বিশেষ শাখা (বাংলাদেশ পুলিশ)

উইকিপিডিয়া, মুক্ত বিশ্বকোষ থেকে
(বিশেষ শাখা (বাংলাদেশ) থেকে পুনর্নির্দেশিত)
বিশেষ শাখা
বাংলাদেশ পুলিশের বিশেষ শাখা.png
বাংলাদেশ পুলিশের বিশেষ শাখার মনোগ্রাম
সংস্থার রূপরেখা
সদর দপ্তরমালিবাগ, ঢাকা
সংস্থা নির্বাহী
  • , অতিরিক্ত পুলিশ মহাপরিদর্শক পদমর্যাদা (গ্রেড −১)
মূল সংস্থাবাংলাদেশ পুলিশ

বিশেষ শাখা বা স্পেশাল ব্রাঞ্চ বা এসবি হল বাংলাদেশ পুলিশের প্রধান গোয়েন্দা সংস্থা, বাংলাদেশী গোয়েন্দা সম্প্রদায়ের একটি গুরুত্বপূর্ণ এজেন্সি। এসবির প্রধান হলেন অতিরিক্ত পুলিশ পরিদর্শক (অতিরিক্ত আইজিপি, গ্রেড–১)/মেজর জেনারেল পদমর্যাদার, যিনি বাংলাদেশ পুলিশ থেকে আসেন এবং সরাসরি বাংলাদেশের প্রধানমন্ত্রীকে রিপোর্ট করেন। এজেন্সিটির প্রায় ৬৪টি জেলা ভিত্তিক অফিস রয়েছে, তাকে জেলা বিশেষ শাখা (ডিএসবি) বলা হয় এবং অনেক উপজেলা/থানা এলাকায়ও এর অফিস রয়েছে। সকল সদস্য বাংলাদেশ পুলিশ থেকে নিয়োগপ্রাপ্ত। এসবি (বিশেষ শাখা) এর বারোটি বিভিন্ন শাখা রয়েছে যার মাধ্যমে এটি সরকারের নির্দেশনা বহন করে। এটি বাংলাদেশের একমাত্র গোয়েন্দা সংস্থা যা সমস্ত কৌশলগত, পরিচালনা ও কৌশলগত স্তরে কাজ করে।

ঐতিহাসিক পটভূমি[সম্পাদনা]

ভারতে ব্রিটিশ শাসনের শুরুতে প্রত্যন্ত অঞ্চলগুলি থেকে অপরাধ ও সামাজিক-ধর্মীয় উন্নয়নের তথ্য সংগ্রহের জন্য সরকার সাধারণত গ্রাম-নজরদারি ব্যবস্থার উপর নির্ভরশীল ছিল। রাজনৈতিক প্রকৃতির তথ্যের প্রতিবেদন করার কোনও সংগঠিত ব্যবস্থা খুব কমই ছিল। স্থানীয় প্রশাসনের তথ্য পাওয়ার আরেকটি চ্যানেল ছিল জমিদার এবং সমাজের প্রভাবশালী ব্যক্তিরা, তাদের ব্যক্তিগত যোগাযোগ রক্ষা করে তথ্য সংগ্রহ করা হতো।

ব্রিটিশ শাসনামলে গোয়েন্দা শাখা গঠন[সম্পাদনা]

যখন কংগ্রেস আন্দোলন শুরু হচ্ছিল, ডাফরিন রাজনৈতিক গোয়েন্দা তথ্য সংগ্রহ করার পদ্ধতির অপ্রতুলতা সম্পর্কে অবগত হন এবং ভারতীয় জাতীয় কংগ্রেসকে তিনি সাম্রাজ্যের স্থিতিশীলতার জন্য হুমকি হিসেবে দেখেন, কেননা সেই সময় দেশে অন্য কোনও রাজনৈতিক আন্দোলন ছিল না। ডাফরিনের প্রস্তাবের প্রেক্ষিতে, ১৮৮৭ সালের ২২ ডিসেম্বর ব্রিটিশ ভারতের প্রতিটি প্রাদেশিক সরকারের সদর দপ্তরে একটি কেন্দ্রীয় বিশেষ শাখা এবং পুলিশের বিশেষ শাখা স্থাপনের জন্য একটি আদেশ জারি করা হয়।

শুরুতে, কেন্দ্রীয় বিশেষ শাখার একক কেবল তাদের নিয়ন্ত্রণে ছিল না। তারা কেবল প্রদেশের বিশেষ শাখা থেকে প্রাপ্ত প্রতিবেদনগুলি সঙ্কলন এবং সংকলন করছিলেন।

১৯০১ সালে সিদ্ধান্ত নেওয়া হয় যে, কেন্দ্রীয় বিশেষ শাখা যেটি শুধুমাত্র রাজনৈতিক গোয়েন্দা তথ্য সংগ্রহের জন্য কাজ করত, সেটি সম্প্রসারিত করা উচিত যাতে নির্বাচিত গোয়েন্দা এজেন্টদের অন্তর্ভুক্ত করা যায়। যাদের কাজ হবে রাজনৈতিক আন্দোলন পর্যবেক্ষণের করা এবং একক প্রদেশের সীমা ছাড়িয়ে যায় সেই ধরণের সংগঠিত অপরাধ মোকাবেলা করা।

জেলা গোয়েন্দা শাখা অফিস গঠন[সম্পাদনা]

ধীরে ধীরে জানা যায় যে আন্ডারগ্রাউন্ড ষড়যন্ত্রকারী সংগঠনগুলির প্রভাব কেবল কলকাতায় সীমাবদ্ধ ছিল না বরং জেলাগুলিতে ছড়িয়ে পড়ছে। তখন জেলা সদরে গোয়েন্দা শাখা গঠনের ধারণাটি গুরুত্বসহকারে বিবেচনা করা হয়। ১৯০৮ সালে প্রথম দিকে এমন কিছু স্থানে বিশেষ শাখার কেন্দ্র গঠন করা হয় যেখানে আন্ডারগ্রাউন্ড সংগঠনগুলির অস্তিত্ব ব্রিটিশ সরকারের নজরে আসে। এই ধরনের কেন্দ্রগুলি ছিল: মেদিনীপুর, বরিশাল, দেওঘর, কুষ্টিয়া, খুলনা, যশোরে। প্রতিটি কেন্দ্রে একজন ইন্সপেক্টরের দায়িত্বে ছিলেন যাকে কলকাতা থেকে নির্দেশনা দেওয়া হত ও আরেকজন তার বদলি হিসেবে আসা না পর্যন্ত তিনি সেখানে দায়িত্ব পালন করতেন। প্রথম বিশ্বযুদ্ধের প্রাক্কালে, জেলাগুলোতে গোয়েন্দা শাখার দায়িত্বের জন্য একজন ঊর্ধ্বতন কর্মকর্তা থাকার প্রয়োজনীয়তা দেখা দেয়। কয়েকটি জেলায়, অতিরিক্ত পুলিশ সুপারদের জেলা গোয়েন্দা শাখার প্রধান হিসেবে নিযুক্ত করা হয়। যেখানে অতিরিক্ত পুলিশ সুপার ছিলেন না, সেখানে পুলিশ সুপারকে জেলা গোয়েন্দা শাখার প্রধানের দায়িত্ব দেয়া হয়। মেদিনীপুর, ঢাকা, চট্টগ্রাম ইত্যাদির মত বড় জেলাগুলিতে জেলা গোয়েন্দা শাখার দায়িত্বে ছিলেন একজন অতিরিক্ত পুলিশ সুপার। জেলা পুলিশের গোয়েন্দা শাখার দায়িত্ব ছিল:

  • ষড়যন্ত্রকারী সংগঠনের ছড়িয়ে পড়া সংক্রান্ত তথ্য সংগ্রহ।
  • ষড়যন্ত্রের সাধারণ বিষয়টিকে সামনে রেখে সুনির্দিষ্ট অপরাধগুলির তদন্ত।

গোয়েন্দা তথ্য সংগ্রহ ও প্রচারের পদ্ধতি এবং জেলা শাখা থেকে উচ্চতর পদস্থলে রিপোর্ট করার পদ্ধতি ধীরে ধীরে বিকশিত হয় এবং বছরের পর বছর ধরে বিধিবদ্ধ করা হয়েছিল। স্বাধীনতার আগের সময়ে সন্ত্রাসী সহিংসতা মোকাবেলায় বাংলার গোয়েন্দা শাখা ব্যতিক্রমী ক্ষমতা দেখিয়েছিল। তারা সন্ত্রাসী সহিংসতার জন্য দায়ী গোষ্ঠীকে খুঁজে বের করতে সমর্থ হয়েছিল।

বিশেষ শাখা সংস্থা[সম্পাদনা]

বর্তমানে মহানগর পুলিশের অতিরিক্ত কমিশনার (ডিআইজি) মো. মনিরুল ইসলাম । সদর দফতরে অবস্থিত ১০ তলা ভবন মালিবাগ, রাজারবাগ, ঢাকা, (মূল পয়েন্ট ইনস্টলেশন) হিসাবে পরিচিত হয়। নিরাপত্তা পরিকল্পনার পাশাপাশি গোয়েন্দা- সমাবেশ ও পাল্টা লড়াইয়ের কাজগুলির জন্য দায়বদ্ধ বাহিনীর সবচেয়ে গুরুত্বপূর্ণ অঙ্গটি। নগর অঞ্চলের জন্য সিটি বিশেষ শাখা (সিটি এসবি) এবং জেলাগুলির জন্য জেলা বিশেষ শাখা (ডিএসবি) রয়েছে। এই শাখার প্রধান দায়িত্ব হ'ল সরকার, বিদেশিদের নিবন্ধকরণ এবং নিয়ন্ত্রণের জন্য প্রয়োজনীয় কোনও বুদ্ধি অর্জন করা, যাচাইকরণের ভূমিকা পালন করা, ভিভিআইপি ও ভিআইপিগুলিকে সুরক্ষা প্রদান, গোয়েন্দা জমায়েতকরণ, অভিবাসন নিয়ন্ত্রণ ইত্যাদি।[১]

প্রশিক্ষণ[সম্পাদনা]

বিশেষ শাখা প্রশিক্ষণ বিদ্যালয়ের দায়িত্ব হল অফিসারদের প্রশিক্ষণ দেয়া। এটি সেপ্টেম্বর ১৯৯২ সালে ঢাকার উত্তরায় প্রতিষ্ঠিত হয়েছিল। এটি ২০০২ সালের জুনে মালিবাগে এবং ২০০৮ সালের ডিসেম্বরে ঢাকা মহানগর পুলিশের রাজারবাগ পুলিশ লাইনে স্থানান্তরিত হয়। এখানে গোয়েন্দা তথ্য-সংগ্রহ, নজরদারি, অভিবাসন নিয়ন্ত্রণ, এবং ভিভিআইপি সুরক্ষা সম্পর্কিত কোর্সে অফিসারদের প্রশিক্ষণ দেয়া হয়।[২]

তথ্যসূত্র[সম্পাদনা]

  1. অভিবাসন পুলিশ
  2. "Training"বাংলাদেশ পুলিশ। সংগ্রহের তারিখ ১৪ আগস্ট ২০১৭