বাংলাদেশে দারিদ্র্য

উইকিপিডিয়া, মুক্ত বিশ্বকোষ থেকে
পরিভ্রমণে ঝাঁপ দিন অনুসন্ধানে ঝাঁপ দিন

১৬ কোটি জনসংখ্যা নিয়ে বাংলাদেশ হচ্ছে বিশ্বের সবচেয়ে ঘনবসতিপূর্ণ দেশগুলোর মধ্যে একটি[১] বিশ্ব ব্যাংকের মতে, বাংলাদেশের চরম দারিদ্র্যের হার ২০১৬ সালে ১২.৯ শতাংশে নেমে এসেছে।[২] বিশ্ব ব্যাংকের প্রেসিডেন্ট জিম ইয়ং কিম দারিদ্র্য বিমোচনে বাংলাদেশের মুখ্য উন্নয়নের প্রশংসা করেন, যেখানে ১৯৯১ সালের ৪৪.২ শতাংশ থেকে দারিদ্র্যের এই হার ২০১০ সালে ১৮.৫ শতাংশে নেমে এসেছে।[৩] বাংলাদেশ তার দারিদ্র্যের হার কমাতে অভাবনীয় অগ্রগতি অর্জন করছে এবং বিশ্বব্যাংকের মতে, ২০৩০ সালের মধ্যে চরম দারিদ্র্য বিমোচনে বাংলাদেশের বড় সুযোগ রয়েছে।[৪]

বাংলাদেশের সাধারণ পরিচিতি[সম্পাদনা]

বাংলাদেশ ভারতবঙ্গোপসাগর - এর মধ্যে অবস্থিত দক্ষিণ এশিয়ার একটি দেশ। বাংলাদেশে তিন পাশে ভারত।

অর্থনীতি[সম্পাদনা]

যদিও বাংলাদেশের অনেক সমস্যা যেমন, দুর্বল অবকাঠামো, রাজনৈতিক অস্থিতিশীলতা, দুর্নীতি ও অপর্যাপ্ত বিদ্যুৎ সরবরাহ ইত্যাদি রয়েছে; কিন্তু ১৯৯৬ সালের পর থেকে দেশের অর্থনীতি বছরে ৫%-৬% হারে বৃদ্ধি পেয়েছে। জিডিপি অনুসারে বাংলাদেশ বিশ্বের ৪৪তম দেশ। আইএমএফের মতে, ৭.১% হার নিয়ে বাংলাদেশের অর্থনীতি ২০১৬ সালের দ্বিতীয় বর্ধিষ্ণু অর্থনীতি।[৫][৬]

গ্রামীণ এবং শহুরে দারিদ্র্য[সম্পাদনা]

বিশ্বব্যাংক ২০১৩ সালের জুনে ঘোষণা দিয়েছিল যে, দেশে প্রায় ১৫ কোটি জনসংখ্যা থাকা সত্বেও, বাংলাদেশ ২০০০ সালের ৬.৩ কোটি দারিদ্র্য সীমায় বসবাসকারী থেকে কমিয়ে ২০১০-এ ৪.৬ কোটি এনেছে। এর মানে হল যে বাংলাদেশ হবে প্রথম দেশ যেটি দারিদ্র বিমোচনে সর্বপ্রথম জাতিসংঘের সহস্রাব্দ উন্নয়ন লক্ষ্যমাত্রা প্রতিষ্ঠা করবে, ২০১৫ সময়সীমার দুই বছর আগে। বাংলাদেশ তার দারিদ্র্যতার হার কমাতে অগ্রগতি অর্জন করছে এবং বিশ্বব্যাংকের মতে ২০৩০ সালের মধ্যে চরম দারিদ্র্য বিমোচনে বড় সুযোগ রয়েছে।[৪]

১৯৯০ সাল থেকে, আন্তর্জাতিক সহায়তার সহায়তায়, প্রতি বছর ১ শতাংশ দারিদ্র্যের হার কমেছে।[তথ্যসূত্র প্রয়োজন] বাংলাদেশ পরিসংখ্যান ব্যুরোর ২০১০ এর পরিসংখ্যান অনুসারে, জনসংখ্যার ১৭.৬ শতাংশকে দারিদ্র্য সীমার নীচে পাওয়া গেছে।[তথ্যসূত্র প্রয়োজন]

বাংলাদেশের জনসংখ্যা মূলত গ্রামীণ, প্রায় ৮০ শতাংশ জনসংখ্যা গ্রামীণ এলাকায় বসবাস করে।[৭] অনেক মানুষ দূরবর্তী এলাকায় বাসকরে যেখানে শিক্ষা, স্বাস্থ্য ক্লিনিক, এবং পর্যাপ্ত সড়ক, বিশেষ করে বাজারের সাথে সংযোগ আছে এমন রাস্তা এই ধরনের সেবার অভাব রয়েছে।[তথ্যসূত্র প্রয়োজন] গ্রামীণ এলাকায় আনুমানিক ৩৫ শতাংশ জনসংখ্যা দারিদ্র্য সীমার নিচে বসবাস করে।[৮] তারা ক্রমাগত খাদ্য নিরাপত্তাহীনতায় ভোগে, ভূমি ও সম্পত্তির মালিক নয়, প্রায়ই অশিক্ষিত এবং গুরুতর অসুস্থতা বা অক্ষমতায়ও ভুগতে পারে।[তথ্যসূত্র প্রয়োজন] গ্রামীণ জনসংখ্যার অন্য ২৯ শতাংশকেও সমানভাবে দরিদ্র বলে মনে করা হয়।[তথ্যসূত্র প্রয়োজন] যদিও তাদের একটি ছোট খন্ডের ভূমি এবং কিছু পশুসম্পত্তি রয়েছে এবং সাধারণত তারা যথেষ্ট খেতে পারে, কিন্তু তাদের খাদ্যে পুষ্টি মানের অভাব।[তথ্যসূত্র প্রয়োজন] স্বাস্থ্য সমস্যা বা প্রাকৃতিক বিপর্যয়ের ফলে, তারা আরো গভীর দারিদ্র্যের মধ্যে প্রবেশ করার ঝুঁকিতে থাকে।[তথ্যসূত্র প্রয়োজন] গ্রামীণ দারিদ্রের মধ্যে মহিলারা সর্বোচ্চ দরিদ্র হয়, যখন তারা তাদের পরিবারের একমাত্র মাথা হয়।[তথ্যসূত্র প্রয়োজন] তারা বৈষম্যের স্বীকার হয় এবং তাদের আয়ের অল্পই সুযোগ থাকে, এবং প্রায়ই তাদের পুষ্টি গ্রহনে অপর্যাপ্ততা থাকে।[তথ্যসূত্র প্রয়োজন]

আনুমানিক ২১ শতাংশ শহরাঞ্চলে বসবাসকারী দারিদ্র্যসীমার নিচে বসবাস।[৮] সিলেট, ঢাকা, চট্টগ্রাম, খুলনা এবং রাজশাহী এসব শহরের মতো শহরে বসবাসকারীররা বিদ্যুৎ, গ্যাস, এবং পরিষ্কার জল সরবরাহসহ একটি ভাল জীবনযাত্রার মান ভোগ করেন।[৯] এমনকি প্রধান শহরগুলোতে, যাইহোক, "বাংলাদেশীদের একটি গুরুত্বপূর্ণ অংশ অপরিচ্ছন্নতায় বাস করে যখন বর্ষাকালে এগুলো বিচ্ছিন্ন হয়ে যায়, এবং নিয়মিত বিদ্যুৎ থাকে না। এই বাংলাদেশিদের স্বাস্থ্যসেবা এবং পরিষ্কার পানীয় জলের সীমিত উপলব্ধি করার ক্ষমতা রয়েছে। "[৯]

এপ্রিল ২০১৬-এ, এশীয় উন্নয়ন ব্যাংক এর মতে বাংলাদেশে আনুমানিক ১৫.৭৯ কোটি মানুষ বসবাস করে , যার ৩১.৫% জাতীয় দারিদ্র্যসীমার নিচে বাস করে।[১০]

গ্রামীণ এবং শহুরে দারিদ্র্যের কারণসমূহ[সম্পাদনা]

দারিদ্রের অন্যতম প্রধান কারণ হচ্ছে স্থানীয় দুর্নীতি ও একটি অযোগ্য সরকার যেটি অবকাঠামো ও ভাল আইন গড়ে তুলতে অল্পই অবদান রেখেছে। গ্রামীণ দারিদ্র্যের একটি প্রধান কারণ হচ্ছে দেশের ভৌগলিক এবং জনতাত্ত্বিক বৈশিষ্ট্য। দেশের একটি বৃহৎ অংশ নিচু অঞ্চলে অবস্থিত হওয়ায় বন্যায় ডুবে যাওয়ার ঝুঁকিতে থাকে। অনেক গ্রামীণ দরিদ্র লোক এমন জায়গায় বসবাস করে যেগুলো বার্ষিক বন্যায় কবলিত হয় এবং যা তাদের ফসল, বাড়িঘর এবং জীবিকার বিপুল ক্ষতি করে থাকে। তাদের বাড়িঘর পুনর্নির্মাণের জন্য, তাদেরকে প্রায়ই মহাজনের অবলম্বন হতে হয়, এবং যা তাদেরকে আরো গভীর দারিদ্র্যের মধ্যে প্রবেশ করায়। উপরন্তু, এই প্রাকৃতিক দুর্যোগ প্রাদুর্ভাব ঘটায় কলেরা, ডায়রিয়া এবং অন্যান্য পানিবাহিত রোগের। ডেঙ্গু ও ম্যালেরিয়া তাদের শারীরিকভাবে এবং তাদের উৎপাদনশীলতার মাত্রা কমিয়ে দেয়।[১১][১২][১৩]

গ্রামীণ দারিদ্র্যের আরেকটি কারণ হল দ্রুত বর্ধমান জনসংখ্যা হার। এটি পরিবেশে বিশাল চাপ সৃষ্টি করে, এতে করে ক্ষয় এবং বন্যার মতো সমস্যা সৃষ্টি হয়, যার ফলে কৃষিতে উৎপাদনশীলতা হ্রাস পায়।

শহুরে দারিদ্র্যের কারণ সীমিত কর্মসংস্থানের সুযোগ, অবনতিশীল পরিবেশ, খারাপ আবাসন ও স্যানিটেশন। শহুরে দরিদ্ররা শ্রমিকের কাজ করে থাকে, যা তাদের স্বাস্থ্য শর্তকে প্রভাবিত করে। অতএব, শহুরে দরিদ্ররা দারিদ্র্য থেকে রক্ষা পাওয়ার জন্য একটি কঠিন পরিস্থিতিতে রয়েছে।

পরিবেশগত সমস্যা এবং দারিদ্র্য[সম্পাদনা]

দেশের ৮০% গঙ্গা, ব্রহ্মপুত্র, মেঘনা এবং অন্যান্য ছোট নদীগুলির বন্যার সমভূমিতে অবস্থিত, যার ফলে দেশটি বন্যার প্রাদুর্ভাবের শিকার হয়।

যদিও কিছু বন্যা কৃষির জন্য উপকারী, উচ্চ মাত্রার বন্যায় কৃষি প্রবৃদ্ধির উপর একটি সুফল পাওয়া গেছে।[১৪] বন্যার কারণে বছরে গড়ে ১৬% পরিবারের আয় হ্রাস হয়, সম্পত্তি ও সম্পত্তির ক্ষতি প্রায় ৮৯%। এর মধ্যে, তুলনায় চাষাবাদ এবং মাছ ধরার সাথে জড়িত পরিবারের আয়ের আরো বেশি ক্ষতি সাধিত হয়।[১৫]

বন্যার ঝুঁকি ও দারিদ্র্যের মধ্যে একটি ইতিবাচক সম্পর্ক রয়েছে যা পরিবারের আয়ের দ্বারা পরিমাপ করা হয়, দারিদ্র্য সীমার নিচে বসবাসকারী মানুষ বন্যার উচ্চ ঝুঁকির সম্মুখীন, যেমন নদী এবং বন্যার গভীরতার দ্বারা পরিমাপ করা হয়।[১৫] বন্যার উচ্চ ঝুঁকি সম্পতির মূল্যও কমিয়ে দেয়,[১৬] এটা সম্ভবত যে কেউ যারা একটি বন্যা-প্রবণ এলাকায় বসবাস করে তারা দরিদ্র এবং তদ্বিপরীত, তারা নিরাপদ থাকার ব্যবস্থার সামর্থ্য করতে সক্ষম নাও হতে পারে। এছাড়াও, তারা তাদের জীবনধারনের জন্য ফসলের চাষ এবং মৎস্য সম্পদের উপর নির্ভর করে বা তাদের উপর নির্ভরশীল হয় এবং এইভাবে তাদের আয়ের সাথে সম্পর্কিত বন্যার দ্বারা কঠিন আঘাত ঘটে।

কৃষকদের ক্ষুদ্র ক্ষুদ্র চাষাবাদ অর্থায়নে গুরুত্বপূর্ণ এবং চাল ও বন্যায় তাদের স্বনির্ভরতা প্রতিকূলভাবে এই উৎপাদনকে প্রভাবিত করে, ফসল ও আবাদী জমি ধ্বংস করে। কৃষকদের উপর আঘাত প্রায়ই পীড়িত জমি বিক্রি করতে বাধ্য করে এবং এভাবে কাজ করে, ঝুঁকি দারিদ্র্যের মধ্যে ধীরে ধীরে বা গভীর হয়ে যায়।[১৭] ১৯৮৮ সালের বন্যার মত বন্যা, বিশেষ করে এসব দুর্যোগপূর্ণ বন্যার মতো এলাকায় বেশ কিছু গবেষকরা দেখিয়েছেন যে অনেকগুলি ক্ষতিগ্রস্ত পরিবার জমি এবং পশুসম্পদের মতো সম্পদ বিক্রি করতে গিয়ে ক্ষয়ক্ষতির সম্মুখীন হয়েছে।[১৮][১৯]

এছাড়াও, দারিদ্র্য ও বন্যার প্রভাবে ক্ষতিগ্রস্ত এলাকার একটি এলাকায়, এটি দেখা যায় যে অনেকগুলি দরিদ্র বন্যা সুরক্ষার জন্য অর্থ প্রদান করতে অনিচ্ছুক ছিল। উল্লেখ্য প্রধান কারণ আর্থিক সম্পদের অভাব ছিল যদিও এটি পাওয়া গেছে যে অনেক মানুষ অর্থের পরিশোধে যেমন, শ্রম, ফসল বা তাদের ভূমির অংশের বিনিময়ে পরিশোধে ইচ্ছুক ছিল।[১৯]

উপরে সমস্যাটি সমস্যাযুক্ত কারণ এটি বাংলাদেশের দরিদ্রদের জন্য একটি বিদ্বেষপূর্ণ চক্র তৈরি করে। যেহেতু দরিদ্ররা নিরাপদ আশ্রয়ের পক্ষে সক্ষম নাও হতে পারে, তাদেরকে নদীর কাছাকাছি বসবাস করতে হবে যা বন্যার ঝুঁকি বাড়ায়। এর ফলে বন্যা থেকে অধিক ক্ষতিগ্রস্ত হবে, দরিদ্রের সম্পদ বিক্রি করলে তা দরিদ্র জনগোষ্ঠীকে আরো দারিদ্র্যতায় এগিয়ে নিয়ে যাবে। বন্যার ব্যাপক ক্ষতি থেকে আত্মরক্ষার জন্য তারা যথেষ্ট প্রয়োজনীয় সম্পদ থেকে বঞ্চিত হবে, ফলে আরও বেশি বন্যায় ক্ষয়-ক্ষতি ও দারিদ্র্যতা বৃদ্ধি পাবে। তারপর এই চক্র থেকে অব্যাহতি এমনকি আরো কঠিন হয়ে যাবে। এমনকি যেসকল কৃষক দারিদ্র্য সীমার একটু উপরে কিন্তু একটি খারাপ বন্যা তাদেরকেও দারিদ্র সীমার নিচে নিয়ে আসবে।

বাংলাদেশে দারিদ্র্যের প্রভাব[সম্পাদনা]

২০০৮-এ মাথাপিছু স্থূল জাতীয় আয় (জিএনআই) আশ্চর্যজনক ভাবে মার্কিন$৫২০ ডলার এর নিচে যখন মাথাপিছু জিএনআই ক্রয় ক্ষমতা সমতা হয় মার্কিন$১৪৪০ ডলার (২০০৮)।[২০] অন্যান্য উন্নত অর্থনীতির তুলনায় এটি একটি নিন্দনীয় চিত্র। যদিও বাংলাদেশে দারিদ্র্যের হার হ্রাস পেয়েছে, তবুও প্রতিবছর ২% এরও কম ধীর গতিতে এই কাজটি করা হচ্ছে।[২১] ৪৯% জনসংখ্যা এখনও দারিদ্র্য সীমার নীচে অবস্থান করছে। দারিদ্র্যতা একটি বিষয় কারণ এটি বৃদ্ধির অনেকগুলি কারণকে প্রভাবিত করে - শিক্ষা, জনসংখ্যা বৃদ্ধির হার, কর্মসংস্থান এবং জনগনের নীতি। দারিদ্র্য বাংলাদেশের গ্রামীণ এলাকায় সর্বাধিক কেন্দ্রীভূত, সেইজন্য গ্রামীণ ও শহুরে এলাকার মধ্যে বৈষম্য তৈরি করে। তবে, শহুরে দারিদ্র্যও একটি সমস্যা রয়েছে।

বিশেষত, দারিদ্র্যকে শিক্ষার এবং কর্মসংস্থানের সাথে জোরালোভাবে সংযুক্ত করা হয়েছে। বাংলাদেশ ইনস্টিটিউট অব ডেভেলপমেন্ট স্টাডিজ (বিআইডিএস) এর প্রকাশিত গবেষণা পত্রগুলি দেখিয়েছে যে দারিদ্র্য শিক্ষার অভাবের কারণ ও প্রভাব উভয়েরই কাজ করে, যা পরিবর্তে কর্মসংস্থানের সুযোগ প্রভাবিত করে। একটি অদক্ষ কর্মী থাকলেও কর্মশক্তির উৎপাদনশীলতা হ্রাস করে যা বিদেশী সরাসরি বিনিয়োগের (এফডিআই) আবেদন হ্রাস করে এবং এইভাবে টেকসই অর্থনৈতিক প্রবৃদ্ধি বাধাগ্রস্ত করে। প্রকৃতপক্ষে, শিক্ষা একটি দেশের সামাজিক ও অর্থনৈতিক উন্নয়নে গুরুত্বপূর্ণ অবদান।

দ্বিতীয়ত, ভূমিহীনতা বৃদ্ধি বাংলাদেশের দারিদ্র্যের কারণ। ২০০০ সালে দরিদ্রতম দরিদ্র জনগোষ্ঠীর মধ্যে - দরিদ্রতম জনসংখ্যার ২০ শতাংশের পাঁচ জনের মধ্যে চারজন অর্ধেক একর জমি থেকেও কম অংশের মালিক। অনেকেরই নিজস্ব কোনও মোট ভূ সম্পত্তি ছিল না, কিন্তু গ্রামাঞ্চলে ক্ষুদ্র ও প্রান্তিক চাষের সংখ্যা নিয়েও ভূমিহীনতা বৃদ্ধি পেয়েছে।[২২] ২০০০ সালের পারিবারিক আয় এবং ব্যয় জরিপে (HIES) দেশের গ্রামীণ জনসংখ্যার প্রায় অর্ধেক (৪৮ শতাংশ) কার্যকরভাবে ভূমিহীন হয়ে দেখা দিয়েছে, সর্বাধিক ০.০৫ একর জমির মালিক। মোটামুটিভাবে তিন-পঞ্চমাংশ পরিবার এই শ্রেণীতে অর্ন্তভুক্ত।

সর্বশেষে, দীর্ঘস্থায়ী দারিদ্রের জন্য, সমস্যা যেমন খাদ্য নিরাপত্তা ও স্বাস্থ্য সামাজিক গতিশীলতা ব্যাহত করে। ঢাকার উপর বিশ্বব্যাংক কর্তৃক সম্পন্ন একটি সমীক্ষা অনুযায়ী, ব্যয়বহুল এবং দরিদ্র মানের স্বাস্থ্য যত্ন সেবার কারণে দরিদ্ররা তাদের এলাকায় সঠিক স্বাস্থ্যপরিসেবা অভাবে ভুগছে।[২৩] এই দুর্গত এলাকায় হয় উপলব্ধ সুবিধা আছে না, বা তারা শুধুমাত্র নিম্ন মানের স্বাস্থ্যপরিসেবা সামর্থ্য করতে পারে। এটি উভয় গ্রামীণ এবং শহুরে দরিদ্রদের জন্য সাধারণ সমস্যা। শহুরে দরিদ্রদের সমস্যার মধ্যে আছে তারা শুধুমাত্র বস্তিতে থাকার সামর্থ্য করতে পারেন যেখানে ঠাসাঠাসি এবং তাদের অস্বাস্থ্যকর জীবনযাপনের সম্মমুখীন হতে হয়। এই দুটি বিষয় দরিদ্র লোকদের মধ্যে আরো রোগ ছড়িয়ে দেয় যাদের কিনা ভালো স্বাস্থ্যসেবার সার্মথ্য নেই। এছাড়াও, এক একটি সুস্থ ও হৃষ্টপুষ্ট নাগরিক দুই অংশ হিসাবে কর্মক্ষেত্রে বর্ধিত উত্পাদনশীলতা জন্য ভাল যা অস্বীকার করা যাবেনা। সুতরাং, দারিদ্র্য বিষয় কারণ এটি নাগরিকদের সমাজকল্যাণকে প্রভাবিত করে।

আরো দেখুন[সম্পাদনা]

তথ্যসূত্র[সম্পাদনা]

  1. Misha, Farzana; Sulaiman, Munshi। "Bangladesh Priorities: Poverty, Sulaiman and Misha | Copenhagen Consensus Center"www.copenhagenconsensus.com (ইংরেজি ভাষায়)। Copenhagen Consensus। সংগ্রহের তারিখ ৭ এপ্রিল ২০১৬ 
  2. "Bangladesh's extreme poverty rate drops to 12.9 percent, says World Bank - bdnews24.com"bdnews24.com (ইংরেজি ভাষায়)।  line feed character in |title= at position 75 (সাহায্য)
  3. "Learning from Bangladesh's journey toward ending poverty" (ইংরেজি ভাষায়)। 
  4. "Bangladesh Can Overcome Extreme Poverty through More Inclusive Growth" (ইংরেজি ভাষায়)। 
  5. "Bangladesh world's 2nd most pro-free market country"Dhaka Tribune (ইংরেজি ভাষায়)। ১ নভেম্বর ২০১৪। 
  6. Devnath, Arun। "Record Exports Seen Rising as Bangladesh Woos U.S. Consumers"Bloomberg.com (ইংরেজি ভাষায়)। 
  7. "Bangladesh: Priorities for Agriculture and Rural Development", Agriculture in South Asia, The World Bank, accessed 22 July 2013
  8. ""Rural poverty in Bangladesh", Rural Recovery Portal" (ইংরেজি ভাষায়)। 
  9. "Bangladesh – Poverty and wealth", Encyclopedia of the Nations, accessed 22 July 2013
  10. Asian Development Bank. (n.d.). Poverty in Bangladesh. Retrieved 21 November 2016 from https://www.adb.org/countries/bangladesh/poverty
  11. Rural Poverty Portal,[১] "Rural poverty in Bangladesh", Retrieved 23 February 2011
  12. World Bank – Agriculture – Bangladesh. [২]"Bangladesh: Priorities for Agriculture and Rural Development" Retrieved 23 February 2011
  13. Japan Bank for International Cooperation. [৩]"Poverty Profile People's Republic of Bangladesh, Executive Summary", Retrieved 23 February 2011
  14. Boyce, James K. (ডিসেম্বর ১৯৮৬)। "The Bangladesh Development Studies" (ইংরেজি ভাষায়)। 14 (4): 1–35। জেস্টোর 40795261 
  15. Brouwer, R.; Akter, S.; Brander, L.; Haque, E (এপ্রিল ২০০৭)। "Socioeconomic Vulnerability and Adaptation to Environmental Risk: A Case Study of Climate Change and Flooding in Bangladesh"। Risk Analysis (ইংরেজি ভাষায়)। Wiley। 27: 313–326। doi:10.1111/j.1539-6924.2007.00884.x 
  16. Brouwer, R.; Akter, S.; Brander, L.; Haque, E (জুন ২০০৯)। "Economic valuation of flood risk exposure and reduction in a severely flood prone developing country"। Environment and Development Economics (ইংরেজি ভাষায়)। Cambridge University Press। 14 (3): 397–417। doi:10.1017/S1355770X08004828 
  17. Orr, Alastair; Magor, Noel; Islam, A.S.M. Nazrul (মার্চ–জুন ১৯৯৫)। "Targeting Vulnerable Small Farm Households in Bangladesh"। The Bangladesh Development Studies (ইংরেজি ভাষায়)। 23 (1/2): 29–47। জেস্টোর 40795525 
  18. Haque,C.E., & Zaman, M.Q. Vulnerability and responses to riverine hazards in Bangladesh: A critique of flood control and mitigation approaches. In A. Varley (Ed)., Disasters, Development and the Environment (1994). New York: Wiley.
  19. Orr et al.: Orr, A, Magor, N.P., Islam, A.S.M., Islam, R., Shah-E-Alam, M., and Jabbar, M.A., Vulnerable Farmers in the DWR Environment: The Impact of the 1988 Floods., In BRRI, Reducing Small Farmer Vulnerability in Bangladesh. Proceedings of the BRRI Workshop, Joydebpur, 30–31 May (1992). Dhaka: BRRI
  20. Bangladesh – facts at a glance – CIDA,http://www.acdi-cida.gc.ca/acdi-cida/ACDI-CIDA.nsf/eng/JUD-31105911-LRJ, Retrieved 10 March 2011
  21. Mujeri, Mustafa, K. (Winter ২০০০)। "Poverty Trends and Growth Performance: Some Issues in Bangladesh"। The Pakistan Development Review (ইংরেজি ভাষায়)। Performance: Some Issues in Bangladesh। 39 (4): 1171–1191। জেস্টোর 41260319 
  22. World Bank. 2002. Report No. 24299-BD: Poverty in Bangladesh: Building on Progress Paper prepared by Poverty Reduction and Economic Management Sector Unit South Asia Region, World Bank Document
  23. World Bank. "The Challenges Of Service Delivery for Dhaka’s"www.worldbank.org. World Bank, n.d.Web.3 Mar.2011.<http://siteresources.worldbank.org/BANGLADESHEXTN/Resources/2957591182963268987/ch4.pdf[স্থায়ীভাবে অকার্যকর সংযোগ]>, Retrieved 10 March 2011