নীলিমা ইব্রাহিম

উইকিপিডিয়া, মুক্ত বিশ্বকোষ থেকে
নীলিমা ইব্রাহিম
জন্ম নীলিমা রায় চৌধুরী
(১৯২১-১০-১১)১১ অক্টোবর ১৯২১
মুলঘর, ফকিরহাট, বাগেরহাট জেলা, ব্রিটিশ ভারত (বর্তমানে- বাংলাদেশ)
মৃত্যু ১৮ জুন ২০০২(২০০২-০৬-১৮) (৮০ বছর)
ঢাকা, বাংলাদেশ
জাতীয়তা বাংলাদেশী
শিক্ষা পিএইচডি (বাংলা ভাষা ও সাহিত্য)
শিক্ষা প্রতিষ্ঠান কলকাতা বিশ্ববিদ্যালয়
ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়
পেশা লেখিকা, শিক্ষাবিদ
উল্লেখযোগ্য কাজ আমি বীরঙ্গনা বলছি, ঊনবিংশ শতাব্দীর বাঙালি সমাজ ও বাংলা নাটক
দাম্পত্য সঙ্গী মোহাম্মদ ইব্রাহিম (বি. ১৯৪৫)
সন্তান খুকু, ডলি, পলি, বাবলি, ইতি
পিতা-মাতা(গণ) প্রফুল্ল রায় চৌধুরী
কুসুম কুমারী দেবী
পুরস্কার বাংলা একাডেমি পুরস্কার (১৯৬৯)
একুশে পদক (২০০০)
স্বাধীনতা পুরস্কার (২০১১)

নীলিমা ইব্রাহিম (১১ অক্টোবর ১৯২১ — ১৮ জুন ২০০২)[১] হলেন বাংলাদেশের একজন বিশিষ্ট শিক্ষাবিদ, সাহিত্যিক ও সমাজকর্মী। ১৯৫৬ সালে তিনি ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ে শিক্ষক হিসেবে যোগ দেন এবং ১৯৭২ সালে অধ্যাপক পদে উন্নীত হন। ১৯৭৪-৭৫ সালে তিনি বাংলা একাডেমির অবৈতনিক মহাপরিচালক ছিলেন।

পুরস্কার ও সম্মননা[সম্পাদনা]

  • বাংলা একাডেমি পুরস্কার (১৯৬৯)
  • জয় বাংলা পুরস্কার (১৯৭৩)
  • মাইকেল মধুসূদন পুরস্কার (১৯৮৭)
  • লেখিকা সংঘ পুরস্কার (১৯৮৯)
  • বিচারপতি আবু সাঈদ চৌধুরী স্মৃতি পদক (১৯৯০)
  • অনন্য সাহিত্য পদক (১৯৯৬)
  • বেগম রোকেয়া পদক (১৯৯৬)
  • বঙ্গবন্ধু পুরস্কার (১৯৯৭)
  • শেরে বাংলা পুরস্কার (১৯৯৭)
  • থিয়েটার সম্মামনা পদক (১৯৯৮)
  • একুশে পদক (২০০০)

মৃত্যু[সম্পাদনা]

অধ্যাপিকা নীলিমা ইব্রাহিম ২০০২ সালের ১৮ জুন মৃত্যুবরণ করেন।

তথ্যসূত্র[সম্পাদনা]

  1. সংসদ বাঙালি চরিতাভিধান, সম্পাদনাঃ অঞ্জলি বসু, ২য় খণ্ড, চতুর্থ সংস্করণ, সাহিত্য সংসদ, ২০১৫, কলকাতা