আদমজী ক্যান্টনমেন্ট কলেজ

উইকিপিডিয়া, মুক্ত বিশ্বকোষ থেকে
পরিভ্রমণে ঝাঁপ দিন অনুসন্ধানে ঝাঁপ দিন
আদমজী ক্যান্টনমেন্ট কলেজ
আদমজী ক্যান্টনমেন্ট কলেজ.jpg
অবস্থান

,
বাংলাদেশ
স্থানাঙ্ক২৩°৪৭′৪১″ উত্তর ৯০°২৩′৩৬″ পূর্ব / ২৩.৭৯৪৬° উত্তর ৯০.৩৯৩৩° পূর্ব / 23.7946; 90.3933স্থানাঙ্ক: ২৩°৪৭′৪১″ উত্তর ৯০°২৩′৩৬″ পূর্ব / ২৩.৭৯৪৬° উত্তর ৯০.৩৯৩৩° পূর্ব / 23.7946; 90.3933
তথ্য
ধরনউচ্চমাধ্যমিক শিক্ষা প্রতিষ্ঠান
নীতিবাক্যশিক্ষা, শৃঙ্খলা, নৈতিকতা
প্রতিষ্ঠাকাল১৬ ফেব্রুয়ারি ১৯৬০; ৬০ বছর আগে (1960-02-16)
প্রতিষ্ঠাতাগুল মোহাম্মদ আদমজী
বিদ্যালয় বোর্ডমাধ্যমিক ও উচ্চ মাধ্যমিক শিক্ষা বোর্ড, ঢাকা
বিদ্যালয় জেলাঢাকা
কর্তৃপক্ষবাংলাদেশ সেনাবাহিনী
চেয়ারপারসনবিগ্রেডিয়ার জেনারেল মুশফিকুর রহমান, পিএসসি
অধ্যক্ষবিগ্রেডিয়ার জেনারেল মোঃ মাহ্‌বুব-উল আলম, এনডিসি, এএফডব্লিউসি, পিএসসি[১]
শিক্ষকমণ্ডলী১০০ (স্থায়ী)
লিঙ্গছেলে এবং মেয়ে
বয়সসীমা১৬-৩০
ভর্তি৬,১০৩
ভাষার মাধ্যমবাংলা এবং ইংরেজি
বিদ্যালয়ের কার্যসময়৫ ঘণ্টা
ক্যাম্পাসের ধরনশহুরে, ৯.৯৬ একর (৪.০৩ হেক্টর)
ক্রীড়াফুটবল, ক্রিকেট, বাস্কেটবল, ভলিবল, টেবিল টেনিস, ব্যাডমিন্টন, হ্যান্ডবল
দলের নাম
  • জাহাঙ্গীর (জ)
  • হামিদুর (হ)
  • মোস্তফা (ম)
  • রউফ (র)
প্রকাশনাপ্রতীতি
অন্তর্ভুক্তিজাতীয় বিশ্ববিদ্যালয়
ওয়েবসাইট

আদমজী ক্যান্টনমেন্ট কলেজ বাংলাদেশের রাজধানী ঢাকা শহরের ঢাকা সেনানিবাস এলাকায় অবস্থিত একটি উচ্চমাধ্যমিক শিক্ষা প্রতিষ্ঠান। এটি বাংলাদেশ সেনাবাহিনী কর্তৃক পরিচালিত।[২] ইংল্যান্ডের আদি পাবলিক স্কুল 'ইটন' ও 'হ্যারো' এর আদর্শে এটি ১৯৬০ সালে প্রতিষ্ঠিত হয়। কলেজটি মূলত সামরিক বাহিনীর সদস্যদের সন্তানদের জন্য হলেও বেসামরিক ব্যক্তিবর্গের সন্তানরাও এতে পড়াশোনা করে।

ইতিহাস[সম্পাদনা]

১৯৬০ সালের ১৬ ফেব্রুয়ারি ইংরেজি মাধ্যমের বিদ্যালয় হিসেবে প্রতিষ্ঠানটির যাত্রা শুরু হয়। যার প্রতিষ্ঠাতা ছিলেন তৎকালীন পাকিস্তানের অন্যতম ব্যবসায়ী গুল মোহাম্মদ আদমজী। বিশিষ্ট স্থপতি থারিয়ানির নকশায় ভবনটি নির্মাণ করেন ওমর এন্ড সন্স লিমিটেড। তৎকালীন পাকিস্তানের রাষ্ট্রপতি ফিল্ড মার্শাল আইয়ুব খান প্রতিষ্ঠানটির ভিত্তি প্রস্থর স্থাপন করেন এবং সেনাবাহিনীর তৎকালীন ইস্টার্ন কমান্ডের জিওসিকে প্রধান করে একটি শক্তিশালী বোর্ড অব গভর্নরস গঠন করা হয়। ব্রিটিশ পাবলিক স্কুলের মান অনুসারে এই স্কুলটির কার্যক্রম শুরু হয়। স্বাধীনতার পূর্বে এ প্রতিষ্ঠানের শিক্ষাদানের মাধ্যম ছিল ইংরেজি। সেই আলোকে কলেজটির প্রথম দুইজন অধ্যক্ষ ছিলেন ব্রিটিশ নাগরিক। স্বাধীনতা পরবর্তীকালে শিক্ষার মাধ্যম হয় বাংলা। ১৯৯৫ সালে আদমজী ক্যান্টনমেন্ট কলেজ শাখাকে বিদ্যালয় শাখা থেকে আলাদা করা হয়।

অবস্থান ও অবকাঠামো[সম্পাদনা]

বাংলাদেশের রাজধানী ঢাকা শহরের ঢাকা সেনানিবাসের প্রাণকেন্দ্রে কলেজটি অবস্থিত।

প্রায় দশ একরের উপর স্থাপিত কলেজটিতে একটি প্রশাসনিক ভবন, একটি বিজ্ঞান ভবন, একটি গ্রন্থাগার ভবন, একটি বিবিএ ভবন, একটি মাস্টার্স ভবন, একটি খেলার মাঠ, একটি মসজিদ, একটি বাগান, একটি ক্যাফেটেরিয়া, একটি শহীদ মিনার ও একটি মঞ্চ (শহীদ রুমী মঞ্চ) রয়েছে।

শিক্ষা কার্যক্রম ও পদ্ধতি[সম্পাদনা]

শিক্ষা, শৃঙ্খলা ও নৈতিকতা - এই তিনটি হলো কলেজটির মূলমন্ত্র।

ভর্তি প্রক্রিয়া[সম্পাদনা]

প্রতিবছর এসএসসি পরীক্ষার ফল প্রকাশের পর ভর্তি বিজ্ঞপ্তি প্রকাশিত হয়। একাদশ শ্রেণিতে অনলাইনের মাধ্যমে নতুন ছাত্রছাত্রী ভর্তি করা হয়।[৩] শিক্ষার্থীদের এসএসসি পরীক্ষার নম্বরের উপর ভিত্তি করে তৈরি করা মেধাতালিকা অনুযায়ী ভর্তি করা হয়। তবে সেনাবাহিনীর সদস্যদের সন্তানদের ভর্তির জন্য বিশেষ কোটা রয়েছে।

শিক্ষা ও পাঠ্যক্রম[সম্পাদনা]

বর্তমানে এখানে উচ্চমাধ্যমিক শ্রেণিতে বিজ্ঞান শাখা (বাংলা ও ইংরেজি সংস্করণ), মানবিক শাখা (বাংলা সংস্করণ) ও ব্যবসায় শিক্ষা শাখার (বাংলা সংস্করণ) কার্যক্রম চালু রয়েছে।

এছাড়াও জাতীয় বিশ্ববিদ্যালয়ের অধীনে ইংরেজি, অর্থনীতি, রাষ্ট্রবিজ্ঞান, হিসাববিজ্ঞান ও ব্যবস্থাপনা বিষয়ে অনার্স, মাস্টার্স ও বিবিএ কোর্স চালু রয়েছে।

সহশিক্ষা কার্যক্রম[সম্পাদনা]

কলেজটি বিভিন্ন সহশিক্ষা কার্যক্রম পরিচালনা করার জন্য সুপরিচিত। কলেজের শিক্ষার্থীরা পাঠ্যবইয়ের শিক্ষার পাশাপাশি নানা ধরনের সহশিক্ষা কার্যক্রমে নিয়মিত অংশ নিয়ে থাকে। উদাহরণ হিসেবে রয়েছে বিতর্ক ও ক্রীড়া সহ বিভিন্ন প্রতিযোগিতায় অংশগ্রহণ,[৪][৫] বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি উৎসব সহ বিভিন্ন অনুষ্ঠানের আয়োজন[৬][৭] ইত্যাদি।

খেলাধুলার মাধ্যমে ছাত্রছাত্রীদের নৈতিক মনোবল দৃঢ় করার উদ্দেশ্যে কলেজ কর্তৃক প্রতিবছর বার্ষিক ক্রীড়া প্রতিযোগিতার আয়োজন করা হয়।[৮]

ক্লাবসমূহ[সম্পাদনা]

সারা বছর কলেজটিতে বিভিন্ন ক্লাব পরিচালিত হয়। ক্লাবগুলো হলো: ভাষা ক্লাব, বিতর্ক ক্লাব, কুইজ ক্লাব, সাংস্কৃতিক ক্লাব, গেমস ও ক্রীড়া ক্লাব, বিজ্ঞান ক্লাব, আইসিটি ক্লাব, আলোকচিত্র ক্লাব, এমইউএন ক্লাব, সমাজ কল্যাণ ক্লাব, ব্যবসা ক্লাব, প্রকৃতি ক্লাব, তায়কোয়ান্দো ক্লাব, শিল্পকলা ক্লাব, অন্বেষণ ক্লাব, ব্যান্ড ক্লাব এবং বিএনসিসি

চিত্রশালা[সম্পাদনা]

উল্লেখযোগ্য প্রাক্তন শিক্ষার্থী[সম্পাদনা]

তথ্যসূত্র[সম্পাদনা]

  1. "পরিচালনা পর্ষদ – আদমজী ক্যান্টনমেন্ট কলেজ" (ইংরেজি ভাষায়)। সংগ্রহের তারিখ ২০২০-০৯-১১ 
  2. "আদমজী ক্যান্টনমেন্ট কলেজে আয়োজিত একাদশ শ্রেণির ছাত্র-ছাত্রীদের নবীন-বরণ অনুষ্ঠিত"আইএসপিআর। সংগ্রহের তারিখ ২০২০-০৯-১০ 
  3. "শীর্ষ কলেজে আসন পাওয়ায় চ্যালেঞ্জ"দৈনিক ইনকিলাব। সংগ্রহের তারিখ ২০২০-০৯-০৮ 
  4. "আইইউবিএটিতে বিতর্ক প্রতিযোগিতা"বিডিনিউজ টোয়েন্টিফোর ডটকম। সংগ্রহের তারিখ ২০২০-০৯-০৬ 
  5. "মেয়েদের কলেজ রাগবি"যুগান্তর। সংগ্রহের তারিখ ২০২০-০৯-০৬ 
  6. "ন্যাশনাল সায়েন্স ফেস্টিভ্যাল শেষ হচ্ছে আজ"সমকাল। সংগ্রহের তারিখ ২০২০-০৯-০৬ 
  7. "আদমজী কলেজে জমে উঠেছে আইটি কার্নিভাল"ঢাকাটাইমস। সংগ্রহের তারিখ ২০২০-০৯-০৬ 
  8. "আদমজী ক্যান্টনমেন্ট কলেজ এর বার্ষিক ক্রীড়া প্রতিযোগিতা-২০১৯ অনুষ্ঠিত"আইএসপিআর। সংগ্রহের তারিখ ২০২০-০৯-১১ 
  9. "ডিজিটাল পাঠশালা "রবি টেন মিনিট স্কুলের" গল্প"দৈনিক ইনকিলাব। সংগ্রহের তারিখ ২০২০-০৯-০৬ 
  10. "ঢাকায় নেমে মনটা খারাপ হয়ে গিয়েছিল | বাংলাদেশ প্রতিদিন"বাংলাদেশ প্রতিদিন। সংগ্রহের তারিখ ২০২০-০৯-০৬ 
  11. "তারেক মাসুদ : অনেক স্বপ্নের সমাধি"বাংলানিউজ২৪। সংগ্রহের তারিখ ২০২০-০৯-০৬ 
  12. "বিজয় নিয়ে ফিরতে পারল না সজল"দৈনিক ইত্তেফাক। সংগ্রহের তারিখ ২০২০-০৯-০৬ 
  13. "আদমজী ক্যান্টনমেন্ট স্কুল ও কলেজের সুবর্ণজয়ন্তী"বাংলানিউজ২৪। সংগ্রহের তারিখ ২০২০-০৯-০৬ 
  14. "সালমান শাহ: রঙিন পর্দার রাজপুত্র"বিডিনিউজ টোয়েন্টিফোর ডটকম। সংগ্রহের তারিখ ২০২০-০৯-০৬