বিষয়বস্তুতে চলুন

বঙ্গবন্ধু জাতীয় স্টেডিয়াম

স্থানাঙ্ক: ২৩°৪৩′৪০.২″ উত্তর ৯০°২৪′৪৮.৪″ পূর্ব / ২৩.৭২৭৮৩৩° উত্তর ৯০.৪১৩৪৪৪° পূর্ব / 23.727833; 90.413444
উইকিপিডিয়া, মুক্ত বিশ্বকোষ থেকে
(বঙ্গবন্ধু স্টেডিয়াম থেকে পুনর্নির্দেশিত)
বঙ্গবন্ধু জাতীয় স্টেডিয়াম
মানচিত্র
পূর্ণ নামবঙ্গবন্ধু জাতীয় স্টেডিয়াম
প্রাক্তন নামঢাকা স্টেডিয়াম
অবস্থানঢাকা, বাংলাদেশ
স্থানাঙ্ক২৩°৪৩′৪০.২″ উত্তর ৯০°২৪′৪৮.৪″ পূর্ব / ২৩.৭২৭৮৩৩° উত্তর ৯০.৪১৩৪৪৪° পূর্ব / 23.727833; 90.413444
মালিকজাতীয় ক্রীড়া পরিষদ
ধারণক্ষমতা৩৬০০০
নির্মাণ
নির্মিত১৯৫৪ খ্রিস্টাব্দ
উদ্বোধন১৯৫৪; ৭০ বছর আগে (1954)
পুনঃসংস্কার১৯৭৮, ২০১১, ২০২১-২০২২
নির্মাণ ব্যয়৳৯৬ কোটি
ভাড়াটে
বাংলাদেশ জাতীয় ফুটবল দল

বঙ্গবন্ধু জাতীয় স্টেডিয়াম ১৯৫৪ সালের নির্মিত[১] ঢাকায় অবস্থিত বাংলাদেশের জাতীয় ও প্রধান স্টেডিয়াম। ঢাকার প্রাণকেন্দ্র মতিঝিল এলাকায় এটির অবস্থান। স্টেডিয়ামটি আগে এবং এখনও ১ নম্বর জাতীয় স্টেডিয়াম নামে পরিচিত । নাম পরিবর্তন করে বাংলাদেশের স্থপতি শেখ মুজিবুর রহমানের সম্মানে এটির নামে বঙ্গবন্ধু যোগ করা হয়। স্টেডিয়ামটি বাংলাদেশের মুক্তিযুদ্ধের স্মৃতি বিজরিত স্থান।[২]

আগে স্টেডিয়ামে সব ধরনের খেলাই অনুষ্ঠিত হত। কিন্তু বর্তমানে স্টেডিয়ামটিকে কেবল ফুটবল মাঠ হিসেবে ব্যবহৃত হচ্ছে। এর ধারনক্ষমতা প্রায় ৩৬,০০০। ২০০৫ সালের ১লা মার্চ পর্যন্ত স্টেডিয়ামটি বাংলাদেশ ক্রিকেট দলের নিজস্ব মাঠ হিসেবে ব্যবহৃত হত।

বঙ্গবন্ধু জাতীয় স্টেডিয়াম বিশ্বের একমাত্র স্টেডিয়াম যেটিতে দুটি ভিন্ন দেশের উদ্বোধনী টেস্ট ম্যাচ অনুষ্ঠিত হয়েছে। দুটি খেলাতেই প্রতিপক্ষ ছিল ভারত। প্রথম খেলায় ১৯৫৪-৫৫ সালে তৎকালীন অবিভক্ত পাকিস্তান দল ভারতের বিপক্ষে টেস্ট খেলার মাধ্যমে টেস্ট অঙ্গনে যাত্রা শুরু করে। ১৯৭১ সালে এ মাঠেই ‘ইন্টারন্যাশনাল ইলেভেন’-এর বিপক্ষে ‘পাকিস্তান বোর্ড একাদশ’-এর হয়ে খেলতে নেমেছিলেন রকিবুল হাসান, ‘জয় বাংলা’ স্টিকারযুক্ত ক্রিকেট ব্যাট নিয়ে। স্বাধীনতার আগে সে ম্যাচই হয়ে ছিল তখনকার ঢাকা স্টেডিয়ামে শেষ স্বীকৃত ম্যাচ।[৩] এর ৪৬ বছর পর ২৬ জুন, ২০০০ তারিখে, বাংলাদেশ টেস্ট মর্যাদা পাওয়ার পর প্রথম টেস্ট খেলায় ভারতের মোকাবিলা করে।[৪] ঢাকার প্রাণকেন্দ্রে অবস্থিত এই স্টেডিয়াম ও সংলগ্ন জাতীয় হকি স্টেডিয়ামের আশেপাশের এলাকায় এত বেশি লোকসমাগম হয় যে একে স্টেডিয়াম হিসেবে চেনা মুশকিল হয়ে পড়ে। এর একটি মূল কারণ স্টেডিয়ামের নিচ তলাকে ইলেকট্রনিক পণ্যের মার্কেট হিসেবে ব্যবহৃত হচ্ছে। ঢাকার অদূরে একটি নতুন ক্রিকেট স্টেডিয়াম নির্মাণের কারণে ২০০৪-০৫ মৌসুমে মাঠটি বাংলাদেশ ক্রিকেট বোর্ড থেকে বাংলাদেশ ফুটবল ফেডারেশনের কাছে বরাদ্দ দেয়া হয়।

ইতিহাস

[সম্পাদনা]

প্রথম ইতিহাস

[সম্পাদনা]
ঢাকা স্টেডিয়াম ১৯৫০ সালে

ঢাকার বঙ্গবন্ধু জাতীয় স্টেডিয়ামই বিশ্বের একমাত্র ভেন্যু যেখানে দুটি টেস্ট দেশের জন্য উদ্বোধনী হোম ম্যাচ অনুষ্ঠিত হয়েছে: পাকিস্তানবাংলাদেশ। উভয় অনুষ্ঠানেই ভারত দর্শক ছিল: ১৯৫৪-৫৫ সালে, যখন ঢাকা পূর্ব পাকিস্তানের রাজধানী ছিল এবং ১৯৭৬-৭৭ সালে, যখন ইংল্যান্ড থেকে সফরকারী এমসিসির বিরুদ্ধে বাংলাদেশের মধ্যে প্রথম অনানুষ্ঠানিক টেস্ট ম্যাচ অনুষ্ঠিত হয়েছিল। এবং পরের বছর শ্রীলঙ্কা জাতীয় ক্রিকেট দল বিসিসিবি একাদশ এবং বাংলাদেশ জাতীয় দলের বিপক্ষে কয়েকটি একদিনের, দুইদিনের এবং তিন দিনের অনানুষ্ঠানিক ম্যাচ খেলার জন্য বাংলাদেশ সফর করে। এরপর ভারত থেকে ডেকান ব্লুজ এবং এমসিসির মতো দলগুলো যথাক্রমে বিসিসিবি একাদশ এবং বাংলাদেশ জাতীয় দলের বিপক্ষে খেলার জন্য বেশ কয়েকবার বাংলাদেশ সফর করে। ক্রিকেটের পাশাপাশি, স্টেডিয়ামটি ঐতিহাসিক ঢাকা লিগের আয়োজন করার জন্যও পরিচিত ছিল, যা বাংলাদেশের স্বাধীনতার আগেও দেশের প্রধান ফুটবল লীগ ছিল। ৮০ এর দশকে যখন ফুটবলের জনপ্রিয়তা আকাশচুম্বী ছিল, ঢাকা ডার্বি সারা দেশ থেকে হাজার হাজার ভক্তকে স্টেডিয়ামে আকৃষ্ট করেছিল। স্টেডিয়ামটি নিয়মিতভাবে অধুনালুপ্ত আগা খান গোল্ড কাপের আয়োজন করত, যেটিকে অনেকের কাছে প্রথম সংগঠিত আন্তর্জাতিক প্রতিযোগিতা বলে মনে করা হয় যা এশিয়ার আশেপাশের ক্লাব দলগুলিকে জড়িত করে। ১৯৭৮ এএফসি যুব চ্যাম্পিয়নশিপ ছিল স্টেডিয়ামে আয়োজিত প্রথম বড় আন্তর্জাতিক টুর্নামেন্ট। এই অনুষ্ঠানের জন্য স্টেডিয়ামটিও সংস্কার করা হয়েছিল, পূর্ব গ্যালারি তৈরি করা হয়েছিল এবং প্রথমবারের মতো একটি মহিলা গ্যালারির ব্যবস্থা করা হয়েছিল। ভিআইপি গ্যালারিটিও নতুনভাবে সাজানো হয়েছিল, কারণ এটিই ছিল বাংলাদেশে অনুষ্ঠিত হওয়া প্রথম আন্তর্জাতিক ফুটবল সম্পর্কিত টুর্নামেন্ট। অক্টোবরে অনুষ্ঠিত টুর্নামেন্ট চলাকালীন নতুন সংস্কার করা স্টেডিয়ামে মোট চল্লিশটি খেলা অনুষ্ঠিত হয়। ক্রিকেট, ফুটবল, হকি থেকে শুরু করে বক্সিং পর্যন্ত ঐতিহাসিক ক্রীড়া ইভেন্টের আয়োজনের ইতিহাস রয়েছে এই স্টেডিয়ামের। ফেব্রুয়ারী ১৯৭৮ সালে, বক্সার মুহাম্মদ আলী স্টেডিয়ামে একটি প্রদর্শনী বক্সিং ম্যাচে লড়াই করেছিলেন, তৎকালীন ঢাকা স্টেডিয়াম, একটি ১২ বছর বয়সী বাঙালি ছেলের সাথে।

বাংলাদেশ ফুটবল দলের হোম মাঠ

[সম্পাদনা]
বঙ্গবন্ধু স্টেডিয়াম, ড্রোন ভিউ

শহরের উপকণ্ঠে একটি উদ্দেশ্য-নির্মিত ক্রিকেট স্টেডিয়াম নির্মিত হওয়ায়, ২০০৪-০৫ মৌসুমের শেষে মাঠটি কমিশনের বাইরে নিয়ে যাওয়া হয় এবং বাংলাদেশ জাতীয় ফুটবল দল একমাত্র ব্যবহারের জন্য হস্তান্তর করা হয়। ২০১১ ক্রিকেট বিশ্বকাপের উদ্বোধনী অনুষ্ঠানে ব্যবহার করা ছাড়াও, স্টেডিয়ামটি মূলত ফুটবলের উদ্দেশ্যে ব্যবহার করা হয়েছে দশকের শুরু থেকে। স্টেডিয়ামটি এখন পর্যন্ত তিনবার সাফ চ্যাম্পিয়নশিপের আয়োজন করেছে। ২০০৩ সংস্করণে প্রথমবার যখন বাংলাদেশ ৪৬,০০০ স্থানীয় সমর্থকের সামনে ইতিহাসে প্রথমবারের মতো ট্রফি তুলেছিল। তারপর থেকে ২০০৯ এবং অতি সম্প্রতি টুর্নামেন্টের ২০১৮ সংস্করণগুলি স্টেডিয়ামে অনুষ্ঠিত হয়েছে। ২০০৭ সালে বাংলাদেশ প্রিমিয়ার লিগের সূচনার পর থেকে, স্টেডিয়ামটি লিগের বেশিরভাগ মৌসুমের আয়োজক হিসেবে ব্যবহৃত হয়ে আসছে। ৬ সেপ্টেম্বর ২০১১ তারিখে, বঙ্গবন্ধু জাতীয় স্টেডিয়ামে পূর্ণ শক্তির আর্জেন্টিনা এবং নাইজেরিয়া দলের মধ্যে একটি আন্তর্জাতিক বন্ধুত্বপূর্ণ ফুটবল ম্যাচ অনুষ্ঠিত হয়, যেখানে উভয় দেশের অন্যান্য তারকা খেলোয়াড়দের মধ্যে লিওনেল মেসি, সার্জিও আগুয়েরো, জাভিয়ের মাসচেরানো এবং মিকেল জন ওবি উপস্থিত ছিলেন। তৎকালীন রিয়াল মাদ্রিদের সতীর্থ গঞ্জালো হিগুয়েন এবং আনহেল দি মারিয়া গোলে আর্জেন্টিনা ৩-১ ব্যবধানে জয়লাভ করে এবং নাইজেরিয়ার এল্ডারসন এচিজিলির নিজের গোলে চিনেদু ওবাসি নাইজেরিয়ার একমাত্র গোলটি করেন। বাংলাদেশী রেফারি তায়েব শামসুজ্জামান খেলাটি পরিচালনা করেন, যা টিকিটের মূল্য US$১০০ থেকে শুরু হওয়া সত্ত্বেও ২৫,০০০ দর্শকদের আকর্ষণ করেছিল। ১৩ নভেম্বর ২০২০-এ, বাংলাদেশ ফুটবল ফেডারেশন কর্তৃক আয়োজিত মুজিববর্ষ ফিফা আন্তর্জাতিক ফুটবল সিরিজের সময় স্টেডিয়ামটি বাংলাদেশ ও নেপালের মধ্যে দুটি ম্যাচের প্রথম আয়োজন করেছিল। বাংলাদেশ সিরিজের প্রথম খেলায় ২-০ ব্যবধানে জয়লাভ করে, যেখানে চার দিন পর অনুষ্ঠিত দ্বিতীয় খেলাটি গোলশূন্যভাবে শেষ হয় যার ফলে স্বাগতিকদের সমষ্টিগতভাবে সিরিজ জয় করে। বিশ্বব্যাপী COVID-19 কেস বৃদ্ধির কারণে দীর্ঘ অনুপস্থিতির পরে প্রীতি ফুটবলকে বঙ্গবন্ধু জাতীয় স্টেডিয়াম এবং দেশে ফিরে আসতে সহায়তা করেছিল।

আধুনিক স্টেডিয়াম

[সম্পাদনা]
২০১৮ সালের স্টেডিয়ামের দৃশ্য

স্টেডিয়ামটি বাংলাদেশ জাতীয় ফুটবল দল এবং বাংলাদেশ মহিলা জাতীয় ফুটবল দল এবং অ্যাথলেটিক্সের জন্যও ব্যবহৃত হয়। স্টেডিয়ামটি বাংলাদেশ ফুটবল প্রিমিয়ার লীগ এবং বাংলাদেশ চ্যাম্পিয়নশিপ লিগের খেলা আয়োজনের জন্যও ব্যবহৃত হয়। মোট বসার ক্ষমতা প্রায় ৩৬,০০০। স্টেডিয়ামটি জাতীয় হকি স্টেডিয়ামের পাশে অবস্থিত। ফুটবল এবং অ্যাথলেটিক্স সহ ২০১০ দক্ষিণ এশিয়ান গেমসের প্রতিযোগিতার জন্য স্টেডিয়ামটি ব্যবহার করা হয়েছিল।

টুনামেন্টের ফলাফল

[সম্পাদনা]
তারিখ প্রতিযোগিতা দল ফলাফল দল দর্শক সংখ্যা
১৫/০৯/২০১৮ ফাইনাল  মালদ্বীপ ২-০  ভারত N/A
১২/০৯/২০১৮ সেমি-ফাইনাল  ভারত ৩-১  পাকিস্তান N/A
১২/০৯/২০১৮ সেমি-ফাইনাল    নেপাল ০-৩  মালদ্বীপ N/A
০৯/০৯/২০১৮ গ্রুপ-বি  ভারত ২-০  মালদ্বীপ N/A
০৮/০৯/২০১৮ গ্রুপ-এ  বাংলাদেশ ০-২    নেপাল N/A
০৮/০৯/২০১৮ গ্রুপ-এ  পাকিস্তান ৩-০  ভুটান N/A
০৭/০৯/২০১৮ গ্রুপ-বি  মালদ্বীপ ০-০  শ্রীলঙ্কা N/A
০৬/০৯/২০১৮ গ্রুপ-এ  বাংলাদেশ ১-০  পাকিস্তান N/A
০৬/০৯/২০১৮ গ্রুপ-এ    নেপাল ৪-০  ভুটান N/A
০৫/০৯/২০১৮ গ্রুপ-বি  ভারত ২-০  শ্রীলঙ্কা N/A
০৪/০৯/২০১৮ গ্রুপ-এ  বাংলাদেশ ২-০  ভুটান N/A
০৪/০৯/২০১৮ গ্রুপ-এ    নেপাল ১-২  পাকিস্তান N/A
তারিখ প্রতিযোগিতা দল ফলাফল দল দর্শক
১৩/১২/২০০৯ ফাইনাল  মালদ্বীপ ০(১)-০(৩)

(পেনাল্টি)

 ভারত অনু-২৩ N/A
১১/১২/২০০৯ সেমি-ফাইনাল  বাংলাদেশ ০-১  ভারত অনু-২৩ N/A
১১/১২/২০০৯ সেমি-ফাইনাল  মালদ্বীপ ৫-১    নেপাল N/A
০৯/১২/২০০৯ গ্রুপ-এ  মালদ্বীপ ০-৩  ভারত অনু-২৩ N/A
০৯/১২/২০০৯ গ্রুপ-এ  আফগানিস্তান ০-৩    নেপাল N/A
০৮/১২/২০০৯ গ্রুপ-বি  পাকিস্তান ৭-০  ভুটান N/A
০৮/১২/২০০৯ গ্রুপ-এ  ভারত অনু-২৩ ১-০    নেপাল N/A
০৭/১২/২০০৯ গ্রুপ-বি  মালদ্বীপ ০-০    নেপাল N/A
০৭/১২/২০০৯ গ্রুপ-এ  মালদ্বীপ ৩-১  আফগানিস্তান N/A
০৬/১২/২০০৯ গ্রুপ-বি  বাংলাদেশ ০-০  পাকিস্তান N/A
০৬/১২/২০০৯ গ্রুপ-বি  শ্রীলঙ্কা ৬-০  ভুটান N/A
০৫/১২/২০০৯ গ্রুপ-এ  ভারত অনু-২৩ ১-০  আফগানিস্তান N/A
০৫/১২/২০০৯ গ্রুপ-এ    নেপাল ১-১  মালদ্বীপ N/A
০৪/১২/২০০৯ গ্রুপ-বি  বাংলাদেশ ৪-১  ভুটান N/A
০৪/১২/২০০৯ গ্রুপ-বি  শ্রীলঙ্কা ১-০  পাকিস্তান N/A
তারিখ প্রতিযোগিতা দল ফলাফল দল দর্শক
২০/০১/২০০৩ ফাইনাল  বাংলাদেশ ১(৫)-১(৩)

(পেনাল্টি)

 মালদ্বীপ ৪৬,০০০
২০/০১/২০০৩ তৃতীয় স্থান  ভারত ২-১ (এ.এস.ডি.ই.টি.)  পাকিস্তান N/A
১৮/০১/২০০৩ সেমি-ফাইনাল  বাংলাদেশ ২-১ (এ.এস.ডি.ই.টি.)  ভারত N/A
১৮/০১/২০০৩ সেমি-ফাইনাল  মালদ্বীপ ২-১  পাকিস্তান N/A
১৫/০১/২০০৩ গ্রুপ-বি  বাংলাদেশ ৩-০  ভুটান ১৫,০০০
১৫/০১/২০০৩ গ্রুপ-বি    নেপাল ২-৩  মালদ্বীপ ১৫,০০০
১৪/০১/২০০৩ গ্রুপ-এ  ভারত ১-১  শ্রীলঙ্কা N/A
১৪/০১/২০০৩ গ্রুপ-এ  পাকিস্তান ১-০  আফগানিস্তান N/A
১৩/০১/২০০৩ গ্রুপ-এ  বাংলাদেশ ১-০  মালদ্বীপ ২০,০০০
১৩/০১/২০০৩ গ্রুপ-বি    নেপাল ২-০  ভুটান N/A
১২/০১/২০০৩ গ্রুপ-এ  ভারত ৪-০  আফগানিস্তান N/A
১২/০১/২০০৩ গ্রুপ-এ  পাকিস্তান ৬-০  শ্রীলঙ্কা N/A
১১/০১/২০০৩ গ্রুপ-বি  বাংলাদেশ ১-০    নেপাল ৫৫,০০০
১১/০১/২০০৩ গ্রুপ-বি  মালদ্বীপ ৬-০  ভুটান ২৫,০০০
১০/০১/২০০৩ গ্রুপ-এ  শ্রীলঙ্কা ১-০  আফগানিস্তান N/A
১০/০১/২০০৩ গ্রুপ-এ  ভারত ০-১  পাকিস্তান N/A

ক্রিকেট পরিসংখ্যান ও রেকর্ড

[সম্পাদনা]

ভেন্যুটি ১ মার্চ ২০০৫ তারিখে তার শেষ আন্তর্জাতিক ক্রিকেট ম্যাচের আয়োজন করে। ২০০৪ সালের পর, আন্তর্জাতিক ক্রিকেট স্ট্যাটাসটি ঢাকার মিরপুরে অবস্থিত শের-ই-বাংলা জাতীয় স্টেডিয়ামে স্থানান্তরিত হয়। ২০০৫ সাল পর্যন্ত অনুষ্ঠানটি আয়োজন করেছে-

সংস্কার ২০১১: আইসিসি ক্রিকেট বিশ্বকাপ উদ্বোধনী অনুষ্ঠান আয়োজন

[সম্পাদনা]

বঙ্গবন্ধু জাতীয় স্টেডিয়াম ১৭ ফেব্রুয়ারী ২০১১ তারিখে বাংলাদেশ, শ্রীলঙ্কা এবং ভারত যৌথভাবে আয়োজিত ২০১১ সালের ক্রিকেট বিশ্বকাপের উদ্বোধনী অনুষ্ঠানের আয়োজন করে। উদ্বোধনী অনুষ্ঠানের আয়োজন করার জন্য স্টেডিয়ামটিকে একচেটিয়াভাবে আধুনিকীকরণ এবং একটি বিশ্বমানের স্টেডিয়ামে সংস্কার করা হয়েছিল। স্টেডিয়ামের ধারণক্ষমতা ৩৬,০০০-এ নেমে এসেছে, একটি বড় এলইডি স্ক্রিন বসানো হয়েছে, প্রেস বক্সের উপরে একটি আধুনিক ছাদও সংযুক্ত করা হয়েছে। গ্র্যান্ড গালা উদ্বোধনী অনুষ্ঠানের আয়োজনের জন্য প্রবেশদ্বার এবং ভিআইপি বক্সও আপগ্রেড করা হয়েছে। প্রেস বক্স, রিফ্রেশমেন্ট স্ট্যান্ড এবং ভিআইপি বক্স সংস্কার করা হয়েছে। স্টেডিয়ামে এখন আন্তর্জাতিক ক্রীড়া ইভেন্টের জন্য উপযুক্ত অত্যাধুনিক সুবিধা রয়েছে।

সংস্কার ২০২১: ও আধুনিক স্টেডিয়াম পূর্ণ নির্মাণ

[সম্পাদনা]

২০২১ সালের সেপ্টেম্বর থেকে, স্টেডিয়ামটি একটি বছরব্যাপী সংস্কার প্রক্রিয়ার অধীনে চলে যায়, যা ২০২৩ সালের শুরুর দিকে শেষ হওয়ার কথা ছিল, কারণ বাংলাদেশ ফুটবল ফেডারেশন মাঠে ভবিষ্যতে ফুটবল সম্পর্কিত ইভেন্টগুলি আয়োজন করার এবং এটিকে একটি আধুনিক ফুটবল ভেন্যুতে রূপান্তর করার পরিকল্পনা করেছে। মাঠ উন্নয়ন, গ্যালারিতে শেড নির্মাণ, গ্যালারিতে চেয়ার স্থাপন, আন্তর্জাতিক ও স্থানীয় খেলোয়াড়দের জন্য টয়লেটের আধুনিকীকরণ, ফ্লাডলাইট স্থাপন, সিসিটিভি ক্যামেরা স্থাপন, জেনারেটর স্থাপন, এলইডি জায়ান্ট স্ক্রিন স্থাপন, নতুন অ্যাথলেটিক ট্র্যাক স্থাপন, ফ্লাডলাইট বসানোসহ বিভিন্ন কাজ করা হয়েছে। ডিজিটাল বিজ্ঞাপন বোর্ড, মিডিয়া সেন্টার তৈরি, টিকিট কাউন্টার, ডোপ টেস্ট রুম বিল্ডিং, মেডিকেল রুম, ভিআইপি বক্স কনস্ট্রাকশন, প্রেসিডেন্ট বক্স, টয়লেট ডেভেলপমেন্ট, মেডিক্যাল ইকুইপমেন্ট, সাব-স্টেশন ইকুইপমেন্ট, এসি ও সোলার প্যানেল সরবরাহের কাজগুলো হবে। স্টেডিয়ামের সংস্কার।

আরো দেখুন

[সম্পাদনা]

তথ্যসূত্র

[সম্পাদনা]
  1. "৬০ পেরোলো বঙ্গবন্ধু জাতীয় স্টেডিয়াম"www.jugantor.com। ২০১৯-০৮-০১ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ২০১৯-০৮-০১ 
  2. ইকবাল, নাইর (২০২১-১২-১৬)। "বাংলাদেশের জন্ম–ইতিহাসের সঙ্গে জড়িয়ে যে মাঠ"প্রথম আলো। ২০২১-১২-১৬ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ২০২২-০১-১৯ 
  3. বিন আনোয়ার, সাইফুল্লাহ (২৫ মে, ২০২০)। "নো কান্ট্রি ফর ওল্ড গ্রাউন্ডস"www.pavilion.com.bd। ২৯ নভেম্বর ২০২০ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা।  এখানে তারিখের মান পরীক্ষা করুন: |তারিখ= (সাহায্য)
  4. "A brief history ..."। Cricinfo। ২০১৯-০১-০৭ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ২০০৮-০৫-০২ 

বহিঃসংযোগ

[সম্পাদনা]

স্থানাঙ্ক: ২৩°৪৩′৪০.২″ উত্তর ৯০°২৪′৪৮.৪″ পূর্ব / ২৩.৭২৭৮৩৩° উত্তর ৯০.৪১৩৪৪৪° পূর্ব / 23.727833; 90.413444