri, Muhammad Hussain (২০০৬)। "Human and social dimensions of al-Sahifa al-Sajjadiyya" (ফার্সি ভাষায়): 155–157। 
  5. ইবনে আবি আল-হাদিদ, শাহার নাহজুল বালাঘা, পৃষ্ঠা ২২০; বালাযুরি, আনসাব আল-আশরাফ, খণ্ড ১, পৃষ্ঠা ১৮৪ ; সাহমি, তারিখী জুর্জান, পৃষ্ঠা ১৮৯
  6. al-Rasheed, Bāqir Sharīf al-Qurashi ; translated by Jāsim (২০০৭)। The life of Imām Zayn al-ʻAbidīn (1st ed., 2nd repr. সংস্করণ)। Ansariyan। পৃষ্ঠা 380–390। আইএসবিএন 9789644381652 
  7. KarimiFard, GholamReza (১৯৯৭)। "Rhetorical points in the book al-Sahifa al-Sajjadiyya" (ফার্সি ভাষায়): 116–134। 
  8. Mozaffari, Seddigheh; Ibn al-Rasul, MuhammadReza (২০০৯)। "Exquisite array in the book al-Sahifa al-Sajjadiyya" (ফার্সি ভাষায়): 141–180। 
  9. Husaini Tehrani, Muhammad Husain। Imamology (ফার্সি ভাষায়)। Allama Tabatabaie। পৃষ্ঠা 40–79। 

বহিঃসংযোগ

[সম্পাদনা]