দুবরাজপুর

উইকিপিডিয়া, মুক্ত বিশ্বকোষ থেকে
দুবরাজপুর
दुवराजपुर
শহর
দুবরাজপুর রেলওয়ে স্টেশন
দুবরাজপুর दुवराजपुर পশ্চিমবঙ্গ-এ অবস্থিত
দুবরাজপুর दुवराजपुर
দুবরাজপুর
दुवराजपुर
পশ্চিমবঙ্গে অবস্থান
স্থানাঙ্ক: ২৩°৪৮′ উত্তর ৮৭°২৩′ পূর্ব / ২৩.৮° উত্তর ৮৭.৩৮° পূর্ব / 23.8; 87.38স্থানাঙ্ক: ২৩°৪৮′ উত্তর ৮৭°২৩′ পূর্ব / ২৩.৮° উত্তর ৮৭.৩৮° পূর্ব / 23.8; 87.38
দেশ ভারত
প্রদেশপশ্চিমবঙ্গ
জেলাবীরভূম
উচ্চতা৭৭ মিটার (২৫৩ ফুট)
জনসংখ্যা (২০০১)
 • মোট৩২,৭৫২
ভাষা
 • সরকারিবাংলা, ইংরাজী
সময় অঞ্চলআইএসটি (ইউটিসি+৫:৩০)
পিন৭৩১১২৩
টেলিফোন কোড৯১ ৩৪৬২
লোকসভা নির্বাচকমণ্ডলীবীরভূম
বিধানসভা নির্বাচকমণ্ডলীদুবরাজপুর, সিউড়ি
ওয়েবসাইটbirbhum.nic.in

দুবরাজপুর ভারতের পশ্চিমবঙ্গ রাজ্যের বীরভূম জেলার একটি শহর ও পৌরসভা এলাকা।

ভৌগোলিক উপাত্ত[সম্পাদনা]

শহরটির অবস্থানের অক্ষাংশ ও দ্রাঘিমাংশ হল ২৩°৪৮′ উত্তর ৮৭°২৩′ পূর্ব / ২৩.৮° উত্তর ৮৭.৩৮° পূর্ব / 23.8; 87.38[১] সমূদ্র সমতল হতে এর গড় উচ্চতা হল ৭৭ মিটার (২৫২ ফুট)।

জনসংখ্যার উপাত্ত[সম্পাদনা]

ভারতের ২০০১ সালের আদমশুমারি অনুসারে দুবরাজপুর শহরের জনসংখ্যা হল ৩২,৭৫২ জন।[২] এর মধ্যে পুরুষ ৫২% এবং নারী ৪৮%।

এখানে সাক্ষরতার হার ৫৬%, ও পুরুষদের মধ্যে সাক্ষরতার হার ৬৫% এবং নারীদের মধ্যে এই হার ৪৬%। সারা ভারতের সাক্ষরতার হার ৫৯.৫%, তার চাইতে দুবরাজপুর এর সাক্ষরতার হার বেশি।

এই শহরের জনসংখ্যার ১৪% হল ৬ বছর বা তার কম বয়সী।

খ্যাতি[সম্পাদনা]

মামা ভাগ্নে পাহাড়

বীরভূম জেলার দুবরাজপুর মামা ভাগ্নে পাহাড় এর জন্যে একটি পর্যটনের জায়গা হিসেবে পরিচিত। ছোটনাগপুর মালভূমির অন্তিম পূর্ব ভাগে অবস্থিত দুবরাজপুরের আশে পাশে কোথাও পাহাড় বা টিলা না থাকলেও ব্যতিক্রমী ভাবে এই বিক্ষিপ্ত টিলা ও প্রস্তরররাজি বহু পুরাণকথার জন্ম দিয়েছে। রাম যখন সীতা উদ্ধারে লংকা যাত্রা করেন তখন হিমালয় থেকে সেতু বন্ধের পাথর আনা হচ্ছিল। সেসময় কিছু পাথর পড়ে 'মামা ভাগনে' পাহাড়ের সৃষ্টি এরকম কিংবদন্তী প্রচলিত আছে। পাহাড়েশ্বর শ্মশানকালীমন্দির এই মামা ভাগ্নে পাহাড়ে অবস্থিত। পার্শ্ববর্তী হেতমপুর রাজবাড়িতে সত্যজিৎ রায়ের 'অভিযান', 'গুপি গাইন বাঘা বাইন' ছাড়াও বিভিন্ন পরিচালকের একাধিক সিনেমার চিত্রগ্রহণ হয়েছে।[৩] দুুুবরাজপুরের কাছেই বক্রেশ্বর নদীর উপর এক বিশাল জলাধার অবস্থিত।

তথ্যসূত্র[সম্পাদনা]

  1. "Dubrajpur"Falling Rain Genomics, Inc (ইংরেজি ভাষায়)। সংগ্রহের তারিখ অক্টোবর ৭, ২০০৬ 
  2. "ভারতের ২০০১ সালের আদমশুমারি" (ইংরেজি ভাষায়)। সংগ্রহের তারিখ অক্টোবর ৭, ২০০৬ 
  3. "পর্যটনের নতুন মন্ত্র" (ইংরেজি ভাষায়)। আনন্দবাজার পত্রিকা। ২৯ ২ জুন ০১৬। সংগ্রহের তারিখ ৮.০১.২০১৭  Authors list-এ |প্রথমাংশ1= এর |শেষাংশ1= নেই (সাহায্য); এখানে তারিখের মান পরীক্ষা করুন: |তারিখ=, |সংগ্রহের-তারিখ= (সাহায্য)