ঢাকা সিটি কলেজ

উইকিপিডিয়া, মুক্ত বিশ্বকোষ থেকে
পরিভ্রমণে ঝাঁপ দিন অনুসন্ধানে ঝাঁপ দিন
ঢাকা সিটি কলেজ
DCC FRONT GATE WIKI.jpg
কলেজের প্রবেশ তোরণ
অন্যান্য নাম
সিটি কলেজ
প্রাক্তন নামসমূহ
ঢাকা নাইট কলেজ
নীতিবাক্যজাতি নির্মাণ
ধরনবেসরকারী
স্থাপিত১৯৫৭
মূল প্রতিষ্ঠান
জাতীয় বিশ্ববিদ্যালয়
প্রাতিষ্ঠানিক অধিভুক্তি
মাধ্যমিক ও উচ্চ মাধ্যমিক শিক্ষা বোর্ড, ঢাকা
চেয়ারম্যানসৈয়দ মোদাচ্ছের আলী
অধ্যক্ষমোঃ আনোয়ার হোসেন
উপাধ্যক্ষবেদার উদ্দিন আহমেদ
শিক্ষায়তনিক ব্যক্তিবর্গ
২০০
শিক্ষার্থী৫,০০০ প্রায়
ঠিকানা
বাড়ি #৮৮, সড়ক #২, ধানমন্ডি
, ,
১২০৫
,
২৩°৪৪′২৪″ উত্তর ৯০°২২′৫৮″ পূর্ব / ২৩.৭৩৯৯° উত্তর ৯০.৩৮২৭° পূর্ব / 23.7399; 90.3827স্থানাঙ্ক: ২৩°৪৪′২৪″ উত্তর ৯০°২২′৫৮″ পূর্ব / ২৩.৭৩৯৯° উত্তর ৯০.৩৮২৭° পূর্ব / 23.7399; 90.3827
শিক্ষাঙ্গনশহুরে
ভাষাইংরেজি, বাংলা
রঙসমূহকালো, ধূসর এবং কার্ডিনাল লাল
ওয়েবসাইটwww.dhakacitycollege.edu.bd

ঢাকা সিটি কলেজ হল ঢাকা শহরের ধানমন্ডির কুদরত-ই-খুদা সড়কে অবস্থিত বাংলাদেশের প্রাচীনতম,সুনামধন্য ও শীর্ষস্থানীয় কলেজগুলোর মধ্যে একটি।ঢাকা বোর্ডের টপ টেন কলেজ এর মধ্যে নিজেদের অবস্থান তৈরি করে পুরো বাংলাদেশের ভিতরে কলেজের পরিচিতি অর্জন করেছে। [১][২] এখানে এইচএসসি, স্নাতক এবং স্নাতকোত্তর ডিগ্রির জন্য পড়া যায়। কলেজটি বাংলাদেশের জাতীয় বিশ্ববিদ্যালয়ের অধিভুক্ত।

ইতিহাস[সম্পাদনা]

স্থানীয় শিক্ষাবিদ এবং সমাজকর্মীদের পৃষ্ঠপোষকতায় কলেজটি ১৯৫৭ সালে পাকিস্তান শাসনামলে প্রতিষ্ঠিত হয়। তখন কলেজের কার্যক্রম প্রথমে ওয়েস্ট এন্ড উচ্চ বিদ্যালয়ে এবং তারপর ঢাকা কলেজে চালানো হয়। তখন এটি "ঢাকা নাইট কলেজ" নামে পরিচিত ছিল। ১৯৭০ সালে, কলেজটি ধানমন্ডি আবাসিক এলাকার ২ নং সড়কের নিজস্ব চত্বরে স্থানান্তরিত হয়।

খান বাহাদুর আবদুর রহমান এবং আতাউর রহমান খান, দুজনেই কলেজ প্রতিষ্ঠায় বিশেষ অবদান রেখেছিলেন। কলেজের পরিচালনা কমিটির প্রাক্তন চেয়ারম্যান খানে আলম খান ঢাকা বিভাগের বিভাগীয় কমিশনার থাকাকালীন একাডেমিক ভবনগুলির উন্নয়নের জন্য আর্থিক সহায়তার ব্যবস্থা করেছিলেন।

অবস্থান[সম্পাদনা]

ঢাকা শহরের নিউমার্কেট মোড় থেকে উত্তর দিকে সাইন্স ল্যাবরেটরী ওভারব্রীজ সংলগ্ন ধানমন্ডি ২নং সড়কের প্রবেশ মুখের সাথেই হাতের ডান পাশে প্রধান সড়কের পাশে এই কলেজটি অবস্থিত।

শিক্ষা ব্যবস্থা[সম্পাদনা]

ঢাকা শিক্ষা বোর্ডের অন্যতম এই কলেজটিতে উচ্চ মাধ্যমিক শ্রেণীতে বিজ্ঞান, ব্যবসায় শিক্ষা ও মানবিক বিভাগে শিক্ষা প্রদান করা হয়। এছাড়া জাতীয় বিশ্ববিদ্যালয়ের অধিভুক্ত এই কলেজটিতে বিবিএ, বিএসসি, অনার্স, সিএসই কোর্স করার ব্যবস্থা রয়েছে।

বিভাগ[সম্পাদনা]

পাঠদানের সময়[সম্পাদনা]

প্রভাতি শাখায় সকাল ৭.৩০ টা থেকে এবং দিবা শাখায় দুপুর ১২.৩০ টা থেকে ক্লাস অনুষ্ঠিত হয় । প্রভাতি শাখায় ছাত্রী এবং দিবা শাখায় ছাত্র পড়ানো হয় ।

কলেজ ভবন[সম্পাদনা]

কলেজ ভবন ৪টি। প্রতিটি ভবন ৬ তলা বিশিষ্ট। কলেজের নিচতলায় পশ্চিম পাশে ৬টি কাউন্টার রয়েছে। কলেজের নিচতলার উত্তর পাশে সিড়ি রয়েছে। ভবনের ৪র্থ তলায় সিএসই ডিপার্টমেন্ট রয়েছে।এছাড়াও কলেজ ভবনটি সম্পুর্ণ শীতাতপ নিয়ন্ত্রিত এবং লিফট এর ব্যবস্থাও রয়েছে। কলেজের নিচতলায় রয়েছে বিশাল বড় এক গ্যারেজ।

এক নজরে কলেজ ভবনঃ

  • কলেজ ভবন ৪টি। উভয় ভবন ৬ তলা বিশিষ্ট।
  • কলেজের নিচতলায় গাড়ি পার্কিংয়ে জায়গা রয়েছে।
  • কলেজের নিচতলায় পশ্চিম পাশে ৬টি

কাউন্টার রয়েছে।

  • এই কাউন্টারগুলো থেকে ভর্তি কার্যক্রম পরিচালনা করা হয়।
  • কলেজের নিচতলার উত্তর পাশে সিড়ি রয়েছে।
  • কলেজের নিচতলার পশ্চিম পাশে পরীক্ষা নেওয়ার ব্যবস্থা রয়েছে।
  • ভবনের ৫ম তলায় সিএসই ডিপার্টমেন্ট রয়েছে।
  • ভবনের প্রতিটি ফ্লোরে টয়লেট ব্যবস্থা রয়েছে।

ভর্তির যোগ্যতা[সম্পাদনা]

  • একাদশে বিজ্ঞান বিভাগের জন্য 5.00(সবনিম্ন ১১০০ নাম্বার)
  • বাণিজ্য বিভাগের জন্য 4.00
  • মানবিক বিভাগের জন্য 3.50

প্রয়োজন হলেও অনেক ভালো রেজাল্ট করা স্টুডেন্ট চয়েজ দেয়ায় মিনিমাম 4.65( বাণিজ্য) 4.50(মানবিক ) নিশ্চয়তা মনে করা হয়......

(কলেজটির সম্পূর্ণ প্রাইভেট কলেজ তাই একটু ব্যয়বহুল শীততাপ নিয়ন্ত্রিত প্রত্যেকটি ক্লাস রুম । কলেজটির বড় প্লেগ্রাউন্ড ক্যাম্পাস সুবিধা না থাকলেও এ কলেজের ঈর্ষণীয় সাফল্যের কারণে প্রতিবছর ঢাকা শহরের কলেজ গুলোর মধ্যে সবচেয়ে বেশি স্টুডেন্ট 64 জেলা থেকে এসে এই কলেজে ভর্তি হয় ......

শ্রেণিকক্ষ[সম্পাদনা]

প্রতিটি শ্রেণিকক্ষে ৪০-৭০ জন ছাত্র-ছাত্রী বসতে পারে। প্রত্যেকটি ক্লাস রুম শীততাপ নিয়ন্ত্রিত।

গ্রন্থাগার[সম্পাদনা]

কলেজটিতে একটি গ্রন্থাগা রয়েছে। কার্যদিবসে সকাল ৯টা থেকে বিকাল ৫টা পর্যন্ত গ্রন্থাগাটি খোলা থাকে।

  • কলেজটিতে একটি সমৃদ্ধ লাইব্রেরী রয়েছে।
  • লাইব্রেরীতে কোর্স সংশ্লিষ্ট অসংখ্য বইয়ের সংগ্রহ রয়েছে।
  • লাইব্রেরীটি শীতাতপ নিয়ন্ত্রিত।
  • ছাত্র-ছাত্রীদের লাইব্রেরী ব্যবহার করতে কার্ড করে নিতে হয় ।
  • বাসায় বই নিয়ে যাওয়া যায়।
  • নির্দিষ্ট সময়ের পরে বই ফেরৎ দিতে হয়।
  • বই হারিয়ে গেলে বা নষ্ট হলে জরিমানা প্রদান করতে হয়।
  • কার্যদিবসে সকাল ৯টা থেকে বিকাল ৫টা পর্যন্ত লাইব্রেরীটি খোলা থাকে।

ড্রেস কোড[সম্পাদনা]

উচ্চমাধ্যমিক অধ্যয়নরত ছাত্রদের জন্য নির্ধারিত পোশাক হচ্ছে সাদা শার্ট, কালো প্যান্ট এবং কালো অক্সফোর্ড সু। ছাত্রীদের জন্য নির্ধারিত পোশাক হচ্ছে সাদা সালোয়ার, কামিজ এবং ক্রস ওড়না। বিভিন্ন বিভাগে অনার্সে অধ্যয়নরত ছাত্রীদের পোশাক সাদা সালোয়ার, কামিজ, ওড়না। এছাড়া বিবিএ (প্রফেশনাল) অধ্যয়নরত ছাত্রদের নির্ধারিত পোশাক হচ্ছে একুয়া কালার শার্ট, কালো প্যান্ট, কালো সু এবং ছাত্রীদের সাদা সালোয়ার, কামিজ এবং ওড়না। উচ্চমাধ্যমিক শিক্ষার্থীদের ভর্তির একটি নির্দিষ্ট সময় পর আইডিকার্ড দেয়া হয়।

বৃত্তির ব্যবস্থা[সম্পাদনা]

উচ্চ-মাধ্যমিক, স্নাতক এবং সম্মান কোর্সের ক্ষেত্রে কলেজ পরীক্ষার প্রথম ৩ জন শিক্ষার্থীদের ৫০% টিউশন ফি ছাড়ের ব্যবস্থা রয়েছে। এছাড়া সরকার ঘোষিত অন্যান্য বৃত্তিগুলোও রয়েছে।

সহ-শিক্ষা কার্যক্রম[সম্পাদনা]

একাডেমিক শিক্ষার পাশাপাশি সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠান, শিক্ষা সফর, বিতর্ক প্রতিযোগীতা, কম্পিউটার প্রোগ্রামিং প্রতিযোগীতা ইত্যাদিতে ছাত্র-ছাত্রীদের অংশগ্রহণের ব্যবস্থা রয়েছে। এখানে রয়েছে আটটি ক্লাব। যথাঃ-

  • ১.বিজ্ঞান ক্লাব
  • ২.ইংলিশ ল্যাংুয়েজ ক্লাব
  • ৩.বিজনেস ক্লাব
  • ৪.কালচারাল ক্লাব
  • ৫.নেচার ক্লাব
  • ৬.ফটোগ্রাফি ক্লাব
  • ৭.ডিবেট ক্লাব
  • ৮.রোবার ক্লাব

উল্লেখযোগ্য শিক্ষার্থী[সম্পাদনা]

দর্শনীয় স্থান[সম্পাদনা]

ঢাকা সিটি কলেজের পাশেই আছে রবীন্দ্র সরোবর যা ধানমন্ডি লেক নামে পরিচিত এবং আশেপাশেই রয়েছে পিলখানা,ঢাকা কলেজ ও ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় এবং বিভিন্ন নামিদামি ক্যাফে ও রেস্তোরাঁ রয়েছে।

তথ্যসূত্র[সম্পাদনা]

  1. http://www.dhakacitycollege.edu.bd/
  2. "সংরক্ষণাগারভুক্ত অনুলিপি"। ১৫ এপ্রিল ২০১৭ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ২১ ফেব্রুয়ারি ২০১৯ 

বহিঃসংযোগ[সম্পাদনা]