আহমদ আবদুল কাদের

উইকিপিডিয়া, মুক্ত বিশ্বকোষ থেকে
ডক্টর

আহমদ আবদুল কাদের

হাফিজাহুল্লাহ
Ahmad Abdul Qader.jpg
২০২০ সালে কাদের
নায়েবে আমীর, হেফাজতে ইসলাম বাংলাদেশ
দায়িত্বাধীন
অধিকৃত কার্যালয়
১৫ নভেম্বর ২০২০
মহাসচিব, খেলাফত মজলিস
দায়িত্বাধীন
অধিকৃত কার্যালয়
২০০৫
ব্যক্তিগত
জন্ম (1955-07-31) ৩১ জুলাই ১৯৫৫ (বয়স ৬৫)
আলা দাউদপুর, মাধবপুর, হবিগঞ্জ
ধর্মইসলাম
জাতীয়তাবাংলাদেশি
সন্তান৫ জন
পিতামাতা
  • আব্দুর রহমান (পিতা)
  • আছিয়া খাতুন (মাতা)
জাতিসত্তাবাঙালি
যুগআধুনিক
আখ্যাসুন্নি
ব্যবহারশাস্ত্রহানাফি
আন্দোলনদেওবন্দি
প্রধান আগ্রহইসলামি আন্দোলন, লেখালেখি, রাজনীতি
উল্লেখযোগ্য কাজ
  • ইসলামী যুব শিবির
  • নুসরা (স্বেচ্ছাসেবী সংগঠন)
  • ৩৫টি বই
যেখানের শিক্ষার্থী
স্বাক্ষরAhmad Abdul Qader's Signature.svg

আহমদ আবদুল কাদের (জন্ম: ৩১ জুলাই ১৯৫৫) একজন বাংলাদেশি ইসলামি পণ্ডিত, রাজনীতিবিদ, লেখক, গবেষক, সংগঠক, সমাজসেবক ও অধ্যাপক। তিনি ছাত্র শিবিরের কেন্দ্রীয় সভাপতি ছিলেন, জামায়াতে ইসলামীর সাথে আদর্শিক বিরোধে জড়িয়ে তিনি ছাত্র শিবির থেকে স্বেচ্ছায় পদত্যাগ করে ইসলামী যুব শিবির প্রতিষ্ঠা করেন এবং মুক্তিযুদ্ধে জামায়াতের ভূমিকা নিয়ে প্রশ্ন তুলেন। এরপর তিনি মোহাম্মদ উল্লাহ হাফেজ্জী, আজিজুল হক, সৈয়দ ফজলুল করিম, মুহিউদ্দীন খান সহ প্রমুখ খ্যাতিমান দেওবন্দি আলেমদের সান্নিধ্যে আসেন। ইসলামী আন্দোলন বাংলাদেশ, বাংলাদেশ খেলাফত মজলিস, ইসলামী ঐক্যজোট সহ প্রভৃতি দলের মাধ্যমে ইসলামি আন্দোলনে নেতৃত্বদানের পর বর্তমানে তিনি খেলাফত মজলিসের মহাসচিব ও হেফাজতে ইসলাম বাংলাদেশের নায়েবে আমীর হিসেবে দায়িত্ব পালন করছেন। এছাড়াও তিনি দারুল ইহসান বিশ্ববিদ্যালয়ের অধ্যাপক ও নুসরা নামক জাতীয় স্বেচ্ছাসেবী সংস্থার প্রতিষ্ঠাতা।

প্রারম্ভিক জীবন[সম্পাদনা]

কাদের ১৯৫৫ সালের ৩১ জুলাই হবিগঞ্জ জেলার অন্তর্গত মাধবপুর উপজেলার আলা দাউদপুর গ্রামে জন্মগ্রহণ করেন। তার পিতা আব্দুর রহমান ও মাতা আছিয়া খাতুন। অত্র এলাকার রাজাপুর প্রাথমিক বিদ্যালয় থেকে তিনি প্রাথমিক, আউলিয়াবাদ উচ্চ বিদ্যালয় থেকে অষ্টম শ্রেণি, অন্নদা সরকারি উচ্চ বিদ্যালয় থেকে এসএসসি, কুমিল্লা ভিক্টোরিয়া কলেজ থেকে এইচএসসি পাশ করেন। তিনি ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় থেকে অর্থনীতিতে স্নাতক ও স্নাতকোত্তর এবং সিটি ল' কলেজ, ঢাকা থেকে এলএলবি ডিগ্রী লাভ করেন। অতঃপর তিনি বিশিষ্ট আলেমদের তত্ত্বাবধানে ইসলামের বিভিন্ন শাস্ত্রে পাণ্ডিত্য অর্জন করেন। ২০১০ সালে ইসলামী বিশ্ববিদ্যালয়, বাংলাদেশ অর্থনীতি বিভাগের অধীনে তিনি পিএইচডি ডিগ্রী লাভ করেন। পেশায় তিনি দারুল ইহসান বিশ্ববিদ্যালয়ের অর্থনীতি বিষয়ের একজন অধ্যাপক। ব্যক্তিগত জীবনে তিনি বিবাহিত এবং ৪ মেয়ে ও ১ ছেলের জনক। [১][২][৩][৪][৫]

রাজনৈতিক জীবন[সম্পাদনা]

ছাত্রজীবন থেকে তিনি ইসলামি আন্দোলনের সাথে জড়িত। তিনি ছাত্র শিবিরের কেন্দ্রীয় সভাপতি ছিলেন। ১৯৮২ সালে ছাত্র শিবিরকে জামায়াতে ইসলামীর অঙ্গ সংগঠন হিসেবে ঘোষণা দেওয়া হলে তিনি জামায়াতের সাথে আদর্শিক বিরোধে জড়িয়ে পড়েন এবং শিবির থেকে সেচ্ছায় পদত্যাগ করেন। এরপর ১৯৮৩ সালে তিনি ইসলামী যুব শিবিরের প্রতিষ্ঠা করেন এবং এর প্রতিষ্ঠাতা সভাপতি হন। ১৯৮৪ সালে ১৩ টি দলের সমন্বয়ে গঠিত মোহাম্মদ উল্লাহ হাফেজ্জীর নেতৃত্বাধীন সম্মিলিত সংগ্রাম পরিষদের তিনি অন্যতম উদ্যোক্তা ও কেন্দ্রীয় কমিটির সদস্য। ১৯৮৭ সালে বৃহত্তর ইসলামি আন্দোলনের প্রয়াসে বিভিন্ন ইসলামি দল, সংগঠন ও ব্যক্তিত্বের সমন্বয়ে গঠিত ইসলামী শাসনতন্ত্র আন্দোলনের (বর্তমানে ইসলামী আন্দোলন বাংলাদেশ) তিনি অন্যতম প্রতিষ্ঠাতা ছিলেন। ১৯৮৯ সালের ৮ ডিসেম্বর তদানীন্তন খেলাফত আন্দোলন ও ইসলামী যুব শিবির একীভূত হয়ে আব্দুল গফফারকে আমীর ও ভাষাসৈনিক মাসউদ খানকে মহাসচিব এবং আজিজুল হককে অভিভাবক পরিষদের সভাপতি করে বাংলাদেশ খেলাফত মজলিস গঠিত হয়। ১৯৯৬ সাল পর্যন্ত তিনি বাংলাদেশ খেলাফত মজলিসের প্রতিষ্ঠাতা যুগ্ম মহাসচিব ছিলেন। ২০০১ সালে গঠিত চার দলীয় জোটের আন্দোলনের লিয়াজো কমিটির অন্যতম সদস্য ছিলেন। সে সময় তিনি ইসলামী ঐক্যজোটের ভারপ্রাপ্ত মহাসচিবের দায়িত্বও পালন করেন। ১৯৯৬ থেকে ২০০৪ পর্যন্ত তিনি ইসলামী ঐক্যজোটবাংলাদেশ খেলাফত মজলিসের সহ-সভাপতি ছিলেন। ২০০৫ সালে বাংলাদেশ খেলাফত মজলিস নীতিগত কারণে দু’ভাগ হয়ে যায়। একভাগ পূর্ব নামেই নির্বাচন কমিশনে নিবন্ধিত হয় আর আরেকভাগ খেলাফত মজলিস নামে নিবন্ধিত হয়। তখন থেকে তিনি খেলাফত মজলিসের মহাসচিবের দায়িত্ব পালন করে যাচ্ছেন। ২০২০ সালের ১৫ নভেম্বর তিনি হেফাজতে ইসলাম বাংলাদেশের কেন্দ্রীয় নায়েবে আমীর নির্বাচিত হন। [৪] এছাড়াও তিনি সমমনা ইসলামি দলসমূহের মুখ‍পাত্র ও সমন্বয়কারী এবং বিশ দলীয় জোটের শীর্ষ নেতা হিসেবে দায়িত্ব পালন করছেন। [৫][৬]

প্রকাশনা[সম্পাদনা]

তার রচিত বইয়ের সংখ্যা ৩৫ টি। এর মধ্যে প্রকাশিত হয়েছে ২৭ টি:[৫]

  1. সােনালী পথ
  2. দারিদ্র সমস্যা সমাধানে ইসলাম
  3. সভ্যতা সংকট দিগদর্শন
  4. মুক্তি শান্তি প্রগতি
  5. সত্য সুন্দর বিপ্লব তারুণ্য
  6. পতনের বেলাভূমিতে বস্তুবাদী সভ্যতা
  7. খেলাফত: মূলনীতি ও বৈশিষ্ট্য
  8. মুসলিম ঐক্য ও সংহতি
  9. সেবা দারিদ্র বিমােচন ইসলাম
  10. মৌলবাদ
  11. মহানবী (সাঃ)-এর জীবনাদর্শ ও আজকের প্রেক্ষিত
  12. জিহাদ কি ও কেন ?
  13. ইসলামী আন্দোলন
  14. ইসলামী আন্দোলন ও জালেমের বিরুদ্ধে মজলুমের লড়াই
  15. ইসলামী রাষ্ট্র প্রতিষ্ঠার আন্দোলন অপরিহার্য কেন?
  16. ইসলামী বিপ্লব
  17. ইসলামী বিপ্লব ও পথ ও পদ্ধতি
  18. ইসলামী বিপ্লবের লক্ষ্যে গণআন্দোলন
  19. ইসলামী আন্দোলন ও উলামা সমাজ
  20. আদর্শ কর্মী
  21. আদর্শ সংগঠন
  22. ঈমানের পথ রক্তে রাঙা
  23. জাতি ভাষা সংস্কৃতি স্বাধীনতা
  24. আধুনিক যুগে খেলাফত রাষ্ট্র ব্যবস্থা
  25. ধর্ম ও ধর্মনিরপেক্ষতা
  26. মুসলিম বিশ্ব: সমাজ,রাজনীতি ইসলাম
  27. নয়া ক্রুসেড নয়া জিহাদ
প্রকাশিতব্য
  1. নারীবাদ: বিজ্ঞান ও ইসলাম
  2. দুনিয়ার শান্তি ও কল্যাণ এবং ইসলাম ইত্যাদি।

এছাড়াও তার শতাধিক নিবন্ধ ও দশটির অধিক গবেষণা প্রবন্ধ প্রকাশিত হয়েছে। আন্তর্জাতিক সেমিনার ও সম্মেলনে তার পেশকৃত নিবন্ধগুলোর মধ্যে উল্লেখযোগ্য হচ্ছে :[৫]

  1. The role of waqf in poverty alleviation
  2. The rural development in Bangladesh
  3. The poverty alleviation in Bangladesh
  4. Fundamentalism is the muslim world
  5. Labour Rights in Islam
  6. Missionary activities in Bangladesh
  7. Public administration is Nahjul balagha
  8. Secularism in the muslim world
  9. From nation state to ummah state

আরও দেখুন[সম্পাদনা]

তথ্যসূত্র[সম্পাদনা]

  1. আকবর হোসেন, চৌধুরী (২৬ জানুয়ারি ২০১৬)। "জামায়াতের ৭১-এর ভূমিকা নিয়ে প্রশ্ন তুলেছিলাম"বাংলা ট্রিবিউন। সংগ্রহের তারিখ ২০২০-১২-০১ 
  2. রিপোর্টার, স্টাফ (২৮ জানুয়ারি ২০১৭)। "মাওলনা মোহাম্মদ ইসহাক আমীর ও ড., আহমদ আবদুল কাদের মহাসচিব পুন: নির্বাচিত"ইনকিলাব। সংগ্রহের তারিখ ২০২০-১২-০১ 
  3. তালুকদার, কামাল (২৫ ফেব্রুয়ারি ২০১৩)। "জামায়াত ও ইসলাম এক নয়: খেলাফত মজলিস"বিডিনিউজ২৪.কম। সংগ্রহের তারিখ ২০২০-১২-০১ 
  4. রিপোর্ট, ডিবিসি (২০ নভেম্বর ২০২০)। "হেফাজতের কমিটিতে পদ পেলেন সাবেক শিবির সভাপতি"ডিবিসি নিউজ। সংগ্রহের তারিখ ২০২০-১২-০১ 
  5. আতিকুর রহমান, এম.এম (১৩ মে ২০২০)। "ইসলামী আন্দোলনের পুরোধা,অধ্যাপক ড.আহমদ আবদুল কাদের এক "জীবন্ত কিংবদন্তি""দৈনিক বড়লেখা 
  6. প্রতিবেদক, নিজস্ব। "'গায়ের জোরে করা যেতে পারে, কিন্তু আলেমরা ভালো বলবেন না'"প্রথম আলো। সংগ্রহের তারিখ ২০২০-১২-২১ [স্থায়ীভাবে অকার্যকর সংযোগ]

গ্রন্থপঞ্জি[সম্পাদনা]

বহিঃসংযোগ[সম্পাদনা]