কুমিল্লা ভিক্টোরিয়া কলেজ

উইকিপিডিয়া, মুক্ত বিশ্বকোষ থেকে
কুমিল্লা ভিক্টোরিয়া সরকারি কলেজ
স্থাপিত ১৮৯৯
ধরন পাবলিক
অধ্যক্ষ অধ্যাপক ডঃ আবুল কালাম মোঃ আসাদুজ্জামান
অ্যাকাডেমিক স্টাফ ১২৫
ছাত্র ১৪,৯০০
অবস্থান কুমিল্লা, বাংলাদেশ
ক্যাম্পাস শহর
অন্তর্ভুক্তি জাতীয় বিশ্ববিদ্যালয়
ওয়েবসাইট www.cvgc.edu.bd

কুমিল্লা ভিক্টোরিয়া কলেজ বাংলাদেশের কুমিল্লাতে অবস্থিত। এটি কুমিল্লার সবচেয়ে পুরাতন এবং বিখ্যাত কলেজ। কুমিল্লা ভিক্টোরিয়া কলেজ ১৮৯৯ সালে প্রতিষ্ঠিত হয়। রায় বাহাদুর আনন্দ চন্দ্র রায় রানী ভিক্টোরিয়ার নামে এটি প্রতিষ্ঠা করেন।তিনি ঠিকাদারি পেশার সাথে যুক্ত ছিলেন এবং শিক্ষা-অনুরাগী ছিলেন।কুমিল্লা ভিক্টোরিয়া কলেজ প্রতিষ্ঠা করার জন্য বিপুল পরিমাণ অর্থ ব্যয় করেছেন। এই কলেজ এভাবে পরিপূর্ণ বাস্তবে রূপ নেয়। কলেজটি প্রতিষ্ঠার পর ব্রিটিশ সরকার তাকে "রায় বাহাদুর" উপাধি প্রদান করে। তার স্মতি রক্ষার্তে ভিক্টোরিয়া কলেজের ইন্টারমেডিয়েট শাখায় প্রধান ফটকে একটি সাদা রঙের ভাস্কর্য তৈরি করা হয়েছে। মি. সত্যান্দ্র নাথ বসু ছিলেন এই কলেজের ১ম অধ্যক্ষ যিনি ১৯৪৭ সাল পর্যন্ত কর্মরত ছিলেন। এই কলেজ বাংলাদেশ জাতীয় বিশ্ববিদ্যালয় এর অধিভুক্ত।

ইতিহাস[সম্পাদনা]

অবিভক্ত কুমিল্লা জেলা তথা চট্টগ্রাম বিভাগের সুপ্রাচীন শিক্ষা প্রতিষ্ঠান কুমিল্লা ভিক্টোরিয়া কলেজ। আজ থেকে প্রায় ১১৫ বৎসর পূর্বে এই কলেজের গোড়া পত্তন হয়। জমিদার রায় বাহাদুর আনন্দচন্দ্র রায় ১৮৯৯ সালে এই কলেজ প্রতিষ্ঠা করেন। শ্রী আনন্দচন্দ্র রায় (১৮৬৩-১৯২০) মূলত পশ্চিম দেশীয় লোক ছিলেন। তাঁদের পূর্ব পুরুষের উপাধি ছিল সিং। এই কলেজ স্থাপনের পরই বৃটিশ সরকার তাঁকে রায় বাহাদুর উপাধিতে ভূষিত করেন। প্রকৃতপক্ষে জমিদার রায় বাহাদুর আনন্দচন্দ্র রায় ও তাঁর ভ্রাতা সতীশ চন্দ্র রায়ের উদ্দম ও উদ্যোগেই প্রধানত এই কলেজটি স্থাপিত হয়েছিল। উচ্চ শিক্ষার ব্যবস্থা যখন কুমিল্লা শহরের সমৃদ্ধির অপরিহার্য অঙ্গরূপে পরিগণিত হলো, তখন তিনিই প্রথম এই প্রকার প্রতিষ্ঠানের প্রয়োজনীয়তা তীব্রভাবে উপলব্ধি করেছিলেন। কুমিল্লা ভিক্ট্রোরিয়া কলেজের উচ্চ মাধ্যমিক শাখার প্রধান ফটক দিয়ে ভেতরের দিকে একটু তাকালেই যে শ্বেত প্রস্তর নির্মিত মুর্তিটি প্রথমেই আগন্তুকের দৃষ্টি আকর্ষণ করে, সেটিই এই কলেজের প্রতিষ্ঠাতা রায় বাহাদুর আনন্দচন্দ্র রায়ের আবক্ষ মুর্তি বা প্রতিকৃতি। এই প্রতিকৃতির একটু নীচেই লেখা রয়েছে : In loving memory of Rai Bahadur Ananda Chandra Roy who founded Comilla Victoria College in 1899. ১৯৩৬ সালে আনন্দচন্দ্র রায়ের এই আবক্ষ মর্মর মুর্তিটির উন্মোচন করা হয়। স্থানীয় জনসাধারণ ও কলেজ কর্তৃপক্ষ আনন্দচন্দ্র রায়কে মূলত সম্মান ও শ্রদ্ধা প্রদর্শনের জন্যই এটি স্থাপন করেছিলেন।

★আনন্দচন্দ্র রায় ১৮৮৬ সালে "রায় এন্ট্রান্স ইস্কুল" নামে একটি স্কুল প্রতিষ্ঠা করেন। ১৮৮৮ সালে মহারাণী ভিক্টোরিয়ার "জুবিলি জয়ন্তী" স্মারক চিহ্ন স্বরূপ এটিকে ভিক্টোরিয়া স্কুলে রূপান্তরিত করা হয়। পরবর্তীকালে এই বিদ্যাপীটটিই ভিক্টোরিয়া কলেজ নাম ধারণ করে। একই বছর এই কলেজটি কোলকাতা বিশ্ববিদ্যালয়ের এফিলিয়েটেড কলেজ হিসেবে গণ্য হয়। দুর্ভাগ্য এই যে, ১৯০২ সালে এক প্রচন্ড অগ্নিকান্ডের ফলে এই কলেজটি সম্পূর্ণ ভষ্মিভূত হয়। অবশ্য এর কিছু কাল পরেই প্রতিষ্ঠাতা কর্তৃক এর পুননির্মানের কাজ সম্পন্ন হয়েছিল। ১৮৯৯ সালে ভিক্টোরিয়া কলেজ একটি টালির ঘর দিয়ে শুরু হয়েছিল। পরে অনেকের আর্থানুকূল্যে বর্তমান উচ্চ মাধ্যমিক শাখার অধ্যক্ষের চেম্বার, অফিসকক্ষ, লাইব্রেরী ও অধ্যাপক মিলনায়তনটি নির্মিত হয়। শোনা যায় এ কলেজটি ব্যারিস্টার এ রসুল, জনাব হোচ্চাম হায়দার চৌধুরী, নওয়াব ফয়জুন্নেসা প্রমুখ ব্যক্তিদের আর্থিক আনুকূল্য লাভেও ধন্য হয়েছিল। ১৯০৪ সালে একটি ট্রাস্ট ডিডের মাধ্যমে স্কুল ও কলেজটিকে পৃথক করা হয়েছিল। এই ট্রাস্ট ডিড করার মূল কারণ ছিল কলেজটির সার্বিক উন্নতি সাধন। এ সময়ে কলেজে একটি গভর্নিং বডিও ছিল। এই বডির উপরেই বর্তেছিল কলেজ পরিচালনার দায়ভার। এই গভর্নিং বডি ত্রিপুরার জেলা ম্যাজিস্ট্রেট, কলেজ অধ্যক্ষ ও প্রতিষ্ঠাতা শ্রী আনন্দচন্দ্র রায়ের সমন্বয়ে গঠিত হয়েছিল। শ্রী আনন্দচন্দ্র রায় ছিলেন এই গভর্নিং বডির প্রথম সম্পাদক। ১৯০৪ সালের টাস্ট ডিডে মূলত শ্রী আনন্দচন্দ্র রায়কে কলেজ গভর্নিং বডির আজীবন সম্পাদক রাখার স্বপক্ষে একটি রায় ঘোষণা করে হয়েছে। ১৮৯৯ সাল থেকেই কোলকাতা বিশ্ববিদ্যালয়ের এফিলিয়েটেড কলেজের সারিতে দাঁড়াতে সমর্থ হয়েছিল এই কলেজ। এ সময়ে এই কলেজে এফ এ স্ট্যান্ডার্ড চালু হয়। এর কিছুকাল পরেই চালু হয় আইএ স্ট্যান্ডার্ড। ১৯০৪ সালের পূর্বে এই কলেজে অন্য কোন বিভাগ বা স্নাতক শ্রেণী চালু করা সম্ভব ছিল না। ১৯১৮ সালের পূর্ব পর্যন্ত ভিক্টোরিয়া কলেজ কর্তৃপক্ষ কোলকাতা বিশ্ববিদ্যালয়ের এফিলিয়েশনের শর্ত পূরণে ব্যর্থ হয়েছিলেন। বাস্তব ক্ষেত্রে তাই ঘটেছিল। ১৯১৮ সালের দিকেই কেবল কলেজের নতুন ভবনটি নির্মিত হয় এবং ঐ বছরই স্নাতক শ্রেণী খোলার জন্য কোলকাতা বিশ্ববিদ্যালয়ের অনুমতি আসে। বিজ্ঞান বিষয়ক আইএসসি এফিলিয়েশন আসে ১৯২৪ সালে। অবাক ব্যাপার এই যে, এই কলেজে বিশ দশকের (১৯২৫) মাঝামাঝি সময় থেকে শুরু করে দেশ বিভাগ (১৯৪৭) পর্যন্ত ইংরেজী, গণিত, সংস্কৃত, রাজনীতি বিজ্ঞান, অর্থনীতি ও আরবী বিষয়ে অনার্স কোর্স চালু হয়। তখন অনার্স কোর্স ছিল দুই বছর ব্যাপী। পাস কোর্সও তাই। এমএ কোর্সও দুই বছর পড়ানো হতো। ১৯৪২ সালে এ কলেজে বিএসসি কোর্স চালু হয়। এবং ১৯৫৫-৫৬ সালের দিকে বিকম কোর্স শুরু হয়। এর কিছুকাল আগে থেকেই অর্থাৎ, ১৯৪৭-৪৮ সাল থেকে এখানে আইকম কোর্স চালু ছিল। ১৯৬২-৬৩ সালে ভিক্টোরিয়া কলেজ উচ্চ মাধ্যমিক ও ডিগ্রি শাখায় বিভক্ত হয়। একই প্রশাসনিক দায়িত্বে ডিগ্রি শাখা খোলা হয় মূল কলেজ ভবন থেকে প্রায় দেড় মাইল দূরে ধর্মপুর এলাকায়, শহরতলীতে। ডিগ্রি শাখা আবার তিন ভাগে বিভক্ত। কলা অনুষদ, বাণিজ্য অনুষদ ও বিজ্ঞান অনুষদ। এখানে রয়েছে ডিগ্রি শাখার আলাদা প্রশাসনিক ভবন, বিশাল মসজিদ ও লাইব্রেরী, ছেলেদের জন্য কবি নজরুল ইসলাম ছাত্রাবাস এবং মেয়েদের জন্য নওয়াব ফয়জুন্নেসা ছাত্রী হোস্টেল। ভিক্টোরিয়া কলেজ উচ্চ মাধ্যমিক শাখাও কলা-বাণিজ্য ও বিজ্ঞান - এই দুই অনুষদের বিভক্ত। উচ্চ মাধ্যমিক শাখার মূল ভবনেও রয়েছে বিশাল লাইব্রেরী। মূল ভবনের পশ্চিম পাশে একটি পুকুর ছিল যা ভরাট করে তৈরী করা হয়েছে বিশাল মাঠ। মাঠের পাশেই নির্মিত হয়েছে বাস্কেটবল গ্রাউন্ড ও মসজিদ। কলেজের সামনে রাণীর দীঘির পাড়ে বসে কবি নজরুল ইসলাম বন্ধুদের নিয়ে প্রতিদিন আসর জমাতেন। এখানে বসেই কবি "মাধবী লতা দোলে" সহ বিভিন্ন গান লিখেছেন। এখানে বসে তিনি নার্গিসকে অনেক চিঠি লিখেছেন। উচ্চ মাধ্যমিক শাখার সম্মুখ ভাগে ১৯৭১ সালে মহান মুক্তিযুদ্ধে কলেজের শহীদদের স্মৃতির উদ্দেশ্যে ওল্ড ভিক্টোরিয়ান্স নির্মান করেছে একটি স্মৃতি স্তম্ভ। কলেজের উচ্চ মাধ্যমিক শাখার ছাত্রদের জন্য টমসম (মূল : থমসন) ব্রীজের কাসে রয়েছে একটি সোহরাওয়ার্দি ও রবীন্দ্রনাথ ছাত্রাবাস। এবং চর্থায় রয়েছে শেরে বাংলা ছাত্রাবাস। ১৯৬৩-৬৪ সালের দিকে কলেজে প্রথম ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের অধীনে বাংলা ও অর্থনীতি বিষয়ে অনার্স কোর্স চালু হয়। পরে ১৯৭১-৭২ সালের দিকে একাউন্টিং, ব্যবস্থাপনা, রাজনীতি বিজ্ঞান, পদার্থবিদ্যা, রসায়ন প্রভৃতি বিষয়ে অনার্স কোর্স চালু হয় চট্টগ্রাম বিশ্ববিদ্যালয়ের অধীনে। উল্লেখ্য, ১৯৬৪ সালের ২৩ আগস্ট চট্টগ্রাম বিশ্ববিদ্যালয়ে প্রতিষ্ঠা হওয়ার পর থেকেই চট্টগ্রাম বিভাগের সব কলেজ এর অধীনে চলে যায়। ১৯৭৩-৭৪ সালের দিকে এই কলেজে বাংলা ও অর্থনীতি বিষয়ে এমএ খোলা হয়েছিল এবং তা প্রায় এক বছরের মতো চালু ছিল। ১৯৮২ সালে এই কলেজে আইসিএমএ কোর্স চালু হয়। ১৯৫৮-৫৯ সালের দিকে এ কলেজে নাইট শিফট চালু হয়। তা ১৯৬৮ সালে ১লা মে নাগাদ চালু ছিল। ১৯৬৮ সালের পয়লা মে কলেজটি সরকারী হয়। এরপর থেকে কুমিল্লা ভিক্টোরিয়া কলেজের নাম পরিবর্তন হয়ে কুমিল্লা সরকারী ভিক্টোরিয়া কলেজ নামকরণ হয়। ১৯৮৪-৮৫ সাল থেকে কলেজটি বিশ্ববিদ্যালয় কলেজ হিসেবে মর্যাদা পায়। এরপর থেকে ডিগ্রি শাখা চট্টগ্রাম বিশ্ববিদ্যালয় থেকে জাতীয় বিশ্ববিদ্যালয়ের অধীনে চলে যায়। বর্তমানে কলেজে ২২টি বিষয়ে অনার্স কোর্স চালু আছে। এবং এগুলোর প্রায় প্রত্যেকটি বিষয়ে চালু আছে মাস্টার্স কোর্স।

তথ্যসূত্রঃ ভিক্টোরিয়া কলেজের ইতিহাস, তিতাস চৌধুরী