বাংলাদেশের ক্রান্তীয় ঘূর্ণিঝড়ের তালিকা

উইকিপিডিয়া, মুক্ত বিশ্বকোষ থেকে
সরাসরি যাও: পরিভ্রমণ, অনুসন্ধান

বাংলাদেশ, তার ব্যতিক্রমী ভৌগোলিক অবস্থানের কারণে বারংবার ক্রান্তীয় বিধ্বংসী ঘূর্ণিঝড়ের প্রকোপে পড়ছে। বঙ্গোপসাগরের উত্তর দিকের ফানেল আকৃতির ফলস্রুতিতে যখনই ঘূর্ণিঝড় রূপ নেয় জলোচ্ছ্বাস ও ভুমিধসের কারন হয়ে দাড়ায় যার ভুক্তভুগি হয় তীরভূমিতে অবস্থানকারী হাজার হাজার মানুষ। বাংলাদেশের উপর আঘাতহানা কিছু ক্রান্তীয় ঘূর্ণিঝড়, বিশ্ব-ইতিহাসে বিধ্বংসী প্রাকৃতিক বিপর্যয়ের (উচ্চ হতাহতের দিক থেকে) পরিসংখ্যানে অন্তর্ভুক্ত। এরমধ্যে শুধু ১৯৭০ ভোলা ঘূর্ণিঝড় এককভাবে ৩-৫ লক্ষ জীবনহানির দাবীদার।

ঝড়ের প্রস্তুতি[সম্পাদনা]

বাংলাদেশের নিজস্ব কোনো উপগ্রহ নেই। অন্যদের উপগ্রহের তথ্য সহায়তায় বেতবুনিয়া, তালিবাবাদ ও মহাখালী এর ভূ উপগ্রহ কেন্দ্রের কার্যক্রম চলে। নাসানোয়া এর উপগ্রহ থেকে প্রাপ্ত উপাত্তের ভিত্তিতে প্রতিরক্ষা মন্ত্রণালয় নিয়ন্ত্রিত সরকারী প্রতিষ্ঠান বাংলাদেশ স্পেস রিসার্চ এন্ড রিমোট সেন্সিং অর্গানাইজেশন (স্পারসো) [১][২] ঝড়ের পূর্বাভাস ও আগাম সতর্কতা সংকেত জানায়। সতর্ক সংকেত মুলত ১০ মাত্রার স্কেল এ নির্ধারণ করে, ১০ দ্বারা প্রবল ও সাঙ্ঘাতিক ঝড় বোঝান হয়।

১৯৯১ সালের ঘূর্ণিঝড় থেকে ঝড় প্রতিরোধের ও প্রস্তুতির জন্য একটি বিস্তারিত কর্মসূচির রূপরেখা সরকারের পক্ষথেকে নেওয়া হয়। দুর্যোগ ও ত্রান মন্ত্রণালয় এবং রেডক্রিসেন্ট সোসাইটির যৌথ পরিকল্পনা ও পরিচালনায় একটি সর্বাঙ্গীণ সাইক্লোন প্রিপেয়ার্ড প্রোগ্রাম (সিপিপি) বাস্তবায়ন করে যেখানে প্রশিক্ষিত ৩২ হাজার স্বেচ্ছাসেবক উপকূলবর্তী এলাকা থেকে দ্রুত সতর্ক ও খালি নিশ্চিত করতে সহায়তা করে।[৩] উপকূলবর্তী এলাকায় প্রায় ২৫০০ ঘূর্ণিঝড় আশ্রয়কেন্দ্র নির্মাণ করা হয়েছে। আশ্রয়কেন্দ্রগুলি উঁচু স্থাপনার উপরে স্থাপিত এবং এগুলি স্বাভাবিক আবহাওয়ায় বিদ্যালয় অথবা কমিউনিটি সেন্টার হিসাবে ব্যবহৃত হয়। পতেঙ্গা ও চট্রগ্রামের উপকূল ভারী কংক্রিটের বাঁধ দ্বারা বেষ্টিত এবং প্রাকৃতিক সবুজ বেষ্টনী করার জন্যে বিভিন্ন বৃক্ষরোপণ প্রকল্প গ্রহণ করা হয় উপকুলের স্থান সমূহে।

ঘূর্ণিঝড়ের ফলাফল উচ্চতাপ ও আর্দ্রতা যা ২৪ ঘণ্টা পর্যন্ত স্থায়ী হয়। ঘূর্ণিঝড়ের প্রধান আবহাওয়া অনুষঙ্গ নিন্মচাপ, এর বিধ্বংসী আঘাতে সহজাতভাবে বিদ্যুৎ ও পানি সংযোগ ভেঙ্গে পড়ে এবং উপদ্রুত এলাকায় আনুসাংগিক সাহায্যকারী উপাদান মজুত রাখার জন্যে সুপারিশকৃত।

ঘূর্ণিঝড়সমূহ[সম্পাদনা]

ঐতিহাসিক নথি[সম্পাদনা]

  • সুত্র: এসএমআরসি-নং-১ - উপকূলবর্তী সার্কভুক্ত দেশসমূহে ক্রান্তীয় ঘূর্ণিঝড়ের আঘাত এবং এলাকায় তার প্রভাব, সার্ক আবহাওয়া গবেষণা কেন্দ্র (এসএমআরসি), ১৯৯৮।
সিরিয়াল নং তারিখ/বছর সংকটের প্রকার প্রাসঙ্গিক তথ্য তথ্যসূত্র/ সূত্র তালিকা
১৫৮২ খৃষ্টাব্দ (দিন ও মাস অজানা) তীব্র ঘূর্ণিঝড় প্রবল হারিকেন বাতাসসহ উপকূল: ঘূর্ণিঝড়টি বাকেরগঞ্জ এর উপর দিয়ে অতিক্রম করে। (সরকার বালা).

ক্ষয়ক্ষতি: মানুষ মারাযায় - ২ লক্ষ

ঝড়ের আঘাতের ক্ষতির মাত্রা লিপিবদ্ধ হয়।

বাংলাপিডিয়া অনুসারে, পাঁচ ঘন্টা ব্যাপি হারিকেন ও বজ্রপাত বাকেরগঞ্জ (বর্তমান বরিশাল জেলা) এবং পটুয়াখালী এর উপকুলবর্তী বাড়িঘর এবং নৌকা ধ্বংসপ্রাপ্ত হয়[৩]

  • আইন-ই-আকবরি
  • রিয়াজ-উজ-সালাতিন
  • বাংলার জেলা গেজেটিয়ার, ২৪ পরগনা-এলএসএস অ'ম্যালে, আইসিএস, ১৯১৪, প্রকাশনা- দ্যা বেঙ্গল এসওসি শাখা।
১৫৮৫ (দিন ও মাস অজানা) অজানা ক্রান্তীয় ঘূর্ণিঝড় মেঘনা নদীর মোহনা মুখের বাকেরগঞ্জের (বর্তমান বরিশাল) পূর্বদিক আঘাত হানে, ফসলের ব্যপক ক্ষতি করে।

ক্ষয়ক্ষতি: অজানা

  • বাংলাপিডিয়া[৩]
১৬৯৯ (দিন ও মাস অজানা) তীব্র ঘূর্ণিঝড় উপকূল: ঘূর্ণিঝড় সুন্দরবন উপকূলের উপর দিয়ে বয়ে যায়।

ক্ষয়ক্ষতি: মানুষ নিহত হয়= ১ জন অপর বিস্তারিত তথ্য পাওয়া যায়নি।

  • দৈনিক ইত্তেফাক, ৫ মে ১৯৯১.
১৭৬০ (দিন ও মাস অজানা) তীব্র ঘূর্ণিঝড় উপকূল: ঘূর্ণিঝড় সুন্দরবন উপকূলের উপর দিয়ে বয়ে যায়।

ক্ষয়ক্ষতি: জানাযায়নি. সম্পূর্ণ এলাকাই প্রায় ধ্বংসপ্রাপ্ত হয়। অপর বিস্তারিত তথ্য পাওয়া যায়নি।

  • দৈনিক ইত্তেফাক, ৫ মে ১৯৯১.
১৭৬৫ (দিন ও মাস অজানা) তীব্র ঘূর্ণিঝড় উপকূল: ঘূর্ণিঝড় চট্টগ্রাম উপকূলের উপর দিয়ে বয়ে যায়।

ক্ষয়ক্ষতি: জানাযায়নি. সম্পূর্ণ এলাকাই প্রায় ধ্বংসপ্রাপ্ত হয়। অপর বিস্তারিত তথ্য পাওয়া যায়নি।

  • দৈনিক ইত্তেফাক, ৫ মে ১৯৯১.
১৭৬৭ (দিন ও মাস অজানা) তীব্র ঘূর্ণিঝড় উপকূল: ঘূর্ণিঝড় বাকেরগঞ্জ (বর্তমান বরিশাল) উপকূলের উপর দিয়ে বয়ে যায়।

ঢেউ এর উচ্চতা: ১৩.০৩  মিটার (৪৩ ফিট)

ক্ষয়ক্ষতি: মানুষ মারা যায়= ৩০,০০০। অপর বিস্তারিত তথ্য পাওয়া যায়নি।

  • দৈনিক ইত্তেফাক, ৫ মে ১৯৯১.
মে-জুন, ১৭৯৭ (সঠিক তারিখ জানা যায়নি) তীব্র ঘূর্ণিঝড় প্রবল হারিকেন বাতাসসহ উপকূল: ঘূর্ণিঝড় চট্টগ্রাম উপকূলের উপর দিয়ে বয়ে যায়।

ক্ষয়ক্ষতি: আক্রান্ত এলাকার প্রতিটি বাড়ি ধ্বংসপ্রাপ্ত হয়। চট্টগ্রাম বন্দরে দুইটা জাহাজ ডুবে যায়। অপর বিস্তারিত তথ্য পাওয়া যায়নি।

  • বাংলাদেশ আবহাওয়া অধিদপ্তর
  • বাংলাপিডিয়া[৩]
জুন ১৮২২ (সঠিক তারিখ জানা যায়নি) তীব্র ঘূর্ণিঝড় প্রবল হারিকেন বাতাসসহ উপকূল: ঘূর্ণিঝড় বাকেরগঞ্জ (বর্তমান বরিশাল) উপকূলের উপর দিয়ে বয়ে যায়, সারকার বালা।

ক্ষয়ক্ষতি: মানুষ মারা যায়:= ৫০,০০০

গবাদি পশু মারাযায় = ১০০,০০০।

ঝড়ের ধাক্কা পূর্বের সব পরিসংখ্যানের মাত্রাকে মুছে দিয়েছিল। অপর বিস্তারিত তথ্য পাওয়া যায়নি।

  • এশিয়াটিক জার্নাল এসওসি অব বেঙ্গল, ভলিউম. ৪৬, পার্ট II, পৃষ্টা ৩৩২- এইচ.এফ. ব্লান্ডফোর্ড।
  • বুইস্টস ১ম ক্যাটালগ ট্রান্স. বম্বে জিও. সো. ভলিউম. XII. পরিশিষ্ট এ।
  • সেলরস হর্ন বুক ফর দ্যা ল অব স্ট্রমস. পরিশিষ্ট এ. - হেনরি পিডিংটন.
২ জুন ১৮২৩ ঘূর্ণিঝড় উপকূল: ঘূর্ণিঝড় চট্টগ্রাম উপকূলের উপর দিয়ে বয়ে যায়।

অপর বিস্তারিত তথ্য পাওয়া যায়নি।

  • আন্তর্জাতিকভাবে উন্নয়নের স্বার্থে আমেরিকান পররাষ্ট্র দুর্যোগ সহায়তা সংস্থার জন্যে তৈরি ১৯৭৯ সালের ঘূর্ণিঝড়ের তালিকা, বঙ্গোপসাগরের প্রলয়ঙ্করী ঝড়সমূহ, ওয়াশিংটন ডিসি ২০৫২৩- এফ হ্যন্ডারসন।
১০ ৮ জুন ১৮২৪ প্রবল ঝড় (তীব্র ঘূর্ণিঝড়) উপকূল: ঘূর্ণিঝড় চট্টগ্রাম উপকূলের উপর দিয়ে বয়ে যায়।

অপর বিস্তারিত তথ্য পাওয়া যায়নি।

  • আন্তর্জাতিকভাবে উন্নয়নের স্বার্থে আমেরিকান পররাষ্ট্র দুর্যোগ সহায়তা সংস্থার জন্যে তৈরি ১৯৭৯ সালের ঘূর্ণিঝড়ের তালিকা, বঙ্গোপসাগরের প্রলয়ঙ্করী ঝড়সমূহ, ওয়াশিংটন ডিসি ২০৫২৩- এফ হ্যন্ডারসন।
১১ ৩১ অক্টোবর ১৮৩১ তীব্র ঘূর্ণিঝড় উপকূল: ঘূর্ণিঝড় বরিশাল উপকূলের উপর দিয়ে বয়ে যায় (বালেশ্বর-উড়িষ্যা উপকূল ঘেঁসে)

ঢেউ এর উচ্চতা: ২.১২-৪.৫৫ মিটার (৭-১৫ ফিট)

ক্ষয়ক্ষতি: মানুষ মারাযায় = ২২,০০০ (বাংলাদেশ ও ভারত উপকূল বরাবর) গবাদি পশু মারাযায় ৫০,০০০ থেকে বেশি।

অপর বিস্তারিত তথ্য পাওয়া যায়নি।

  • বাংলাদেশ আবহাওয়া অধিদপ্তর
  • বেঙ্গল ডিসট্রিক্ট গেঁজেটার (বালেশ্বর)- এল.এস.এস. ও'ম্যালি, আইসিএস
১২ ৩–৫ জুন ১৮৩৯ ঘূর্ণিঝড় উপকূল: বঙ্গোপসাগরের উপর দিয়ে বয়ে যায় (বাংলাদেশের কূল ঘেঁসে)

অপর বিস্তারিত তথ্য পাওয়া যায়নি।

  • আন্তর্জাতিকভাবে উন্নয়নের স্বার্থে আমেরিকান পররাষ্ট্র দুর্যোগ সহায়তা সংস্থার জন্যে তৈরি ১৯৭৯ সালের ঘূর্ণিঝড়ের তালিকা, বঙ্গোপসাগরের প্রলয়ঙ্করী ঝড়সমূহ, ওয়াশিংটন ডিসি ২০৫২৩- এফ হ্যন্ডারসন।
১৩ ১৯-২১ সেপ্টেম্বর ১৮৩৯ ঘূর্ণিঝড় উপকূল: ঝড়টি সুন্দরবন উপকূলের উত্তর পাস দিয়ে বয়ে যায়, কোলকাতা ও বরিশাল এর মাঝদিয়ে।

অপর বিস্তারিত তথ্য পাওয়া যায়নি।

  • আন্তর্জাতিকভাবে উন্নয়নের স্বার্থে আমেরিকান পররাষ্ট্র দুর্যোগ সহায়তা সংস্থার জন্যে তৈরি ১৯৭৯ সালের ঘূর্ণিঝড়ের তালিকা, বঙ্গোপসাগরের প্রলয়ঙ্করী ঝড়সমূহ, ওয়াশিংটন ডিসি ২০৫২৩- এফ হ্যন্ডারসন।
১৪ ১১ মে ১৮৪৪ ঘূর্ণিঝড় (ঝড়ো বাতাস) উপকূল: নোয়াখালীচট্টগ্রাম উপকূল দিয়ে অতিক্রম করে।

অপর বিস্তারিত তথ্য পাওয়া যায়নি।

  • আন্তর্জাতিকভাবে উন্নয়নের স্বার্থে আমেরিকান পররাষ্ট্র দুর্যোগ সহায়তা সংস্থার জন্যে তৈরি ১৯৭৯ সালের ঘূর্ণিঝড়ের তালিকা, বঙ্গোপসাগরের প্রলয়ঙ্করী ঝড়সমূহ, ওয়াশিংটন ডিসি ২০৫২৩- এফ হ্যন্ডারসন।
১৫ ১২–১৩ মে ১৮৪৯ ঘূর্ণিঝড় (ঝড়ো বাতাস) উপকূল: ঘূর্ণিঝড়টি চট্টগ্রাম উপকূলের উপর দিয়ে অতিক্রম করে।

অপর বিস্তারিত তথ্য পাওয়া যায়নি।

  • আন্তর্জাতিকভাবে উন্নয়নের স্বার্থে আমেরিকান পররাষ্ট্র দুর্যোগ সহায়তা সংস্থার জন্যে তৈরি ১৯৭৯ সালের ঘূর্ণিঝড়ের তালিকা, বঙ্গোপসাগরের প্রলয়ঙ্করী ঝড়সমূহ, ওয়াশিংটন ডিসি ২০৫২৩- এফ হ্যন্ডারসন।
১৬ ২৩–২৮এপ্রিল ১৮৫০ ঘূর্ণিঝড় উৎপত্তি: উৎপত্তিস্থল পশ্চিম নিকবর।

উপকূল: এটি উত্তরদিক থেকে বাংলা হয়ে পশ্চিম নিকবরে সরে যায়।

অপর বিস্তারিত তথ্য পাওয়া যায়নি।

  • আন্তর্জাতিকভাবে উন্নয়নের স্বার্থে আমেরিকান পররাষ্ট্র দুর্যোগ সহায়তা সংস্থার জন্যে তৈরি ১৯৭৯ সালের ঘূর্ণিঝড়ের তালিকা, বঙ্গোপসাগরের প্রলয়ঙ্করী ঝড়সমূহ, ওয়াশিংটন ডিসি ২০৫২৩- এফ হ্যন্ডারসন।
১৭ ১২–১৫ মে ১৮৫২ ঘূর্ণিঝড় উৎপত্তি: উৎপত্তিস্থল ১৫°উত্তর।

উপকূল: এটি উত্তর দিকে সরে এসে সুন্দরবনের উপর দিয়ে অতিক্রম করে, কেন্দ্র প্রবাহিত হয় ৩৯ মাইল (৬৩ কিমি) পূর্ব কোলকাতা

অপর বিস্তারিত তথ্য পাওয়া যায়নি।

  • আন্তর্জাতিকভাবে উন্নয়নের স্বার্থে আমেরিকান পররাষ্ট্র দুর্যোগ সহায়তা সংস্থার জন্যে তৈরি ১৯৭৯ সালের ঘূর্ণিঝড়ের তালিকা, বঙ্গোপসাগরের প্রলয়ঙ্করী ঝড়সমূহ, ওয়াশিংটন ডিসি ২০৫২৩- এফ হ্যন্ডারসন।
১৮ ১৩–১৭ মে ১৮৬৯ ঘূর্ণিঝড় ঝড়টি কেপ নিগ্রেস থেকে উত্তর-পশ্চিমদিকে সরে বাংলার দিকে এগিয়ে যায় এবং বাংলার উপকূলের উপর দিয়ে বয়ে যায়।

অপর বিস্তারিত তথ্য পাওয়া যায়নি।

  • আন্তর্জাতিকভাবে উন্নয়নের স্বার্থে আমেরিকান পররাষ্ট্র দুর্যোগ সহায়তা সংস্থার জন্যে তৈরি ১৯৭৯ সালের ঘূর্ণিঝড়ের তালিকা, বঙ্গোপসাগরের প্রলয়ঙ্করী ঝড়সমূহ, ওয়াশিংটন ডিসি ২০৫২৩- এফ হ্যন্ডারসন।
১৯ ৫–১০ জুন ১৮৬৯ ঘূর্ণিঝড় উপকূল: উত্তর উপসাগর থেকে উৎপত্তি হয়ে ঘূর্ণিঝড়টি বাংলার উপর দিয়ে বয়ে যায়।

অপর বিস্তারিত তথ্য পাওয়া যায়নি।

  • আন্তর্জাতিকভাবে উন্নয়নের স্বার্থে আমেরিকান পররাষ্ট্র দুর্যোগ সহায়তা সংস্থার জন্যে তৈরি ১৯৭৯ সালের ঘূর্ণিঝড়ের তালিকা, বঙ্গোপসাগরের প্রলয়ঙ্করী ঝড়সমূহ, ওয়াশিংটন ডিসি ২০৫২৩- এফ হ্যন্ডারসন।
২০ অক্টোবর ১৮৭২ (সঠিক তারিখ অজানা) ঘূর্ণিঝড় উপকূল: ঘূর্ণিঝড়টি কক্সবাজার উপকূলে আঘাত হানে।

অপর বিস্তারিত তথ্য পাওয়া যায়নি।

  • আন্তর্জাতিকভাবে উন্নয়নের স্বার্থে আমেরিকান পররাষ্ট্র দুর্যোগ সহায়তা সংস্থার জন্যে তৈরি ১৯৭৯ সালের ঘূর্ণিঝড়ের তালিকা, বঙ্গোপসাগরের প্রলয়ঙ্করী ঝড়সমূহ, ওয়াশিংটন ডিসি ২০৫২৩- এফ হ্যন্ডারসন।
  • বাংলাপিডিয়া[৩]
২১ ২৯ অক্টোবর - ১ নভেম্বের ১৮৭৬

(দ্যা গ্রেট বাকেরগঞ্জ ১৮৭৬)

তীব্র ঘূর্ণিঝড় প্রবল হারিকেন বাতাসসহ। উপকূল: ঘূর্ণিঝড়টি মেঘনা নদীর মোহনার নিকটে বাকেরগঞ্জ উপকূলের উপর দিয়ে অতিক্রম করে।

বাতাসের সর্বোচ্চ গতিবেগ : ২২০ কিমি/ঘণ্টা (১১৯ নটস)

ঢেউয়ের উচ্চতা: ৩-১৩.৬ মিটার (১০–৪৫ ফিট)

বাংলাপিডিয়া অনুসারে, ঘূর্ণিঝড়টির সাথে দমকা হাওয়া ও জলোচ্ছ্বাস ১২.২ মিটার (৪০ ফিট) চট্টগ্রাম, বরিশাল ও নোয়াখালির নিকটবর্তী মেঘনা নদীর মোহনায় আঘাত হানে। [৩] ক্ষয়ক্ষতি: প্রায় ২ লক্ষ মারা যায়। ঘূর্ণিঝড়টির ফলশ্রুতিতে মহামারী, দুর্ভিক্ষ ও প্রচুর সম্পদের ক্ষতি হয়।

  • আন্তর্জাতিকভাবে উন্নয়নের স্বার্থে আমেরিকান পররাষ্ট্র দুর্যোগ সহায়তা সংস্থার জন্যে তৈরি ১৯৭৯ সালের ঘূর্ণিঝড়ের তালিকা, বঙ্গোপসাগরের প্রলয়ঙ্করী ঝড়সমূহ, ওয়াশিংটন ডিসি ২০৫২৩- এফ হ্যন্ডারসন।
  • বিএমডি
  • হারিকেনস, স্ট্রমস এন্ড টর্নেডোস- ডি.ভি. নালিভকিন, ১৯৮২, পৃষ্টা. ৬৮।
  • জার্নাল অব এশিয়াটিক সোসাইটি ভলিউম. XL VI- এইচ.এফ. ব্লান্ডফোর্ড পৃষ্টা. ৩৩৮।
  • ট্রাকস অব স্ট্রমস এন্ড ডিপ্রেশনস ইন দ্যা বে অব বেঙ্গল এন্ড দ্যা এরাবিয়ান শী, ১৮৭৭–১৯৭০, আইএমডি, ১৯৭৯।
  • বাংলাপিডিয়া[৩]
২২ ২৪ অক্টোবর ১৮৯৭ ঘূর্ণিঝড় উপকূল: চট্টগ্রামের নিকটবর্তী দ্বীপ কুতুবদিয়া

ক্ষয়ক্ষতি: ১৪,০০০ জন । পরবর্তীতে কলেরা মহামারী আকার ধারণ করে এবং ১৮,০০০ জন মারা যায়।

---

২৩ মে ১৮৯৮ (সঠিক তারিখ অজানা) জলোচ্ছ্বাসের সাথে ক্রান্তীয় ঘূর্ণিঝড় উপকূল:টেকনাফ

ক্ষয়ক্ষতি: অজানা

---

২৪ নভেম্বর ১৯০৪ (সঠিক তারিখ অজানা) ঘূর্ণিঝড় উপকূল: সোনাদিয়া

ক্ষয়ক্ষতি: ১৪৩ জন মারা যায় এবং প্রচুর মাছধরা নৌকা বিধ্বস্ত হয়।

---

২৫ ১৬ অক্টোবর ১৯০৯ ঘূর্ণিঝড় উপকূল:খুলনা

ক্ষয়ক্ষতি: ৬৯৮ জন মানুষ ও ৭০,৬৫৪ গবাদি পশু মারা যায়।

---

২৬ অক্টোবর ১৯৭৩ (সঠিক তারিখ অজানা) ঘূর্ণিঝড় উপকূল: মুক্তাগাছা উপজেলা (ময়মনসিংহ)

ক্রান্তীয় ঘূর্ণিঝড় ভুপৃষ্টে আঘাত হানে গ্রাম তছনছ করে দেয়। ক্ষয়ক্ষতি: ৫০০ জন মানুষ মারা যায়।

---

২৭ ২৪ সেপ্টেম্বর ১৯১৭ ঘূর্ণিঝড় উপকূল: খুলনা

ক্ষয়ক্ষতি: মানুষ ৪৩২ জন এবং গবাদি পশু ২৮,০২৯।

---

২৮ মে ১৯৪১ (সঠিক তারিখ অজানা) ঘূর্ণিঝড় উপকূল: মেঘনা নদীর পূর্ব মোহনা

ক্ষয়ক্ষতি: অজানা।

---

২৯ অক্টোবর, ১৯৪২ (সঠিক তারিখ অজানা) ঘূর্ণিঝড় উপকূল:সুন্দরবন

ক্ষয়ক্ষতি: অজানা।

---

৩০ ১৭–১৯ মে ১৯৪৮ ঘূর্ণিঝড় উপকূল: চট্টগ্রাম ও নোয়াখালী এর মধ্যের ব-দ্বীপ।

ক্ষয়ক্ষতি: আনুমানিক মানুষ ১,২০০ জন এবং গবাদিপশু ২০,০০০।

---

৩১ ১৬–১৯ মে ১৯৫৮ ঘূর্ণিঝড় উপকূল: বরিশাল ও নোয়াখালীর পূর্বপার্শ্বের পূর্ব-পশ্চিম মেঘনা নদীর মোহনা।

ক্ষয়ক্ষতি: মানুষ ৮৭০ জন এবং ১৪,৫০০ গবাদি পশু। একইসাথে ক্ষেতের ফসল বিনষ্ট হয়।

---

৩২ ২১–২৪ অক্টোবর ১৯৫৮ ঘূর্ণিঝড় উপকূল: চট্টগ্রাম

ক্ষয়ক্ষতি: আনুমানিক ১ লক্ষ মানুষ গৃহহীন হয়ে পড়ে।

---

৩৩ ৯–১০ অক্টোবর ১৯৬০ তীব্র ঘূর্ণিঝড় উপকূল: মেঘনা নদীর পূর্ব মোহনা, নোয়াখালী, বাকেরগঞ্জ, ফরিদপুর এবং পটুয়াখালী।

বাতাসের সর্বোচ্চ গতিবেগ: ২০১ কিমি/ঘণ্টা
সর্বোচ্চ জলোচ্ছ্বাস: ৩.০৫ মিটার
ক্ষয়ক্ষতি: মানুষ ৩,০০০ জন। ৬২,৭২৫টি বাড়ি ভেঙ্গে পড়ে, ৯৪,০০০ একর(৩৮০ km) জমির ফসল বিনষ্ট হয়।

---

৩৪ ৩০–৩১ অক্টোবর ১৯৬০ তীব্র ঘূর্ণিঝড় উপকূল: চট্টগ্রাম, নোয়াখালী, বাকেরগঞ্জ, ফরিদপুর, পটুয়াখালী এবং মেঘনা মোহনার পূর্ব পাড়।

বাতাসের সর্বোচ্চ গতিবেগ: ২১০ কিমি/ঘণ্টা
জলোচ্ছ্বাস: ৪.৫-৬.১ মিটার
ক্ষয়ক্ষতি: প্রায় ১০,০০০ মানুষ, ২৭,৭৯৩ গবাদি পশু, ৫,৬৮,১৬১ বাড়ি (এর ৭০% বাড়ি শুধু হাতিয়ায়) ধ্বংস প্রাপ্ত হয়। দুইটা বড় সমুদ্রগামী জাহাজ তীরের উপরে উঠে আসে, এবং কর্ণফুলী নদীতে ৫-৭ নৌযান নিমজ্জিত হয়।

---

৩৫ ৯ মে ১৯৬১ তীব্র ঘূর্ণিঝড় উপকূল: বাগেরহাট এবং খুলনা

সর্বোচ্চ বাতাসের গতিবেগ: ১৬১ কিমি/ঘণ্টা
জোয়ারের উচ্চতা: ২.৪৪-৩.০৫ মিটার
ক্ষয়ক্ষতি: মারা যায় ১১,৪৬৮ জন অধিবাসী (অধিকাংশই চর অ্যালেক্সান্ডার), ২৫,০০০ গবাদিপশু। নোয়াখালী হতে হরিনারায়ানপুর পর্যন্ত রেল যোগাযোগ ভেঙ্গে পড়ে।

---

৩৬ ২৬–৩০ অক্টোবর ১৯৬২ তীব্র ঘূর্ণিঝড় উপকূল: ফেনি

সর্বোচ্চ বাতাসের গতিবেগ: ১৬১ কিমি/ঘণ্টা
জোয়ারের উচ্চতা: ২.৫০-৩.০০ মিটার
ক্ষয়ক্ষতি: প্রায় ১,০০০ জন মানুষ এবং প্রচুর গৃহপালিত প্রাণী।

---

৩৭ ২৮–২৯ মে ১৯৬৩ তীব্র ঘূর্ণিঝড় উপকূল: চট্টগ্রাম, নোয়াখালী, কক্সবাজার এবং সন্দ্বীপ, কুতুবদিয়া, হাতিয়া এবং মহেশখালীর উপকূলীয় অঞ্চল সমূহ।

সর্বোচ্চ বাতাসের গতিবেগ: ২০৩ কিমি/ঘণ্টা (১৬৪ কিমি/ঘণ্টা at কক্সবাজার)
জোয়ারের উচ্চতা: ৪.৩-৫.২ মিটার ক্ষয়ক্ষতি: ১১,৫২০ জন অধিবাসী ও গবাদি পশু ৩২,৬১৭ মারা যায় এবং ধ্বংসপ্রাপ্ত হয় ৩৭৬,৩৩২ টি বাড়ি, ৪,৭৮৭টি নৌকা ক্ষেতে ফসল।

---

৩৮ ১১–১২ মে ১৯৬৫ ঘূর্ণিঝড় উপকূল: বরিশাল এবং বাকেরগঞ্জ।

সর্বোচ্চ বাতাসের গতিবেগ: ১৬২ কিমি/ঘণ্টা
জোয়ারের উচ্চতা: ৩.৭ মিটার ক্ষয়ক্ষতি: ১,২৭৯ জন অধিবাসী (বরিশালেই, ১৬,৪৫৬ জনের মধ্যে).

---

৩৯ ১৪–১৫ ডিসেম্বর ১৯৬৫ ঘূর্ণিঝড় উপকূল: কক্সবাজার ও পটুয়াখালীর নিকটবর্তী।

সর্বোচ্চ বাতাসের গতিবেগ: ২১০ কিমি/ঘণ্টা কক্সবাজারে।
জোয়ারের উচ্চতা: ৪.৭-৬.১ মিটার
ক্ষয়ক্ষতি: ৮৭৩ জন অধিবাসী মারা যায় ও ৪০,০০০ লবণ খামার নষ্ট হয়।

---

৪০ ১ অক্টোবর ১৯৬৬ ঘূর্ণিঝড় উপকূল: সন্দ্বীপ, বাকেগঞ্জ, খুলনা, চট্টগ্রাম, নোয়াখালী এবং কুমিল্লা।

জোয়ারের উচ্চতা: ৪.৭-৯.১ মিটার
সর্বোচ্চ বাতাসের গতিবেগ: ১৪৬ কিমি/ঘণ্টা।
ক্ষয়ক্ষতি: মানুষ ১.৫ মিলিয়ন ক্ষতিগ্রস্থ হয় ও ৮৫০ মারা যায় এবং গবাদিপশু ৬৫,০০০ মারা যায়।

---

৪১ ৭-১৩ নভেম্বর: ১৯৭০ ভোলা ঘূর্ণিঝড় তীব্র ঘূর্ণিঝড় উপকূল: সমগ্র বাংলাদেশের উপকূলীয় অঞ্চল (তৎকালীন পূর্ব পাকিস্তান)

চটগ্রাম, বরগুনা, খেপুপাড়া, পটুয়াখালী, চর বোরহানুদ্দিনের উত্তর পাশ, চর তাজুমুদ্দিন এবং মাইজদি ও হরিণঘাটা এর দক্ষিণ পাশ সবচাইতে বেশি ক্ষতিগ্রস্থ হয়। সরকারী হিসাব অনুসারে মৃত্যুর সংখ্যা ৫ লক্ষ কিন্তু প্রকৃত সংখ্যা আরও বেশী ধারনা করা হয়। ক্ষতির মধ্যে আনুমানিক ২০,০০০ মাছ ধরা নৌকা, শস্য ও সম্পদ। গবাদিপশু মৃত্যু প্রায় ১০ লক্ষে, বাড়িঘর ৪ লক্ষ এবং ৩,৫০০ শিক্ষাকেন্দ্র বিধ্বস্ত হয়। সর্বোচ্চ বাতাসের গতিবেগ: ২২২ কিমি/ঘণ্টা।
জোয়ারের উচ্চতা: ১০.৬ মিটার

---

৪২ ৫–৬ নভেম্বর ১৯৭১ ঘূর্ণিঝড় উপকূল: চট্টগ্রামের উপকূলীয় অঞ্চল

ক্ষয়ক্ষতি: অজানা

---

৪৩ ২৮–৩০ নভেম্বের ১৯৭১ ঘূর্ণিঝড় উপকূল: সুন্দরবন এর নিকটবর্তী

সর্বোচ্চ বাতাসের গতিবেগ: ৯৭–১১৩ কিমি/ঘণ্টা।
জোয়ারের উচ্চতা: ১ মিটার
প্রভাব :খুলনা শহরের নিম্মাঞ্চল প্লাবিত হয়।

---

৪৪ ৬–৯ ডিসেম্বর ১৯৭৩ ঘূর্ণিঝড় উপকূল: সুন্দরবন এর নিকটবর্তী

পটুয়াখালী ও তার নিকটবর্তী এলাকা সমূহ প্রবল জলোচ্ছ্বাসে নিমজ্জিত হয়।

---

৪৫ ১৩–১৫ অগাস্ট ১৯৭৪ ঘূর্ণিঝড় উপকূল:খুলনা

সর্বোচ্চ বাতাসের গতিবেগ: ৮০.৫ কিমি/ঘন্টা
ক্ষয়ক্ষতি: ৬০০ জন অধিবাসী।

---

৪৬ ২৪–২৮ নভেম্বের ১৯৭৪ ঘূর্ণিঝড় উপকূল: কক্সবাজার ও চট্টগ্রামের নিকটবর্তী।

সর্বোচ্চ বাতাসের গতিবেগ: ১৬১ কিমি/ঘন্টা
জোয়ারের উচ্চতা: ২.৮-৫.২ মিটার
ক্ষয়ক্ষতি: ২০০ জন, ১০০০ গবাদি পশু ধ্বংসপ্রাপ্ত হয়।

---

এটা বাংলাদেশ এর অথবা বলাযায় সাধারণভাবে ভারতের বিভক্তির আগের ঐতিহাসিক ভাবে চিহ্নিত বাংলার ক্রান্তীয় ঘূর্ণিঝড়ের একটি আংশিক তালিকা। কিছু সন ও তারিখ সামান্য ত্রুটি থাকতে পারে, এখানে অধিকাংশ তথ্য বাংলাপিডিয়া থেকে নেওয়া। [৩]

  • ১৫৮৪: পাঁচ ঘণ্টার হারিকেন এবং বজ্রপাত সহ ঝড় বাকেরগঞ্জ (বর্তমান পটুয়াখালী এবং বরিশাল জেলা) নিকটবর্তী উপকূলের ঘর ও নৌকা ধবংস করে। শুধুমাত্র শক্ত ভিত্তির ওপর গড়া মন্দির (হিন্দু ধর্মের উপাসনালয়) রক্ষা পায়। মোট ক্ষয়ক্ষতি: প্রায় ২ লক্ষ।
  • ১৫৮৫: ক্রান্তীয় ঘূর্ণিঝড় মেঘনা নদীর মোহনায় বাকেরগঞ্জের (বর্তমান বরিশাল জেলা) পূর্বদিকে আঘাত হানে, বিনষ্ট হয় ক্ষেতের ফসল, সমগ্র ক্ষয়ক্ষতি: অজানা।
  • নভেম্বর ১৭৯৭: তীব্র ঘূর্ণিঝড় চট্টগ্রাম অঞ্চলের প্রায় সকল বাড়িঘর ধ্বংস করে দেয়। চট্টগ্রামের বন্দরে দুইটা জাহাজ নিমজ্জিত হয়।
  • মে ১৮২২: ঘূর্ণিঝড়, সাথে বয়ে আনা জলোচ্ছ্বাস ও উত্তাল ঢেউ বরিশাল, হাতিয়া দ্বীপ এবং নোয়াখালীতে আঘাত হানে। ক্ষয়ক্ষতি: ৪০,০০০ অধিবাসী।
  • অক্টোবর ১৮৩১: বরিশাল ক্ষয়ক্ষতি: অজানা।
  • অক্টোবর ১৮৭২: ঘূর্ণিঝড় কক্সবাজারে আঘাত হানে, ক্ষয়ক্ষতি: অজানা।
  • ৩১ অক্টোবর ১৮৭৬: দ্যা গ্রেট বাকেরগঞ্জ ১৮৭৬ এর ১২.২ মিটার (৪০ ফিট) তীব্র ঝড়ের উচ্ছাস আঘাত হানে মেঘনা নদীর মোহনার চট্টগ্রাম, বরিশাল এবং নোয়াখালী জেলায়। ক্ষয়ক্ষতি: আনুমানিক ২ লক্ষ, ঝড়ের ফলশ্রুতিতে মহামারী ও দুর্ভিক্ষ এবং প্রচুর সম্পদ বিনষ্ট হয়।
  • ২৪ অক্টোবর ১৮৯৭: চট্টগ্রাম অঞ্চলে ক্রান্তীয় ঘূর্ণিঝড়ের সাথে তীব্র স্রোত ও ঝড়ো হাওয়া শক্ত আঘাত হানে, বিশেষভাবে কুতুবদিয়া দ্বীপ। ক্ষয়ক্ষতি: ১৪,০০০।ফলশ্রুতিতে কলেরা মহামারীর আকার ধারণ করে এবং আরও ১৮,০০০ অধিবাসী মারা যায়।
  • মে ১৮৯৮ : ক্রান্তীয় ঘূর্ণিঝড়ের সাথে তীব্র স্রোত টেকনাফে আঘাত হানে, ক্ষয়ক্ষতি: অজানা।
  • নভেম্বর ১৯০৪: ঘূর্ণিঝড় আঘাত হানে সোনাদিয়া; ১৪৩ জন অধিবাসী ও প্রচুর মাছ ধরা নৌকা ডুবে যায়।
  • ১৬ অক্টোবর ১৯০৯ : ক্রান্তীয় ঘূর্ণিঝড়ের সাথে তীব্র স্রোত খুলনার উপর আঘাত হানে, ক্ষয়ক্ষতি: ৬৯৮ জন অধিবাসী ও ৭০,৬৫৪ গবাদিপশু।
  • অক্টোবর ১৯১৩: ক্রান্তীয় ঘূর্ণিঝড় ভুমির উপর দিয়ে বয়ে যায়, মুক্তাগাছা উপজেলার (ময়মনসিংহ) গ্রাম ক্ষতিগ্রস্থ হয়, ক্ষয়ক্ষতি: ৫০০ জন অধিবাসী।
  • ২৪ সেপ্টেম্বর ১৯১৭: ক্রান্তীয় ঘূর্ণিঝড় খুলনার উপর আঘাত হানে। ক্ষয়ক্ষতি: ৪৩২ জন অধিবাসী এবং ২৮,০২৯ গবাদিপশু।
  • মে ১৯৪১: ঘূর্ণিঝড়ের সাথে তীব্র স্রোত মেঘনা নদীর পূর্ব মোহনায় আঘাত হানে, ক্ষয়ক্ষতি: অজানা।
  • অক্টোবর ১৯৪২: তীব্র ঘূর্ণিঝড় সুন্দরবনের উপর আঘাত হানে। ক্ষয়ক্ষতি: অজানা।
  • ১৭-১৯ মে ১৯৪৮: ঘূর্ণিঝড় আঘাত হানে চট্টগ্রাম ও নোয়াখালী মধ্যবর্তী ব-দ্বীপে। ক্ষয়ক্ষতি: আনুমানিক ১,২০০ অধিবাসী এবং ২০,০০০ গবাদি পশু।
  • ১৬-১৯ মে ১৯৫৮: ঘূর্ণিঝড়ের সাথে তীব্র স্রোত মেঘনা নদীর পূর্ব পশ্চিম মোহনার পূর্ব বরিশাল ও নোয়াখালী উপর আঘাত হানে। ক্ষয়ক্ষতি: ৮৭০ অধিবাসী, ১৪,৫০০ গবাদি পশু এবং ক্ষেতের ফসল বিনষ্ট হয়।
  • ২১-২৪ অক্টোবর ১৯৫৮: ঘূর্ণিঝড়টি চট্টগ্রামের উপকূলীয় অঞ্চলের উপর আঘাত হানে। প্রভাব: আনুমানিক ১ লক্ষ পরিবার গৃহহীন হয়ে পড়ে।
  • ৯-১০ অক্টোবর ১৯৬০: তীব্র ঘূর্ণিঝড় পূর্ব মেঘনা নদীর মোহনার নিকটবর্তী নোয়াখালী, বাকেরগঞ্জ, ফরিদপুর ও পটুয়াখালীর উপর দিয়ে বয়ে যায়। ঝড়ো হাওয়ার তীব্রতা ছিল ২০১ কিমি/ঘণ্টা পর্যন্ত। জলোচ্ছ্বাসের উচ্চতা ছিল ৩.০৫ মিটার। চর জব্বার, চর আমিনা, চর ভাটিয়া, রামগাতি, হাতিয়া ও নোয়াখালী এর ফলে ব্যপকভাবে বিধ্বস্ত হয়। ক্ষয়ক্ষতি: ৩, ০০০ অধিবাসী মারা যায়, এছাড়া অন্যান্য প্রতিক্রিয়া হিসাবে ৬২.৭২৫ টি বাড়ি ৯৪,০০ একর (৩৮০ কিমি) জমির ফসল বিনষ্ট হয়।
  • ৩০-৩১ অক্টোবর ১৯৬০: ঘণ্টায় ২১০ কিমি গতির তীব্র ঝড়ো বাতাসসহ প্রবল ঘূর্ণিঝড় আঘাত হানে চট্টগ্রাম, নোয়াখালী, বাকেরগঞ্জ, ফরিদপুর, পটুয়াখালী এবং পূর্ব মেঘনা মোহনায়। ঝড়ের জলোচ্ছ্বাসের উচ্চতা ৪.৫-৬.১ মিটারে রূপ নেয়। ক্ষয়ক্ষতি: অনুমানিক ১০,০০০ অধিবাসী, ২৭,৭৯৩ গবাদি পশু, ৫৬৮,১৬১টি বাড়ি বিনষ্ট হয় (এরমধ্যে ৭০% বাড়ি শুধামাত্র হাতিয়ায়), এছাড়া দুইটি সমুদ্রগামী জাহাজ তীরের উপর উঠে আশে এবং ৫-৭টি বড় নৌকা কর্ণফুলী নদীতে ডুবে যায়।
  • ৯ মে ১৯৬১: তীব্র ঘূর্ণিঝড় আঘাত হানে বাগেরহাটখুলনার উপর। বাতাসের সর্বোচ্চ গতিবেগ ছিল ১৬১ কিমি/ঘণ্টা। ঝড়ের জলোচ্ছ্বাস ২.৪৪-৩.০৫ ছোয়। ক্ষয়ক্ষতি: ১১,৪৬৮ অধিবাসী (অধিকাংশ চর আলেক্সজান্দার), ২৫,০০০ গবাদিপশু। প্রভাব: নোয়াখালী থেকে হরিনারায়নপুর পর্যন্ত রেলপাটির ব্যপক ক্ষতি হয়।
  • ২৬-৩০ অক্টোবর ১৯৬২: তীব্র ঘূর্ণিঝড় ফেনীতে আঘাত হানে। বাতাসের সর্বোচ্চ গতিবেগ ছিল ১৬১ কিমি/ঘণ্টা এবং ঝড়ের জলোচ্ছ্বাস ২.৫-৩.০ মিটার। ক্ষয়ক্ষতি: আনুমানিক ১,০০০ অধিবাসী ও অসংখ্য গৃহপালিত প্রাণী।
  • ২৮-২৯ মে ১৯৬৩: তীব্র ঘূর্ণিঝড় বিধ্বস্ত করে দেয় চট্টগ্রাম, নোয়াখালী, কক্সবাজার এবং সন্দ্বীপ, কুতুবদিয়া, হাতিয়া এবং মহেশখালী উপকূলীয় অঞ্চলসমূহ। চট্টগ্রামে জলোচ্ছ্বাসের মাত্রা ৪.৩-৫.২ মিটার, বাতাসের সর্বোচ্চ গতিবেগ ছিল ২০৩ কিমি/ঘণ্টা এবং কক্সবাজারে ১৬৪ কিমি/ঘণ্টা। ক্ষয়ক্ষতি: ১১,৫২০ অধিবাসী, ৩২,৬১৭ গবাদিপশু, প্রভাব: ৩৭৬,৩৩২টি বাড়ি, ৪,৭৮৭টি নৌকা এবং জমির ফসল।
  • ১১-১২ মে ১৯৬৫: তীব্র ঘূর্ণিঝড় আঘাত হানে বারিশাল ও বাকেরগঞ্জে। বাতাসের সর্বোচ্চ গতিবেগ ছিল ১৬২ কিমি/ঘণ্টা. জলোচ্ছ্বাসের মাত্রা ৩.৭ মিটার। ক্ষয়ক্ষতি: ১৯,২৭৯ জন অধিবাসী (এর মধ্যে বরিশালেই ১৬,৪৫৬).
  • ১৪-১৫ ডিসেম্বর ১৯৬৫: তীব্র ঘূর্ণিঝড় আঘাত হানে কক্সবাজার ও পটুয়াখালীর নিকটবর্তী উপকূলীয় অঞ্চলে, ঝড়ের প্রভাবে জোয়ারের পানির উচ্চতা বৃদ্ধি পায় ৪.৭-৬.১ মিটার। কক্সবাজারে বাতাসের সর্বোচ্চ গতিবেগ ছিল ২১০ কিমি/ঘণ্টা। ক্ষয়ক্ষতি: ৮৭৩ জন অধিবাসী ও ৪০,০০০ লবণের বেড় বিনষ্ট হয়।
  • ১ অক্টোবর ১৯৬৬: তীব্র ঘূর্ণিঝড় আঘাত হানে সন্দ্বীপ, বাকেরগঞ্জ, খুলনা, চট্টগ্রাম, নোয়াখালী ও কুমিল্লায়, ঝড়ের প্রভাবে জোয়ারের পানির উচ্চতা বৃদ্ধি পায় ৪.৭-৯.১ মিটার। বাতাসের সর্বোচ্চ গতিবেগ ছিল ১৪৬ কিমি/ঘণ্টা। ক্ষয়ক্ষতি: ১৫ লক্ষ অধিবাসী ক্ষতিগ্রস্থ হয় ৮৫০ জন অধিবাসী ৬৫,০০০ গবাদি পশু মৃত্যুর মুখে পতিত হয়।
  • ৭ -১৩ নভেম্বর ১৯৭০: ১৯৭০ ভোলা ঘূর্ণিঝড় সমগ্র বাংলাদেশের উপকূলীয় অঞ্চল (তৎকালীন পূর্ব পাকিস্তান), চটগ্রাম, বরগুনা, খেপুপাড়া, পটুয়াখালী, চর বোরহানুদ্দিনের উত্তর পাশ, চর তাজুমুদ্দিন এবং মাইজদি ও হরিণঘাটা এর দক্ষিণ পাশ সবচাইতে বেশি ক্ষতিগ্রস্থ হয়। সরকারী হিসাব অনুসারে মৃত্যুর সংখ্যা ৫ লক্ষ কিন্তু প্রকৃত সংখ্যা আরও বেশী ধারনা করা হয়। ক্ষতির মধ্যে আনুমানিক ২০,০০০ মাছ ধরা নৌকা, শস্য ও সম্পদ। গবাদিপশু মৃত্যু প্রায় ১০ লক্ষে, বাড়িঘর ৪ লক্ষ এবং ৩,৫০০ শিক্ষাকেন্দ্র বিধ্বস্ত হয়। বাতাসের সর্বোচ্চ গতিবেগ ছিল ২২২ কিমি/ঘণ্টা এবং ঝড়ের প্রভাবে জোয়ারের পানির উচ্চতা বৃদ্ধি পায় ১০.৬ মিটার।
  • ৫-৬ নভেম্বর ১৯৭১: ঘূর্ণিঝড় চট্টগ্রামের উপকূলীয় অঞ্চলে আঘাত হানে।
  • ২৮-৩০ নভেম্বর ১৯৭১: সুন্দরবন এর নিকটবর্তী উপকূলীয় অঞ্চলে ঘূর্ণিঝড় আঘাত হানে। বাতাসের সর্বোচ্চ গতিবেগ ছিল ৯৭–১১৩ কিমি/ঘণ্টা, জলোচ্ছ্বাসের মাত্রা ১ মিটারে পৌছায়। প্রভাবে খুলনা শহরের নিম্মাঞ্চল প্লাবিত হয়।
  • ৬-৯ ডিসেম্বর ১৯৭৩: সুন্দরবন এর নিকটবর্তী উপকূলীয় অঞ্চলে ঘূর্ণিঝড়টির সাথে তীব্র স্রোত আঘাত হানে। পটুয়াখালী ও তার নিকটবর্তী এলাকা সমূহ প্রবল জলোচ্ছ্বাসে নিমজ্জিত হয়।
  • ১৩-১৫ অগাস্ট ১৯৭৪: ঘূর্ণিঝড় খুলনা অঞ্চলে আঘাত হানে। বাতাসের সর্বোচ্চ গতিবেগ ছিল ৮০.৫ কিমি/ঘণ্টা, ক্ষয়ক্ষতি: ৬০০ জন অধিবাসী মারা যায়।
  • ২৪-২৮ নভেম্বর ১৯৭৪: ঘূর্ণিঝড়টি কক্সবাজার ও চট্টগ্রামের নিকটবর্তী উপকূলীয় অঞ্চল এবং সমুদ্রমুখী দ্বীপের উপর আঘাত হানে। বাতাসের সর্বোচ্চ গতিবেগ ছিল ১৬১ কিমি/ঘণ্টা এবং জলোচ্ছ্বাসের উচ্চতা ২.৮-৫.২ মিটার। ক্ষয়ক্ষতি: ২০০ অধিবাসী ও ১০০০ গবাদিপশু মারা যায় এবং ২,৩০০ ঘরবাড়ি ভেঙ্গেপড়ে।
  • ৯-১২ মে ১৯৭৫: একটি শক্তিশালী ঘূর্ণিঝড় ভোলা, কক্সবাজার ও খুলনাকে বিধ্বস্ত করে দেয়। বাতাসের সর্বোচ্চ গতিবেগ ছিল ৯৬.৫ - ১১২.৬ কিমি/ঘণ্টা। ক্ষয়ক্ষতি: ৫ জন অধিবাসী মারা যায়।
  • ৯-১২ মে ১৯৭৭: ঘূর্ণিঝড় আঘাত হানে খুলনা, নোয়াখালী, পটুয়াখালী, বরিশাল, চট্টগ্রাম এবং সমুদ্রমুখী দ্বীপ সমূহে। বাতাসের সর্বোচ্চ গতিবেগ ছিল ১১২.৬৩ কিমি/ঘণ্টা।
  • ১৪-১৫ অক্টোবর ১৯৮৩: চট্টগ্রাম ও নোয়াখালী এর নিকটবর্তী উপকূলীয় দ্বীপ ও চর সমূহের উপর দিয়ে শক্তিশালী ঘূর্ণিঝড় আঘাত হানে, বাতাসের সর্বোচ্চ গতিবেগ ছিল ১২২ কিমি/ঘণ্টা: ক্ষয়ক্ষতি: ৪৩ জন অধিবাসী মারা যায়, ৬টি মাছধরা নৌকা ও ১টি ট্রলার ডুবে যায়। ১৫০ এর অধীক জেলে ও ১০০ ছোট মাছধরা নৌকা নিখোঁজ হয়। উপদ্রুত অঞ্চলে ২০% আমন ধান বিনষ্ট হয়।
  • ৫-৯ নভেম্বর ১৯৮৩: ঘূর্ণিঝড় চট্টগ্রাম, কুতুবদিয়ায়ের নিকটবর্তী কক্সবাজার, সেন্টমার্টিন, টেকনাফ, উখিয়া, মইপং, সোনাদিয়া, বরিশাল, পটুয়াখালী এবং নোয়াখালীর উপর আঘাত হানে। বাতাসের সর্বোচ্চ গতিবেগ ছিল ১৩৬ কিমি/ঘণ্টা, জলোচ্ছ্বাসের মাত্রা ১.৫২ মিটারে পৌছায়। ক্ষয়ক্ষতি: ৩০০ জন জেলের এবং ৫০টি মাছধরা নৌকা নিখোঁজ ও ২০০০ বসতবাড়ি ধ্বংস হয়।
  • ২৪-২৫ মে ১৯৮৫: তীব্র ঘূর্ণিঝড় চট্টগ্রাম, কক্সবাজার, নোয়াখালী এবং উপকূলীয় অঞ্চলে (সন্দ্বীপ হাতিয়া ও উড়ির চর) আঘাত হানে। চট্টগ্রামে বাতাসের সর্বোচ্চ গতিবেগ ছিল ১৫৪ কিমি/ঘণ্টা, সন্দ্বীপে ১৪০ কিমি/ঘণ্টা, কক্সবাজারে ১০০ কিমি/ঘণ্টা এবং ঝড়ের কারণে জোয়ারের উচ্চতা ৩.০-৪.৬ মিটার ছিল। ক্ষয়ক্ষতি: ১১,০৬৯ জন অধিবাসী, ১৩৫,০৩৩ গবাদিপশু, ৯৪,৩৭৯ টি বসতবাড়ি এবং ৭৪ কিমি রাস্তা ও বাঁধ বিধ্বস্ত হয়।
  • ৮-৯ নভেম্বর ১৯৮৬: তীব্র ঘূর্ণিঝড় চট্টগ্রাম, বরিশাল, পটুয়াখালী এবং নোয়াখালীর নিকটবর্তী উপকূলীয় অঞ্চল ও চর সমূহে আঘাত হানে। চট্টগ্রামে বাতাসের সর্বোচ্চ গতিবেগ ছিল ১১০ কিমি/ঘণ্টা, খুলনা ৯০ কিমি/ঘণ্টা। ক্ষয়ক্ষতি: ১৪ জন অধিবাসী, ৯৭২ কিঃমিঃ জমির ধান বিনষ্ট হয়। বরগুনা জেলার আমতলী উপজেলার বিদ্যালয়, মসজিদ, গুদামঘর, হসপিটাল, বসতবাড়ি এবং স্থাপনা সমূহ বিধ্বস্তের আওতায় থেকে যায়।
  • ২৪-৩০ নভেম্বর ১৯৮৮: তীব্র ঘূর্ণিঝড়টি যশোর, কুষ্টিয়া, ফরিদপুর এবং বরিশাল ও খুলনা অঞ্চলের উপকূলীয় এলাকায় প্রচন্ড আঘাত হানে। বাতাসের সর্বোচ্চ গতিবেগ ছিল ১৬২ কিমি/ঘণ্টা একই সাথে ছিল জলোচ্ছ্বাসের আঘাত যা মংলা বন্দরে পরিমাপ করা হয় ৪.৫ মিটার। ক্ষয়ক্ষতি: ৫,৭০৮ জন অধিবাসী ও সুন্দরবনে অসংখ্য বন্য প্রাণী (১৫,০০০ হরিণ ও ৯ টি র‍য়েল বেঙ্গল টাইগার), ৬৫,০০০ গবাদিপশু। বিনষ্ট হওয়া ফসলের মুল্য আনুমানিক ৯.৪১ বিলিয়ন টাকা
  • ১৮ ডিসেম্বর ১৯৯০: ধ্বংসাত্মক ঘূর্ণিঝড় বব ০৯/০৪ বি এর প্রভাবে সৃষ্ট ক্রান্তীয় নিম্নচাপের ফলশ্রুতিতে ১৮ ডিসেম্বর কক্সবাজারের নিকটে ভূমিধ্বসের ঘটনা ঘটে যদিও সেখানে কোন হতাহতের খবর পাইয়া যায় নাই।[৪][৫]
  • ২৯-৩০ এপ্রিল ১৯৯১: ১৯৯১ বাংলাদেশ ঘূর্ণিঝড় বাংলাদেশে ২৯ এপ্রিল শেষ রাতের দিকে আঘাত হানে। ঝড়টি জন্মনেয় ভারত মহাসাগরে এবং ২০ দিন পর ঘূর্ণিঝড়ের আকার নিয়ে বঙ্গোপসাগর উপকূলে পৌছায়। ঘূর্ণিঝড়টির ব্যাস প্রায় ৬০০ কিঃমিঃ, বাতাসের সর্বোচ্চ গতিবেগ ছিল (সন্দ্বীপে পরিমাপকৃত) ২২৫ কিমি/ঘণ্টা. অন্যান্য স্থানে তথ্য অনুসারে, চট্টগ্রাম ১৬০ কিমি/ঘণ্টা, খেপুপাড়া (কালাপাড়া) ১৮০ কিমি/ঘণ্টা, কুতুবদিয়া ১৮০ কিমি/ঘণ্টা, কক্সবাজার ১৮৫ কিমি/ঘণ্টা এবং ভোলা ১৭৮ কিমি/ঘণ্টা. (দ্যা নোয়া-১১ এর তথ্য অনুসারে ২৯ এপ্রিল রাত ১টা ৩৫ মিনিটে বাতাসের সর্বোচ্চ গতিবেগ ছিল প্রায় ২৪০ কিমি/ঘণ্টা). ২৯শে এপ্রিল রাতে ঝড়ের প্রভাবে চট্টগ্রাম বন্দরের উত্তর উপকূলে ভূমিধ্বস হয়। জলোচ্ছ্বাসের উচ্চতা ৫-৮ মিটারে পৌছায়। ক্ষয়ক্ষতি: ১৫০,০০০ জন অধিবাসী, ৭০,০০০ গবাদি পশু মারা যায়। ঘূর্ণিঝড়টিতে সম্পদের ক্ষতি হয় ৬০ বিলিয়ন টাকা
  • ৩১ মে- ২ জুন ১৯৯১: ঘূর্ণিঝড়টি আঘাত হানে পটুয়াখালী, বরিশাল, নোয়াখালী এবং চট্টগ্রামের নিকটবর্তী উপকূলীয় দ্বীপ ও চর সমূহে। বাতাসের সর্বোচ্চ গতিবেগ ছিল ১১০ কিমি/ঘণ্টা এবং জোয়ারের উচ্চতা ১.৯ মিটার।
  • ২৯ এপ্রিল - ৩ মে ১৯৯৪: তীব্র ঘূর্ণিঝড়টি কক্সবাজারের নিকটবর্তী উপকূলীয় অঞ্চলে আঘাত হানে। বাতাসের সর্বোচ্চ গতিবেগ ছিল ২১০ কিমি/ঘণ্টা। ক্ষয়ক্ষতি: ৪০০ জন অধিবাসী ও ৮,০০০ গবাদি পশু মারা যায়।
  • ২১-২৫ নভেম্বের ১৯৯৫: তীব্র ঘূর্ণিঝড়টি কক্সবাজারের নিকটবর্তী উপকূলীয় অঞ্চলে আঘাত হানে। বাতাসের সর্বোচ্চ গতিবেগ ছিল ২১০ কিমি/ঘণ্টা। ক্ষয়ক্ষতি: ৬৫০ জন অধিবাসী ও ১৭,০০০ গবাদি পশু মারা যায়।
  • ১৬-১৯ মে ১৯৯৭: মে ১৯৯৭ ঘূর্ণিঝড়, বাংলাদেশ আঘাত হানে চট্টগ্রাম, কক্সবাজার, নোয়াখালী এবং ভোলা জেলার নিকটবর্তী দ্বীপ ও চর সমূহে। বাতাসের সর্বোচ্চ গতিবেগ ছিল ২২৫ কিমি/ঘণ্টা এবং ঝড়ের কারণে জলোচ্ছ্বাসের উচ্চতা ছিল ৩.০৫ মিটার। ক্ষয়ক্ষতি: ১২৬ জন অধিবাসী মারা যায়।
  • ২৫-২৭ সেপ্টেম্বর ১৯৯৭: তীব্র ঘূর্ণিঝড়টি চট্টগ্রাম, কক্সবাজার, নোয়াখালী ও ভোলার নিকটবর্তী উপকূলীয় অঞ্চলে আঘাত হানে।বাতাসের সর্বোচ্চ গতিবেগ ছিল ১৫০ কিমি/ঘণ্টা এবং ঝড়ের কারণে জলোচ্ছ্বাসের উচ্চতা ছিল ১.৮৩-৩.০৫ মিটার।
  • ১৬-২০ মে ১৯৯৮: ১৫০ কিমি/ঘণ্টায় ঝড় বাতাসের সাথে তীব্র ঘূর্ণিঝড়টি চট্টগ্রাম, কক্সবাজার ও নোয়াখালীর নিকটবর্তী উপকূলীয় অঞ্চলে আঘাত হানে। এবং ঝড়ের কারণে জলোচ্ছ্বাসের উচ্চতা ছিল ১.৮৩-২.৪৪ মিটার।
  • ১৯-২২ নভেম্বর ১৯৯৮: ৯০ কিমি/ঘণ্টা বেগে বয়ে যাওয়া ঘূর্ণিঝড়টি খুলনা, বরিশাল ও পটুয়াখালী উপর দিয়ে বয়ে যায় ঝড়ের কারণে জলোচ্ছ্বাসের উচ্চতা ছিল ১.২২ - ২.৪৪ মিটার।
  • ১৪-১৫ মে ২০০৭: ঘূর্ণিঝড় আকাশ চট্টগ্রামের ১১৫ কিঃমিঃ দক্ষিনে ১২০ কিমি/ঘণ্টা বেগে আঘাত হানে। ক্ষয়ক্ষতি: ১৪ জন অধিবাসী মারা যায় এবং আনুমানিক ইউএস ডলার ৯৮২ মিলিয়ন সম্পদের ক্ষতি হয়।
  • ১৫ নভেম্বর ২০০৭: ঘূর্ণিঝড় সিডর ২৬০ কিমি/ঘণ্টা বেগে বাংলাদেশের দক্ষিণের উপকূল বরাবর আঘাত হানে এবং ফলশ্রুতিতে ৩,৫০০ এর অধিক মৃত্যু এবং মারাত্মক ক্ষতির মুখোমুখি হয়।[৬]
  • ২৬-২৭ অক্টোবর ২০০৮: ঘূর্ণিঝড় রেশমি made landfall on the Bangladesh coast late on October 26 with wind speeds up to২৬শে অক্টোবর ৮৫ কিমি/ঘণ্টা বেগের ঝড় বাতাসের সাথে বাংলাদেশের উপকূলীয় অঞ্চলে আঘাত হানে। ১৫ জন অধিবাসী মারা যায় এবং সহস্রাধিক মানুষ গৃহহীন হয়ে পড়ে।
  • ১৯-২১ এপ্রিল ২০০৯: ঘূর্ণিঝড় বিজলি দুর্বলভাবে বাংলাদেশে আঘাত হানে। বড় ধরনের কোন ক্ষয়ক্ষতির তথ্য পাওয়া যায়নি সামান্য কিছু বাড়ি ও ফসল বিনষ্ট হওয়া ব্যতিত।
  • ২৭-২৯ মে ২০০৯: তীব্র ঘূর্ণিঝড় আইলা বাংলাদেশের দক্ষিণ-পশ্চিম ভাগের ১৫ জেলার উপর দিয়ে ১২০ কিমি/ঘণ্টা বেগে বয়ে যায়। প্রায় ১৫০ জন অধিবাসী মারা যায়, ২ লক্ষ বসতবাড়ি ও ৩ লক্ষ একর জমির ফসল বিনষ্ট হয়।
  • ১-১৭ মে ২০১৩: ঘূর্ণিঝড় ভিয়ারু, আনুষ্ঠানিকভাবে ঘূর্ণিঝড়টি মহাসেন নামে পরিচিত হয়, ঘূর্ণিঝড়টি চট্টগ্রামে ৮৫ কিমি/ঘণ্টা বেগে আঘাত হানে। ১৭ জন মারা যায় এবং প্রায় ১.৩ মিলিয়ন সম্পদ বিনষ্ট হয় সম্পূর্ণ দেশে, ফসলের ক্ষতি হয় ইউএস ডলার ৫.১৪ মিলিয়ন।
  • ২৯ জুলাই ২০১৫: ঘূর্ণিঝড় কোমেন ৭৫ কিমি/ঘণ্টা বেগে চট্টগ্রামের নিকটে আঘাত হানে। সারাদেশে প্রায় ৫১০,০০০ বাড়ি ক্ষতিগ্রস্থ বা ভেঙ্গে পড়ে, ৬৬৭,২২১ একর (২৭০,০০০ হেক্টর) জমির ফসল বিনষ্ট হওয়ায় অসংখ্য মানুষ তাদের মূল আয়ের উৎস হারায়। ঘূর্ণিঝড়ের ফলে সৃষ্ট পরবর্তী বন্যায় ১৩২ জন অধিবাসী যার মধ্যে কোমেন এর সরাসরি প্রভাবে নূন্যতম ৩৯ জন মারা যায়।
  • ২১ মে ২০১৬: ঘূর্ণিঝড় রোয়ানু এর আঘাতে চট্টগ্রামের উপকূল বরাবর ২৬ জন অধিবাসী নিহত হয়। বাতাসের সর্বোচ্চ গতিবেগ ছিল ১০০ কিমি/ঘণ্টা, প্রায় ৪০,০০০ বসতবাড়ি ও ব্যবসায়িক প্রতিষ্ঠান ক্ষতিগ্রস্থ হয়। খাবারের গুদাম ও মৌসুমি শস্য বিনষ্ট হয়। প্রচুর খামার তথা মাছ এবং চিংড়ির ঘের ভেসে যায়।
  • ২০ অগাস্ট ২০১৬: ক্রান্তীয় ঘূর্ণিঝড় ডিয়ামু এর আংশিক আঘাত বাংলাদেশের উপর দিয়ে যায়।

তথ্যসূত্র[সম্পাদনা]

  1. "স্পারসো"বাংলাপিডিয়া। সংগৃহীত ১ ফেব্রুয়ারি ২০১৭ 
  2. "বাংলাদেশ স্পেস রিসার্চ এন্ড রিমোট সেন্সিং অর্গানাইজেশন"স্পারসো ডট গভ ডট বিডি (ইংরেজি ভাষায়)। সংগৃহীত ১ ফেব্রুয়ারি ২০১৭ 
  3. চৌধুরী, মাসুদ হাসান (২০১২)। "ঘূর্ণিঝড়"। in ইসলাম, সিরাজুল; জামাল, আহম্মেদ এ। ঘূর্ণিঝড় (২য় সংস্করণ)। বাংলাদেশ এশিয়াটিক সোসাইটি 
  4. "৪. পোষ্ট মনসুন সীজন (অক্টোবর — ডিসেম্বর) সাইক্লোনিক ডিস্টার্বেন্সেস"রিপোর্ট অন সাইক্লোনিক ডিস্টারর্বেন্স (ডিপ্রেশন্স এন্ড ট্রপিক্যাল সাইক্লোনস) ওভার নর্থ ইন্ডিয়ান ওশান ইন ১৯৯০ (ইংরেজি ভাষায়)। ভারতের আবহাওয়া বিভাগ। জানুয়ারী ১৯৯২। পৃ: ২৫। ১৫ জানুয়ারী ২০১৪-এ মূল থেকে আর্কাইভ। সংগৃহীত ১৫ জানুয়ারী ২০১৪ 
  5. Carr, Lester E। 3.3 North Indian Ocean Tropical Cyclones। "1990 Annual Tropical Cyclone Report"। Joint Typhoon Warning Center (United States Navy, United States Airforce)। সংগৃহীত ১৯ জানুয়ারি ২০১৫ 
  6. "Cyclone death toll mounts to 2388 in Bangladesh (2nd Roundup)"। মন্সটারস & ক্রিটিকস। ১৭ নভেম্বের ২০০৭। সংগৃহীত ১৭ নভেম্বের ২০০৭ 

আরও দেখুন[সম্পাদনা]

বহিঃসংযোগ[সম্পাদনা]