বাংলাদেশ জিন্দাবাদ

উইকিপিডিয়া, মুক্ত বিশ্বকোষ থেকে

বাংলাদেশ জিন্দাবাদ দেশপ্রেমের প্রকাশ হিসাবে বাংলাদেশীদের দ্বারা ব্যবহৃত একটি স্লোগান এবং প্রায়ই রাজনৈতিক বক্তৃতা এবং ক্রিকেট ম্যাচগুলিতে ব্যবহৃত হয়। এটির ব্যবহার বাংলাদেশ সৃষ্টির আগেই শুরু হয়েছিল। পাকিস্তান সময়কালের সময়কালেও এটি ব্যবহৃত হয়েছিল।[১]

ব্যাকরণ[সম্পাদনা]

জিন্দাবাদ স্লোগানটি ফার্সি শব্দ থেকে উৎপত্তি। জিন্দাবাদ-এর বাংলা পরিভাষা দীর্ঘজীবী। যেটি একটি ব্যক্তি বা একটি দেশের নামের পরে স্থাপন করা হয়। এটি বিজয় বা দেশপ্রেমের বহিঃপ্রকাশ হিসেবে উপস্থাপন করা হয়। [১][২]

ইতিহাস[সম্পাদনা]

উৎপত্তি[সম্পাদনা]

বলা হয়, ২৩ নভেম্বর ১৯৭০ সালে আবদুল হামিদ খান ভাসানী ঢাকার পল্টন ময়দানে একটি সমাবেশে বক্তৃতা করেন। ১৯৭০ ভোলার ঘূর্ণিঝড়ের মাত্র কয়েকদিন পরেই এই বক্তব্য দেন তিনি। ভোলার ঘূর্ণিঝড় ইতিহাসে সর্বকালের সর্বশ্রেষ্ঠ প্রাকৃতিক দুর্যোগ হিসেবে রেকর্ড করা হয়।[১] ঝড়ের পর ত্রাণ কার্যক্রম নিয়ে পাকিস্তান সরকারের ধীরগতির প্রতিবাদ ও প্রতিক্রিয়া হিসেবে ভাসানী পাকিস্তানের সরকার ব্যাপক সমালোচনা করেন এবং ভাসানী সুপারিশ করেছিলেন যে পূর্ব পাকিস্তান যেন আলাদা হয়ে স্বাধীন দেশ হয়। তিনি পাকিস্তান জিন্দাবাদের পরিবর্তে পূর্ব পাকিস্তান জিন্দাবাদ বলে বক্তৃতা শেষ করেন। [১]

ব্যবহার[সম্পাদনা]

বাংলাদেশের মুক্তিযুদ্ধ চলাকালে, বাংলাদেশ জিন্দাবাদ এবং শেখ মুজিব জিন্দাবাদ একটি সাধারণ শব্দ হিসেবে ব্যবহৃত হয়। ১৯৭০ সালের অস্থায়ী বাংলাদেশ সরকার সমর্থকরা এটি ব্যবহার করতেন।[২] ১৯৭৫ সালে, খন্দকার মোস্তাক আহমেদের সভাপতিত্বে জয় বাংলা প্রতিস্থাপন করে বাংলাদেশ জিন্দাবাদকে বাংলাদেশের জাতীয় স্লোগান করা হয়।[৩][৪]

জাতিগত ভাষাগত পরিচয় ব্যতীত বাংলাদেশের জন্য একটি আঞ্চলিক পরিচয় তৈরির প্রচেষ্টার অংশ হিসাবে জিয়াউর রহমানের রাষ্ট্রপতির সময়ও এই স্লোগানটি ব্যবহার করা হয়েছিল। রহমান বাঙালি জাতীয়তাবাদের পরিবর্তে বাংলাদেশী জাতীয়তাবাদের ধারণা প্রচার করেছিলেন যা বাঙালি জনগোষ্ঠীসহ দেশের বিপুল সংখ্যক সংখ্যালঘুদের থেকেও সমর্থন লাভ করেছিল, সংখ্যালঘুদের অনেকে বাঙালি বংশোদ্ভূত ছিল না এবং যেমন বিহারীআদিবাসী জনগোষ্ঠী[৫]

আরো দেখুন[সম্পাদনা]

তথ্যসূত্র[সম্পাদনা]

  1. ইসলাম, সিরাজুল; মিয়া, সাজাহান; খানম, মাহফুজা; আহমেদ, সাব্বীর, সম্পাদকগণ (২০১২)। "স্বাধীনতা ঘোষণা"বাংলাপিডিয়া: বাংলাদেশের জাতীয় বিশ্বকোষ (২য় সংস্করণ)। ঢাকা, বাংলাদেশ: বাংলাপিডিয়া ট্রাস্ট, বাংলাদেশ এশিয়াটিক সোসাইটিআইএসবিএন 9843205901ওএল 30677644Mওসিএলসি 883871743 
  2. লিন্ডকভিস্ট, হারমান (২২ নভে ২০১৪)। "Bangladesh föddes ur ett blodbad" (সুইডিশ ভাষায়)। 
  3. "The fall of secularism in Bangladesh"। ২০১৮-০৩-০৮। 
  4. সালেহ আক্তার খান (২০১২)। "আহমদ, খোন্দকার মোশতাক"। ইসলাম, সিরাজুল; মিয়া, সাজাহান; খানম, মাহফুজা; আহমেদ, সাব্বীর। বাংলাপিডিয়া: বাংলাদেশের জাতীয় বিশ্বকোষ (২য় সংস্করণ)। ঢাকা, বাংলাদেশ: বাংলাপিডিয়া ট্রাস্ট, বাংলাদেশ এশিয়াটিক সোসাইটিআইএসবিএন 9843205901ওএল 30677644Mওসিএলসি 883871743 
  5. সৈয়দ বদরুল আহসান (৯ মার্চ ২০১৮)। "The fall of secularism in Bangladesh"