বামাখ্যাপা

উইকিপিডিয়া, মুক্ত বিশ্বকোষ থেকে
সরাসরি যাও: পরিভ্রমণ, অনুসন্ধান
বামাখ্যাপা, তারাপীঠের তান্ত্রিক সাধু, উনিশ শতক

বামাখ্যাপা (১৮৩৭-১৯১১)[১] ছিলেন এক হিন্দু তান্ত্রিক। তিনি তারাপীঠে বাস করতেন। তিনি দেবী তারার ভক্ত ছিলেন এবং মন্দিরের কাছে শ্মশানঘাটে সাধনা করতেন।[১] তিনি রামকৃষ্ণ পরমহংসের সমসাময়িক ছিলেন।

সাধনা ও খ্যাতি[সম্পাদনা]

বামাখ্যাপা নামাঙ্কিত ঘাট, তারাপীঠ

বামাখ্যাপা ছেলেবেলায় গৃহত্যাগ করে তিনি কৈলাশপতি বাবা নামে এক সন্ন্যাসীর শিষ্যত্ব গ্রহণ করেন। কৈলাশপতি বাবা তারাপীঠে থাকতেন। বামাখ্যাপা তারাপীঠেই দ্বারকা নদের তীরে যোগ ও তন্ত্রসাধনা করেন। পরে তিনি নিকটবর্তী মল্লরাজাদের মন্দিরময় গ্রাম মালুটি (অধুনা ঝাড়খণ্ড রাজ্য)তে যান যোগ সাধনার জন্যে। সেখানে দ্বারকার তীরে মৌলাক্ষী দেবীর মন্দিরে সাধনাকালে প্রায় ১৮ মাস অবস্থান করেন।

Bamakhyapa's Temple. Maluti village, Jharkhand

ক্রমে তিনি তারাপীঠের প্রধান ধর্মীয় ব্যক্তিত্ব হয়ে ওঠেন। ভক্তরা বিশ্বাস করত তাঁর অলৌকিক ক্ষমতা আছে। তাই তাঁরা রোগারোগ্য ও অন্যান্য প্রয়োজনে তাঁর কাছে আসত। বামাখ্যাপা মন্দিরের নিয়মকানুন মানতেন না। এমনকি দেবতার থালা থেকেই নৈবেদ্য তুলে খেয়ে নিতেন। কথিত আছে, নাটোরের মহারানিকে স্বপ্নে দেবী তারার প্রত্যাদেশ পান যে, দেবীপুত্র বলে বামাখ্যাপাকে যেন আগে খাওয়ানো হয়। এরপর থেকে মন্দিরে পূজার আগেই বামাখ্যাপাকে নৈবেদ্য প্রদান এবং তাঁকে অবাধে মন্দিরে বিচরণ করতে দেওয়া হত।[২] আরও কথিত আছে, দেবী তারা ভয়ংকর বেশে বামাখ্যাপাকে দর্শন দিয়েছিলেন এবং পরে মাতৃবেশে কোলে তুলে নিয়েছিলেন।[১] তারাপীঠ শ্মশানে ও দুমকা জেলার মালুটি গ্রামের তার স্মৃতিমন্দির আছে।[৩]

জনপ্রিয় সংস্কৃতিতে[সম্পাদনা]

সাধক বামাখ্যাপাকে নিয়ে বহু গান, পল্লীগীতি রচিত হয়েছে। তার জীবনী বৃত্তান্ত নিয়ে বাংলা টেলিসিরিয়াল তৈরী হয়েছে।

পাদটীকা[সম্পাদনা]

  1. Kinsely, p. 111
  2. Harding, Elizabeth U. (১৯৯৮)। Kali: the black goddess of Dakshineswar। Motilal Banarsidass Publ.। পৃ: 275–279। আইএসবিএন 8120814509। সংগৃহীত ২০১০-০৬-২৬ 
  3. খায়রুল আনম। "বামাখ্যাপার আবির্ভাব তিথি"। খবর ইন্ডিয়া অনলাইন। সংগৃহীত ১১ এপ্রিল, ২০১৭ 

গ্রন্থপঞ্জি[সম্পাদনা]