রাজউক উত্তরা মডেল কলেজ

উইকিপিডিয়া, মুক্ত বিশ্বকোষ থেকে
রাজউক উত্তরা মডেল কলেজ
রাজউক কলেজ
রাজউক উত্তরা মডেল কলেজের লোগো.svg
রাজউক উত্তরা মডেল কলেজের লোগো
ঠিকানা
রাজউক কলেজ সড়ক, সেক্টর # ০৬


,
তথ্য
নীতিবাক্যমানুষ হওয়ার জন্য শিক্ষা
প্রতিষ্ঠাকাল১৯৯৪
প্রতিষ্ঠাতাবাংলাদেশ সরকার
কর্তৃপক্ষপরিচালনা পর্ষদ, রাজউক উত্তরা মডেল কলেজ
স্কুল কোড১০৮৫৭৩
ইআইআইএন১০৮৫৭৩ উইকিউপাত্তে এটি সম্পাদনা করুন
চেয়ারপারসনমো. আবু বকর সিদ্দিক
অধ্যক্ষব্রিগেডিয়ার জেনারেল তায়েফ উল হক
কর্মকর্তা১৩৫
শিক্ষকমণ্ডলী২৪১
শ্রেণীষষ্ঠ-দ্বাদশ
বয়সসীমা১১-১৮
শিক্ষার্থী সংখ্যা৪৮৩২
ভাষাবাংলাইংরেজি
বিদ্যালয়ের কার্যসময়১০ ঘণ্টা
ক্যাম্পাসমহানগর
শিক্ষায়তন৪.৫ একর (১৮,০০০ মি)
ক্যাম্পাসের ধরনস্থায়ী
হাউস
ক্রীড়াফুটবল, ক্রিকেট, বাস্কেটবল, ভলিবল, টেবিল টেনিস, ব্যাডমিন্টন, হ্যান্ডবল
প্রকাশনাঅনুপ্রাণন
প্রাক্তন শিক্ষার্থীরেসা
শিক্ষা বোর্ডঢাকা শিক্ষা বোর্ড
ওয়েবসাইটwww.rajukcollege.net www.rajukcollege.edu.bd
কলেজের প্রধান একাডেমিক ভবন

রাজউক উত্তরা মডেল কলেজ বাংলাদেশের ঢাকা শহরের উত্তরা এলাকায় অবস্থিত একটি শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান। ১৯৯৪ সালে স্থাপিত এই বিদ্যালয়টি এরই মধ্যে বাংলাদেশের অন্যতম সেরা শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান হিসেবে পরিণত হয়েছে।[১]

ইতিহাস[সম্পাদনা]

রাজউকের সহযোগিতায় শিক্ষা মন্ত্রণালয়ের সরাসরি নিয়ন্ত্রণ এবং ব্যবস্থাপনায় ১৯৯৪ সালে প্রায় সাড়ে ৪ একর জমির উপর কর্নেল নুরন নবী (অবসরপ্রাপ্ত) এর তত্ত্বাবধানে রাজধানীর উত্তরায় রাজউক উত্তরা মডেল কলেজ স্থাপিত হয়। ১৯৯৪ সালের প্রথম দিকে প্রধান একাডেমিক ভবনের নির্মাণ কাজ শেষ হয় এবং তৎকালীন প্রধানমন্ত্রী খালেদা জিয়া ১৯৯৪-৯৫ শিক্ষাবর্ষে কলেজ শাখার উদ্বোধন করেন।[২] অবকাঠামোগত সুযোগ সুবিধার স্বল্পতার কারণে ১৯৯৫ সালে আরেকটি উন্নয়ন পরিকল্পনা গ্রহণ করা হয় এবং ২০০১ সালে ক্যাম্পাসটি বর্তমান রূপধারণ করে।[৩] একটি শাখা (প্রভাতী) নিয়ে রাজউক উত্তরা মডেল কলেজ যাত্রা শুরু করে কিন্তু অধিক শিক্ষার্থীর চাপ সামলানোর জন্য সরকারের পরামর্শ অনুযায়ী পরবর্তীতে ২০০৩ সালে বিদ্যালয়টিতে দিবা শাখা চালু করা হয়।

ভর্তি প্রক্রিয়া[সম্পাদনা]

রাজউক উত্তরা মডেল কলেজের ভর্তি প্রক্রিয়া প্রতিযোগিতাপূর্ণ।[৩] ভর্তি হতে আগ্রহী প্রার্থীদের লিখিত পরীক্ষায় উত্তীর্ণ হতে হয়। নবম শ্রেনীর ভর্তি প্রক্রিয়া জে এস সি পরীক্ষার এবং একাদশ শ্রেনীর ভর্তি প্রক্রিয়া এস এস সি পরীক্ষার ফলাফলের ভিত্তিতে হয়ে থাকে।[৩] ৬ষ্ঠ শ্রেনীর ভর্তি পরীক্ষা সাধারণত ডিসেম্বর মাসে অনুষ্ঠিত হয়, নবম শ্রেণীর ভর্তি প্রক্রিয়া জে এস সি পরীক্ষার এবং একাদশ শ্রেণীর ভর্তি প্রক্রিয়া এস এস সি পরীক্ষার ফল প্রকাশের কিছুদিনের মধ্যেই শুরু হয়। তবে আসন খালি থাকা সাপেক্ষে ৭ম ও ৮ম শ্রেণীতে ও ছাত্র-ছাত্রী ভর্তি করা হয়। রাজউক উত্তরা মডেল কলেজে অর্থের বিনিময়ে শিক্ষার্থী ভর্তি করার বিন্দুমাত্র সুযোগ নেই। উক্ত কলেজের ভর্তি কার্যক্রম সম্পূর্ণভাবে মেধা ও যোগ্যতার উপর ভিত্তি করে নিরপেক্ষভাবে অনুষ্ঠিত হয়।

শিক্ষা কার্যক্রম[সম্পাদনা]

রাজউক উত্তরা মডেল কলেজ জাতীয় শিক্ষাক্রমের অধীনে নিম্ন মাধ্যমিক, মাধ্যমিক এবং উচ্চ মাধ্যমিক স্তরে বাংলা এবং ইংরেজি উভয় মাধ্যমেই শিক্ষাদান করে থাকে। প্রায় ২৫০০ জন শিক্ষার্থী এই বিদ্যালয়ে অধ্যয়ন করে থাকে।[৪][৫] প্রভাতী শাখার পাঠদান সময় সকাল ০৭:৪৫ হতে ১২:১০ ঘটিকা এবং দিবা শাখার পাঠ দান সময় দুপুর ১২:৪৫ হতে ১৭:১০ ঘটিকা পর্যন্ত। রাজউক উত্তরা মডেল কলেজে প্রায় ১৫,০০০ বই সমৃদ্ধ পাঠাগার এবং পদার্থবিজ্ঞান, রসায়ন, জীববিজ্ঞান ও কম্পিউটার পরীক্ষাগার রয়েছে।

শিক্ষাক্রম[সম্পাদনা]

রাজউক উত্তরা মডেল কলেজ জাতীয় শিক্ষাক্রম অনুসরণ করে থাকে। এছাড়া ৬ষ্ঠ-৮ম শ্রেণীর শিক্ষার্থীরা সঙ্গীত শিক্ষা, চারু ও কারুকলা এবং বাদ্যযন্ত্র বাজানো শেখার ক্লাসেও অংশ নিতে পারে।

সহশিক্ষা কার্যক্রম[সম্পাদনা]

  • বিজ্ঞান ক্লাব: রাজউক বিজ্ঞান ক্লাব ঢাকা শহরের অন্যতম একটি সুপরিচিত বিজ্ঞান ক্লাব। এই ক্লাব প্রতি বছর বিজ্ঞান উৎসব আয়োজন করে থাকে।
  • বিতর্ক প্রতিযোগিতা: ২০০৮ সালের জাতীয় বিতর্ক উৎসবে রাজউক উত্তরা মডেল কলেজকে শ্রেষ্ঠ বিদ্যালয় পুরস্কার দেওয়া হয়।[৬]

তথ্যসূত্র[সম্পাদনা]

  1. "সংরক্ষণাগারভুক্ত অনুলিপি"। ২ জুন ২০১১ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ২৫ মে ২০১০ 
  2. অনুপ্রাণন ২০০৪, কলেজের এর বার্ষিক প্রকাশনা
  3. http://rajukcollege.org/index.php?about=1 ওয়েব্যাক মেশিনে আর্কাইভকৃত ২২ জুন ২০১০ তারিখে
  4. অনুপ্রাণন ২০০৮, কলেজের এর বার্ষিক প্রকাশনা
  5. http://rajukcollege.org/index.php?faculty_mem=1 ওয়েব্যাক মেশিনে আর্কাইভকৃত ২৭ জুলাই ২০১১ তারিখে
  6. http://www.thedailystar.net/campus/2008/11/02/feature_ndf.htm

বহিঃসংযোগ[সম্পাদনা]