ঈদে মিলাদুন্নবী

উইকিপিডিয়া, মুক্ত বিশ্বকোষ থেকে
সরাসরি যাও: পরিভ্রমণ, অনুসন্ধান
মুহাম্মাদ
উপরে উল্লেখিত বিষয়ের উপর ধারাবাহিকের একটি অংশ
Muhammad

পরিচিতি

ঈদ-এ-মিলাদুন্নবী লাহোর পাকিস্তান

ঈদে মিলাদুন্নবী(مَوْلِدُ النَبِيِّ) হল আরবি তিনটি শব্দের সম্মিলিত রূপ। ঈদ,মিলাদ ও নবী এই তিনটি শব্দ নিয়ে এটি গঠিত। আভিধানিক অর্থে ঈদ অর্থ খুশি, মিলাদ অর্থ জন্ম, নবী অর্থ বার্তাবাহক। পারিভাষিক অর্থে মহানবী সঃ এর দুনিয়াতে আবির্ভাবের আনন্দকে ঈদে মিলাদুন্নবী বলা হয়।[১]

ঈদে মিলাদুন্নবী পালন করা নিয়ে মুসমানদের মধ্য মতভেদ রয়েছে। তবে সুন্নী মুসলিমরা এই দিনটি যথাযথ ধর্মীয় ভাব-গাম্ভীর্যের সাথে পালন করে থাকে।এই দিনটিতে বাংলাদেশে সরকারি ছুটি থাকে।ঢাকাসহ সারাদেশে ঈদে মিলাদুন্নবী পালিত হয়। বাংলাদেশে সবচেয়ে বড় মিলাদুন্নবীর অনুষ্ঠান হয়ে থাকে চট্টগ্রামে। সেখানে প্রায় কয়েক লক্ষ মানুষের জমায়েত হয়। সেটি আয়োজন করে থাকে বাংলাদেশ আঞ্জুমানে রহমানিয়া আহমদিয়া সুন্নীয়া ট্রাস্ট[২][৩]

উৎপত্তি[সম্পাদনা]

রাষ্ট্রিয়ভাবে প্রথম ঈদে মিলাদুন্নবীর আবিষ্কারক হলেন আরবলের অধিপতি বাদশাহ মুজাফফর উদ্দিন কৌকুরী, ৬০৪ হিজরীতে তিনি সর্বপ্রথম এটি আবিষ্কার করেন।[৪] তিনি প্রত্যক বৎসর অত্যন্ত ঝাঁকজমকের সাথে এটি পালন করতেন। এর পেছনে তিনি তৎকালীন প্রায় তিন লক্ষ মুদ্রা ব্যয় করতেন। [৫] বাদশাহের এই রকম উদারতার কারণে একদল লোক তার দিকে আকৃষ্ট হয়ে পড়ে। [৬] তারপর থেকে প্রতি বছর বিভিন্ন দেশে বিভিন্ন কর্মকান্ডের মাধ্যমে এটি পালিত হয়ে আসছে।

তথ্যসূত্র[সম্পাদনা]

  1. [১]
  2. http://www.anjumantrust.org/
  3. "চট্টগ্রামে ঈদে মিলাদুন্নবী (দঃ) এর বিশাল শোভাযাত্রা"http://www.ntvbd.com (বাংলা ভাষায়)। সংগৃহীত ২৫/১২/২০১৫ 
  4. আল বালাগুল মুবিন,পৃষ্ঠা ৪,ইবনে সাখাবী রহঃ
  5. দুয়ালুল ইসলাম, শামসুদ্দিন যাহেরী রহঃ, খন্ড ২, পৃষ্ঠা ১০৩
  6. রাহে সুন্নত, পৃষ্ঠা ১৬২, মালেক মিসরী

৬. মাদারিজুন নবুয়ত,আব্দুল হক মোহাদ্দেসে দেহলভী।