বাংলাদেশে স্বাস্থ্য

উইকিপিডিয়া, মুক্ত বিশ্বকোষ থেকে
পরিভ্রমণে ঝাঁপ দিন অনুসন্ধানে ঝাঁপ দিন

স্বাস্থ্য এবং শিক্ষার হার বাংলাদেশে এখনো কম, যদিও এসব সাম্প্রতিক সময়ে কমছে। (২০১০-এ ৩১%[১])।

স্বাস্থ্য পরিকাঠামো[সম্পাদনা]

বাংলাদেশের প্রতিটি বাসিন্দার ন্যায়সঙ্গত স্বাস্থ্যসেবা নিশ্চিত করার লক্ষ্যে, বাংলাদেশের প্রশাসনিক ওয়েবের বিস্তৃত নেটওয়ার্ক প্রতিষ্ঠা করা হয়েছে। এটি কর্মপন্থা তৈরির সংস্থাগুলি থেকে স্বাস্থ্যসেবা সুবিধাগুলি থেকে সম্প্রদায়ের স্তর পর্যন্ত সারা দেশ জুড়ে বিস্তৃত স্বাস্থ্যসেবা নেটওয়ার্ক। স্বাস্থ্যসেবা কেন্দ্রের অবকাঠামো তিন স্তরে ভাগ করা যায়: মেডিক্যাল ইউনিভার্সিটি, মেডিকেল কলেজ হাসপাতাল, বিশেষায়িত হাসপাতাল তৃতীয় স্তরে রয়েছে। জেলা হাসপাতাল, মা ও শিশু কল্যাণ কেন্দ্র মাধ্যমিক স্তর হিসেবে বিবেচিত। উপজেলা (সাব জেলা) স্বাস্থ্য কমপ্লেক্স, ইউনিয়ন স্বাস্থ্য ও পরিবার কল্যাণ কেন্দ্র, কমিউনিটি ক্লিনিক (সর্বনিম্ন স্তর স্বাস্থ্য সুবিধা) হচ্ছে প্রাথমিক স্তরের স্বাস্থ্য প্রদানকারী। বিভিন্ন এনজিও (বেসরকারি সংগঠন) ও বেসরকারি প্রতিষ্ঠানও এই জটিল স্বাস্থ্য নেটওয়ার্কে অবদান রাখে।[২][৩]

২০১৭-১৮ বাংলাদেশ সংসদীয় বাজেটে কেবল স্বাস্থ্যখাতে বাজেট নির্ধারন করা হয়েছে ১৬ হাজার ২০৩ কোটি ৩৬ লাখ টাকা।[৪]

২০১১ সালে বিশ্বব্যাংকের একটি ডাটা অনুযায়ী বাংলাদেশে প্রতি ৩০০০ জনের জন্য একটি হাসপাতাল বেড রয়েছে।[৫] স্বাস্থ্যসেবার উপর ২০০৯-এ সরকারের সাধারন ব্যয় ছিল মোট ৭.৯%, জনগন তাদের স্বাস্থ্যসেবায় নিজেদের থেকে খরচ করেছে ৯৬.৫%।[৬] চিকিৎসক অনুপাত জনসংখ্যা – ১:২,০০০[৭] নার্স অনুপাত জনসংখ্যা – ১:৫,০০০[৭]

হাসপাতালসমূহ[সম্পাদনা]

মেডিকেল স্কুল[সম্পাদনা]

স্বাস্থ্য অবস্থা[সম্পাদনা]

জনসংখ্যার উপাত্ত[সম্পাদনা]

  • জনসংখ্যা - ১৫৭.৯ মিলিয়ন[৮]
  • গ্রামীন জনসংখ্যা – ৭৭%
  • জনসংখ্যা ঘনত্ব – (জনসংখ্যা/কিমি২) ১,০৭০/কিমি২
  • দারিদ্র সীমার নিচে মানুষ – ৬০%
  • জনসংখ্যা দ্বিগুণ হার – ২৫–৩০ বছর
  • জিডিপি (বর্তমান মার্কিন ডলার$) (বিলিয়ন) – ২২১.৪২[৯]

স্বাস্থ্য সূচক[সম্পাদনা]

[১০]

  • সিডিআর – ৫.৩৫ / ১০০০
  • মাতৃমৃত্যুর হার অনুপাত – ১৭৬ /১০০০০০
  • আইএমআর – ৩১ /১০০০ জীবন্ত বাচ্চা প্রসব
  • ৫ এমআর এর নিচে – ৩৮ /১০০০ জীবন্ত বাচ্চা প্রসব
  • মোট উর্বরতার হার – ২.১
  • জন্মের সময় আয়ু – ৭১ (এম) এবং ৭৩ (এফ)
  • সম্পূর্নভাবে টিকা শিশু – ৫২%

বাংলাদেশে স্বাস্থ্য সমস্যা[সম্পাদনা]

জনসংখ্যার বিশাল সংখ্যার কারণে বাংলাদেশ দ্বিগুণ রোগের মুখোমুখি হয়: অসংক্রামক রোগ: ডায়াবেটিস, হৃদরোগ, উচ্চ রক্তচাপ, স্ট্রোক, দীর্শ্বাঘমেয়াদী শ্বসনতন্ত্রের রোগ, ক্যান্সার এবং সংক্রামক রোগ: যক্ষ্মা, এইচআইভি, ধনুষ্টংকার, ম্যালেরিয়া, হাম, রুবেলা, কুষ্ঠব্যাধি এবং ইত্যাদি।[১১]

বাংলাদেশে স্বাস্থ্য সমস্যার মধ্যে রয়েছে সংক্রামক এবং অ-সংক্রামক রোগ, অপুষ্টি, পরিবেশগত স্যানিটেশন সমস্যা এবং অন্যান্য।

সংক্রামক রোগ[সম্পাদনা]

ঐতিহাসিক দৃষ্টিভঙ্গি থেকে জানা যায় যে, উন্নয়নশীল এবং ক্রান্তীয় দেশগুলো যেমন বাংলাদেশের মধ্যে সংক্রামক ব্যাধিগুলি ব্যাপকভাবে প্রচুর সংখ্যক রোগ সৃষ্ট করেছে। ক্যান্সার এবং সংক্রামক রোগ: যক্ষ্মা, এইচআইভি, ধনুষ্টংকার, ম্যালেরিয়া, হাম, রুবেলা, কুষ্ঠব্যাধি এবং ইত্যাদি। সহস্রাব্দ উন্নয়ন লক্ষ্যমাত্রা এর মাধ্যমে ২০১৫-এ, যেখানে সংক্রামক রোগ লক্ষ্য করা যায়, বাংলাদেশে সংক্রামক ব্যাধিগুলির উপর প্রায় নিয়ন্ত্রণ অর্জিত হয়েছে।[১১] ৯টি প্রধান রোগের বিরুদ্ধে (টিবি, ধনুষ্টংকার, ডিপথিরিয়া, হুপিং কাশি, পোলিও, হেপাটাইটিস বি, হিমোফিলাস ইনফ্লুয়েঞ্জা টাইপ বি, হাম, রুবেলা) একটি বর্ধিত টিকাদান কর্মসূচি বাস্তবায়ন করা হয়েছিল।

অসংক্রামক রোগ[সম্পাদনা]

তবে, সাম্প্রতিক পরিসংখ্যানটি দেখায় যে মহামারীগত সংক্রমণের কারণে অ-সংক্রামক রোগের বোঝা মোট রোগের শতকরা ৬১ ভাগ বৃদ্ধি পেয়েছে। ন্যাশনাল এনসিডি রিস্ক ফ্যাক্টর সার্ভে অনুযায়ী ২০১০ সালে জরিপের জনসংখ্যার ৯৯% জন অন্তত এক এনসিডি ঝুঁকির কারন এবং ~ ২৯% দেখান> ৩ ঝুঁকির কারণ। সামাজিক পরিবর্তন, দ্রুত নগরায়ণ এবং অস্বাস্থ্যকর খাদ্যের অভ্যাস বাংলাদেশে অসংক্রামক রোগের উচ্চ প্রবৃদ্ধির পিছনের প্রধান কারণ বিশেষত গ্রামীণ জনসাধারণ ও শহুরে বস্তিবাসীর মাঝে।[১১][১১][১২][১৩].

ডায়াবেটিস[সম্পাদনা]

ডায়াবেটিস হচ্ছে বিশ্ব নেতাদের দ্বারা চিহ্নিত চারটি অগ্রাধিকারপ্রাপ্ত অ-সংক্রামক রোগগুলির মধ্যে একটি যা বিশ্বব্যাপী একটি প্রধান স্বাস্থ্য সমস্যা হয়ে উঠেছে(২০১৫-এ ৪১৫ মিলিয়ন প্রাপ্তবয়স্ক ডায়াবেটিসে আক্রান্ত এবং ২০৪০ সাল নাগাদ এ সংখ্যা ৬৪২ মিলিয়নে পৌছাবে)। ডায়াবেটিসে আক্রান্ত প্রাপ্তবয়স্কদের মধ্যে প্রায় দুই তৃতীয়াংশ (৭৫%) নিম্ন এবং মধ্যম আয়ের দেশে রয়েছে জনসংখ্যার পরিবর্তন, সাংস্কৃতিক পরিবর্তন এবং জনসংখ্যা বৃদ্ধির কারণে । দক্ষিণ এশীয় দেশগুলিতে রোগের ঝুঁকির প্রধানতম ঝুঁকির মধ্যে ডায়াবেটিস সপ্তম অবস্থানে রয়েছে। উল্লেখ্য, বিশ্বের সবচেয়ে বেশি ডায়াবেটিসে আক্রান্ত প্রাপ্তবয়স্কদের মধ্যে বাংলাদেশ শীর্ষ দশে অবস্থান (৭.১ মিলিয়ন) করছে। পূর্ববর্তী গবেষণায় দেখানো হয়েছে যে ডায়াবেটিসের বিস্তার বাংলাদেশের গ্রামীণ জনসংখ্যার ক্ষেত্রে উল্লেখযোগ্যভাবে বৃদ্ধি পেয়েছে। এটাও দেখা যায় যে, গ্রামাঞ্চলে এবং শহুরে এলাকায় পুরুষের তুলনায় মহিলাদের ডায়াবেটিসের উচ্চ প্রসার রয়েছে। আমাদের দেশে নারীদের মধ্যে ডায়াবেটিসের উচ্চতর প্রসারের পিছনে স্ব-যত্নের অভাব, অস্বাস্থ্যকর খাবারের অভ্যাস, এবং স্বল্প কর্মসংস্থানের হার উল্লেখযোগ্য কারণ। তবে, ইউরোপীয় ও আমেরিকানদের তুলনায়, বাংলাদেশে ডায়াবেটিসের ধরন পার্থক্য দেখায় যেমন সূত্রপাত ছোট বয়সে এবং প্রধান ডায়াবেটিক জনসংখ্যা অ স্থূলকায় হয়। এই ধরনের ক্লিনিক্যাল পার্থক্য, সীমিত স্বাস্থ্যসেবা, আয়ু বৃদ্ধি, চলমান নগরায়ন ও জনগোষ্ঠীর মধ্যে দরিদ্র সচেতনতা বাংলাদেশে ডায়াবেটিসের বিস্তার এবং ঝুঁকি বৃদ্ধি করে।[১৪][১৫][১৬][১৭][১৮][১৯][২০][২১][২২][২৩] .

ডায়াবেটিস সম্পর্কিত চোখের রোগ ( ডায়াবেটিক রেটিনা ক্ষয়)[সম্পাদনা]

বাংলাদেশে ডায়াবেটিসে আক্রান্ত ব্যাক্তিদের মোট এক তৃতীয়াংশ (প্রায় ১.৮৫ মিলিয়ন) ডায়াবেটিক রেটিনা ক্ষয়ের স্বীকার। এই সাম্প্রতিক অনুমান পশ্চিমা দেশগুলির মত উচ্চতর এবং সিঙ্গাপুরে বসবাসকারী এশীয় মালয়ের অনুরূপ। তীব্র অর্থনৈতিক পরিবর্তন, নগরায়ন, প্রযুক্তি ভিত্তিক আধুনিক জীবন শৈলী, কঠোর ডায়াবেটিস নিয়ন্ত্রণ নির্দেশিকা এবং স্বাস্থ্য যত্ন পেতে অনিচ্ছা বাংলাদেশে ডায়াবেটিক রেটিনোপ্যাথির ঝুঁকির কারণ বলে মনে করা হয়। দুর্ভাগ্যবশত এই উঠতি স্বাস্থ্য সমস্যা সাধনে, ডায়াবেটিক রেটিনোপ্যাথি নির্ণয় এবং চিকিৎসা করাতে দেশের বর্তমান ক্ষমতা কয়েকটি কেন্দ্রে খুব সীমিত। এই বছর পর্যন্ত (২০১৬), ন্যাশনাল আই কেয়ারের রেকর্ড হিসাবে HPNSDP (স্বাস্থ্য জনসংখ্যা পুষ্টি ক্ষেত্র্র উন্নয়ন কর্মসূচী) এর অধীনে, ডায়াবেটিক রিটিনোপ্যাথের ১০,০০০ জন রোগী মাধ্যমিক ও তৃণমূলের হাসপাতাল থেকে সেবা পেয়েছে যেখানে স্ক্রীনিং প্রোগ্রাম স্থাপন করা হয়েছে। [২৪][২৫][২৬]

পরিবেশগত স্যানিটেশন[সম্পাদনা]

এই দেশের মোকাবেলা করা সবচেয়ে কঠিন সমস্যা সম্ভবত পরিবেশগত স্যানিটেশন সমস্যা যা বহুমুখী এবং বহু-কার্যকরী। পরিবেশগত স্যানিটেশন এর যমজ সমস্যা হচ্ছে দেশের অনেক অঞ্চলে নিরাপদ পানীয় জলের অভাব এবং মল নিষ্পত্তি এর প্রতিষেধক পদ্ধতি।

  • নির্বিচারে মলত্যাগের ফলে দূষিত এবং জলবাহিত রোগ যেমন ডায়রিয়া, আমাশয়, অন্ত্রজ্বর, যকৃতের প্রদাহ, হুক কৃমি এর উপদ্রব ঘটে।
  • গ্রামীণ বাড়ি-ঘরে যথোপযুক্ত বায়ুচলাচল, আলো ইত্যাদির জন্য ব্যবস্থা থাকে নাহ।
  • জনসাধারণের খাদ্য এবং বাজারের স্থানগুলির দুর্বল স্যানিটেশন।
  • অপর্যাপ্ত নিষ্কাশন, অস্বীকার এবং পশু বর্জ্য নিষ্পত্তি।
  • পর্যাপ্ত এমসিএইচ যত্ন সেবার অনুপস্থিতি
  • গ্রামাঞ্চলে পর্যাপ্ত স্বাস্থ্যসেবা শিক্ষার অভাব
  • জনস্বাস্থ্যের কর্মীদের অভাব এবং/অথবা অপর্যাপ্ত যোগাযোগ এবং পরিবহন সুবিধা

অপুষ্টি[সম্পাদনা]

বাংলাদেশের বেশিরভাগ গুরুতর অপুষ্টি সমস্যাগুলির মধ্যে রয়েছে। বর্তমান প্রতি মাথাপিছু খাদ্য গ্রহনের হার ১৮৫০ কিলো ক্যালরি যা কোনও মান দ্বারা হয়। দারিদ্র্যের অভিসৃতি, অসম খাবার বিতরণ, রোগ, নিরক্ষরতা, দ্রুত জনসংখ্যা বৃদ্ধি এবং পরিবেশগত ঝুঁকি, সাংস্কৃতিক এবং সামাজিক অবিচার দ্বারা আবদ্ধতার ফলে অপুষ্টি ঘটে থাকে। এটি ঘটে থাকে মূলত ভূমিহীন কৃষক শ্রমিকের পরিবার এবং ক্ষুদ্র অংশীদার কৃষকদের মধ্যে।

দেশে নির্দিষ্ট পুষ্টির সমস্যাগুলি হল—

  1. প্রোটিন-শক্তি অপুষ্টি (PEM): এর প্রধান কারণ অপর্যাপ্ত খাদ্য গ্রহণ।
  2. পুষ্টিগত রক্তাল্পতা: সবচেয়ে সচরাচর কারন হল লোহার অভাবজনিত রক্তাল্পতা, কম ঘন ঘন প্রতিক্রিয়া এবং ভিটামিন বি১২ এর অভাব।
  3. জেরপথালমিয়া: প্রধান কারন ভিটামিন এ এর অভাব।
  4. আয়োডিনের অভাব: গলগণ্ড এবং অন্যান্য আয়োডিনের অভাবজনিত রোগ।
  5. অন্যান্য: ল্যাথিরিজম, ফ্লোরাইড ইত্যাদি।

শিশু অপুষ্টির ক্ষেত্রে বাংলাদেশ বিশ্বের সর্বোচ্চ পর্যায়ে থাকা দেশগুলোর মধ্য অন্যতম। পাঁচ বছরের নিচের শিশুদের দুই-তৃতীয়াংশ অপুষ্টিতে ভুগে এবং ৬ বছরের নিচে ৬০% শিশু শারীরিক বিকাশে বাধাগ্রস্ত হয়।[২৭] ১৯৮৫-এর হিসাবে, গ্রামীণ এলাকার ৪৫ শতাংশ এবং শহুরে এলাকার ৭৬ শতাংশ পরিবার নির্দিষ্ট ক্যালরি গ্রহনের মাত্রা থেকে আরো কম হারে ক্যালরি গ্রহন করেছে।[২৮] অপুষ্টি প্রজন্মের মাধ্যমে হস্তান্তর হয় যেমন অপুষ্টি-আক্রান্ত মা অপুষ্টি-আক্রান্ত শিশুর জন্ম দেয়। বাংলাদেশের এক-তৃতীয়াংশ শিশু নিম্ন জন্ম ওজন নিয়ে জন্মগ্রহন করে, শিশুমৃত্যুর হার বৃদ্ধি পাচ্ছে, এবং সাবালকত্ব থেকেই ডায়াবেটিস ও হৃদরোগের ঝুঁকি বাড়ছে।[২৯] বাংলাদেশে প্রত্যেক তিন থেকে চার মিনিটে একটি নবজাতক মারা যায়; ১২০০০০ নবজাতক প্রত্যেক বছর মৃত্যুবরন করে।[৩০]

বিশ্ব ব্যাংক ধারনা করেছে অপুষ্টিতে ভোগা শিশুর দিক থেকে বাংলাদেশের স্থান প্রথম।[৩০][৩১] বাংলাদেশের জনসংখ্যার ২৬% মানুষ অপুষ্টিতে ভুগছে[৩২] এবং ৪৬% শিশু কম ওজনের সমস্যায় ভুগে।[৩৩] পাঁচজনের একজন শিশুর ভিটামিন এ এর অভাব এবং দুইজনের রক্তস্বল্পতা।[৩৪] মহিলারা সবচেয়ে বেশি অপুষ্টিতে ভোগে। তাদের পরিবারকে খাদ্য প্রদান করতে তারা নিজেদের এড়িয়ে যায় কিন্তু যা তাদের জন্য খুবই জরুলী।[৩৫]

অপুষ্টির কারন[সম্পাদনা]

বাংলাদেশের বেশিরভাগ ভূখন্ড নিচু ও বন্যা প্রবণ অঞ্চল। দেশের জনসংখ্যার অধিকাংশই এমন অঞ্চলে বাস করে যেখানে চরম বার্ষিক বন্যায় বিপুল পরিমান ফসলের নষ্ট হওয়ার ঝুঁকি রয়েছে।[৩৬] প্রতি বছর, দেশের ২০% থেকে ৩০% অঞ্চল প্লাবিত হয়।[৩৭] বন্যা খাদ্য নিরাপত্তার জন্য ঝুঁকি এবং এর প্রভাবে কৃষি উৎপাদনে ঘাটতি দেখা দেয়।[৩৮]

স্বাস্থ্য ও স্যানিটেশন পরিবেশ অপুষ্টিতে প্রভাব ফেলে। পানি সরবরাহের অপর্যাপ্ততা, সংক্রামক রোগের উপর স্বাস্থ্য ও স্যানিটেশনের সরাসরি প্রভাব রয়েছে, যেমন ম্যালেরিয়া, পরজীবী রোগ, এবং schistosomiasis। মানুষ উভয় পানির অভাব এবং নিম্ন গুণমান পানীয় জলের সমস্যায় ভুগে। ভূ-গর্ভস্থ জলে প্রায়ই আর্সেনিকের ঘনত্ব পাওয়া যায়।[৩৯] ১৯৯৫-এ গ্রামীণ অঞ্চলে স্যানিটেশন ব্যবস্থা ছিল কেবল ৩৫%।[৪০]

খুবই দরিদ্র পরিবারগুলোর সদস্যদের মধ্যে প্রায়ই তিন জনের একজন খোলা জায়গায় মলত্যাগ করে। গ্রামীণ অঞ্চলের কেবল ৩২% ল্যাট্রিনেরই আর্ন্তজাতিক মান রয়েছে কেবল একটি সঠিক ল্যাট্রিন বিবেচিত হওয়ার। মানুষ দৈনিক পরিবেশগত সমস্যায় ভোগে।[৪১] প্রতিরোধ ব্যবস্থা ব্যর্থ এবং রোগ-বালাই পুষ্টির যথেষ্ট ক্ষতি সাধন করে, যা অপুষ্টিকে আরো অবনতির দিকে নিয়ে যায়।[৪২] এসব রোগ ক্ষুধা কমিয়ে ফেলে, ভিটামিন ও পুষ্টির শোষন করে, ডায়রিয়া ও বমির কারনে পুষ্টি আরো হ্রাস পায়।[৪৩] বেকারত্ব ও কাজের সমস্যা বাংলাদেশে অপুষ্টির ক্ষেত্রে আরো ভূমিকা রাখে। ২০১০-এ বেকারত্বের হার ছিল ৫.১%।[৪৪] মানুষের সারা বছর ধরে কাজ করার সুযোগ থাকে নাহ।[৪৫]

বাংলাদেশে অপুষ্টির প্রভাব[সম্পাদনা]

স্বাস্থ্য প্রভাব[সম্পাদনা]

অপুষ্টিতে আক্রান্ত মা যে শিশুর জন্ম দেয় তার বেড়ে ওঠতে ও স্বাস্থ্যবান কিশোরে রুপান্তর হতে বিভিন্ন সমস্যায় পড়তে হয়। তাদের বিভিন্ন স্বাস্থ্য সমস্যা যেমন: নাশক, শারীরিক বিকাশে সমস্যা, কম ওজন, রক্তশূন্যতা, রাতকানা এবং আয়োডিনের অভাবজনিত রোগে ভুগতে হয়।[৩১] ফলস্বরুপ, বাংলাদেশে রয়েছে উচ্চ শিশু মৃত্যুর হার এবং ৫ বছরের নিচের শিশু মৃত্যু হারের তালিকায় বাংলাদেশের স্থান ৫৭তম।[৪৬]

অর্থনৈতিক প্রভাব[সম্পাদনা]

বাংলাদেশের জনসংখ্যার ৪০% শিশু,[৪৭] শিশুদের মধ্যে অপুষ্টি ও এর স্বাস্থ্য প্রভাব সম্ভাব্যভাবে শিক্ষাগত ফলাগমের হার কমিয়ে দিতে পারে। বাংলাদেশে কেবল ৫০% শিশু মাধ্যমিক বিদ্যালয়ে শিক্ষা গ্রহন করতে পারে।[৪৬] এটির ফলাফল হতে পারে একটি কম-দক্ষ এবং নিম্ন উৎপাদনশীল কর্মী বাহিনী যা অর্থনৈতিক প্রবৃদ্ধির হারকে প্রভাবিত করতে পারে।[৪৬]

অপুষ্টি ঠেকাতে পদক্ষেপ[সম্পাদনা]

বাংলাদেশে অনেক প্রোগ্রাম এবং প্রচেষ্টা অপুষ্টি সমস্যা সমাধানের জন্য প্রয়োগ করা হয়েছে। ইউনিসেফ সরকারের সাথে এক হয়ে এবং আরো অনেক এনজিও যেমন হেলেন কেলার ইন্টারন্যাশনাল, শিশু থেকে গর্ভধারিণী মায়ের জীবন-চক্রে পুষ্টির সরবরাহ নিশ্চিত করতে দৃষ্টিপাত করেছে।[৩১] এই হস্তক্ষেপের ফলাফল উল্লেখযোগ্য। রাতকানা রোগ কমেছে ৩.৭৬% থেকে ০.০৪% এ এবং স্কুল-বয়সী শিশুদের আয়োডিনের অভাব কমেছে ৪২.৫% থেকে ৩৩.৮% এ।[৩১]

মা এবং শিশু স্বাস্থ্য[সম্পাদনা]

আট জনের মধ্যে একজন গর্ভবতী নারী ডাক্তারি প্রশিক্ষণ প্রাপ্ত ব্যক্তির নিকট প্রসবকালীন সেবা গ্রহন করেন এবং এবং মোট গর্ভবতী মায়ের অর্ধেকেরও কম গর্ভকালীন স্বাস্থ্যসেবা গ্রহণ করেন। স্বাস্থ্য সেবায় সকলের প্রবেশাধিকার নিশ্চিত করার কারনে বর্তমানে মাতৃ যত্নে বৈষম্যতা কমেছে।[৪৮] ২০১০-এ বাংলাদেশে মাতৃমৃত্যুর হার ছিল প্রতি ১০০,০০০ শিশু জন্মে ৩৪০জন।[৪৯] এটি তুলনা করা হয় ২০০৮-এ ৩৩৮.৩জন এবং ১৯৯০-এ ৭২৪.৪জন।[তথ্যসূত্র প্রয়োজন] . বাংলাদেশে প্রতি ১,০০০ জীবন্ত বাচ্চা প্রসবে ৮জন ধাত্রী থাকে এবং গর্ভবতী মহিলাদের ক্ষেত্রে মৃত্যুর ঝুঁকি থাকে প্রতি ১১০জন এ ১জনের।[৪৯]

তথ্যসূত্র[সম্পাদনা]

  1. Shah, Jahangir (১৮ এপ্রিল ২০১১)। দারিদ্র্য কমেছে, আয় বেড়েছে [Reduced poverty, increased income]। Prothom Alo। ২০ এপ্রিল ২০১১ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ১৮ এপ্রিল ২০১১ 
  2. "Health Bulletin 2015"। Management Information System, Directorate General of Health Services, Mohakhali, Dhaka 1212, Bangladesh.। ডিসেম্বর ২০১৫। 
  3. Nargis, M। "Scaling-up Innovations, Community Clinic in Bangladesh."। Additional Secretary & Project Director, Revitalization of Community Health Care Initiatives in Bangladesh (RCHCIB), MoHFW.। 
  4. "বরাদ্দ বেড়েছে স্বাস্থ্য খাতে"যুগান্তর। সংগ্রহের তারিখ 01 February 2018  এখানে তারিখের মান পরীক্ষা করুন: |সংগ্রহের-তারিখ= (সাহায্য)
  5. "মধ্যম আয়ের দেশের স্বাস্থ্য ব্যবস্থার অর্থনীতি"বণিক বার্তা। সংগ্রহের তারিখ 01 February 2018  এখানে তারিখের মান পরীক্ষা করুন: |সংগ্রহের-তারিখ= (সাহায্য)
  6. "Global Health Observatory Data Repository"WHO। সংগ্রহের তারিখ ১৪ ফেব্রুয়ারি ২০১২ 
  7. Syed Masud Ahmed; Md Awlad Hossain; Ahmed Mushtaque Raja Chowdhury & Abbas Uddin Bhuiya (২০১১), "The health workforce crisis in Bangladesh: shortage, inappropriate skill-mix and inequitable distribution", Human Resources for Health, 9 (3), doi:10.1186/1478-4491-9-3 
  8. National Institute of Population Research and Training Ministry of Health and Family Welfare Dhaka, Bangladesh। "BANGLADESH DEMOGRAPHIC AND HEALTH SURVEY 2014" (PDF)dhsprogram.com। সংগ্রহের তারিখ ৯ সেপ্টেম্বর ২০১৭ 
  9. "Country Profile"World Bank। সংগ্রহের তারিখ ৯ সেপ্টেম্বর ২০১৭ 
  10. "Indicators"World Bank। সংগ্রহের তারিখ ৯ সেপ্টেম্বর ২০১৭ 
  11. Hossain, Shah Monir। Non-Communicable Diseases (NCDs) in Bangladesh, An overview। Former Director General of Health Services Ministry of Health and Family Welfare Senior Consultant, PPC, MOHFW Senior Advisor, Eminence। সংগ্রহের তারিখ ৯ সেপ্টেম্বর ২০১৭ 
  12. "21. Non-communicable Diseases (NCDs) in Bangladesh."। icddr,b. Evidence to Policy Series Brief No.2.। মে ২০১০। 
  13. Omran, AR (৯ নভেম্বর ২০০৫)। ". The Epidemiologic Transition: A Theory of the Epidemiology of Population Change"। The Milbank Quarterly.। 83(4):: 731-757। doi:10.1111/j.1468-0009.2005.00398.x 
  14. 13. Global report on diabetes, 1. Diabetes Mellitus – epidemiology. 2. Diabetes Mellitus – prevention and control. 3. Diabetes, Gestational. 4. Chronic Disease. 5. Public Health. I.। World Health Organization.। আইএসবিএন 978 92 4 156525 7 
  15. IDF Diabetes Atlas,। Brussels,: International Diabetes Federation। 
  16. Hussain, A। "Type 2 diabetes and impaired fasting blood glucose in rural Bangladesh: a population based study"। European Journal of Public Health। 17(3): 291–6। doi:10.1093/eurpub/ckl235 
  17. Rahim, AM (জুন ২০০২)। "Diabetes in Bangladesh: Prevalence and determinant [Thesis]. Master of Philosophy in International Community Health."। 
  18. Lim, SS (ডিসেম্বর ২০১২)। "A comparative risk assessment of burden of disease and injury attributable to 67 risk factors and risk factor clusters in 21 regions, 1990-2010: a systematic analysis for the Global Burden of Disease Study 2010"। Lancet: 380(9859):2224–60। doi:10.1016/S0140-6736(12)61766-8 
  19. Rahim, MA (আগস্ট ২০০৭)। "Rising prevalence of type 2 diabetes in rural Bangladesh: A population based study"। Diabetes Res Clin Pract। 77(2): 300–5। 
  20. Hussain, A (জুলাই ২০০৫)। "Type 2 diabetes in rural and urban population: diverse prevalence and associated risk factors in Bangladesh"। Diabet Med.: 22(7):931-6। 
  21. Sayeed, MA (২০০৩)। "Diabetes and impaired fasting glycemia in a rural population of Bangladesh"। Diabetes Care: 26: 1034-9। 
  22. Sayeed, MA (১৯৯৭)। "Effect of socioeconomic risk factors on the difference in prevalence of diabetes between rural and urban population of Bangladesh"। Diabetes Care। 20: 551-5.। 
  23. Sayeed, MA (১৯৯৭)। "Prevalence of diabetes in a suburban population of Bangladesh"। Diabetes Res Clin Pract। 34: 149-55। 
  24. Nag, KD (অক্টোবর–ডিসেম্বর ২০১৫)। "Diabetic retinopathy at presentation to screening service in Bangladesh"। Bangladesh Ophthalmic Journal। 01(04): 26-29। 
  25. Wong, TY (মার্চ ২০০৬)। "Diabetic retinopathy in a multi-ethnic cohort in the United States."। American Journal of Ophthalmology। 141(3): 446–455। 
  26. Wong, TY (নভেম্বর ২০০৮)। "Prevalence and risk factors for diabetic retinopathy: the Singapore Malay Eye Study."। Ophthalmology। 115(11): 1869–75। 
  27. "Bangladesh Healthcare Crisis"BBC News। ২৮ ফেব্রুয়ারি ২০০০। সংগ্রহের তারিখ ১৪ ফেব্রুয়ারি ২০১২ 
  28. Heitzman, James; Worden, Robert, সম্পাদকগণ (১৯৮৯)। "Health"Bangladesh: A Country Study। Washington, D.C.: Federal Research Division, Library of Congress। পৃষ্ঠা 90। 
  29. "Fighting Malnutrition in Bangladesh"World Bank in Bangladesh। ১ ডিসেম্বর ২০০৮ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ১৪ ফেব্রুয়ারি ২০১২ 
  30. "Children and women suffer severe malnutrition"IRIN। ১৯ নভেম্বর ২০০৮। সংগ্রহের তারিখ ১৪ ফেব্রুয়ারি ২০১২ 
  31. "Child and Maternal Nutrition in Bangladesh" (PDF)UNICEF 
  32. "The state of food insecurity in the food 2011" (PDF)FAO 
  33. "The State of the World's Children 2011" (PDF)UNICEF 
  34. "High Malnutrition in Bangladesh prevents children from becoming "Tigers""Global Alliance for Improved Nutrition। ১৫ সেপ্টেম্বর ২০১৪ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। 
  35. Rizvi, Najma (২২ মার্চ ২০১৩)। "Enduring misery"D+C Development and Cooperation। Federal Ministry of Economic Cooperation and Development। 
  36. "Rural poverty in Bangladesh"Rural Poverty PortalInternational Fund for Agricultural Development 
  37. "Bangladesh: Priorities for Agriculture and Rural Development"World Bank। ১৮ মে ২০০৮ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। 
  38. "Poverty Profile People's Republic of Bangladesh Executive Summary" (PDF)Japan International Cooperation Agency। Japan Bank for International Cooperation। অক্টোবর ২০০৭। 
  39. "Bangladesh's Water Crisis"Water.org 
  40. "A participatory approach to sanitation: experience of Bangladeshi NGOs" (PDF) [স্থায়ীভাবে অকার্যকর সংযোগ]
  41. "Rural Sanitation, Hygiene and Water Supply" (PDF)UNICEF 
  42. "C. Nutrition and Infectious Disease Control"Supplement to SCN News No. 7 (Mid-1991)। United Nations। ১৭ আগস্ট ২০১১ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। 
  43. "Underlying Causes of Malnutrition"Mother and Child Nutrition। The Mother and Child Health and Education Trust। 
  44. "Unemployment Problem in Bangladesh"academia.edu [অনির্ভরযোগ্য উৎস?]
  45. "Nutrition Program" 
  46. "Bangladesh – Statistics"UNICEF 
  47. "Bangladesh, Effects of the Financial Crisis on Vulnerable Households" (PDF)WFP 
  48. Rahman, M. H.; Mosley, W. H.; Ahmed, S.; Akhter, H. H. (জানুয়ারি ২০০৮)। "Does Service Accessibility Reduce Socio-Economic Differentials in Maternity Care Seeking? Evidence From Rural Bangladesh"। Journal of Biosocial Science। Cambridge University Press। 40 (1): 19–33। doi:10.1017/S0021932007002258 
  49. "The State of the World's Midwifery" (PDF)United Nations Population Fund। ২০১১। সংগ্রহের তারিখ ২ আগস্ট ২০১৬ 

বহিঃসংযোগ[সম্পাদনা]