বারো ইমাম

উইকিপিডিয়া, মুক্ত বিশ্বকোষ থেকে

বারো ইমাম বা দ্বাদশ ইমাম (আরবি: ٱلَأَئِمَّة ٱلْٱثْنَا عَشَر‎, প্রতিবর্ণী. al-ʾAʾimmah al-ʾIthnā ʿAšar‎; ফার্সি: دوازده امام‎‎, Davâzdah Emâm) হলেন শিয়া ইসলামের ইসনা আশারিয়া (আলবীয় ও আলেভি-সহ) শাখার বিশ্বাসমতে পয়গম্বর মুহম্মদের আধ্যাত্মিক ও রাজনৈতিক স্থলাভিষিক্তগণ।[১] দ্বাদশী ধর্মতত্ত্ব অনুযায়ী বারো ইমাম হলেন অনুকরণীয় ব্যক্তিত্বগণ যাঁরা ন্যায়বিচারের সাথে মুসলিম সম্প্রদায়কে শাসনের পাশাপাশি শরীয়ত ও কুরআনের গূঢ়ার্থ সংরক্ষণ ও ব্যাখ্যা করতে সক্ষম। নবী মুহাম্মদ ও ইমামদের কথা ও কাজ সমাজের জন্য অনুসরণীয় পথপ্রদর্শক ও আদর্শ; কাজেই তাঁদের অবশ্যই ত্রুটিহীন ও নিষ্পাপ হতে হবে এবং অবশ্যই মুহাম্মাদের মাধ্যমে আল্লাহর ফরমান বা নাস দ্বারা মনোনীত হতে হবে।[২][৩]

নবী মুহম্মদ ও দ্বাদশ ইমামের চারুলিপিগত উপস্থাপন।

ইমামদের বিশ্বাস[সম্পাদনা]

শিয়া মুসলিমদের দ্বাদশবাদিতে এটা বিশ্বাস করা হয় যে বুদ্ধি, স্বর্গীয় জ্ঞান, হচ্ছে নবীর এবং ইমামদের আত্নার উৎস এবং তারা যে বৈশিষ্টপূর্ণ জ্ঞান পায় সেটা হিকমাহ নামে পরিচিত এবং তাদের সেগুলো বহন করা হচ্ছে তাদের উপাসনার জন্য স্বর্গীয় অনুগ্রহ।[৪][৫] যদিও ইমামরা কোন স্বর্গীয় বার্তা গ্রহণ করে না, কিন্তু সৃষ্টিকর্তার সাথে তাদের একটি সম্পর্ক রয়েছে, যেটির মাধ্যমে সৃষ্টিকর্তা তাকে পথপ্রদর্শন করেন এবং ইমামরা সে পথ মানুষকে দেখান। ইমামরা পথপ্রদর্শিত হন লুকানো গ্রন্থ এবং তাদের উপস্থিতি সম্পর্কে যেমন আল-জাফর এবং আল-জামিয়া। ইমামদের উপর বিশ্বাস হচ্ছে দ্বাদশবাদি শিয়াদের মূল ধর্ম বিশ্বাসের একটি এবং সেটির ভিত্তি হচ্ছে যে সৃষ্টিকর্তা কখনো মানুষদের কখনো পথপ্রদর্শন ছাড়া ছেড়ে দিবেন না।[৬]

দ্বাদশবাদিদের মতে, সবসময় একজন ইমাম থাকেন সব শতাব্দীর জন্য, যে স্বর্গীয়ভাবে নির্বাচিত ব্যক্তি যে মুসলিম সম্প্রদায়ের বিশ্বাস এবং আইনের উপর কর্তৃত্ব রাখে। আলী ইবনে আবু তালিব ছিলেন বারো ইমামের প্রথম ইমাম এবং দ্বাদশবাদি ও সুফীদের দর্শন অনুযায়ী মোহাম্মদের যোগ্য উত্তরসূরী হচ্ছেন মোহাম্মদের বংশধররা যারা তার কন্যা ফাতেমার সাথে সম্পর্কযুক্ত। প্রত্যেক বর্তমান ইমাম তাদের ঠিক আগের ইমামের পুত্র শুধুমাত্র হোসাইন ইবনে আলী ছাড়া যিনি হাসান ইবনে আলীর ভাই ছিলেন। দ্বাদশ এবং সর্বশেষ ইমাম হচ্ছেন মোহাম্মদ আল-মাহদি, দ্বাদশবাদিরা বিশ্বাস করে যে বর্তমানে তিনি জীবিত এবং গুপ্ত আছেন যিনি ফিরবেন পৃথিবীতে ন্যায় নিয়ে আসার জন্য।[৬] দ্বাদশবাদি,শিয়া এবং আলেভী মুসলিমরা বিশ্বাস করে যে বারো ইমামের কথা হাদিসের মধ্যে রয়েছে বারো উত্তরাধিকারী হিসাবে। সকল ইমামই অপ্রাকৃতিক ভাবে মৃত্যুবরণ করেছেন, শুধুমাত্র শেষ ইমাম ছাড়া, দ্বাদশবাদি এবং আলেভী বিশ্বাস অনুযায়ী যিনি এখন গুপ্তভাবে আছেন।

বারো ইমামদের মধ্যে অনেকেই সুফী ক্রমের প্রধান ব্যক্তিও ছিলেন, এবং ইসলামের আধ্যাত্মিক প্রধান হিসাবে দেখা যায়। কারণ সুফী ক্রমের বেশিরভাগের পূর্বসূরী বারো ইমামের একজনের সাথে সংযুক্ত।

ইমামদের তালিকা[সম্পাদনা]

ক্রম ইসলামি চারুলিপি নাম
কুনিয়া
আরবি উপাধি
তুর্কি উপাধি[৭]
জীবনকাল (খ্রিস্টাব্দ)
জীবনকাল (হিজরি)[৮]
জন্মস্থান
ইমামত গ্রহণকালে বয়স মৃত্যুকালে বয়স ইমামতকাল গুরুত্ব মৃত্যুর কারণ ও মৃত্যুস্থল
সমাধি[৯]
Alī.png ʿআলী ʾইবনে ʾআবী ত়ালিব
ٱلْإِمَام عَلِيّ ٱبْن أَبِي طَالِب عَلَيْهِ ٱلسَّلَام
আবুল হ়াসান
أَبُو ٱلْحَسَن
  • আমীরুল মুʾমিনীন
    (أَمِير ٱلْمُؤْمِنِين)
    (বিশ্বাসীদের নেতা)[১০]
  • আল-মুর্তজ়া
    (ٱلْمُرْتَضَىٰ)
    (প্রিয়জন)
  • আল-ওয়াস়ী
    (ٱلْوَصِيّ)
    (স্থলাভিষিক্ত)
  • আল-ওয়ালী[১১]
    (ٱلْوَلِيّ)
    (ওয়ালি)
  • আবু তুরাব
    (أَبُو تُرَاب)
    (মাটির পিতা)
  • আসাদুল্লাহ
    (أَسَد الله)
    (আল্লাহর সিংহ)
  • ওয়ালীউল্লাহ[১২]
    (وَلِيّ الله)
    (আল্লাহর ওয়ালি)
  • মওলা
    (مَوْلَاه)
    (সর্দার, কর্তা, বন্ধু)
  • হয়দর
    (حَيّدَر)
    (সিংহ)
  • উলিল আমর[১৩]
    (أُولِي الْأَمْرِ‌)
    (কর্তৃত্বের অধিকারী)
  • মুশকিল কুশা
    (مُشْکِل کُشَاہ)
    (কষ্ট দূরকারী)
  • নফসে নবী[১৪]
    (نَفْسِ نَبِيّ)
    (নবীর নফস)
  • বাব আল-মদীনাতুল ʿইলম
    (بَابِ ٱلْمَدِيْنَةُ ٱلْعِلْمِ)
    (জ্ঞানের শহরের দরজা)
  • আন-নাসি মাইয়াশরিয়ুন নফসাহুব তিগাআ মরদাতিল্লাহ[১৫]
    (النَّاسِ مَنۡ يَّشۡرِىۡ نَفۡسَهُ ابۡتِغَآءَ مَرۡضَاتِ اللّٰهِ​)
    (যে আল্লাহর সন্তুষ্টির উদ্দেশ্যে নিজেকে বিকিয়ে দেয়)

  • বিরিঞ্জি আলী
    (Birinci Ali)
    (প্রথম আলী)[১৬]
৬০০–৬৬১[১০]
২৩ হিজরতপূর্ব–৪০[১৭]
মক্কা, হেজাজ[১০]
৩৩ বছর ৬১ বছর ২৮ বছর মুহম্মদের ﷺ চাচাতো ভাই ও জামাতা। শিয়া বিশ্বাসমতে তিনি ইসলামের পবিত্রতম স্থান কাবার অভ্যন্তরে জন্মগ্রহণকারী একমাত্র ব্যক্তি এবং প্রথম ইসলামগ্রহণকারী পুরুষ। শিয়া মুসলমানেরা তাঁকে মুহম্মদের ﷺ একমাত্র ন্যায্য স্থলাভিষিক্ত এবং প্রথম ইমাম হিসেবে বিবেচনা করে। সুন্নি মুসলমানেরা তাঁকে চতুর্থ রাশিদুন খলিফা হিসেবে গণ্য করে। সুফিবাদের প্রায় সকল তরিকায় তাঁকে উচ্চ মর্যাদা দেওয়া হয়; তরিকাসমূহের সদস্যগণ মুহম্মদ ﷺ পর্যন্ত তাদের সিলসিলা আলীর মাধ্যমে জারি রাখেন।[১০] রমজান মাসে মসজিদ আল-কুফায় নামাজে সেজদারত অবস্থায় আব্দুর রহমান ইবনে মুলজিম নামক এক খারিজি গুপ্তঘাতকের বিষাক্ত তরবারির আঘাতে আহত হয়ে বিষক্রিয়ায় মৃত্যুবরণ করেন।[১০][১৮]
শিয়া বিশ্বাসমতে তাঁকে ইরাকের নাজাফ শহরের ইমাম আলী মসজিদে দাফন করা হয়।
Hassan ibn Ali.jpg হ়াসান ʾইবনে ʿআলী
ٱلْإِمَام ٱلْحَسَن ٱبْن عَلِيّ عَلَيْهِ ٱلسَّلَام
আবু মুহ়ম্মদ
أَبُو مُحَمَّد
  • আল-মুজতবা
    (ٱلْمُجْتَبَىٰ)
    (মনোনীত)
  • আস-সৈয়দ
    (ٱلْسَّيِّد)
    (সর্দার)
  • সৈয়দু শবাবি আহলিল জান্নাহ[১৯][২০]
    (سَيِّدُ شَبَابِ أهْلِ ٱلْجَنَّةِ)
    (জান্নাতি যুবকদের সর্দার)
  • সিবত় আন-নবী
    (سِبْط ٱلنَّبِيّ)
    (নবীর বংশ)

  • ইকিঞ্জি আলী
    (İkinci Ali)
    (দ্বিতীয় আলী)[১৬]
৬২৫–৬৭০[২১]
৩–৫০[২২]
মদীনা, হেজাজ[২১]
৩৯ বছর ৪৭ বছর ৮ বছর তিনি ছিলেন মুহম্মদের ﷺ কন্যা ফাতিমার গর্ভজাত দৌহিত্রদের মধ্যে সবার বড়। হাসান কুফায় তাঁর পিতা আলীর স্থলাভিষিক্ত হিসেবে নিযুক্ত হন। সাত মাস খলিফা হিসেবে দায়িত্বপালনের পর মুয়াবিয়া ইবনে আবী সুফিয়ানের সঙ্গে একটি শান্তিচুক্তির ভিত্তিতে তিনি পদত্যাগ করেন।[২১] মুয়াবিয়ার প্ররোচনায় স্বীয় স্ত্রীর মাধ্যমে বিষপ্রয়োগে হত্যা করা হয়।[২৩]
তাঁকে মদীনার জান্নাতুল বাকিতে দাফন করা হয়।
Hhussain ibn ali.jpg হ়োসাইন ʾইবনে ʿআলী
ٱلْإِمَام ٱلْحُسَيْن ٱبْن عَلِيّ عَلَيْهِ ٱلسَّلَام
আবু ʿআব্দুল্লাহ
أَبُو عَبْد ٱللَّٰه
  • আশ-শহীদ[১৯]
    (ٱلشّهِيْد)
    (শহীদ)
  • সৈয়দ আশ-শুহাদাʾ[২৪][২৫][২৬]
    (سَيِّد ٱلشُّهَدَاء)
    (শহীদদের সর্দার)
  • সৈয়দু শবাবি আহলিল জান্নাহ[১৯][২৭]
    (سَيِّدُ شَبَابِ أَهْلِ ٱلْجَنَّةِ)
    (জান্নাতি যুবকদের সর্দার)
  • আর-রশীদ[১৯]
    (ٱلرَّشِيْد)
    (ন্যায়নিষ্ঠ)
  • আত-তাবিঈ লি মর্দাতিল্লাহ[১৯]
    (ٱلتَّابِعّ لِي مَرۡضَاتِ اللّٰهِ)
    (দৈব ইচ্ছার অনুসারী)
  • আল-মুবারক[১৯]
    (ٱلْمُبَارَك)
    (মহিমান্বিত)
  • আত়-ত়ৈয়িব[১৯]
    (ٱلطَّيِّب)
    (বিশুদ্ধ)
  • আল-মজ়লুম
    (ٱلْمَظْلُوم)
    (নিপীড়িত)
  • আল-ওয়াফী[১৯]
    (ٱلْوَافِيّ)
    (বিশ্বস্ত)
  • সিবত় আন-নবী
    (سِبْط ٱلنَّبِيّ)
    (নবীর বংশ)

  • উচুঞ্জু আলী
    (Üçüncü Ali)
    (তৃতীয় আলী)[১৬]
৬২৬–৬৮০[২৮]
৪–৬১[২৯]
মদীনা, হেজাজ[২৮]
৪৬ বছর ৫৭ বছর ১১ বছর তিনি ছিলেন মুহম্মদের ﷺ দৌহিত্র, আলীর পুত্র এবং হাসানের ভাই। হোসাইন উমাইয়া শাসক ইয়াজিদ ইবনে মুয়াবিয়ার দুঃশাসনের বিরোধিতা করেন। ফলস্রুতিতে তিনি, তাঁর পরিবার ও সহচারীরা কারবালার যুদ্ধে ইয়াজিদের সৈন্যবাহিনী কর্তৃক নির্মমভাবে শহীদ হন। এই ঘটনার পর থেকে হোসাইনের শাহাদতের স্মৃতিচারণ শিয়া আত্মপরিচয়ের একটি কেন্দ্রীয় বিষয় হয়ে ওঠে।[২৮] কারবালার যুদ্ধে শিরশ্ছেদ করে হত্যা করা হয়।
তাঁকে ইরাকের কারবালার ইমাম হোসেনের মাজারে দাফন করা হয়।[২৮]
Imam sajjad.jpg ʿআলী ʾইবনে হ়োসাইন
ٱلْإِمَام عَلِيّ ٱبْن ٱلْحُسَيْن ٱلسَّجَّاد عَلَيْهِ ٱلسَّلَام
আবু মুহ়ম্মদ
أَبُو مُحَمَّد
  • আস-সাজ্জাদ
    (ٱلسَّجَّاد)
    (অবিচল সেজদাকারী)
  • জ়য়নুল ʿআবেদীন
    (زَيْن ٱلْعَابِدِين)
    (উপাসকদের অলঙ্কার)[৩০]

  • দর্দুঞ্জু আলী
    (Dördüncü Ali)
    (চতুর্থ আলী)[১৬]
৬৫৮/৬৫৯[৩০] – ৭১২[৩১]
৩৮[৩০]–৯৫[৩১]
মদীনা, হেজাজ[৩০]
২৩ বছর ৫৭ বছর ৩৪ বছর সহিফা আস-সাজ্জাদিয়ার রচয়িতা, যা আহল আল-বাইতের স্তোত্র হিসেবে পরিচিত।[৩১] দুর্বলতাজনিত অসুস্থতার কারণে কারবালার যুদ্ধে অংশগ্রহণ না করায় তিনি প্রাণে বেঁচে যান। উমাইয়া খলিফা প্রথম আল-ওয়াহিদের নির্দেশে তাঁকে বিষপ্রয়োগ করে হত্যা করা হয়।[৩১]
মদীনার জান্নাতুল বাকিতে তাঁকে দাফন করা হয়।
Baqir ibn sajjad.jpg মুহ়ম্মদ ʾইবনে ʿআলী
ٱلْإِمَام مُحَمَّد ٱبْن عَلِيّ ٱلْبَاقِر عَلَيْهِ ٱلسَّلَام
আবু জাʿফর
أَبُو جَعْفَر
  • আল-বাক়ির
    (ٱلبَاقِر)
    (উন্মোচনকারী)[৩২]

  • বেশিঞ্জি আলী
    (Beşinci Ali)
    (পঞ্চম আলী)[১৬]
৬৭৭–৭৩২[৩২]
৫৭–১১৪[৩২]
মদীনা, হেজাজ[৩২]
৩৮ বছর ৫৭ বছর ১৯ বছর সুন্নিশিয়া উভয় সূত্রমতে তিনি অন্যতম প্রাচীন ও বিশিষ্ট ফিকহশাস্ত্রবিদ ছিলেন যিনি তাঁর জীবদ্দশায় অসংখ্য শিক্ষার্থীদের পাঠদান করেন।[৩২][৩৩] উমাইয়া খলিফা হিশাম ইবনে আবদুল মালিকের নির্দেশে ইব্রাহীম ইবনে ওয়ালিদ ইবনে আব্দুল্লাহ কর্তৃক বিষপ্রয়োগে তাঁকে হত্যা করা হয়।[৩১]
মদীনার জান্নাতুল বাকিতে তাঁকে দাফন করা হয়।
Jaffer-e-Sadiq.jpg জাʿফর ʾইবনে মুহ়ম্মদ
ٱلْإِمَام جَعْفَر ٱبْن مُحَمَّد ٱلصَّادِق عَلَيْهِ ٱلسَّلَام
আবু ʿআব্দুল্লাহ[৩৪]
أَبُو عَبْد ٱللَّٰه
  • আস়-স়াদিক়[৩৫]
    (ٱلصَّادِق)
    (সজ্জন)

  • আলতিঞ্জি আলী
    (Altıncı Ali)
    (ষষ্ঠ আলী)[১৬]
৭০২–৭৬৫[৩৫]
৮৩–১৪৮[৩৫]
মদীনা, হেজাজ[৩৫]
৩১ বছর ৬৫ বছর ৩৪ বছর শিয়া বিশ্বাসমতে তিনি জাফরি মাজহাব এবং দ্বাদশী ধর্মতত্ত্বের প্রতিষ্ঠাতা। তিনি বিভিন্ন বিষয়ে অসংখ্য পণ্ডিতদের শিক্ষাদান করেছিলেন। তাঁর ছাত্রদের মধ্যে ফিকহশাস্ত্রে আবু হানিফামালিক ইবনে আনাস, কালামশাস্ত্রে ওয়াসিল ইবনে আতা ও হিশাম ইবনে হাকাম, এবং বিজ্ঞানআলকেমিতে জাবির ইবনে হাইয়ান বিশেষভাবে উল্লেখযোগ্য।[৩৫] উমাইয়া খলিফা আল-মনসুরের নির্দেশে মদীনায় বিষপ্রয়োগ করে তাঁকে হত্যা করা হয়।[৩৫]
তাঁকে মদীনার জান্নাতুল বাকিতে দাফন করা হয়।
Al-Kazim.jpg মুসা ʾইবনে জাʿফর
ٱلْإِمَام مُوسَىٰ ٱبْن جَعْفَر ٱلْكَاظِم عَلَيْهِ ٱلسَّلَام
আবুল হ়াসান
أَبُو ٱلْحَسَن ٱلْأَوَّل[৩৬]
  • আল-কাজ়িম[৩৭]
    (ٱلْكَاظِم)
    (কারারুদ্ধ)

  • ইয়েদিঞ্জি আলী
    (Yedinci Ali)
    (সপ্তম আলী)[১৬]
৭৪৪–৭৯৯[৩৭]
১২৮–১৮৩[৩৭]
আল-আবওয়াʿ, হেজাজ[৩৭]
২০ বছর ৫৫ বছর ৩৫ বছর তিনি জাফর আস-সাদিকের মৃত্যুর পর ইসমাইলি ও ওয়াকিফি বিচ্ছেদকালীন শিয়া সম্প্রদায়ের নেতা ছিলেন।[৩৮] তিনি মধ্যপ্রাচ্যবৃহত্তর খোরাসানের শিয়া মতাবলম্বীদের কাছ থেকে খুমুস সংগ্রহের উদ্দেশ্যে প্রতিনিধিদের একটি অন্তর্জাল গড়ে তোলেন। তিনি মাহদবী তরিকায় উচ্চ সম্মানে ভূষিত যারা তাঁর মাধ্যমে মুহম্মদ ﷺ অবধি সিলসিলা চিহ্নিত করে থাকে।[৩৯] আব্বাসীয় খলিফা হারুনুর রশিদের নির্দেশে বাগদাদে তাঁকে কারাবন্দী করা হয় এবং বিষপ্রয়োগ করে হত্যা করা হয়।
ইরাকের বাগদাদ শহরের কাজিমিয়া শহরতলীর আল-কাজিমিয়া মসজিদের তাঁকে দাফন করা হয়।[৩৭]

Al redah.jpg

ʿআলী ʾইবনে মুসা
ٱلْإِمَام عَلِيّ ٱبْن مُوسَىٰ ٱلرِّضَا عَلَيْهِ ٱلسَّلَام
দ্বিতীয় আবুল হ়াসান
أَبُو ٱلْحَسَن ٱلثَّانِي[৩৬]
  • আর-রিদ়া[৪০]
    (ٱلرِّضَا)
    (মনোরম)

  • সেকিজ়িঞ্জি আলী
    (Sekizinci Ali)
    (অষ্টম আলী)[১৬]
৭৬৫–৮১৭[৪০]
১৪৮–২০৩[৪০]
মদীনা, হেজাজ[৪০]
৩৫ বছর ৫৫ বছর ২০ বছর আব্বাসীয় খলিফা আল-মামুন তাঁকে যুবরাজ ঘোষণা করেন। তিনি মুসলিম ও অমুসলিম ধর্মীয় পণ্ডিতদের সাথে তাঁর আলোচনার জন্য বিখ্যাত।[৪০] শিয়া সূত্রমতে আল-মামুনের নির্দেশে পারস্যের মাশহাদে তাঁকে বিষপ্রয়োগ করে হত্যা করা হয়৷
তাঁকে ইরানের মাশহাদের ইমাম রেজার মাজারে দাফন করা হয়।[৪০]
Imam Taqi.jpg মুহ়ম্মদ ʾইবনে ʿআলী
ٱلْإِمَام مُحَمَّد ٱبْن عَلِيّ ٱلْجَوَّاد عَلَيْهِ ٱلسَّلَام
আবু জাʿফর
أَبُو جَعْفَر
  • আল-জওয়াদ[৪১]
    (ٱلْجَوَّاد)
    (উদার)
  • আত-তক়ী[৪১]
    (ٱلتَّقِيّ)
    (খোদাভীরু)

  • দোকুজ়ুঞ্জু আলী
    (Dokuzuncu Ali)
    (নবম আলী)[১৬]
৮১০–৮৩৫[৪১]
১৯৫–২২০[৪১]
মদীনা, হেজাজ[৪১]
৮ বছর ২৫ বছর ১৭ বছর আব্বাসীয় খলিফাদের নিপীড়নের মুখেও তাঁর উদারতা ও ধার্মিকতার জন্য বিশেষভাবে খ্যাত। খলিফা আল-মুতাসিমের নির্দেশে আল-মামুনের কন্যা ও স্বীয় স্ত্রীর মাধ্যমে বিষপ্রয়োগ করে তাঁকে হত্যা করা হয়।
তাঁকে ইরাকের বাগদাদ শহরের কাজিমিয়া শহরতলীর আল কাজিমিয়া মসজিদে দাফন করা হয়।[৪১]
১০ Imam naqi.jpg ʿআলী ʾইবনে মুহ়ম্মদ
ٱلْإِمَام عَلِيّ ٱبْن مُحَمَّد ٱلْهَادِي عَلَيْهِ ٱلسَّلَام
তৃতীয় আবুল হ়াসান
أَبُو ٱلْحَسَن ٱلثَّالِث[৪২]
  • আল-হাদী[৪২]
    (ٱلْهَادِي)
    (পথপ্রদর্শক)
  • আন-নক়ী[৪২]
    (ٱلنَّقِيّ)
    (পবিত্র)

  • ওনুঞ্জু আলী
    (Onuncu Ali)
    (দশম আলী)[১৬]
৮২৭–৮৬৮[৪২]
২১২–২৫৪[৪২]
মদীনার নিকটস্থ সুরাইয়া গ্রাম, হেজাজ[৪২]
৮ বছর ৪২ বছর ৩৪ বছর তিনি শিয়া সম্প্রদায়ের মধ্যে প্রতিনিধিদের অন্তর্জালকে জোরদার করেন। তিনি তাঁদের নির্দেশনা প্রদান করেন এবং বিনিময়ে বিশ্বাসীদের কাছ থেকে খুমুস জাতীয় আর্থিক অনুদান ও ধর্মীয় প্রতিশ্রুতি লাভ করেন।[৪২] খলিফা আল-মুতাজের নির্দেশে ইরাকের সামাররায় তাঁকে বিষপ্রয়োগ করে হত্যা করা হয়।[৪৩]
তাঁকে ইরাকের সামাররা শহরের আল-আসকারী মসজিদে দাফন করা হয়।
১১ Al-askari.svg হ়াসান ʾইবনে ʿআলী
ٱلْإِمَام ٱلْحَسَن ٱبْن عَلِيّ ٱلْعَسْكَرِيّ عَلَيْهِ ٱلسَّلَام
আবুল মাহদী
أَبُو ٱلْمَهْدِيّ
  • আল-ʿআসকারী[৪৪]
    (ٱلْعَسْكَرِيّ)
    (সামরিক ঘাঁটির নাগরিক)

  • ওনবিরিঞ্জি আলী
    (Onbirinci Ali)
    (একাদশ আলী)[১৬]
৮৪৬–৮৭৪[৪৪]
২৩২–২৬০[৪৪]
মদীনা, হেজাজ[৪৪]
২২ বছর ২৮ বছর ৬ বছর তাঁর পিতার মৃত্যুর পর তাঁর জীবনের অধিকাংশ সময়ই খলিফা আল-মুতামিদের নজরদারিতে গৃহবন্দী অবস্থায় কাটে। এই সময় শিয়া মুসলমানেরা সংখ্যায় ও শক্তিতে বৃদ্ধি পাওয়ায় তাদের ওপর নিপীড়ন চূড়ান্ত পর্যায়ে পৌঁছায়।[৪৫] ইরাকের সামাররায় খলিফা আল-মুতামিদের নির্দেশে বিষপ্রয়োগ করে তাঁকে হত্যা করা হয়।[৪৬]
তাঁকে ইরাকের সামাররা শহরের আল-আসকারী মসজিদে দাফন করা হয়।
১২ Imam Mahdi.png মুহ়ম্মদ ʾইবনে হ়াসান
مُحَمَّد ٱبْن ٱلْحَسَن
আবুল ক়াসিম
أَبُو ٱلْقَاسِم

  • ওনিকিঞ্জি আলী
    (Onikinci Ali)
    (দ্বাদশ আলী)[১৬]
৮৬৯–বর্তমান[৫০]
২৫৫–বর্তমান[৫০]
সামাররা, ইরাক[৫০]
৫ বছর অজানা বর্তমান দ্বাদশী শিয়া বিশ্বাসমতে তিনি হলেন বর্তমান ইমাম এবং প্রতীক্ষিত মাহদী, একজন মসীহীয় ব্যক্তিত্ব যিনি নবী ঈসা ইবনে মরিয়মের সঙ্গে শেষ জমানায় আবির্ভূত হবেন। তিনি ইসলামের ন্যায়ভিত্তিক শাসনব্যবস্থা পুনঃপ্রতিষ্ঠা করবেন এবং সমগ্র পৃথিবীতে ন্যায়বিচার ও বিশ্বশান্তি কায়েম করবেন।[৫১] দ্বাদশী শিয়া তত্ত্বমতে তিনি ৮৭৪ সাল থেকে গয়বত বা সমাবরণে চলে গিয়েছেন এবং আল্লাহর নির্দেশ না পাওয়া পর্যন্ত এ অবস্থাতেই থাকবেন।[৫০]

তথ্যসূত্র[সম্পাদনা]

  1. Olsson, Ozdalga এবং Raudvere 2005, পৃ. 65
  2. Tabataba'i 1977, পৃ. 10
  3. Momen 1985, পৃ. 174
  4. Tabataba'i 1977, পৃ. 15
  5. Corbin 2014, পৃ. 45–51
  6. Gleave, Robert। "Imamate"। Encyclopaedia of Islam and the Muslim world; vol.1। MacMillan। আইএসবিএন 0-02-865604-0 
  7. The Imam's Arabic titles are used by the majority of Twelver Shia who use Arabic as a liturgical language, including the Usooli, Akhbari, Shaykhi, and to a lesser extent Alawi. Turkish titles are generally used by Alevi, a fringe Twelver group, who make up around 10% of the world Shia population. The titles for each Imam literally translate as "First Ali", "Second Ali", and so forth. Encyclopedia of the Modern Middle East and North Africa। Gale Group। ২০০৪। আইএসবিএন 978-0-02-865769-1 
  8. The abbreviation CE refers to the Common Era solar calendar, while AH refers to the Islamic Hijri lunar calendar.
  9. Except Twelfth Imam
  10. Nasr, Seyyed Hossein"Ali"Encyclopædia Britannica Online। ২০০৭-১০-১৮ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ২০০৭-১০-১২ 
  11. [কুরআন ৫:৫৫]
  12. [কুরআন ৫:৫৫]
  13. [কুরআন ৪:৫৯]
  14. [কুরআন ৩:৬১]
  15. [কুরআন ২:২০৭]
  16. Encyclopedia of the Modern Middle East and North Africa। Gale Group। ২০০৪। আইএসবিএন 978-0-02-865769-1 
  17. Tabatabae (1979), pp.190–192
  18. Tabatabae (1979), p.192
  19. al-Qarashi, Baqir Shareef (২০০৭)। The life of Imam Husain। Qum: Ansariyan Publications। পৃষ্ঠা 58। 
  20. Tirmidhi, Vol. II, p. 221 ; تاريخ الخلفاء، ص189 [History of the Caliphs]
  21. Madelung, Wilferd"ḤASAN B. ʿALI B. ABI ṬĀLEB"Encyclopaedia Iranica। ২০১৪-০১-০১ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ২০১২-০৭-০৬ 
  22. Tabatabae (1979), pp.194–195
  23. Tabatabae (1979), p.195
  24. A Brief History of The Fourteen Infallibles। Qum: Ansariyan Publications। ২০০৪। পৃষ্ঠা 95। 
  25. Kitab al-Irshad। পৃষ্ঠা 198। 
  26. Nakash, Yitzhak (১ জানুয়ারি ১৯৯৩)। "An Attempt To Trace the Origin of the Rituals of Āshurā¸"। Die Welt des Islams33 (2): 161–181। ডিওআই:10.1163/157006093X00063 
  27. Tirmidhi, Vol. II, p. 221 ; تاريخ الخلفاء، ص189 [History of the Caliphs]
  28. Madelung, Wilferd। "ḤOSAYN B. ʿALI"Encyclopaedia Iranica। ২০১১-০৪-২৯ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ২০০৮-০৩-২৩ 
  29. Tabatabae (1979), pp.196–199
  30. Madelung, Wilferd"ʿALĪ B. ḤOSAYN B. ʿALĪ B. ABĪ ṬĀLEB, ZAYN-AL-ʿĀBEDĪN"Encyclopaedia Iranica। ২০১৭-০৮-০৫ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ২০০৭-১১-০৮ 
  31. Tabatabae (1979), p.202
  32. Madelung, Wilferd"BĀQER, ABŪ JAʿFAR MOḤAMMAD"Encyclopaedia Iranica। ২০১১-০৪-২৯ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ২০০৭-১১-০৮ 
  33. Tabatabae (1979), p.203
  34. "JAʿFAR AL-ṢĀDEQ, ABU ʿABD-ALLĀH"Encyclopaedia Iranica। ২০১৮-১০-২০ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ২০১৪-০৭-০৭ 
  35. Tabatabae (1979), p.203–204
  36. Madelung, Wilferd"ʿALĪ AL-REŻĀ"Encyclopaedia Iranica। ২০১২-০৯-২১ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ২০০৭-১১-০৯ 
  37. Tabatabae (1979), p.205
  38. Tabatabae (1979) p. 78
  39. Sachedina 1988, পৃ. 53–54
  40. Tabatabae (1979), pp.205–207
  41. Tabatabae (1979), p. 207
  42. Madelung, Wilferd"ʿALĪ AL-HĀDĪ"Encyclopaedia Iranica। ২০১৫-১১-১৭ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ২০০৭-১১-০৮ 
  43. Tabatabae (1979), pp.208–209
  44. Halm, H। "ʿASKARĪ"Encyclopaedia Iranica। ২০১১-০৪-২৯ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ২০০৭-১১-০৮ 
  45. Tabatabae (1979) pp. 209–210
  46. Tabatabae (1979), pp.209–210
  47. "THE CONCEPT OF MAHDI IN TWELVER SHIʿISM"Encyclopaedia Iranica। ২০১১-০৪-২৯ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ২০১৪-০৭-০৭ 
  48. "ḠAYBA"Encyclopaedia Iranica। ২০১৪-০৮-০৯ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ২০১৪-০৭-০৭ 
  49. "Muhammad al-Mahdi al-Hujjah"Encyclopædia Britannica Online। ২০০৭-১০-১৭ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ২০০৭-১১-০৮ 
  50. Tabatabae (1979), pp.210–211
  51. Tabatabae (1979), pp. 211–214

বহিঃসংযোগ[সম্পাদনা]