বাংলাদেশের ইস্পাত শিল্প

উইকিপিডিয়া, মুক্ত বিশ্বকোষ থেকে

ইস্পাত শিল্প বাংলাদেশের একটি প্রতিষ্ঠিত এবং ক্রমবর্ধমান শিল্প। প্রধানত বন্দর নগরী চট্টগ্রামে অবস্থিত, শিল্পটি জাতীয় অর্থনীতিতে একটি প্রধান অবদানকারী হিসাবে আবির্ভূত হয়েছে। বিশেষজ্ঞদের মতে, বাংলাদেশে ইস্পাত শিল্পের প্রবৃদ্ধি প্রধানত দেশের জাহাজ নির্মাণ ও রিয়েল এস্টেট খাতের দ্রুত সম্প্রসারণের পাশাপাশি দেশজুড়ে বিভিন্ন অবকাঠামো প্রকল্পে বড় বিনিয়োগের কারণে।

ইতিহাস[সম্পাদনা]

প্রথম ইস্পাত মিলটি ১৯৫২ সালে এইচ আকবেরালি গ্রুপ অফ ইন্ডাস্ট্রিজ দ্বারা "বাংলাদেশ স্টিল রি-রোলিং মিলস (বিএসআরএম)" হিসাবে প্রতিষ্ঠিত হয়েছিল। চট্টগ্রামের নাসিরাবাদে অবস্থিত, প্ল্যান্টটি পুনরায় প্রয়োগকারী বার এবং কাঠামোগত বিভাগ তৈরি করেছে। মিলটি ধীরে ধীরে দীর্ঘায়িত হয়, ১৯৮৭ সালে একটি ক্রস-নেশন ইউরোপীয় মিল স্থাপনের মাধ্যমে নতুন প্রযুক্তিগত জ্ঞান গ্রহণ করে যা একটি তার-রড মিল অন্তর্ভুক্ত করে। বিএসআরএম গ্রুপ ১৯৯৬ সালে একটি ক্যাপটিভ বিলেট উৎপাদন কারখানা যুক্ত করেছে যাতে তার উদ্ভিদের বিলেটগুলির একটি স্থিতিশীল বিতরণ নিশ্চিত করা যায়। ২০০৬ সালে, কোম্পানিটি পাঁজরযুক্ত উচ্চ শক্তির তারগুলি তৈরি করতে পাইলট কোল্ড রোলিং মিল ইনস্টল করেছিল।[১]

এই সময়ের মধ্যে, কেএসআরএম স্টিল প্ল্যান্ট লিমিটেড আবির্ভূত হয়। অতি সম্প্রতি তারা চট্টগ্রামে বিলেট প্ল্যান্ট স্থাপন করেছে। চট্টগ্রামের সীতাকুণ্ডের ঘোড়ামারায় তাদের কারখানা। কেএসআরএম কবির গ্রুপ অফ ইন্ডাস্ট্রিজের অন্তর্গত একটি ইস্পাত উৎপাদনকারী প্রতিষ্ঠান। বাংলাদেশের বৃহত্তম রোলিং মিলগুলির মধ্যে একটি। তদুপরি, দেশে আরও কয়েকটি ইস্পাত কোম্পানির আবির্ভাব ঘটে, বিশেষ করে GPH ইস্পাত, আরআরএম, সীমা স্টিল রি-রোলিং মিলস লিমিটেড, বসুন্ধরা স্টিলস ইত্যাদি।[২][৩][৪]

বাংলাদেশের ইস্পাত শিল্প দেশের অন্যতম প্রধান শিল্প খাত হিসেবে আবির্ভূত হচ্ছে। এটি দেশ জুড়ে ইস্পাত গলানোর এবং পুনরায় ঘূর্ণায়মান কারখানাগুলির সবচেয়ে বড় স্কেল পর্যন্ত গঠিত যা বেশিরভাগই নির্মাণ শিল্পের জন্য বিভিন্ন গ্রেডের, দেবদূত, চ্যানেল এবং কয়েলের বিকৃত বার রড তৈরি করে। যদিও ইস্পাত শিল্পের ইতিহাস পুরোনো নয় তবে এটি একটি গৌরবময় ভবিষ্যত তৈরি করতে পারে। ১৯৭১ সালের আগে বাংলাদেশে কোনো স্টিল মিল ছিল না এবং স্বাধীনতার পরও দেশে মাত্র কয়েকটি ইস্পাত কারখানা ছিল। ১৯৯০-এর দশকে একটি বিপ্লবের মাধ্যমে এই খাতে প্রকৃত উন্নয়ন শুরু হয়। সেই সময়ে আধুনিক অবকাঠামো নির্মাণে বিল্ডিং কনস্ট্রাকটিং এজেন্সি বা ডেভেলপার কোম্পানিগুলো এগিয়ে আসে। তারপর ক্রমবর্ধমান চাহিদার সাথে, নতুন বিনিয়োগকারীরা ইস্পাত বা রড উৎপাদনে বিনিয়োগ শুরু করে। ২০১২ সালে ঢাকা, চট্টগ্রাম সহ সারা দেশে আমাদের প্রায় ৪০০টি মিল রয়েছে। যদিও তাদের বেশিরভাগই ম্যানুয়াল স্টিল প্ল্যান্ট, তাদের মধ্যে ৩০টি মিল স্বয়ংক্রিয়।

অনেক ইস্পাত উৎপাদনকারী কোম্পানি ব্র্যান্ড হিসেবে সুনাম অর্জন করেছে। এর মধ্যে মেট্রোসেম ইস্পাত, বায়েজিদ স্টিল, জিপিএইচ ইস্পাত, বিএসআরএম, এসএস স্টিল লিমিটেড, আরএসআরএম, কেএসআরএম, আরআরএমএল, আনোয়ার স্টিল, এইচকেজি স্টিল, একে স্টিল, রহিম স্টিল, আবুল খায়ের গ্রুপ উল্লেখযোগ্য। বর্তমানে সর্বোচ্চ ইস্পাত উৎপাদনকারী প্রতিষ্ঠান বিএসআরএম। তারা ৬০ বছর ধরে ব্যবসা করছে। তাদের উৎপাদন বছরে প্রায় সাড়ে ছয় লাখ টন যা স্থানীয় বাজারের ২৬% চাহিদা মেটায়। এখন গ্রেড ৬০ রড ধীরে ধীরে জি৫০০ রড দ্বারা প্রতিস্থাপিত হচ্ছে যা আমাদের দেশের বেশ কয়েকটি রোলিং মিল এখন উত্পাদন করছে। জি৫০০ এর মাধ্যমে, রিয়েল এস্টেট নির্মাতা এবং বিকাশকারীরা জি৬০ এর চেয়ে ন্যূনতম ১৫% আরও বেশি পরিমাণ ইস্পাত সংরক্ষণ করতে পারে।

বাজার[সম্পাদনা]

বাংলাদেশে ইস্পাত শিল্পের মূল্য ৫৫,০০০ কোটি টাকা (৭ বিলিয়ন মার্কিন ডলার)। বছরে নয় মিলিয়ন টন ইস্পাত উৎপাদনের সম্মিলিত ক্ষমতা সহ প্রায় ৪০টি সক্রিয় নির্মাতা রয়েছে।[তথ্যসূত্র প্রয়োজন]

তথ্যসূত্র[সম্পাদনা]

  1. "Clear policy needed to boost investment"The Daily Star। ২৪ ফেব্রুয়ারি ২০১৩। 
  2. "Steelmaker plans big"The Daily Star। ১৯ জানুয়ারি ২০১১। 
  3. Ahmed, Mushir (২০ মার্চ ২০১১)। "Ctg-based large mills move fast on long-steel"The Financial Express। Dhaka। ২২ মার্চ ২০১১ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ১২ জানুয়ারি ২০২২ 
  4. "Govt asked to up taxes on imported steel"bdnews24.com। ১৭ নভেম্বর ২০০৮। Archived from the original on ২৪ ডিসেম্বর ২০১৩। সংগ্রহের তারিখ ১৮ আগস্ট ২০২২