রফিকউল্লাহ্ খান

উইকিপিডিয়া, মুক্ত বিশ্বকোষ থেকে
পরিভ্রমণে ঝাঁপ দিন অনুসন্ধানে ঝাঁপ দিন
রফিকউল্লাহ খান
জন্ম (1957-01-21) ২১ জানুয়ারি ১৯৫৭ (বয়স ৬২)
বাসস্থানঢাকা
জাতীয়তাবাংলাদেশী
জাতিসত্তাবাঙালি
নাগরিকত্ব বাংলাদেশ
যেখানের শিক্ষার্থীঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়
পেশাশিক্ষকতা
পরিচিতির কারণবাংলাদেশী প্রাবন্ধিক, গবেষক ও সাহিত্যসমালোচক
পুরস্কারবাংলা একাডেমি সাহিত্য পুরস্কার, (২০১৭)

অধ্যাপক ড. রফিকউল্লাহ খান (জন্ম: ২১ জানুয়ারি, ১৯৫৭) একজন বাংলাদেশী প্রাবন্ধিক, গবেষক ও সাহিত্যসমালোচক। তিনি ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের বাংলা বিভাগের অধ্যাপক।  বাংলা উপন্যাস ও আধুনিক কবিতা  নিয়ে তার গবেষণা সবিশেষ উল্লেখযোগ্য। এছাড়াও মাইকেল মধুসূদন দত্ত, রবীন্দ্রনাথ ঠাকুর, কাজী নজরুল ইসলামহাসান হাফিজুর রহমান বিষয়ে তার উল্লেখযোগ্য গ্রন্থ ও প্রবন্ধ প্রকাশিত হয়েছে। গবেষণায় সামগ্রিক অবদানের জন্য ২০১৭ সালে তিনি বাংলা একাডেমি সাহিত্য পুরস্কার লাভ করেন। [১] জাতীয় ও আন্তর্জাতিক ক্ষেত্রে তিনি বিভিন্ন শিক্ষা ও গবেষণা প্রতিষ্ঠানের সাথে সক্রিয়ভাবে যুক্ত।[২] বর্তমানে নেত্রকোণা জেলায় অবস্থিত শেখ হাসিনা বিশ্ববিদ্যালয়ের উপচার্য হিসেবে দায়িত্ব পালন করছেন।

জন্ম[সম্পাদনা]

রফিকউল্লাহ খান ১৯৫৭ খ্রিষ্টাব্দের ২১ শে জানুয়ারি মানিকগঞ্জ জেলার চর গোবিন্দপুর গ্রামে জন্মগ্রহণ করেন। তার পিতার নাম এ কে এম সাইফুল ইসলাম খান। তিনি ছিলেন বিদ্যালয়ের শিক্ষক ও হোমিও কলেজের প্রতিষ্ঠাতা অধ্যক্ষ ও  চিকিৎসক। মা নূরুন্নাহার ফিরোজা খানম ছিলেন বালিকা বিদ্যালয়ের শিক্ষক ও লেখক। তারা দুজনেই সাহিত্যচর্চা করতেন।নূরুন্নাহার ফিরোজা খানমের ‘আমার স্বপ্ন, আমার সংগ্রাম’ (২০১৫) এক শিক্ষানুরাগী গ্রামীণ সংগ্রামী নারীর অনবদ্য জীবনকথা। পশ্চিম মানিকগঞ্জের অজ পাড়াগাঁয় নারী শিক্ষা বিস্তারের লক্ষে ১৯৪৬ সালে দুজনে মিলে প্রতিষ্ঠা করেন ‘গোলে-মনির জুনিয়র বালিকা বিদ্যালয়’। নয় ভাই-বোনের মধ্যে রফিকউল্লাহ খান তৃতীয়।

শিক্ষাজীবন[সম্পাদনা]

রফিকউল্লাহ খানের শিক্ষাজীবনের শুরু গ্রামের প্রাথমিক বিদ্যালয়ে। তিনি মাধ্যমিক পাস করেন নাগরপুরের দপ্তিয়র উচ্চবিদ্যালয় থেকে ১৯৭২ সালে। বগুড়ার শেরপুর ডিগ্রি কলেজ থেকে ১৯৭৬ সালে উচ্চমাধ্যমিক পরীক্ষায় উত্তীর্ণ হন। ১৯৮০ সালে তিনি ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় বাংলা বিভাগে স্নাতক সম্মান শ্রেণিতে পরীক্ষায় উত্তীর্ণ হন। ১৯৮১ সালে এম এ পরীক্ষায় প্রথম শ্রেণিতে প্রথম স্থান লাভ করেন। ১৯৮৩-১৯৮৫ সালে বাংলা একাডেমির বৃত্তিপ্রাপ্ত গবেষক হিসেবে রচনা করেন ‘হাসান হাফিজুর রহমান : জীবন ও সাহিত্য’ শীর্ষক গবেষণা-গ্রন্থ।  ১৯৮৫ সালের অক্টোবর মাসে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের বাংলা বিভাগে প্রভাষক হিসেবে স্থায়ী পদে যোগদান করেন।

কর্মজীবন[সম্পাদনা]

বাংলা একাডেমির বৃত্তিপ্রাপ্ত গবেষক হিসেবেই ১৯৮৩ সালে কর্মজীবন শুরু করেন রফিকউল্লাহ খান। সে বছরের শেষ দিকে নিযুক্ত হন বাংলা একাডেমির গবেষণার কাজে। রচনা করেন ‘হাসান হাফিজুর রহমান : জীবন ও সাহিত্য’। ১৯৮৫ সালে বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষক হিসেবে যোগদানের আগেই তিনি ‘মাইকেল রবীন্দ্রনাথ ও অন্যান্য’ (১৯৮৫)ও ‘কবিতা ও সমাজ’ (১৯৮৫) শীর্ষক দু’টি গ্রন্থ প্রণয়ন করেন। বইগুলো বাংলা একাডেমি থেকে প্রকাশিত হয়। ছাত্রজীবন থেকে সাহিত্যচর্চা ও প্রবন্ধরচনায় খ্যাতি অর্জন করেছিলেন। শিক্ষক হিসেবে যোগদানের পূর্বেই গবেষণাধর্মী ও সৃজনশীল মিলিয়ে শতাধিক প্রবন্ধ রচনা করেন। পিএইচ ডি ডিগ্রি অর্জন করেন ১৯৯৫ সালে। গবেষণার বিষয় : ‘বাংলাদেশের উপন্যাস :  বিষয় ও শিল্পরূপ(১৯৪৭-১৯৮৭)’।  তিনি বর্তমানে  আন্তর্জাতিক বঙ্গবিদ্যা  পরিষদ কার্যনির্বাহী কমিটির যুগ্ম-সম্পাদক এবং আন্তর্জাতিক বঙ্গবিদ্যা পরিষদ বাংলাদেশ চ্যাপ্টারের সাধারণ সম্পাদক। পরিচালকের দায়িত্বে আছেন ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের বাংলাদেশের সংস্কৃতি গবেষণাকেন্দ্রের।  [৩]

প্রকাশিত গ্রন্থাবলি[সম্পাদনা]

গবেষণা-গ্রন্থ[সম্পাদনা]

  • মাইকেল রবীন্দ্রনাথ ও অন্যান্য (১৯৮৫)
  • কবিতা ও সমাজ  (১৯৮৫)
  • হাসান হাফিজুর রহমান : জীবন ও সাহিত্য (১৯৯৩)
  • রবীন্দ্র-বিষয়ক (১৯৯৩)
  • বাংলাদেশের উপন্যাস :  বিষয় ও শিল্পরূপ (১৯৯৭)
  • সত্যেন সেনের উপন্যাস : বিষয়স্বাতন্ত্র্য ও শিল্পচেতনা (১৯৯৯)
  • শতবর্ষের বাংলা উপন্যাস (২০০০)
  • বাংলাদেশের কবিতা : সমবায়ী স্বতন্ত্রস্বর (২০০২)
  • কথাসাহিত্যের বিচিত্রবিষয় ও নন্দনতত্ত্ব (২০০২)
  • অবচেতন এবং কবিতা (২০১০)
  • আখ্যানতত্ত্ব ও চরিত্রায়ণ (২০১১)
  • গ্রন্থ একক ও যৌথ সম্পাদনা[সম্পাদনা]
  • হাসান হাফিজুর রহমানের অপ্রকাশিত গল্প (১৯৮৯)
  • হাসান হাফিজুর রহমান রচনাবলি প্রথম খণ্ড (১৯৯৪)
  • হাসান হাফিজুর রহমান রচনাবলি দ্বিতীয় খণ্ড (১৯৯৫)
  • পল্লী-সমাজ (১৯৯৬)
  • মেঘনাদবধ-কাব্য (২০০১)
  • স্মৃতিকথায় নজরুল (২০০১)
  • মৃত পত্রে নীলোচ্ছ্বাস : জীবনানন্দ দাশ (২০০২)
  • বাংলাদেশের তিন দশকের কবিতা (২০০৫)

অনুবাদ[সম্পাদনা]

  • হোমারের ওডেসী  (  হাসান হাফিজুর রহমান সহযোগে)

শিশু সাহিত্য[সম্পাদনা]

  • ছোটদের সাহিত্য পরিচয় (২০০২)            

পুরস্কার ও সম্মাননা[সম্পাদনা]

তথ্যসূত্র[সম্পাদনা]

গবেষণানির্ভর আন্তর্জাতিকমানের বিশ্ববিদ্যালয় গড়তে চাই বাংলানিউজ (বাংলা ভাষায়)। প্রকাশের তারিখ ২০১৮-০৯-১৪।

  1. "বাংলা একাডেমি সাহিত্য পুরস্কার পেলেন যারা"সমকাল (ইংরেজি ভাষায়)। সংগ্রহের তারিখ ২০১৮-০৩-২৬ 
  2. "রফিকউল্লাহ খান : শিক্ষক ও মননশীল লেখক"NTV Online। সংগ্রহের তারিখ ২০১৮-০৩-২৬ 
  3. "রফিকউল্লাহ খান | মতামত"মতামত-বিশ্লেষণ (ইংরেজি ভাষায়)। ২০১১-০৫-০৯। সংগ্রহের তারিখ ২০১৮-০৩-২৬ 

বহি:সংযোগ[সম্পাদনা]