করাচী

উইকিপিডিয়া, মুক্ত বিশ্বকোষ থেকে
পরিভ্রমণে ঝাঁপ দিন অনুসন্ধানে ঝাঁপ দিন
করাচী
کراچی
ڪراچي
মেট্রোপলিটন শহর
করাচীর স্কাইলাইন
করাচীর অফিসিয়াল সীলমোহর
সীলমোহর
ডাকনাম: পাকিস্তানের প্রবেশদ্বার, উজ্জ্বল আলোর শহর, মিনি পাকিস্তান
করাচী সিন্ধু-এ অবস্থিত
করাচী
করাচী
পাকিস্তান এবং সিন্ধুতে করাচীর অবস্থান।
স্থানাঙ্ক: ২৪°৫১′৩৬″ উত্তর ৬৭°০′৩৬″ পূর্ব / ২৪.৮৬০০০° উত্তর ৬৭.০১০০০° পূর্ব / 24.86000; 67.01000স্থানাঙ্ক: ২৪°৫১′৩৬″ উত্তর ৬৭°০′৩৬″ পূর্ব / ২৪.৮৬০০০° উত্তর ৬৭.০১০০০° পূর্ব / 24.86000; 67.01000
দেশপাকিস্তান
প্রদেশসিন্ধু
মেট্রোপলিটন কর্পোরেশন২০১১
সিটি কাউন্সিলসিটি কমপ্লেক্স,গুলশান-এ-ইকবাল টাউন
জেলা
সরকার[৪]
 • ধরনমেট্রোপলিটন শহর
 • শহর প্রশাসকমুহাম্মদ হোসাইন ছৈয়দ[২]
 • মিউনিসিপাল কমিশনারমাতানাত আলি খান[৩]
আয়তন[৫]
 • মোট৩৫২৭ কিমি (১৩৬২ বর্গমাইল)
উচ্চতা৮ মিটার (২৬ ফুট)
জনসংখ্যা (২০১২)
 • মোট২,১২,০০,০০০[১]
বিশেষণKarachiite
সময় অঞ্চলPST (ইউটিসি+05:00)
পোস্টাল কোড74XXX – 75XXX
ডায়ালিং কোড+9221-XXXX XXXX
ওয়েবসাইটKarachiCity.gov.pk

করাচী (উর্দু: کراچی‎‎, সিন্ধি: ڪراچي‎) পাকিস্তানের সিন্ধু প্রদেশের রাজধানী ও বৃহত্তম শহর। এটি পাকিস্তানের প্রাক্তন রাজধানী ছিল। এটি পাকিস্তানের সবচেয়ে জনবহুল শহর এবং বিশ্বের মধ্যে পঞ্চম জনবহুল শহর। বিটা-গ্লোবাল শহর হিসাবে চিহ্নিত এই শহরটি পাকিস্তানের অন্যতম প্রধান শিল্প ও বাণিজ্য কেন্দ্র। এটি হল দেশের সাংস্কৃতিক, অর্থনৈতিক, জনহিতকর, শিক্ষা এবং রাজনৈতিক কেন্দ্র এবং পাকিস্তানের সর্বাধিক বিশ্বজনীন শহর। আরব সাগরে অবস্থিত, করাচি পাকিস্তানের যোগাযোগের কেন্দ্র হিসাবে কাজ করে এবং জিন্নাহ আন্তর্জাতিক বিমানবন্দর সহ পাকিস্তানের দুটি বৃহত্তম সমুদ্রবন্দর (বন্দর করাচি এবং বন্দর বিন কাসিম) এখানে অবস্থিত।

১৯৬০ এবং ১৯৭০ এর দশকে উজ্জীবিত নাইট লাইফের জন্য করাচী "লাইটের শহর" নামে পরিচিতি পায়, ১৯৮০ এর দশকে সোভিয়েত-আফগান যুদ্ধের সময় এ বন্দরের মাধ্যমে অস্ত্রের চালান নিয়ে যাওয়ায় করাচি তীব্র নৃগোষ্ঠী, সাম্প্রদায়িক এবং রাজনৈতিক দ্বন্দ্বের শিকার হয়েছিল। শহরটি তার উচ্চ হারে সহিংস অপরাধের জন্য সুপরিচিত ছিল, তবে ২০১৩ সালে পাকিস্তান রেঞ্জার্স দ্বারা অপরাধীদের, এমকিউএম রাজনৈতিক দল এবং ইসলামবাদী জঙ্গিদের বিরুদ্ধে বিতর্কিত ক্র্যাকডাউন অভিযানের পরে তীব্রভাবে হ্রাস পেয়েছে।[৬] অভিযানের ফলস্বরূপ, ২০১৪ সালের মাঝামাঝি সময়ে করাচী অপরাধের জন্য বিশ্বের ৬ষ্ঠ বিপজ্জনক শহর হিসাবে স্থান পেয়েছে এবং ২০১৯ সালের মাঝামাঝি পর্যন্ত তা ৭১তম স্থানে নেমেছে।[৭]

ইতিহাস[সম্পাদনা]

প্রথম ইতিহাস[সম্পাদনা]

১৫ তম থেকে ১৮ তম শতকে চৌখান্দি সমাধিগুলি করাচির ২৯ কিমি (১৮ মাইল) পূর্ব দিকে অবস্থিত।

মুলরি পাহাড়ের উপর করাচি বিশ্ববিদ্যালয় থেকে একটি দল মরহুম প্রত্নপ্রস্তরযুগীয় এবং মেসোলিথিক যুগের স্থানগুলি আবিষ্কার করে, যা গত ৫০ বছরে সিন্ধুতে সবচেয়ে গুরুত্বপূর্ণ প্রত্নতাত্ত্বিক আবিষ্কারগুলির একটি। করাচি অঞ্চলের প্রাচীনতম বাসিন্দারা শিকারী বলে বিশ্বাস করা হয়, বেশ কয়েকটি স্থানে প্রাচীন সরঞ্জামগুলি আবিষ্কার করা হয়। গ্রীকদের দ্বারা বর্ণনা অনুযায়ী বারবারিকন নামক একটি সমুদ্র বন্দর করাচিতে অবস্থিত।

বিশ্বাস করা হয় যে করাচি অঞ্চলটি প্রাচীন গ্রীকদের কাছে পরিচিত ছিল। অঞ্চলটি ক্রোকোলার স্থান হতে পারে, যেখানে একসময় গ্রেট আলেকজান্ডার বেবিলোনিয়ার জন্য একটি বহর প্রস্তুত করতে শিবির স্থাপন করেন, পাশাপাশি মরন্টোবাড়াও সম্ভবত করাচির মনোরা পাড়া হতে পারে।

৭১১ খ্রিস্টাব্দে মুহাম্মদ বিন কাসিম সিন্ধু ও সিন্ধু উপত্যকা জয় করেন। মনে করা হয় যে করাচি অঞ্চলটি আরবদের কাছে দেবল নামে পরিচিত ছিল, সেখান থেকে মুহাম্মদ বিন কাসিম ৭১২ খ্রিস্টাব্দে দক্ষিণ এশিয়ায় তাঁর বাহিনী পরিচালনা করেন। [৪৫]

সিন্ধির মুঘল প্রশাসক মির্জা গাজী বেগের অধীনে উপকূলীয় সিন্ধু ও সিন্ধু ব-দ্বীপের উন্নয়নকে উৎসাহ দেওয়া হয়। তাঁর শাসনের অধীনে, এই অঞ্চলের দুর্গগুলি সিন্ধুতে পর্তুগিজ আগ্রাসনের বিরুদ্ধে এক বিশাল দ্বার হিসাবে কাজ করেছিল। অটোম্যান অ্যাডমিরাল সায়দী আলী রেইস ১৫৫৪ সালে তাঁর মীর'তুল মেমালিক গ্রন্থে দেবল এবং মানোরা দ্বীপের কথা উল্লেখ করেছিলেন।

ব্রিটিশ রাজ[সম্পাদনা]

১৮৩৯ সালের ৩ ফেব্রুয়ারি এইচএমএস ওয়েলেসলি গুলি চালিয়ে এবং মনোরার স্থানীয় কাঁচা দুর্গটি দ্রুত ধ্বংস করার পরে ব্রিটিশ ইস্ট ইন্ডিয়া সংস্থা করাচী দখল করে। শহরটি ১৮৪৩ সালে ব্রিটিশ ভারতে অধিভুক্ত করা হয়। পরে মিয়াণীর যুদ্ধে বিজয়ের পরে সিন্ধু অঞ্চলটি মেজর জেনারেল চার্লস জেমস নেপিয়ার দ্বারা দখল করা হয় এবং শহরটি সদ্য গঠিত সিন্ধ প্রদেশের রাজধানী হিসাবে ঘোষণা করা হয়।

শহরের কৌশলগত গুরুত্বের কথা স্বীকৃত করে, ১৮৫৪ সালে ব্রিটিশরা করাচী বন্দর প্রতিষ্ঠা করে। নবনির্মিত বন্দর ও রেল অবকাঠামো এবং সেইসাথে পাঞ্জাব এবং অভ্যন্তরীণ সিন্ধুতে নতুন সেচ জমির উৎপাদনশীল অঞ্চলগুলি থেকে থেকে কৃষি রপ্তানি বৃদ্ধির কারণে করাচি দ্রুত ব্রিটিশ ভারতের পরিবহনের কেন্দ্রস্থল হয়ে ওঠে। [50] ব্রিটিশরাও প্রথম অ্যাংলো-আফগান যুদ্ধে ব্রিটিশ যুদ্ধের প্রয়াসকে সহায়তা করার জন্য করাচি সেনানিবাসকে সামরিক গ্যারিসন হিসাবে উন্নিত করে। [৫১]

ভূগোল[সম্পাদনা]

করাচী আরব সাগরের প্রাকৃতিক হারবর বরাবর, দক্ষিণ পাকিস্তানের সিন্ধ প্রদেশের উপকূলরেখায় অবস্থিত। করাচী উপকূলীয় সমভূমিতে ছড়িয়ে ছিটিয়ে থাকা পাথুরে আচ্ছাদন, পাহাড় এবং উপকূলীয় জলাভূমি নিয়ে বিস্তৃত। উপকূলীয় ম্যানগ্রোভ বনগুলো করাচী হারবারের চারপাশে খাঁজকাটা জলে এবং আরও দক্ষিণ-পূর্ব দিকে বিস্তৃত সিন্ধু নদীর অববাহিকার দিকে বৃদ্ধি পেয়েছে। করাচি শহরের পশ্চিম দিেক কেপ মঞ্জি, যা স্থানীয়ভাবে রাস মুআরি নামে পরিচিত, যা এমন একটি অঞ্চল যা সমুদ্রিক ক্লিফ, সমুদ্র থেকে প্রাপ্ত বেলেপাথরের এবং অনুন্নত সৈকতের জন্য পরিচিত।

করাচি শহরের মধ্যে দুটি ছোট ছোট পাহাড়ের সারি রয়েছে: খাসা পাহাড় এবং মুলরি পাহাড়, যা উত্তর-পশ্চিমে অবস্থিত এবং উত্তর নাজিমাবাদ শহর এবং ওরাঙ্গি শহর দুটির দেওয়াল হিসেবে কাজ করে।[৮] করাচীর পাহাড়গুলো অনুর্বর এবং বৃহত্তর কীর্তর রেঞ্জের একটি অংশ এবং এর সর্বোচ্চ উচ্চতা ৫২৮ মিটার (১,৭৩২ ফুট)।

পাহাড়ের মাঝে শুকনো নদীর বিছানা এবং পানির চ্যানেলগুলো বিস্তৃর্ণভাবে ছড়িয়ে প্রশস্ত উপকূলীয় সমভূমি সৃষ্টি করেছে। লিয়ারি তীরে কোলাচির বসতি স্থাপনসহ মালির নদী এবং লিয়ারি নদীর চারপাশে মানবসতি স্থাপনের স্থান হিসেবে বিকশিত হয়েছে। করাচীর পশ্চিমে সিন্ধু নদীর প্লাবিত সমভূমি রয়েছে।[৯]

অর্থনীতি[সম্পাদনা]

করানী পাকিস্তানের অর্থনৈতিক ও বাণিজ্যিক রাজধানী।[১০] পাকিস্তানের স্বাধীনতার পর থেকে করাচী দেশটির অর্থনীতির কেন্দ্রবিন্দু এবং ১৯৮০ এবং ১৯৯০ এর দশকের শেষভাগে আর্থ-রাজনৈতিক অস্থিরতার কারণে অর্থনৈতিক স্থবিরতা সত্ত্বেও পাকিস্তানের বৃহত্তম নগরায়ন অর্থনীতি এর ছিল। এ শহরটি করাচি থেকে নিকটবর্তী হায়দরাবাদ এবং থাট্টা পর্যন্ত বিস্তৃত অর্থনৈতিক করিডোরের কেন্দ্র হিসেবে কাজ করে।[১১]

শিল্প[সম্পাদনা]

জনমিতি[সম্পাদনা]

করাচি পাকিস্তানের সর্বাধিক ভাষাগত, জাতিগত এবং ধর্মীয়ভাবে বৈচিত্র্যময় শহর। শহরটি পাকিস্তানের পাশাপাশি এশিয়ার অন্যান্য অঞ্চল থেকে আসা জাতি ও ভাষাগত অভিবাসীদের একটি মিলনস্থল। এ শহরে বসবাসকারী বাসিন্দাদের করাচিতি বিশেষন দ্বারা অবহিত করা হয়। ২০১৭ সালের আদমশুমারির তথ্য অনুসারে করাচীর জনসংখ্যা ১৪,৯১০,৩৫২ জন, যা ১৯৯৯ সালের আদমশুমারির পর থেকে প্রতিবছর ২.৯৯% হারে বৃদ্ধি বেড়েছে, ১৯৯৯ সালে করাচীর জনসংখ্যা ৯৩,০০০,০০০ জন ছিল।

এখানে মুসলিম ধর্মাবলম্বীদের সংখ্যা প্রায় ৯৮% । এদের অধিকাংশ ভারতবর্ষ বিভাজনের সময় ভারত থেকে আগত শরণার্থী। কিছু খ্রিস্টান বসবাস করেন তবে হিন্দু সম্প্রদায় এর মানুষ নেই বললেই চলে।

সিন্ধি ভাষা এখানকার স্থানীয় হলেও উর্দু ভাষা ই এখানে বহুল কথিত ভাষা।

পরিবহন[সম্পাদনা]

ভূমিপুত্র মুহাম্মদ আলী জিন্নাহর নামাঙ্কিত জিন্নাহ আন্তর্জাতিক বিমানবন্দর শহরের প্রধান ও একমাত্র বিমানবন্দর।

বিশিষ্ট ব্যাক্তিবর্গ[সম্পাদনা]

আরও দেখুন[সম্পাদনা]

তথ্যসূত্র[সম্পাদনা]

  1. "PAKISTAN: WHERE THE POPULATION BOMB IS EXPLODING"। 07/02/2012। সংগ্রহের তারিখ 15-December–2012  এখানে তারিখের মান পরীক্ষা করুন: |তারিখ=, |সংগ্রহের-তারিখ= (সাহায্য)
  2. "Administrator Office"। Karachi Metropolitan Corporation। ২০১৩-১২-৩০ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ২০১২-০২-২৮ 
  3. "Administrator Office"। Karachi Metropolitan Corporation। ২০১২-০৪-২৯ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ২০১২-০২-২৮ 
  4. "Government"। City District Government of Karachi। সংগ্রহের তারিখ ২০১০-০৮-২২ [স্থায়ীভাবে অকার্যকর সংযোগ]
  5. "Geography & Demography"। City District Government of Karachi। সংগ্রহের তারিখ ২০১০-০৮-২২ [স্থায়ীভাবে অকার্যকর সংযোগ]
  6. ur-Rehman, Zia (৭ নভেম্বর ২০১৫)। "Crime Down in Karachi, Paramilitary in Pakistan Shifts Focus"The New York Times। সংগ্রহের তারিখ ২২ অক্টোবর ২০১৬ 
  7. "Crime Index by City 2019 Mid-Year"numbeo.com। সংগ্রহের তারিখ ১৫ সেপ্টেম্বর ২০১৯ 
  8. "A story behind every name"The News International, Pakistan। ২১ অক্টোবর ২০০৯। সংগ্রহের তারিখ ১৪ জুন ২০১৫ 
  9. "The case of Karachi, Pakistan" (PDF)। University College London। সংগ্রহের তারিখ ১ জুন ২০১৬ 
  10. "Annexures" (PDF)। City District Government Karachi। ১৬ সেপ্টেম্বর ২০১৩ তারিখে মূল (PDF) থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ১০ ফেব্রুয়ারি ২০১৪ 
  11. "Karachi City Diagnostic: livability, sustainability and growth in the city of Karachi" (PDF)Pakistan Development Update: 45–49। নভেম্বর ২০১৬। সংগ্রহের তারিখ ২৯ নভেম্বর ২০১৭ 


  1. "Pakistan: Largest cities and towns and statistics of their population"। সংগ্রহের তারিখ ২০১১-০২-১০