শাহরাস্তি

স্থানাঙ্ক: ২৩°১৩′৫২″ উত্তর ৯০°৫৬′৫৮″ পূর্ব / ২৩.২৩১১৬৯° উত্তর ৯০.৯৪৯৩০৯° পূর্ব / 23.231169; 90.949309
উইকিপিডিয়া, মুক্ত বিশ্বকোষ থেকে
শাহরাস্তি
শহর
শাহরাস্তি বাংলাদেশ-এ অবস্থিত
শাহরাস্তি
শাহরাস্তি
বাংলাদেশে শাহরাস্তি শহরের অবস্থান
স্থানাঙ্ক: ২৩°১৩′৫২″ উত্তর ৯০°৫৬′৫৮″ পূর্ব / ২৩.২৩১১৬৯° উত্তর ৯০.৯৪৯৩০৯° পূর্ব / 23.231169; 90.949309
দেশ বাংলাদেশ
বিভাগচট্টগ্রাম বিভাগ
জেলাচাঁদপুর জেলা
উপজেলাশাহরাস্তি উপজেলা
উপজেলা শহর১৯৮৩
পৌরশহর১৫ই অক্টোবর ১৯৯৮
সরকার
 • ধরনপৌরসভা
 • শাসকশাহরাস্তি পৌরসভা
 • পৌরমেয়রহাজি আবদুল লতিফ [১]
আয়তন
 • মোট১৫.৬৫ বর্গকিমি (৬.০৪ বর্গমাইল)
জনসংখ্যা
 • মোট২৮,২৮৭
 • জনঘনত্ব১,৮০০/বর্গকিমি (৪,৭০০/বর্গমাইল)
সময় অঞ্চলবাংলাদেশ সময় (ইউটিসি+৬)

শাহরাস্তি বাংলাদেশের দক্ষিণাঞ্চলের চট্টগ্রাম বিভাগের একটি শহর। এটি চাঁদপুর জেলার অন্তর্গত শাহরাস্তি উপজেলার প্রশাসনিক সদরদপ্তর ও প্রধান শহর।

ভৌগোলিক উপাত্ত[সম্পাদনা]

শাহরাস্তি শহরের অবস্থানের অক্ষাংশ ও দ্রাঘিমাংশ হল ২৩°১৩′৫২″ উত্তর ৯০°৫৬′৫৮″ পূর্ব / ২৩.২৩১১৬৯° উত্তর ৯০.৯৪৯৩০৯° পূর্ব / 23.231169; 90.949309। সমুদ্র সমতল থেকে শহরটির গড় উচ্চতা ১১ মিটার

নামকরণ[সম্পাদনা]

এই শহরে হযরত শাহজালাল (র.) এর সফরসঙ্গী ৩৬০ জন আউলিয়ার একজন হযরত শাহরাস্তি এর মাজার অবস্থিত। স্থানীয় জনগণের সমর্থনে হযরত শাহরাস্তি এর নামানুসারে শাহরাস্তি উপজেলার নামকরণ করা হয়। উপজেলার প্রধান শহর ও উপজেলা সদর হিসেবে এ শহরের নামও শাহরাস্তি হয়।[২]

ইতিহাস[সম্পাদনা]

১৯৮৩ সালে হাজীগঞ্জ উপজেলার পূর্ব অংশ নিয়ে শাহরাস্তি উপজেলা গঠিত হলে শাহরাস্তি শহরাঞ্চলকে উপজেলা শহর করা হয়। ১৯৯৮ সালে শাহরাস্তি পৌরসভা প্রতিষ্ঠিত হলে শহরটি পৌরশহরের মর্যাদা লাভ করে।[৩]

প্রশাসন[সম্পাদনা]

শাহরাস্তি শহর শাহরাস্তি পৌরসভা দ্বারা পরিচালিত হয়। শহরটি ১২টি ওয়ার্ড এবং ১৮টি মহল্লায় বিভক্ত। ১৫.৬৫ বর্গ কি.মি. আয়তনের শাহরাস্তি শহরের ৩.৫০ বর্গ কি.মি. শাহরাস্তি পৌরসভা দ্বারা শাসিত হয়। এ পৌরসভার প্রশাসনিক কার্যক্রম শাহরাস্তি থানার আওতাধীন। এটি জাতীয় সংসদের ২৬৪নং নির্বাচনী এলাকা চাঁদপুর-৫ এর অংশ।[৪]

জনসংখ্যা[সম্পাদনা]

বাংলাদেশের আদমশুমারি ও গৃহগণনা-২০১১ অনুযায়ী শাহরাস্তি শহরের মোট জনসংখ্যা ২৮,২৮৭ জন যার মধ্যে ১৩,৬৯৫ জন পুরুষ এবং ১৪,৫৯২ জন নারী। এ শহরের পুরুষ এবং নারী অনুপাত ৯৭:১০০। [৫]

খেলাধুলা[সম্পাদনা]

এখানে হা-ডু-ডু, গোল্লাছুট, ক্রিকেট, ফুটবল, কানামাছি ভোঁ ভোঁ, দাড়িয়াবান্ধা ইত্যাদি খেলা হয়ে থাকে।[৬]

নদী[সম্পাদনা]

শাহরাস্তির অন্যতম নদী হল ডাকাতিয়া। শাহরাস্তি ডাকাতিয়া নদীর মাধ্যমে দ্বিখন্ডিত হয়েছে। ডাকাতিয়ার দৈর্ঘ্য ১৩০ কিলোমিটার।[৭]

শিক্ষা ব্যবস্থা[সম্পাদনা]

শাহরাস্তি শহরের স্বাক্ষরতার হার ৬৭%। এ শহরে ২টি কলেজ, ৪টি মাদ্রাসা, ৬টি মাধ্যমিক বিদ্যালয় এবং ১০টি প্রাথমিক বিদ্যালয় রয়েছে।

তথ্যসূত্র[সম্পাদনা]

  1. "জনপ্রতিনিধিদের তালিকা-শাহরাস্তি পৌরসভার মেয়র"। সংগ্রহের তারিখ ২০১৯-১২-০৪ 
  2. "শাহরাস্তি নামকরণের পটভূমি"। ৪ ডিসেম্বর ২০১৯ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ২০১৯-১২-০৫ 
  3. "শাহরাস্তি শহরের ইতিহাস"। ৪ ডিসেম্বর ২০১৯ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ২০১৯-১২-০৫ 
  4. "এক নজরে শাহরাস্তি পৌরসভা"। ৪ ডিসেম্বর ২০১৯ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ২০১৯-১২-০৫ 
  5. "Urban Centers in Bangladesh"। Population & Housing Census-2011 [আদমশুমারি ও গৃহগণনা-২০১১] (PDF) (প্রতিবেদন)। জাতীয় প্রতিবেদন (ইংরেজি ভাষায়)। ভলিউম ৫: Urban Area Rport, 2011। বাংলাদেশ পরিসংখ্যান ব্যুরো। মার্চ ২০১৪। পৃষ্ঠা ১৮২। সংগ্রহের তারিখ ২০১৯-১২-০৫ 
  6. "খেলাধুলা ও বিনোদন"। ৪ ডিসেম্বর ২০১৯ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ২০১৯-১২-০৫ 
  7. "শাহরাস্তি- নদী পরিচিতি"। ৪ ডিসেম্বর ২০১৯ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ২০১৯-১২-০৫