বাংলাদেশের মন্ত্রিসভা

উইকিপিডিয়া, মুক্ত বিশ্বকোষ থেকে
শেখ হাসিনার পঞ্চম মন্ত্রিসভা

বাংলাদেশ-এর একবিংশ মন্ত্রিসভা
১১ জানুয়ারি ২০২৪
শেখ হাসিনা
গঠনের তারিখ১১ জানুয়ারি ২০২৪ (2024-01-11)
ব্যক্তি ও সংস্থা
রাষ্ট্রপ্রধানমোহাম্মদ সাহাবুদ্দিন
সরকারপ্রধানশেখ হাসিনা
মন্ত্রী সংখ্যা২৫ জন মন্ত্রী
১১ জন প্রতিমন্ত্রী
মোট মন্ত্রী সংখ্যা৩৭ (প্রধানমন্ত্রীসহ)
সদস্য দলবাংলাদেশ আওয়ামী লীগ
আইনসভায় অবস্থা
২২৪ / ৩০০
বিরোধী দলজাতীয় পার্টি
বিরোধী নেতাগোলাম মোহাম্মদ কাদের
ইতিহাস
নির্বাচনদ্বাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচন
সর্বশেষ নির্বাচনএকাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচন
আইনসভার মেয়াদদ্বাদশ জাতীয় সংসদ
পূর্বতনশেখ হাসিনার চতুর্থ মন্ত্রিসভা

বাংলাদেশের মন্ত্রিসভা গণপ্রজাতন্ত্রী বাংলাদেশ সরকারের নির্বাহী বিভাগের প্রধান প্রতিষ্ঠান। আইনসভায় প্রণীত আইনের আলোকে মন্ত্রিসভা প্রধানমন্ত্রীর নেতৃত্বে সরকারের নীতি ও সিদ্ধান্ত বাস্তবায়ন করে এবং সম্পাদিত কার্যাবলীর জন্য সম্মিলিতভাবে জাতীয় সংসদের নিকট দায়বদ্ধ থাকে। বাংলাদেশের সংবিধানের ৭০নং অনুচ্ছেদ প্রধানমন্ত্রীর হাতে অনিয়ন্ত্রণীয় অপ্রতিদ্বন্দ্বী ক্ষমতা ন্যস্ত করেছে বলে সমালোচনা রয়েছে।[১]

বাংলাদেশের একবিংশ মন্ত্রিসভায় প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা ব্যতীত মন্ত্রিসভার পূর্ণ মন্ত্রী ২৫ জন, প্রতিমন্ত্রী ১১ জন।[২][৩] ৭ জানুয়ারি ২০২৪ তারিখে বাংলাদেশের দ্বাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনের পর ১১ জানুয়ারি ২০২৪ তারিখে মন্ত্রিপরিষদ বিভাগ থেকে শেখ হাসিনার নেতৃত্বে গঠিত মন্ত্রিসভার মন্ত্রীদের নাম ঘোষণা করে। ১১ জানুয়ারি নতুন মন্ত্রিসভার সদস্যগণ শপথ নেন।

মন্ত্রিসভা[সম্পাদনা]

বাংলাদেশের সংবিধানের চতুর্থ ভাগের দ্বিতীয় পরিচ্ছেদে প্রধানমন্ত্রী ও মন্ত্রিসভা সংক্রান্ত বিধিমালা রয়েছে।

মন্ত্রিসভার মন্ত্রীদের মর্যাদাক্রম নিম্নলিখিত,

  • মন্ত্রী বা পূর্ণাঙ্গ মন্ত্রী: মন্ত্রিসভার সদস্য; একটি মন্ত্রণালয়ের কার্যনির্বাহক।
  • প্রতিমন্ত্রী (মন্ত্রণালয়ের দায়িত্বে): নিম্নপদস্থ মন্ত্রী; একটি মন্ত্রণালয়ের কার্যনির্বাহক।
  • প্রতিমন্ত্রী: নিম্নপদস্থ মন্ত্রী; একটি মন্ত্রণালয়ের কার্যনির্বাহক মন্ত্রীর নিকট দায়বদ্ধ।
  • উপমন্ত্রী: সর্বাধিক নিম্নপদস্থ মন্ত্রী; একটি মন্ত্রণালয়ের কার্যনির্বাহক মন্ত্রী কিংবা কার্যনির্বাহক প্রতিমন্ত্রীর নিকট দায়বদ্ধ।

মন্ত্রিসভার সদস্যগণ[সম্পাদনা]

বাংলাদেশের প্রধানমন্ত্রী মন্ত্রীগণের বাইরে বাংলাদেশ সরকারের ‘রুলস অব বিজনেস-১৯৯৬’-এর ৩(বি)১ ধারা অনুযায়ী সংসদ সদস্য হবার যোগ্য এমন যেকোন ব্যক্তিকে তার উপদেষ্টা নিয়োগ করতে পারেন। উপদেষ্টাগণ সাধারণত মন্ত্রী পদমর্যাদা সম্পন্ন। ১১ জানুয়ারি ২০২৪ সরকারের শপথ নেওয়ার দিন থেকে উপদেষ্টাদের নিয়োগ কার্যকর ধরা হয়েছে।[৫]

রাজনৈতিক দল
বাংলাদেশ সরকারের সিলমোহর
মন্ত্রী মন্ত্রণালয় এবং অফিস উপদেষ্টা, প্রতিমন্ত্রী এবং উপমন্ত্রী
শেখ হাসিনা
আ. ক. ম. মোজাম্মেল হক মুক্তিযুদ্ধ বিষয়ক মন্ত্রণালয়
ওবায়দুল কাদের সড়ক পরিবহন ও সেতু মন্ত্রণালয়
আবুল হাসান মাহমুদ আলী অর্থ মন্ত্রণালয় ওয়াসিকা আয়শা খান (প্রতিমন্ত্রী)
ড. মোহাম্মদ হাছান মাহমুদ পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়
আসাদুজ্জামান খাঁন কামাল স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয়
আনিসুল হক আইন, বিচার ও সংসদ বিষয়ক মন্ত্রণালয়
মুহাম্মদ ফারুক খান বেসামরিক বিমান পরিবহন ও পর্যটন মন্ত্রণালয়
নূরুল মজিদ মাহমুদ হুমায়ূন শিল্প মন্ত্রণালয়
ডা. দীপু মনি সমাজকল্যাণ মন্ত্রণালয়
মোঃ তাজুল ইসলাম স্থানীয় সরকার, পল্লী উন্নয়ন ও সমবায় মন্ত্রণালয় মোঃ আব্দুল ওয়াদুদ (প্রতিমন্ত্রী – পল্লী উন্নয়ন ও সমবায় বিভাগ)
মোঃ আব্দুস শহীদ কৃষি মন্ত্রণালয়
মেজর জেনারেল (অব.) আবদুস সালাম পরিকল্পনা মন্ত্রণালয় মোঃ শহীদুজ্জামান সরকার (প্রতিমন্ত্রী)
জাহাঙ্গীর কবির নানক বস্ত্র ও পাট মন্ত্রণালয়
সাধন চন্দ্র মজুমদার খাদ্য মন্ত্রণালয়
ইয়াফেস ওসমান বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি মন্ত্রণালয়
ডা. সামন্ত লাল সেন স্বাস্থ্য ও পরিবার কল্যাণ মন্ত্রণালয় ডা. রোকেয়া সুলতানা (প্রতিমন্ত্রী)
সাবের হোসেন চৌধুরী পরিবেশ, বন ও জলবায়ু পরিবর্তন মন্ত্রণালয়
র. আ. ম. উবায়দুল মোকতাদির চৌধুরী গৃহায়ন ও গণপূর্ত মন্ত্রণালয়
ফরিদুল হক খান ধর্ম বিষয়ক মন্ত্রণালয়
নারায়ন চন্দ্র চন্দ ভূমি মন্ত্রণালয়
মোঃ জিল্লুল হাকিম রেলপথ মন্ত্রণালয়
মোঃ আব্দুর রহমান মৎস্য ও প্রাণিসম্পদ মন্ত্রণালয়
নাজমুল হাসান যুব ও ক্রীড়া মন্ত্রণালয়
ফরহাদ হোসেন জনপ্রশাসন মন্ত্রণালয়
মহিবুল হাসান চৌধুরী শিক্ষা মন্ত্রণালয় বেগম শামসুর নাহার (প্রতিমন্ত্রী)
(প্রতিমন্ত্রীর দায়িত্বে) ডাক, টেলিযোগাযোগ ও তথ্যপ্রযুক্তি মন্ত্রণালয় জুনাইদ আহমেদ পলক
(প্রতিমন্ত্রীর দায়িত্বে) নৌপরিবহন মন্ত্রণালয় খালিদ মাহমুদ চৌধুরী
(প্রতিমন্ত্রী দায়িত্বে) পানিসম্পদ মন্ত্রণালয় জাহিদ ফারুক শামীম
(প্রতিমন্ত্রীর দায়িত্বে) মহিলা ও শিশু বিষয়ক মন্ত্রণালয় সিমিন হোসেন
(প্রতিমন্ত্রীর দায়িত্বে) তথ্য ও সম্প্রচার মন্ত্রণালয় মোহাম্মদ আলী আরাফাত
(প্রতিমন্ত্রীর দায়িত্বে) প্রবাসী কল্যাণ ও বৈদেশিক কর্মসংস্থান মন্ত্রণালয় মোঃ শফিকুর রহমান চৌধুরী
(প্রতিমন্ত্রীর দায়িত্বে) পার্বত্য চট্টগ্রাম বিষয়ক মন্ত্রণালয় কুজেন্দ্র লাল ত্রিপুরা
(প্রতিমন্ত্রীর দায়িত্বে) দুর্যোগ ব্যবস্থাপনা ও ত্রাণ মন্ত্রণালয় মোঃ মহিববুর রহমান
(প্রতিমন্ত্রীর দায়িত্বে) প্রাথমিক ও গণশিক্ষা মন্ত্রণালয় রুমানা আলী
(প্রতিমন্ত্রীর দায়িত্বে) বাণিজ্য মন্ত্রণালয় আহসানুল ইসলাম টিটু
(প্রতিমন্ত্রীর দায়িত্বে) শ্রম ও কর্মসংস্থান মন্ত্রণালয় মোঃ নজরুল ইসলাম চৌধুরী
(প্রতিমন্ত্রীর দায়িত্বে) সংস্কৃতি বিষয়ক মন্ত্রণালয় নাহিদ ইজাহার খান


আরও দেখুন[সম্পাদনা]

তথ্যসূত্র[সম্পাদনা]

  1. "নির্বাহী - বাংলাপিডিয়া"bn.banglapedia.org। সংগ্রহের তারিখ ২০১৯-০২-০৫ 
  2. "কে কোন মন্ত্রণালয় পেলেন (পুরো তালিকা)"যুগান্তর। ৩ সেপ্টেম্বর ২০২০ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ৬ জানুয়ারি ২০১৯ 
  3. "নতুন সরকারের মন্ত্রী-প্রতিমন্ত্রী-উপমন্ত্রী হচ্ছেন যারা"ডেইলি স্টার। সংগ্রহের তারিখ ৬ জানুয়ারি ২০১৯ 
  4. "গণপ্রজাতন্ত্রী বাংলাদেশের সংবিধান"bdlaws.minlaw.gov.bd। সংগ্রহের তারিখ ১৬ জানুয়ারি ২০১৯ 
  5. "প্রধানমন্ত্রীর উপদেষ্টাগণের নিয়োগ প্রজ্ঞাপন" (পিডিএফ)মন্ত্রিপরিষদ বিভাগ। ২০২৪-০১-১১।