জনপ্রশাসন পদক

উইকিপিডিয়া, মুক্ত বিশ্বকোষ থেকে
জনপ্রশাসন পদক
জনপ্রশাসন পদকের চিত্র
২০১৬ সালের জনপ্রশাসন পদক
প্রদানের কারণসরকারি কর্মকর্তা (ব্যক্তি), সরকারি প্রতিষ্ঠান, সরকারি কর্মকর্তা (দলগত)
অবস্থানঢাকা, বাংলাদেশ
দেশবাংলাদেশ
পুরস্কারদাতাবাংলাদেশ
পরিবেশনাজনপ্রশাসন পদক নীতিমালা-২০১৫ (সংশোধিত-২০১৬)
প্রথম পুরস্কৃত২০১৬
সর্বশেষ পুরস্কৃত২০২১
ওয়েবসাইটmopa.gov.bd

জনপ্রশাসন পদক গণপ্রজাতন্ত্রী বাংলাদেশ সরকারের কর্মকর্তা-কর্মচারীদের সৃজনশীল ও উদ্ভাবনী কার্যক্রমের স্বীকৃতিস্বরুপ প্রদান করা হয়। সরকারি উচ্চ পদস্থ কর্মকর্তাদেরকে কাজের প্রতি উৎসাহী করতে ২০১৫ সালে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা এর প্রবর্তন করেন। জনপ্রশাসন পদক-২০১৫ নীতিমালা অনুসারে সরকারি কর্মকর্তা কর্মচারীদের জন্যে রাষ্ট্র থেকে সর্বোচ্চ স্বীকৃতি হিসেবে পরিচিত। প্রদক প্রাপ্ত সরকারি কর্মকর্তাগণ নামের শেষে পিএএ (PAA) যুক্ত করতে পারেন।[১]

ইতিহাস[সম্পাদনা]

জনপ্রশাসনের মেধা, মননশীলতা, সৃজনশীল কর্ম ও উদ্ভাবনী প্রয়াসকে উৎসাহিত করার মাধ্যমে কর্মস্পৃহা ও প্রাতিষ্ঠানিক সক্ষমতা বৃদ্ধির লক্ষ্যে জনপ্রশাস পদক নীতিমালা ২০১৫ প্রণয়ন করা হয়। সরকারের উন্নয়ন লক্ষ্যমাত্রা অর্জনে জনপ্রশাসনে গতিশীলতা নিয়ে আসতে ২৫ জানুয়ারি ২০১৫ তারিখে নীতিমালা চূড়ান্ত করে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা জনপ্রশাসন পদক প্রবর্তন করেন। ২০১৬ সালে প্রথমবারে সরকারের ৩০ জন কর্মকর্তাকে জনপ্রশাসন পদক দেয়া হয়। এ পদকে মনোনিতদের যাচাই-বাছাইসহ নীতিমালাকে কাঠামোগত রূপদানে ২০১৬ সালে নীতিমালা সংশোধন করা হয়।[১][২]

বিবরণ[সম্পাদনা]

সরকারি কর্মকর্তাদের সংস্কার কার্যক্রম , দলগত উদ্যোগ, উন্নত অনুশীলন, উন্নততর সেবা, কোনো বিষয়ের প্রতি নতুন প্রস্তাবনা, সুশাসন, তথ্যপ্রযুক্তি প্রসারে অবদান, ই-গভর্ন্যান্স, দফতরে নাগরিকদেদর অংশগ্রহণ, ভূমিকা ও সম্পৃক্ততা বৃদ্ধি, স্থানীয় সংস্কৃতি ও সামাজিক প্রতিভার উন্নয়ন, স্থায়ী প্রকৃতির উৎপাদনশীল সম্পদ সৃষ্টি, টেকসই সরকারি-বেসরকারি অংশীদারত্ব, দক্ষতা বৃদ্ধি, দুর্নীতি হ্রাস, দারিদ্র্য বিমোচন, প্রাতিষ্ঠানিক উন্নয়ন, সরকারি কর্ম ও প্রযুক্তিগত পদ্ধতির উৎকর্ষ সাধন এবং নারী উন্নয়নে অবদান স্বরুপ একক এবং যৌথভাবে জনপ্রশাসন পদক দেয়া হয়।[১][২]

পুরস্কারের ধরন[সম্পাদনা]

জাতীয় কিংবা জেলা পর্যায়ে মনোনিত সরকারি কর্মকর্তা, কর্মকর্তাদের কয়েকজ মিলে (দল) এবং সরকারি প্রাতিষ্ঠানকে সাধারণ ও কারিগরি বিভাগে জনপ্রশাসক প্রদান করা হয়। এ পদকে ১৮ ক্যারেটের এক ভরি স্বর্ণ থাকে। পুরস্কারপ্রাপ্ত ব্যক্তিকে নগদ এক লাখ টাকা, দল বা যৌথ হলে প্রতি কর্মকর্তাকে এক লাখ টাকা। দলের সদস্য সংখ্যার ওপর ভিত্তি করে সর্বোচ্চ পাঁচ লাখ টাকা এবং ক্রেস্ট প্রদান করা হয়। সরকারি কোনো বিভাগ মনোনিত হলে শুধুমাত্র ক্রেস্ট প্রদান করা হয়। এছাড়া জাতীয় ও জেলা পর্যায়ে সরকারি কর্মকর্তা, কর্মকর্তাদের দল এবং সরকারি বিভাগ এ তিন পর্যায়ে সম্মাননা দেয়া হয়।[১][২]

মনোনয়ন কমিটি[সম্পাদনা]

জনপ্রশাসন পদকে প্রতিবছর সকারি কর্মকর্তাদের আবেদনের প্রেক্ষিতে যাচাই-বাছাই শেষে ১৫টি মনোনয়ন কমিটি চূড়ান্তদের তালিকা তৈরি করে। কমিটিগুলি হল:

  1. মন্ত্রী পরিষদ সচিব -সভাপতি
  2. প্রধানমন্ত্রীর মুখ্য সচিব -সদস্য
  3. সচিব, অর্থ বিভাগ -সদস্য
  4. সচিব শিক্ষা মন্ত্রণারয় -সদস্য
  5. সচিব, বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি মন্ত্রণালয় -সদস্য
  6. সচিব, স্থানীয় সরকার বিভাগ -সদস্য
  7. সচিব, স্বাস্থ্য ও পরিবার কল্যাণ মন্ত্রণালয়য় -সদস্য
  8. সচিব, কৃষি মন্ত্রণালয় -সদস্য
  9. সচিব, তথ্য মন্ত্রণালয় -সদস্য
  10. সচিব, পরিবেশ ও বন মন্ত্রণালয় - সদস্য
  11. সচিব, সাংস্কৃতিক বিষয়ক মন্ত্রণালয় -সদস্য
  12. সরকার কর্তৃক মনোনিত ৩ জন বিশিষ্ট ব্যক্তি -সদস্য
  13. সচিব, জনপ্রশাসন মন্ত্রণালয় -সদস্য [১]

আরো দেখুন[সম্পাদনা]

তথ্যসূত্র[সম্পাদনা]

  1. "জনপ্রশাসন পদক নীতিমালা"পরিকল্পনা মন্ত্রণালয়ের অফিসিয়াল ওয়েবসাইট। সংগ্রহের তারিখ ১১ জুন ২০১৯ 
  2. "জনপ্রশাসন পদক পাচ্ছে ৩০ ব্যক্তি প্রতিষ্ঠান"দৈনিক সমকাল। ২২ জুলাই ২০১৬। সংগ্রহের তারিখ ১১ জুন ২০১৯