ঈদে মিলাদুন্নবী

উইকিপিডিয়া, মুক্ত বিশ্বকোষ থেকে
ঈদে মিলাদুন্নবী
Maulidur Rasul (8413657269).jpg
২০১৩ সালে মালয়েশিয়ার রাজধানী পুত্রজায়ায় ঈদে মিলাদুন্নবীর একটি র‌্যালি
অন্য নামমাওলিদ আন-নাবী (المولد النبوي), মাওয়ালিদ, হ্যাভলিয়ে, দনবা, গনি[১]
পালনকারীমূলধারার সুন্নি ইসলাম, শিয়া ইসলাম এবং ইসলামের অন্যান্য শাখার অনুসারীগণ। আফগানিস্তান, আলজেরিয়া, বাহরাইন, বাংলাদেশ, বেনিন, ব্রুনাই, বুরকিনা ফাসো, চাদ, মিশর, গাম্বিয়া, ভারত, ইন্দোনেশিয়া, ইরান, ইরাক, জর্দান, কুয়েত, লেবানন, লিবিয়া, মালয়েশিয়া, মালদ্বীপ, মালি, মৌরিতানিয়া, মরক্কো, নাইজার, নাইজেরিয়া, ওমান, পাকিস্তান, সেনেগাল, সোমালিয়া, সুদান, তিউনিসিয়া এবং ইয়েমেনে সরকারি ছুটির দিন হিসেবে উৎযাপিত হয়।
ধরনইসলামী
তাৎপর্যইসলামের নবি মুহাম্মাদের জন্মদিন
পালনহামদ্, তাসবিহ, রোযা, র‌্যালি, নাত, পারিবারিক ও সামাজিক সম্মেলন, সড়ক ও ভবনে সাজ-সজ্জা
তারিখ১২ রবিউল আউয়াল
সংঘটনপ্রতি হিজরি বছরে একদিন

ঈদ-এ-মিলাদুন্নবী (আরবি: مَوْلِدُ النَبِيِّ‎‎ মাওলিদু এন-নাবীয়ী, আরবি: مولد النبي মাওলিদ আন-নাবী, কখনো কখনো সহজভাবে বলা হয় مولد মাওলিদ, মেভলিদ, মেভলিট, মুলুদ আরো অসংখ্য উচ্চারণ; কখনো কখনো: ميلاد মিলাদ) হচ্ছে শেষ নবীর জন্মদিন হিসেবে মুসলমানদের মাঝে পালিত একটি উৎসব। মুসলিমদের মাঝে এ দিনটি বেশ উৎসবের সাথে পালন হতে দেখা যায়। তবে উৎসব নিয়ে ইসলামি পণ্ডিতদের মাঝে অনেক বিতর্ক রয়েছে। হিজরি বর্ষের তৃতীয় মাস রবিউল আউয়াল-এর বারো তারিখে এ উৎসব অনুষ্ঠিত হয়।[২] বাংলাদেশি মুসলমানরা এই দিনকে ঈদ-এ-মিলাদুন্নবী বলে অভিহিত করেন। অপরদিকে পশ্চিমবঙ্গের মুসলমানদের কাছে এই দিন নবী দিবস নামে পরিচিত।

ইতিহাস[সম্পাদনা]

হিজরী ৪র্থ শতাব্দীর মাঝামাঝি থেকে মিলাদুন্নবীর প্রচলন শুরু হয়। রাসূল, আলী, ফাতেমা, হাসান ও হুসাইন এর জন্মদিন, এসবের মূল প্রর্বতক ছিল খলীফা আল মুয়িজ্জু লি-দীনিল্লাহ।

এখানে উল্লেখ্য যে, মিশরের এইসব অনুষ্ঠানাদি তখনো মুসলিম বিশ্বের অন্যত্র ছড়িয়ে পড়েনি।  পরবর্তীতে যিনি ঈদে মিলাদুন্নবীকে মুসলিমবিশ্বের অন্যতম উৎসব হিসেবে প্রতিষ্ঠা করেছেন, তিনি হলেন, ইরাক অঞ্চলের ইরবিল প্রদেশের  আবু সাঈদ কুকবুরী । সে হিসেবে জানা যায়, ৭ম হিজরী থেকে আনুষ্ঠানিক মিলাদ উদযাপন শুরু হয়। মিলাদের উপর সর্বপ্রথম গ্রন্থ রচনা করে আবুল খাত্তাব ওমর ইবনে হাসান ইবনে দেহিয়া আল কালবী ।

তথ্যসূত্র[সম্পাদনা]

  1. "Mawlid in Africa"Muhammad (pbuh) – Prophet of Islam। সংগ্রহের তারিখ ২ ফেব্রুয়ারি ২০১৬ 
  2. "Definition of mawlid | Dictionary.com"www.dictionary.com (ইংরেজি ভাষায়)। সংগ্রহের তারিখ ২০২০-০৫-১৫