বদরুদ্দীন উমর

উইকিপিডিয়া, মুক্ত বিশ্বকোষ থেকে
সরাসরি যাও: পরিভ্রমণ, অনুসন্ধান
বদরুদ্দীন উমর
জন্ম বদরুদ্দীন উমর
২০ ডিসেম্বর, ১৯৩১
বর্ধমান, বেঙ্গল প্রেসিডেন্সি, ব্রিটিশ ভারত
জাতীয়তা বাংলাদেশি
শিক্ষা প্রতিষ্ঠান ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়
অক্সফোর্ড বিশ্ববিদ্যালয়
পেশা মার্কসবাদী তাত্ত্বিক, অধ্যাপক, লেখক, ইতিহাসবিদ

বদরুদ্দীন উমর (জন্ম: ২০ ডিসেম্বর ১৯৩১) একজন বাংলাদেশি মার্কসবাদী–লেনিনবাদী তাত্ত্বিক, রাজনৈতিক সক্রিয়তাবাদী, ইতিহাসবিদ, লেখক, শিক্ষাবিদ, বুদ্ধিজীবী এবং বাংলাদেশের কমিউনিস্ট পার্টি (মার্কসবাদী-লেনিনবাদী) (উমর)-এর নেতা। তাঁর পিতা আবুল হাশিম ভারতীয় উপমহাদেশের একজন বিশিষ্ট রাজনীতিবিদ ছিলেন।[১]

প্রাথমিক জীবন ও শিক্ষা[সম্পাদনা]

উমর ১৯৩১ সালের ২০ ডিসেম্বর ব্রিটিশ ভারতের বর্ধমান শহরে জন্মগ্রহণ করেন। তাঁর পিতার নাম আবুল হাশিম ও মাতার নাম মাহমুদা আখতার মেহেরবানু বেগম। যদিও তাঁর পিতা আবুল হাশিম—একজন সাম্যবাদী—পাকিস্তান সৃষ্টির বিরোধী ছিলেন, তথাপি তিনি পূর্ব পাকিস্তানে চলে যাবার সিদ্ধান্ত নেন এবং ১৯৫০ সালে ঢাকায় স্থায়ীভাবে বসবাস শুরু করেন। উমর ১৯৪৮ সালে বর্ধমান টাউন স্কুল থেকে প্রবেশিকা পরীক্ষায় উত্তীর্ণ হন। ১৯৫০ সালে তিনি বর্ধমান রাজ কলেজ থেকে উচ্চ মাধ্যমিক পাস করেন। ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় থেকে ১৯৫৩ সালে স্নাতক সম্মান ডিগ্রি অর্জন করেন। দর্শন বিষয়ে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় থেকে স্নাতকোত্তর ডিগ্রি লাভ করেন ১৯৫৫ সালে। ১৯৬১ সালে তিনি যুক্তরাজ্যের অক্সফোর্ড বিশ্ববিদ্যালয় থেকে পি.পি.ই ডিগ্রি লাভ করেন।[২]

কর্মজীবন[সম্পাদনা]

প্রথমে যোগ দেন ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ে খণ্ডকালীন শিক্ষক হিসেবে। বদরুদ্দীন উমর ১৯৬৩ সালে রাজশাহী বিশ্ববিদ্যালয়ে সমাজবিজ্ঞান বিভাগ প্রতিষ্ঠা করেন। রাষ্ট্রবিজ্ঞান বিভাগের যাত্রা শুরু হয় তাঁরই হাত ধরে। ১৯৬৮তে পদত্যাগ করেন। তিনি সভাপতি ছিলেন বাংলাদেশ কৃষক ফেডারেশন এবং কেন্দ্রীয় সমন্বয়কারী ছিলেন গণতান্ত্রিক বিপ্লবী জোটের। তিনি সভাপতি আছেন জাতীয় মুক্তি কাউন্সিলের এবং বাংলাদেশ লেখক শিবিরের কেন্দ্রীয় কমিটির সদস্য।[২] তিনি ৩০ বছরের বেশি সময় ধরে 'সংস্কৃতি' নামে একটি রাজনৈতিক সাময়িকী সম্পাদনা করেছেন।[৩] তিনি ১৯৭৫ সালের সেপ্টেম্বর মাসে পূর্ববাংলার কমিউনিস্ট পার্টিতে আনুষ্ঠানিকভাবে যোগ দেন। তাঁকে পার্টির কেন্দ্রীয় কমিটির সদস্য হিসেবে অন্তর্ভুক্ত করা হয় এবং ১৯৭৬ সালের মাঝামঝি অনুষ্ঠেয় বিশেষ কংগ্রেসের প্রতিবেদন তৈরির দায়িত্ব দেয়া হয়।[৪]

প্রকাশিত গ্রন্থ[সম্পাদনা]

প্রবন্ধ-গবেষণা[সম্পাদনা]

  • সাম্প্রদায়িকতা (১৯৬৬)
  • সংস্কৃতির সংকট (১৯৬৭)
  • সাংস্কৃতিক সাম্প্রদায়িকতা (১৯৬৮)
  • পূর্ববাঙালার ভাষা আন্দোলন ও তৎকালীন রাজনীতি (১ম খন্ড ১৯৭০, ২য় খন্ড ১৯৭৬ ও ৩য় খন্ড ১৯৮১)
  • চিরস্থায়ী বন্দোবস্তে বাঙলাদেশের কৃষক (১৯৭২)
  • ঈশ্বরচন্দ্র বিদ্যাসাগর ও উনিশ শতকের বাঙালী সমাজ (১৯৭৩)
  • বাঙলাদেশে কমিউনিস্ট আন্দোলনের সমস্যা (১৯৭৪)
  • যুদ্ধোত্তর বাঙলাদেশ (১৯৭৪)
  • যুদ্ধ পূর্ব বাঙলাদেশ (১৯৭৬)
  • ভাষা আন্দোলন ও অন্যান্য প্রসঙ্গ (১৯৮০)
  • বাঙলাদেশে মার্কসবাদ (১৯৮১)
  • আমাদের ভাষার লড়াই (১৯৮১)
  • বাঙলাদেশে বুর্জোয়া রাজনীতির চালচিত্র (১৯৮২)
  • ভারতীয় জাতীয় আন্দোলন (১৯৮৪)
  • মার্কসীয় দর্শন ও অন্যান্য প্রসঙ্গ (১৯৮৬)
  • বাঙলাদেশের কৃষক ও কৃষক আন্দোলন (১৯৮৬)
  • বাঙলাদেশে গণতান্ত্রিক আন্দোলনের কয়েকটি দিক (১৯৮৭)
  • বাঙলাদেশে আর্থ-সামাজিক পরিবর্তনের ধারা (১৯৮৭)
  • বাঙলাদেশে ধর্মের রাজনৈতিক ব্যবহার (১৯৮৯)
  • বাঙলাদেশের মধ্যবিত্ত ও সাংস্কৃতিক পরিস্থিতি (১৯৮৯)
  • সামরিক শাসন ও বাঙলাদেশের রাজনীতি (১৯৮৯)
  • পশ্চাৎপদ দেশে গণতন্ত্রের সমস্যা (১৯৯০)
  • বিপ্লব ও প্রতিবিপ্লব (১৯৯০)
  • বামপন্থী মহলে অনৈক্য ও গণতান্ত্রিক ঐক্য প্রসঙ্গে (১৯৯১)
  • নববই-এর নাগরিক বুর্জোয়া অভ্যুত্থান ও অন্যান্য প্রসঙ্গ (১৯৯২)
  • প্রতিবিপ্লব ও সমাজতন্ত্রের ভবিষ্যৎ (১৯৯২)
  • গণআদালত-একাত্তরের অসমাপ্ত মুক্তি সংগ্রামের জের (১৯৯২)
  • নির্বাচিত রাজনৈতিক প্রবন্ধ (১৯৯৩)
  • ধর্ম, রাজনীতি ও সাম্প্রদায়িকতা (কলকাতা, ১৯৯৩)
  • ধর্মীয় প্রতিক্রিয়াশীলতার বিরুদ্ধে (১৯৯৪)
  • মুক্তি কোন পথে? (১৯৯৪)
  • বাঙলাদেশে গণতান্ত্রিক স্বৈরতন্ত্র (১৯৯৪)
  • বাঙলাদেশের আর্থ-রাজনৈতিক পরিস্থিতি (১৯৯৪)
  • বাঙলাদেশে দুর্নীতি, সন্ত্রাস ও নৈরাজ্য (১৯৯৪)
  • সাম্রাজ্যবাদের নতুন বিশ্বব্যবস্থা (১৯৯৫)
  • জনগণের হাতে ক্ষমতা-নির্বাচন না অভ্যুত্থান? (১৯৯৬)
  • আমাদের সময়কার জীবন (১৯৯৬)
  • নির্বাচিত বক্ততা (১৯৯৬)
  • বাঙলাদেশে বুর্জোয়া রাজনীতির দুইরূপ (১৯৯৭)
  • বাঙলাদেশের রাজনৈতিক সংস্কৃতি (১৯৯৭)
  • বিবিধ প্রসঙ্গ (১৯৯৮)
  • সাম্রাজ্যবাদ ও বিশ্ব পরিস্থিতি (১৯৯৮)
  • দ্বিতীয় আওয়ামী লীগ সরকারের আমলে বাঙলাদেশ (১৯৯৯)
  • বাঙলাদেশের বামপন্থীরা; একাত্তরের স্বাধীনতাযুদ্ধে কমিউনিস্টদের রাজনৈতিক ভুমিকা (২০০০)
  • নির্বাচিত প্রবন্ধ (২০০০)
  • একাত্তরের স্বাধীনতাযুদ্ধের পথে (২০০০)
  • সাক্ষাৎকার (২০০১)
  • বাঙলাদেশে ফ্যাসীবাদ (২০০১)
  • শিক্ষা ও শিক্ষা আন্দোলন (২০০১)
  • জনগণের সংগ্রামের পথ (২০০২)
  • বাঙলাদেশের সংসদীয় গণতন্ত্র (২০০৩)
  • সংসদীয় রাজনীতি, জাতীয় সংসদ ও অন্যান্য প্রসঙ্গ (২০০৩)
  • আমার জীবন (২০০৪)
  • প্যালেস্টাইন, আফগানিস্তান ও ইরাকে মার্কিন সাম্রাজ্যবাদ (২০০৪)
  • আমার পিতা (২০০৫)
  • বাঙলাদেশে ইতিহাস চর্চা (২০০৬)
  • শতাব্দীর শুরুতে বাঙলাদেশের চিত্র (২০০৬)
  • মুক্তিযুদ্ধ ও স্বাধীনতা যুদ্ধের জয়-পরাজয় (২০০৬)
  • দক্ষিণ এশিয়ায় মার্কিন সাম্রাজ্যবাদ (২০০৬)
  • বাঙলাদেশের অভ্যুদয় (১ম খন্ড ২০০৬)
  • কার দিন বদল হলো (২০১০)[৫]

ইংরেজি ভাষায় প্রকাশিত গ্রন্থ[সম্পাদনা]

  • Politics and Society in East Pakistan and Bangladesh (১৯৭৩)
  • Society and Politics in Pakistan (কলকাতা, ১৯৮০)
  • Politics and Society in Bangladesh (১৯৮৭)
  • Towards the Emergency in Bangladesh (১৯৮০)
  • Imperialism and General Crisis of the Bourgeoise in Bangladesh (১৯৮৬)
  • Language Movement in East Bengal (২০০১)
  • Emergence of Bangladesh (১ম খন্ড ২০০৪ ও ২য় খন্ড ২০০৬) [২]

সম্পাদনা[সম্পাদনা]

  • সুকান্ত সমগ্র (১৯৭০)
  • ভাষা আন্দোলন প্রসঙ্গ : কতিপয় দলিল (১ম খন্ড ১৯৮৪ এবং ২য় খন্ড ১৯৮৫)
  • স্ট্যালিন প্রসঙ্গ (১৯৯০)
  • পার্বত্য চট্টগ্রাম : নিপীড়ন ও সংগ্রাম (১৯৯৭)
  • নারী প্রশ্ন প্রসঙ্গে (২০০৩)

সম্মাননা[সম্পাদনা]

১৯৭২ সালে বদরুদ্দীন উমর বাংলা একাডেমী পুরস্কার অর্জন করেন। তবে তিনি তা সাথে সাথেই প্রত্যাখ্যান করেন। ১৯৭৪ সালে তিনি ইতিহাস পরিষদ পুরস্কার পান এবং প্রত্যাখ্যান করেন।

তথ্যসূত্র[সম্পাদনা]

  1. http://www.pataton.com/index.php?option=com_content&view=article&id=64:2009-09-11-05-02-43&catid=44:2009-08-02-16-09-05&Itemid=64
  2. http://www.gunijan.org/GjProfDetails_action.php?GjProfId=263
  3. http://www.samowiki.com/details.php?id=298
  4. জয়নাল আবেদীন, উপমহাদেশের জাতীয়তাবাদী ও বামধারার রাজনীতি প্রেক্ষিত বাংলাদেশ; বাংলাপ্রকাশ, ঢাকা; ফেব্রুয়ারি, ২০১৩, পৃষ্ঠা-৩৯৪।
  5. http://www.shaptahik.com/v2/?DetailsId=4691

বহিঃসংযোগ[সম্পাদনা]