ঢাকা মেট্রোপলিটন পুলিশ

উইকিপিডিয়া, মুক্ত বিশ্বকোষ থেকে
পরিভ্রমণে ঝাঁপ দিন অনুসন্ধানে ঝাঁপ দিন
ঢাকা মেট্রোপলিটন পুলিশ
সাধারণ নাম পুলিশ
সংক্ষেপণ ডিএমপি
ঢাকা মেট্রোপলিটন পুলিশ.svg
ঢাকা মেট্রোপলিটন পুলিশের লোগো
নীতিবাক্য শৃঙ্খলা নিরাপত্তা প্রগতি
সংস্থা পরিদর্শন
গঠিত ১ই ফেব্রুয়ারি, ১৯৭৬
কর্মকতারা ২৬,৬৬১ [১]
আইনি ব্যক্তিত্ব বেসরকারি: সরকারি সংস্থা


অধিকারভুক্ত অঞ্চলের কাঠামো
উপকরণের গঠন ঢাকা মহানগর পুলিশ অধ্যাদেশ, ১৯৭৬
সাধারণ প্রকৃতি
অপারেশনাল কাঠামো
প্রধান কার্যালয় ৩৬, শহীদ ক্যাপ্টেন মনসুর আলী এভিনিউ, রমনা থানা, ঢাকা ১০০০[২]
সংস্থা কার্যকরী মো: শফিকুল ইসলাম (২৮ তম), মেট্রোপলিটন পুলিশ কমিশনার
উর্ধ্বস্থ সংস্থা বাংলাদেশ পুলিশ
সুবিধা
স্টেশন ৪৯
ওয়েবসাইট
http://www.dmp.gov.bd


ঢাকা মেট্রোপলিটন পুলিশ (ডিএমপি) (ইংরেজি: Dhaka Metropolitan Police) হল বাংলাদেশ পুলিশের একটি বিভাগ, যারা জাতীয় রাজধানী বাংলাদেশের সবচেয়ে জনবহুল শহর ঢাকা মহানগরীতে আইন প্রয়োগকারী সংস্থার দায়িত্ব পালন করে থাকে। ঢাকা মেট্রোপলিটন পুলিশ হল বাংলাদেশের বৃহত্তম পুলিশ বাহিনী।[৩]

ইতিহাস[সম্পাদনা]

একটি প্রধান পুনর্গঠনের সময় এবং বাংলাদেশের জাতীয় পুলিশ বাহিনীর সম্প্রসারণ, দেশের রাজধানী ও বৃহত্তম শহরের মধ্যে আইন-শৃঙ্খলা বজায় রাখার জন্য ঢাকা মেট্রোপলিটন পুলিশ প্রতিষ্ঠিত হয় ১৯৭৬ সালের ১ ফেব্রুয়ারিতে। এটি প্রাথমিকভাবে ৬,০০০ পুলিশ-বাহিনী মোট ১২টি পুলিশ থানায় কর্মরত রয়েছে। [৪] শহরের জনসংখ্যা ব্যাপকভাবে বৃদ্ধি পাওয়ায়, একটি প্রসারিত এবং ভাল সজ্জিত পুলিশ বৃদ্ধি প্রয়োজন। সরকারের প্রধান পরিকল্পনা ছিল পুলিশদের সম্প্রসারণ করতে। ফলস্বরূপ, ৪৯ পুলিশ স্টেশন স্থাপনের কাজ সম্পন্ন হয়েছে। [১] কর্মীদের সংখ্যা অপেক্ষাকৃত নতুন পদমর্যাদা এবং কর্মকর্তাদের সঙ্গে, বিস্তৃত করা হয়েছে।

সংগঠন[সম্পাদনা]

বর্তমান মোট শক্তি প্রায় ২৬,৬৬১ (শাসনিক কর্মীবর্গ সহ) বেশী কর্মচারীবৃন্দ এবং ৪৯ পুলিশ থানায় কর্মরত আছে। ঢাকা মেট্রোপলিটন পুলিশ ৫টি কর্মক্ষম নেতৃত্বে বিভাগে বিভক্ত করা আছে যা পরিচালিত হয় যুগ্ম কমিশনার জেলা প্রশাসক দ্বারা। ঢাকা মেট্রোপলিটন পুলিশের ৫ টি বিভাগ হলঃ

  1. গোয়েন্দা ও অপরাধ গোয়েন্দা বিভাগ: গোয়েন্দা ও পুলিশের অপরাধ তদন্ত বাহু, এরা যুদ্ধ সংগঠিত অপরাধ, নরহত্যা, চুরি, মাদক পাচার, নারী ও মানব পাচারের বিরুদ্ধে অপরাধীদের খোজ করার দায়িত্ব পালন করে। [৫]
  2. অপরাধ ও অপারেশনস বিভাগ: সব নগর পুলিশ স্টেশনে কার্যাবলী কাজগুলোও পরিচালনা করে। [৬]
  3. ট্রাফিক বিভাগ: শহরের ট্রাফিক পুলিশ হিসেবে কাজ করে, যানবাহন চলাচল, গতি এবং পার্কিং আইন, পথচারী এবং সড়ক নিরাপত্তা নিয়ন্ত্রণ করে থাকে।
  4. সুরক্ষা ও প্রটোকল বিভাগ: বিভাজন ভিআইপিদের, সংসদ সদস্য, সরকারি কর্মকর্তা, বিদেশী বিশিষ্ট ব্যক্তিবর্গ এবং অন্যদের নিরাপত্তা প্রদানের জন্য এরা দায়িত্ব পালন করে। [৭]
  5. পাবলিক অর্ডার ম্যানেজমেন্ট এবং সদর বিভাগ: ১০,৫০০ কর্মকর্তা সমন্বয়ে গঠিত ডিভিশন পুলিশ শাসক হাত ফর্ম, কলকব্জা, প্রশিক্ষণ, লজিস্টিক, সরবরাহ এবং অন্যান্য প্রশাসনিক কার্যাবলী পরিচালনা করে।

ঢাকা মেট্রোপলিটন পুলিশ ছাড়াও সহযোগিতা এবং সঙ্গে সাংগঠনিক যোগাযোগ বজায় রেখেছে বাংলাদেশ আনসার, বর্ডার গার্ড বাংলাদেশ, বিশেষ শাখা (বাংলাদেশ), বাংলাদেশের গোয়েন্দা সম্প্রদায়, র‌্যাপিড অ্যাকশন ব্যাটেলিয়ান এবং অন্যান্য জাতীয় নিরাপত্তা সংস্থা.

বিশেষ নারী পুলিশ বাহিনী[সম্পাদনা]

মহিলা কর্মকর্তা প্রথম ঢাকা মেট্রোপলিটন পুলিশে যোগদান করে ১৯৭৮ সালে। [৮][৯] ঢাকা মেট্রোপলিটন পুলিশ আরো একটি বিশেষ নারী পুলিশ উত্থাপিত করেছে ২০০৮ সালে। যে মহিলা অপরাধের সঙ্গে জড়িত আছে তাদের অপরাধ সঠিক ভাবে তদন্ত এবং গ্রেফতার করার জন্য নারী পুলিশ বাহিনী তৈরি করা হয়েছে। সহকারী কমিশনার বিশেষ নারী পুলিশ বাহিনীদের মধ্যে মোট ২৪ জন নারীকে প্রধান কর্মকর্তা হিসেবে নিয়োগ করেছেন।[১০][১১]

বিশেষ অস্ত্র ও কার্যপদ্ধতি (SWAT)[সম্পাদনা]

বিশেষ অস্ত্র ও কৌশল (সোয়াট) ঢাকা মেট্রোপলিটন পুলিশের আরেকটি অভিজাত কৌশলী ইউনিট যা ২৮ ফেব্রুয়ারি, ২০০৯ সালে প্রতিষ্ঠিত হয়। বিশেষ অস্ত্র ও কৌশল ঢাকা মেট্রোপলিটন পুলিশের গোয়েন্দা শাখার অধীনে পরিচালিত হয়। আমেরিকার সোয়াট টিমের আদলে, তাদেরই অর্থায়নে, তাদেরই ট্রেনিংয়ে এবং তাদেরই সব ইক্যুইপমেন্টে সজ্জিত হয়ে বাংলাদেশেও যাত্রা শুরু করে সোয়াট। এমপি কমিশনারের সরাসরি নির্দেশে পরিচালিত হয়ে থাকে এই দলটি। ঢাকা মেট্রোপলিটন পুলিশ 'স্পেশাল উইপন্স অ্যান্ড ট্যাকটিক্স টিম' - সোয়াট। ছোটো দল, পুরোপুরি উদ্ধার অভিযান কেন্দ্রীক। যেসব সংস্থায় সশস্ত্র উদ্ধারকাজ দরকার হতে পারে, তেমন সব সংস্থার জন্য একই ধরনের একটা করে টিম গঠন করে দেয়া হয়। এই টিমগুলোর ট্রেনিং একই রকম, সামান্য এদিক সেদিক। কিন্তু তারা থাকে লোকালাইজড সংস্থার সাথে। যেমন, এফবআই’র নগরভিত্তিক প্রতিটা অফিসে, পুলিশের প্রতিটা বড় ইউনিটে ছোট একটা করে সোয়াট টিম, কোস্টগার্ড, বর্ডারগার্ড, কাস্টমস, ফুড অ্যান্ড ড্রাগ অ্যাডমিনিস্ট্রেশন- সর্বত্র। খুবই কঠোরভাবে এখানে নিয়োগ দেয়া হয়। শারীরিক কঠোর পরিশ্রমের উপর বিশেষ নজর দেয়া হয়। শারীরিক উচ্চতা, সুস্থতা, মানসিক দৃঢ়তা ও খাটতে পারা- এ থেকে শুরু। সাধারণত সংশ্লিষ্ট প্রধান অ্যাজেন্সি থেকেই আসে রিক্রুটরা।

আরও দেখুন[সম্পাদনা]

তথ্যসূত্র[সম্পাদনা]

  1. "DMP – New Initiatives" (ইংরেজি ভাষায়)। ঢাকা মেট্রোপলিটন পুলিশ। ১৬ সেপ্টেম্বর ২০১০ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ৩০ সেপ্টেম্বর ২০০৮ 
  2. "Dhaka Metropolitan Police Headquarters"99nearby.com (ইংরেজি ভাষায়)। 
  3. "Dhaka Metropolitan Police (DMP)" (ইংরেজি ভাষায়)। police.gov.bd। 
  4. "History of the DMP" (ইংরেজি ভাষায়)। ঢাকা মেট্রোপলিটন পুলিশ। ২০১৩-১০-১৯ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ২০১৩-১০-১৮ 
  5. "DMP — Detective Division" (ইংরেজি ভাষায়)। ঢাকা মেট্রোপলিটন পুলিশ। ২০০৮-১০-১১ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ২০০৮-০৯-৩০ 
  6. "DMP — Crime Division" (ইংরেজি ভাষায়)। ঢাকা মেট্রোপলিটন পুলিশ। ২০০৮-১০-১১ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ২০০৮-০৯-৩০ 
  7. "DMP — Protection Division" (ইংরেজি ভাষায়)। ঢাকা মেট্রোপলিটন পুলিশ। ২০০৮-১০-১১ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ২০০৮-০৯-৩০ 
  8. "History of the Bangladesh Police" (ইংরেজি ভাষায়)। ২০০৯-০৮-১৩ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ২০০৮-০৯-২৯ 
  9. "Women in the Police" (ইংরেজি ভাষায়)। The New Nation। সংগ্রহের তারিখ ২০০৮-০৯-২৯ 
  10. "Bangladesh raises new unit of women police" (ইংরেজি ভাষায়)। Zee News। ২০০৮-০৮-৩০। সংগ্রহের তারিখ ২০০৮-০৯-৩০ 
  11. Official Facebook page (ইংরেজি ভাষায়) 

বহিঃসংযোগ[সম্পাদনা]