আহমদ রেজা খান বেরলভী

উইকিপিডিয়া, মুক্ত বিশ্বকোষ থেকে
সরাসরি যাও: পরিভ্রমণ, অনুসন্ধান
আহমদ রেজা খান বেরলভী
ا حمد رضا خا ن بریلوی
DargahAlahazrat.jpg
উপাধি আলা হযরত
জন্ম ১৪ জুন ১৮৫৬[১]
বেরেলী, North-Western Provinces, ব্রিটিশ ভারত
মৃত্যু ২৮ অক্টোবর ১৯২১(১৯২১-১০-২৮) (৬৫ বছর)
Muhallah Sodagraan, Bareilly, UP, British Indian Empire
জাতীয়তা ব্রিটিশ ভারতীয়
যুগ Modern era
অঞ্চল দক্ষিণ এশিয়া
মাজহাব হানাফী[২]
শাখা সুন্নী[২]
মূল আগ্রহ Aqeedah, Fiqh, Tasawwuf
ওয়েবসাইট http://imamahmadraza.net/, http://www.raza.org.za, http://www.alahazrat.net , http://www.irshad-ul-islam.com/

আহমদ রেজা খান বেরলভী (উর্দু: احمد رضاخان بریلوی‎‎ احمد رضاخان بریلوی‎, হিন্দি: अहमद रज़ा खान, ১৪ জুন  ১৮৫৬ খ্রিস্টাব্দ বা ১০ সাওয়াল ১২৭২ হিজরি - ২৮ অক্টোবর ১৯২১ খ্রিস্টাব্দ বা ২৫ সফর ১৩৪০ হিজরি), ইমাম আহমদ রেজা খান, ইমাম আহমদ রেজা খান কাদেরী, বা আ'লা হযরত নামে ও পরিচিত যিনি একজন বিশিষ্ট মুসলিম মনীষী, সুফী এবং ব্রিটিশ ভারতের সমাজ সংস্কারক। সুন্নি ইসলামের মধ্যে বেরলভী আন্দোলনে তিনি ছিলেন প্রধান উদ্যোক্তা।[৩][৪][৫] তার লেখার বিষয়বস্তুতে আইন,  ধর্ম, দর্শন এবং বিজ্ঞান সহ বিভিন্ন বিষয় অন্তর্ভুক্ত ছিল। তিনি ছিলেন উর্বর লেখক, তার জীবদ্দশায় তিনি ইসলামী আইন-কানুনের উপর প্রায় ১০০০ টির অধিক লিখা লিখেছেন।[৪]

প্রাথমিক জীবন এবং পরিবার[সম্পাদনা]

আহমাদ রেজা খান বেরলভীর পিতা নকী আলী খান ছিলেন রেজা আলী খানের পুত্র.[৬][৭]

আহমাদ রেজা খান ১৪ জুন ১৮৫৬ সালে ব্রিটিশ ভারতের বেরেলী শহরের জাসলী মহল্লাতে জন্ম গ্রহণ করেন। জন্মের সময় তার নাম রাখা হয় মোহাম্মাদ।[৮]

বেরলভী আন্দোলন[সম্পাদনা]

আহমেদ রেজা বেরুলভী আযাদী আন্দোলনের বিরোধী ছিলেন। শাহ ওয়ালীউল্লাহ দেওলভীর বিরোধ পক্ষ হিসেবে তিনি আবির্ভূত হন। তিনি ততৎকালীন বৃটিশ শাসিত ভারতকে দারুল ইসলাম ঘোষণা করে জিহাদের বিপক্ষ অবস্থান নেন।

অবদান[সম্পাদনা]

বই[সম্পাদনা]

আহমদ রেজা আরবী, উর্দূ, এবং ফারসী ভাষায় বিভিন্ন বিষয়ে অনেক বই লিখেছেন, তার মধ্যে উল্লেখযোগ্য ফাতওয়া-ই-রিজভিয়া/ফাতওয়া রাদাভিয়াহ (৩০ খন্ড), যেটি ফাতুয়া সমুহের সংকলন, এবং "কানজুল ঈমান"(কোরআনের অনুবাদ)। তার বিভিন্ন বই ইউরোপীয় এবং দক্ষিণ এশিয়ার বিভিন্ন ভাষাতে অনূদিত হয়েছে[৯][১০] তার প্রধান অবদান:

কানজুল ঈমান (কোরআনের অনুবাদ)[সম্পাদনা]

কানজুল ঈমান(Urdu and Arabic: کنزالایمان) হল সুন্নি মুসলিম আহমদ রেজা খান কর্তৃক ১৯১০ সালে কোরআন শরিফের উর্দূ ভাষায় অনূদিত গ্রন্থ। এটি হানাফী মাযহাবের আইনসমুহকে সমর্থন করে[১১] এটি ভারত উপমহাদেশের সর্বাধিক পঠিত কোরআনের অনুবাদ গ্রন্থ হিসেবে বিবেচনা করা হয়, এটি ইউরোপ ও দক্ষিণ এশিয়ার বিভিন্ন ভাষায় অনূদিত হয়েছে যার মধ্যে রয়েছে ইংরেজী, হিন্দি, বাংলা, ডাচ, তুর্কী, সিন্ধি, গুজরাটী এবং পশতু. বাংলা ভাষায় কানযুল ঈমান গ্রন্থটি অনুবাদ করেন আল্লামা এম এ মান্নান,যা বাংলাদেশে ব্যাপক সমাদৃত হয়.[১০]

তথ্যসূত্র[সম্পাদনা]

  1. Hayat-e-Aala Hadhrat, vol.1 p.1
  2. Rahman, Tariq. "Munāẓarah Literature in Urdu: An Extra-Curricular Educational Input in Pakistan's Religious Education." Islamic Studies (2008): 197-220.
  3. See: He denied and condemned Taziah, Qawwali, tawaf of mazar, sada except Allah, women visiting at Shrines of Sufis.
  4. Usha Sanyal (১৯৯৮)। "Generational Changes in the Leadership of the Ahl-e Sunnat Movement in North India during the Twentieth Century"। Modern Asian Studies 32 (3): 635। ডিওআই:10.1017/S0026749X98003059 
  5. Riaz, Ali (২০০৮)। Faithful Education: Madrassahs in South Asia। New Brunswick, NJ: Rutgers University Press। পৃ: ৭৫। আইএসবিএন 978-0-8135-4345-1। "The emergence of Ahl-e-Sunnat wa Jama'at ... commonly referred to as Barelvis, under the leadership of Maulana Ahmed Riza Khan (1855-1921) ... The defining characteristic ... is the claim that it alone truly represents the sunnah (the Prophetic tradition and conduct), and thereby the true Sunni Muslim tradition." 
  6. "The blessed Genealogy of Sayyiduna AlaHadrat Imam Ahmad Rida Khan al-Baraylawi Alaihir raHmah | Alahzrat's Ancestral Tree"। alahazrat.net। সংগৃহীত ২৮ জুলাই ২০১৫ 
  7. "New Page 2"। taajushshariah.com। সংগৃহীত ২৮ জুলাই ২০১৫ 
  8. Ala Hadhrat by Bastawi, p. 25
  9. Skreslet, Paula Youngman, and Rebecca Skreslet. (2006).
  10. Maarif Raza, Karachi, Pakistan.
  11. Paula Youngman Skreslet; Rebecca Skreslet (জানুয়ারি ১, ২০০৬)। The Literature of Islam: A Guide to the Primary Sources in English Translation। Rowman & Littlefield। পৃ: 232–। আইএসবিএন 978-0-8108-5408-6। সংগৃহীত সেপ্টেম্বর ১৫, ২০১৩