ঢাকা কমার্স কলেজ

উইকিপিডিয়া, মুক্ত বিশ্বকোষ থেকে
Jump to navigation Jump to search
ঢাকা কমার্স কলেজ
নীতিবাক্য রাজনীতি ও ধূমপানমুক্ত পরিবেশ এবং স্ব-অর্থায়ন
ধরন বেসরকারি, সহশিক্ষা
স্থাপিত ১৯৮৯ (১৯৮৯)
প্রতিষ্ঠাতা প্রফেসর কাজী মোঃ নুরুল ইসলাম ফারুকী (প্রফেসর কাজী ফারুকী)
চেয়ারম্যান প্রফেসর শফিক আহমেদ সিদ্দিকী
অধ্যক্ষ প্রফেসর মোঃ আবু সাইদ
অ্যাকাডেমিক কর্মকর্তা
১১২
শিক্ষার্থী ৬,৬০০[১]
অবস্থান ঢাকা,  বাংলাদেশ
২৩°৪৮′২৩″ উত্তর ৯০°২১′০৮″ পূর্ব / ২৩.৮০৬৩৮৯° উত্তর ৯০.৩৫২২২২° পূর্ব / 23.806389; 90.352222স্থানাঙ্ক: ২৩°৪৮′২৩″ উত্তর ৯০°২১′০৮″ পূর্ব / ২৩.৮০৬৩৮৯° উত্তর ৯০.৩৫২২২২° পূর্ব / 23.806389; 90.352222
শিক্ষাঙ্গন শহর, ০৫ হেক্টর
ভাষা বাংলা ও ইংরেজি মাধ্যম
রঙসমূহ          অ্যারো ও নেভি ব্লু
সংক্ষিপ্ত নাম ডিসিসি
অধিভুক্তি জাতীয় বিশ্ববিদ্যালয়
ক্রীড়া ফুটবল, ক্রিকেট, ভলিবল, টেবিল টেনিস, ব্যাডমিন্টন, দাবা, বেসবল, মার্শাল আর্ট, রাগবি, বাস্কেটবল
ওয়েবসাইট dcc.edu.bd
ঢাকা কমার্স কলেজ লোগো

ঢাকা কমার্স কলেজ বাংলাদেশের রাজধানী ঢাকা শহরের মিরপুরে অবস্থিত একটি উচ্চ মাধ্যমিকস্নাতকোত্তর কলেজ। ১৯৮৯ সালে প্রতিষ্ঠিত এ কলেজ স্ব-অর্থায়নে পরিচালিত, রাজনীতি ও ধুমপানমুক্ত একটি শিক্ষা প্রতিষ্ঠান। এটি ঢাকা শহরের প্রথম ব্যবসায় শিক্ষায় বিশেষায়িত কলেজ।[২] শুধু ঢাকা শিক্ষা বোর্ডই নয়, সারাদেশের মধ্যে এটি একটি বিখ্যাত কলেজ।

কলেজের চেয়ারম্যান অধ্যাপক ডঃ শফিক আহমেদ সিদ্দিকী হলেন টিউলিপ সিদ্দিকীর পিতা। টিউলিপ একজন ব্রিটিশ লেবার পার্টির রাজনীতিবিদ ও ব্রিটিশ সংসদ সদস্য।[৩]

অবস্থান[সম্পাদনা]

মিরপুর চিড়িয়াখানা রোডে অবস্থিত রজনীগন্ধ্যা হোটেল থেকে ৫০ গজ উত্তর-পশ্চিম কোণে, অথবা সিরাজুল ইসলাম মাদ্রাসা থেকে ৩০ গজ উত্তরে কলেজটি অবস্থিত।

ভর্তির যোগ্যতা[সম্পাদনা]

উচ্চ মাধ্যমিক কোর্সে ভর্তির আবেদনের ক্ষেত্রে এস.এস.সি পরীক্ষায় ন্যূনতম জিপিএ -৩.৫০ থাকতে হয়। অনার্স কোর্সে ভর্তি হওয়ার জন্য জাতীয় বিশ্ববিদ্যালয়ের নীতিমালা অনুযায়ী এস.এস.সি এবং এইচ.এস.সি উভয় পরীক্ষায় গড়ে জিপিএ ৪.০০ থাকতে হয়। আর মাস্টার্সের ভর্তি অনার্সের ফলাফলের উপর ভিত্তি করে নির্ধারিত হয়

অনুষদসমূহ[সম্পাদনা]

  • বাংলা
  • ইংরেজী
  • ম্যানেজমেন্ট
  • একাউন্টিং
  • মার্কেটিং
  • ব্যবসায়
  • পরিসংখ্যান, গণিত ও কম্পিউটার
  • ইকোনোমিকস
  • ভূগোল
  • সেক্রেটারিয়েল সাইন্স ও অফিস ম্যানেজমেন্ট

ফলাফল[সম্পাদনা]

শিক্ষাবর্ষ ছাত্রসংখ্যা উত্তীর্ণ ছাত্র জি.পি.এ-৫ প্রাপ্ত ছাত্রের সংখ্যা ঢাকা শিক্ষা বোর্ডে অবস্থান
২০০৩ ৮৪৭ ৮৪২
২০০৪ ৮৯৭ ৮৯৫ ৫৩
২০০৫ ৯০৪ ৯০৪ ৭১ দশম
২০০৬ ১৪৩৭ ১৪৩৬ ২২৭ ষষ্ঠ
২০০৭ ১৫০৫ ১৫০০ ২২৪ সপ্তম
২০০৮ ১৯২৪ ১৯২৩ ৫১৮ চতুর্থ
২০০৯ ১৮১৫ ১৮১৪ ৪০৯ পঞ্চম
২০১০ ২০২৬ ২০২২ ৪২৩
২০১১ ২০৪৩ ২০৪২ ৮৩১
২০১২ ২৪৪৬ ২৪৪৩ ১১৫৫
২০১৩ ১৯৪০ ১৯৩০ ৮৭১

কলেজ ভবন[সম্পাদনা]

ঢাকা কমার্স কলেজ ভবন

কলেজের দাপ্তরিক, একাডেমিক ও অন্যান্য সহায়ক কার্যক্রম সমূহ সম্পাদনের জন্য ২ টি সুবৃহৎ ভবন রয়েছে। এর মধ্যে একটি ভবন ১১ তলা বিশিষ্ট অপরটি ১২ তলা বিশিষ্ট। ১১ তলা ভবনটি পূর্ব পাশে অবস্থিত এবং এতে মোট রুম রয়েছে ৫০ টি। আর ১২ তলা ভবনটি দক্ষিণ পাশে অবস্থিত এবং এতে রুম রয়েছে ৭০ টি। কলেজের নিজস্ব অডিটোরিয়াম রয়েছে।কাজী ফারুকী অডিটোরিয়ামে প্রায় ১৬০০ টি আসন রয়েছে।

গ্রন্থাগার[সম্পাদনা]

কলেজের ১১ তলা ভবনের ৪র্থ তলায় কলেজটির গ্রন্থাগার অবস্থিত। গ্রন্থাগারে সিলেবাস ভিত্তিক বইয়ের পাশাপাশি অন্যান্য জ্ঞানমূলক বইয়ের সমন্বয়ে গঠিত। গ্রন্থাগারে ৩,০০০ বই রয়েছে। লাইব্রেরীটি সকল শিক্ষার্থীর জন্য উন্মুক্ত হলেও শুধুমাত্র কার্ডধারী শিক্ষার্থীরাই বই বাসায় নিয়ে যেতে পারে। গ্রন্থাগারটি শীতাতপ নিয়ন্ত্রিত।

ল্যাবসমূহ[সম্পাদনা]

কলেজটিতে শিক্ষার্থীদের বিভিন্ন বিষয়ে ব্যবহারিক শিক্ষা প্রদানের ২টি ল্যাব রয়েছে।

  • কম্পিউটার ল্যাব
  • টাইপ ল্যাব

ল্যাব শুধুমাত্র কার্ডধারী শিক্ষার্থীরাই ব্যবহার করতে পারে।

ক্লাসসমূহ[সম্পাদনা]

এই কলেজের সকল শ্রেণীকক্ষে শিক্ষার্থীদের বসার জন্য সিঙ্গেল ডেক চেয়ার রয়েছে। শ্রেণীকক্ষগুলো শীতাতপ নিয়ন্ত্রিত।

পরীক্ষা কক্ষ[সম্পাদনা]

শিক্ষার্থীদের সকল ধরনের পরীক্ষা গ্রহণের জন্য পৃথক পরীক্ষা কক্ষ রয়েছে। পরীক্ষা কক্ষগুলো প্রথম ভবনের ১০ম ও ১১তম তলায় অবস্থিত।

ড্রেস কোড[সম্পাদনা]

এই কলেজে অধ্যায়নরত শিক্ষার্থীদের ক্লাসে অংশগ্রহণের জন্য নির্ধারিত ড্রেস কোড রয়েছে।

নোটিশ[সম্পাদনা]

কলেজের প্রয়োজনীয় নোটিশ কলেজের নোটিশ বোর্ডে ও কলেজ গেটে টাঙিয়ে দেয়া হয়। এছাড়াও www.dcc.com.bd তে দেয়া হয়। শিক্ষার্থীদের মোবাইলে এসএমএস করে জানিয়ে দেয়া হয়।

ফলাফল পর্যালোচনা[সম্পাদনা]

কলেজে অধ্যয়নরত শিক্ষার্থীদের প্রতি সাময়িকের ফল সরাসরি অভিভাবকদের হাতে প্রদান করা হয়। প্রতি সাময়িক শেষে অভিভাকদের সঙ্গে মতবিনিময় সভা অনুষ্ঠিত হয়। এবং ফলাফল উন্নতিতে করণীয় বিষয় পর্যালোচনা করা হয়। এছাড়া বছরের বিভিন্ন সময়ে অভিভাবক ও শিক্ষার্থীদের সঙ্গে বিভিন্ন ধরনের মতবিনিময় সভার আয়োজন করা হয়।

বিদেশে উচ্চ শিক্ষা : এই কলেজে অধ্যয়নরত কোনো শিক্ষার্থী যদি ক্রেডিট ট্রান্সফার করতে চায় তাহলে জাতীয় বিশ্ববিদ্যালয়ের নীতিমালা অনুযায়ী ক্রেডিট ট্রান্সফার করতে পারে।

তথ্যসূত্র[সম্পাদনা]

  1. ইসলাম, এস এম জহিরুল (১১ জুন ২০১৬)। "তিন ক্যাটাগরিতেই ঢাকা কমার্স কলেজ নির্বাচিত"দৈনিক সংগ্রাম। সংগ্রহের তারিখ ৩ ফেব্রুয়ারি ২০১৭ 
  2. "দেশের একমাত্র ব্যবসায় শিক্ষা বিশেষায়িত প্রতিষ্ঠান ঢাকা কমার্স কলেজ"Desher Khobor। ১৩ নভেম্বর ২০১৪। 
  3. "আমার অগ্রাধিকার"টিউলিপ সিদ্দিক MP (ইংরেজী ভাষায়)। 

বহিঃসংযোগ[সম্পাদনা]