সুফি অধিবিদ্যা

উইকিপিডিয়া, মুক্ত বিশ্বকোষ থেকে

সুফি অধিবিদ্যা বা সুফি অতিপ্রাকৃতিকতা وحدة ওয়াহাদা "ঐক্য" বা توحيد তাওহীদের ধারণাকে কেন্দ্র করে নির্মিত হয়েছে। এ বিষয়ে দুটি প্রধান সূফী দর্শন রয়েছে। ওয়াহদাত আল-উজুদ যার আক্ষরিক অর্থ "অস্তিত্বের ঐক্য" বা "সত্তার ঐক্য।" উজুদ বা "অস্তিত্ব, উপস্থিতি" বলতে এখানে ঈশ্বরকে বোঝায়। অন্যদিকে, ওয়াহদাত আশ-শুহুদ, যার অর্থ "সাপেক্ষবাদ" বা "সাক্ষীর একেশ্বরবাদ", যা বিশ্বাস করে যে, ঈশ্বর এবং তার সৃষ্টি সম্পূর্ণ পৃথক।

কিছু সংস্কারক দাবি করেছেন যে দুটি দর্শনের মধ্যে পার্থক্য কেবল শব্দার্থবিজ্ঞানেই পৃথক এবং পুরো বিতর্কটি কেবল "মৌখিক বিতর্কের" সংকলন যা দ্ব্যর্থক ভাষার কারণে এসেছে। তবে, ঈশ্বর এবং মহাবিশ্বের মধ্যে সম্পর্কের ধারণাটি এখনও সুফীদের মধ্যে এবং সুফি এবং অ-সুফী মুসলমানদের মধ্যে সক্রিয়ভাবে বিতর্কিত রয়েছে।

ওয়াহদাতুল উজুদ (অস্তিত্বের ঐক্য)[সম্পাদনা]

রহস্যবাদী চিন্তাবিদ এবং ধর্মতত্ত্ববিদ আবু সাঈদ মোবারক মাখজুমী তার তোহফা মুরসালা নামক গ্রন্থে এই ধারণাটি নিয়ে আলোচনা করেছেন। আন্দালুসীয় সুফি সাধক ইবনে সাবিন তার লেখায় এই শব্দটি ব্যবহার করেছেন বলেও জানা যায়। তবে যে সূফী সাধক গভীর ও বিশদভাবে সূফী অধিবিদ্যার এ আদর্শের আলোচনায় সর্বাধিক বৈশিষ্ট্যযুক্ত, তিনি হলেন ইবনে আরাবী। তিনি ঈশ্বরকে প্রয়োজনীয় সত্তা হিসাবে উল্লেখ করার জন্য ওজুদ শব্দটি ব্যবহার করেন। তিনি এই শব্দটিকে ঈশ্বর ব্যতীত অন্য যে কোনও কিছুর সাথেও দায়ী করেছেন, কিন্তু তিনি জোর দিয়েছিলেন যে ওজুদ কোন সত্য অর্থে বিশ্বজগতে প্রাপ্ত জিনিসের অন্তর্ভুক্ত নয়। বরং পৃথিবী যেমন সূর্য থেকে আলো গ্রহণ করে, ঈশ্বরের কাছ থেকে তেমনি সব জিনিড উজুদকে ধার করে। বিষয়টি হল ওজুদের উপাধি কীভাবে কোন জিনিসে সঠিকভাবে প্রয়োগ করতে হয়, তাকে "সত্তা" (আয়ান) বলা হয়। তানজির দৃষ্টিকোণ থেকে ইবনে আরবী ঘোষণা করেছেন যে ওজুদ একমাত্র ঈশ্বরের অন্তর্ভুক্ত, এবং তার বিখ্যাত উক্তিতে কোন জিনিসই "কখনোই ওজুদের গন্ধের ছিটেফোটা পায় নি।"

ভারতের দুজন সুফী কবি সচল সরমাস্ত এবং বুল্লে শাহ ওয়াহদাত আল-উজুদের প্রখর অনুসারী ছিলেন। এটি দক্ষিণ এশিয়ার হামাহ উস্ত (ফার্সি অর্থ "তিনিই শুধু এক") দর্শনের সাথে যুক্ত।

ওয়াহদাত আশ-শুহুদ[সম্পাদনা]

ওয়াহদাত আশ-শুহুদ (বা ওয়াহ-দাত-উল-শুহুদ, ওয়াহদাত-উল-শুহুদ, বা ওয়াহাদাতুলশুহুদ) প্রায়শই ইংরেজিতে এপারেন্টিজম বা সাপেক্ষবাদ হিসাবে অনুবাদ করা হয়েছে। আরবিতে এর আক্ষরিক অর্থ "সাক্ষীর একতা", "উপলব্ধির একতা", "উপস্থিতির একতা" বা "প্রকাশের একত্ব"।

যারা ওয়াহদাত আল-উজুদের মতবাদের বিরোধিতা করেছিল তাদের মধ্যে এমন কিছু ব্যক্তি ছিলেন যারা ওয়াহদাত আশ-শুহুদ মতবাদ তৈরি করতে কর্মের জায়গায় কর্তাকে প্রতিস্থাপন করেছিলেন। এই মাজহাবটি আল-আদ-দাওলা সিমনানি দ্বারা প্রণয়ন করা হয়েছিল, যিনি আহমেদ সিরহিন্দি সহ ভারতের বহু অনুগামীদের আকৃষ্ট করেছিলেন, যিনি ভারতীয় উপমহাদেশে এই মতবাদের কয়েকটি বহুলভাবে স্বীকৃত সূত্র সরবরাহ করেছিলেন।

আহমদ সিরহিন্দি মতবাদ অনুসারে, ঈশ্বর ও সৃষ্ট বিশ্বের মধ্যে ঐক্যের যে কোনও অভিজ্ঞতা নিখুঁতভাবে বিষয়ভিত্তিক এবং তা কেবল বিশ্বাসীর মনেই ঘটে; বাস্তব বিশ্বে এর কোনও উদ্দেশ্যমূলক অংশ নেই। এর পূর্বে শায়খ আহমদ যা অনুভব করেছিলেন, তা তাকে সর্বেশ্বরবাদের দিকে পরিচালিত করেছিলো, যা সুন্নি ইসলামের আদর্শের পরিপন্থী ছিল।

আলেমদের অভিমত[সম্পাদনা]

মনজুর এলাহি তার "সমাজ সংস্কারে সঠিক আকীদার গুরুত্ব" বইতে ইসলামী অধিবিদ্যা সম্পর্কে বলেন,[১]

মুতাকাল্লিমীনগণ আকীদা শাস্ত্রকে ‘‘ইলমুল কালাম’’ এবং দার্শনিকগণ ‘‘আল-ফালসাফা আল-ইসলামিয়্যাহ’’ বা ইসলামী দর্শন, ‘‘আল-ইলাহিয়্যাত’’ ও ‘‘মেটাফিজিক্স’’ (অধিবিদ্যা বা অতিপ্রাকৃতিকতা) নামে অভিহিত করেছেন। শেষোক্ত এ নামগুলো সম্পর্কে ড. নাসের আল-আকলসহ আরো অনেকে বলেন যে, ইসলামী আকীদাকে এসকল নামে অভিহিত করা মোটেই শুদ্ধ নয়। এর কারণ বর্ণনায় মুহাম্মদ ইবরাহীম আল হামাদ বলেন, “কেননা ইলমুল কালামের উৎস হল মানব বুদ্ধি-বিবেক, যা হিন্দু ও গ্রিক দর্শন নির্ভর। পক্ষান্তরে তাওহীদের মূল উৎস হল ওহী। তাছাড়া ইলমুল কালামের মধ্যে রয়েছে অস্থিরতা, ভারসাম্যহীনতা, অজ্ঞতা ও সংশয়-সন্দেহ। এজন্যই সালাফে সালেহীন ইলমুল কালামের নিন্দা জ্ঞাপন করেছেন। আর তাওহীদ হল জ্ঞান, দৃঢ় বিশ্বাস ও ঈমান নির্ভর,….. আরেকটি কারণ এও বলা যেতে পারে যে, দর্শনের ভিত্তি অনুমান, বাতিল আকীদা, কাল্পনিক চিন্তা ও কুসংস্কারচ্ছন্ন ধারণার উপর স্থাপিত”। ইমাম হারাওয়ী ذم الكلام وأهله নামে ৫ খন্ডের একটি বই এবং ইমাম গাযযালী تهافت الفلاسفة নামে একটি বই রচনা করেছেন। এছাড়া ‘ইলমুল কালাম’ ও ‘ফালসাফা’ যে সঠিক ইসলামী আকীদার প্রতিনিধিত্ব করে না, সে বিষয়ে ইমাম ইবনে তাইমিয়া ও ইবনুল কাইয়েমসহ আরো বহু মুসলিম স্কলার বিস্তারিত আলোচনা করেছেন।

আরও দেখুন[সম্পাদনা]

তথ্যসূত্র[সম্পাদনা]

  1. ইলাহী, মোহাম্মদ মানজুরে। যাকারিয়া, আবু বকর মুহাম্মাদ, সম্পাদক। সমাজ সংস্কারে সঠিক আকীদার গুরুত্ব, (PDF)। রিয়াদ, সৌদি আরব: Islamic Propagation Office in Rabwah। পৃষ্ঠা ১১–১২। সংগ্রহের তারিখ ২৩ নভেম্বর ২০২২