মুসলিম স্টুডেন্ট অর্গানাইজেশন

উইকিপিডিয়া, মুক্ত বিশ্বকোষ থেকে
মুসলিম স্টুডেন্ট অর্গানাইজেশন অফ ইন্ডিয়া
সংক্ষেপেMSO India
নীতিবাক্যসুফিবাদকে ইসলামের মূল আদর্শ হিসাবে প্রচার করা এবং চরমপন্থা ও উগ্রবাদকে প্রতিহত করা
প্রতিষ্ঠাতাএড. এ.কে ইসমাইল ওয়াফা
ধরনএনজিও
আইনি অবস্থাসক্রিয়
সদরদপ্তরদিল্লি, ভারত
জাতীয় সভাপতি
শুজাত আলী কাদেরী (২০১৭-বর্তমান)
মূল ব্যক্তিত্ব
ড. গোলাম ইয়াহিয়া আনজুম, শুজাত আলী কাদেরী, সৈয়দ মুহাম্মদ কাদেরী
প্রকাশনা
  • The Revival (ইংরেজি সাময়িকী)
ওয়েবসাইটwww.msoofindia.net

মুসলিম স্টুডেন্টস অর্গানাইজেশন অফ ইন্ডিয়া (হিন্দি: मुस्लिम स्टूडेंट्स आर्गेनाइजेशन ऑफ़ इंडिया) বা এমএসও হল সুন্নী মুসলমানদের একটি ছাত্র এবং যুব শাখা, বিশেষত বেরলভী আন্দোলনের,[১] যারা ভারতে সুফিবাদের সাথে জড়িত। এটি পুরো ভারত জুড়ে কাজ করছে। [২] [৩] এমএসএ হল আলীগড় মুসলিম বিশ্ববিদ্যালয়ের অন্যতম শক্তিশালী যুব আন্দোলন [৪] এবং দেশের মুসলিম জনসংখ্যা ও প্রতিষ্ঠানে তীব্র উপস্থিতি রয়েছে।[৫] এটি আলীগড় মুসলিম বিশ্ববিদ্যালয়ে সিমির (SIMI) প্রভাব মোকাবেলায় গঠিত হয়েছিল। [১]

মিশন[সম্পাদনা]

"কুরআন ও সুন্নাহ'র আলোকে সমাজ ও দেশের উন্নয়নে শিক্ষার্থী ও যুবকদের পথনির্দেশনা করা। كونوا مع الصادقين এবং সত্যবাদী (কুরআন) এর সাথে থাকি সংগঠনের স্লোগান"

— এমএসও ভারত[৬]

গঠন ও মতাদর্শ[সম্পাদনা]

এমএসও ১৯৯৩ সালে কেনেডি অডিটোরিয়ামে প্রথম সম্মেলনের আয়োজন করে

১৯৭৭ সালে আলিগড় মুসলিম বিশ্ববিদ্যালয়ে ছাত্র এবং শিক্ষাবিদদের দ্বারা গঠিত। এড. ইসমাইল ওয়াফা ছিলেন শীর্ষস্থানীয় শিক্ষার্থী, যিনি ভারতের এমএসও প্রতিষ্ঠা করতে সহায়তা করেছিলেন, এমএসও আহলে সুন্নাত ওয়াল জামা'আহ ইসলামের আদর্শকে অনুসরণ করে যা ঐতিহ্যবাহী ইসলাম হিসাবেও পরিচিত। এমএসওর অভিমত, শান্তি প্রতিষ্ঠার লক্ষ্যে শান্তি, পারস্পরিক সহযোগিতা, ভালবাসা, ভ্রাতৃত্ব এবং সাম্প্রদায়িক সম্প্রীতির উপর ভিত্তি করে সুফি ইসলামী শিক্ষাগুলিই বিশ্বের সামনে একমাত্র বিকল্প পথ।[৭]১৯৯৩ সালে কেনেডি অডিটোরিয়ামে প্রথম সম্মেলনের আয়োজন করা হয়েছিল, যেখানে সুন্নি মারকাজ কেরালার শেখ আবু বকর আহমদ এবং ওয়ার্ল্ড ইসলামিক মিশনের আল্লামা আরশাদুল কাদেরী উপস্থিত ছিলেন।

পৃষ্ঠপোষক[সম্পাদনা]

এমএসও বিশ্বব্যাপী[৮]৫০০ প্রভাবশালী মুসলমানদের মধ্যে উল্লেখযোগ্য ইসলামী পন্ডিতদের[৭]দ্বারা পৃষ্ঠপোষকতা প্রাপ্ত।[তথ্যসূত্র প্রয়োজন]

  • অধ্যাপক সৈয়দ মুহাম্মদ আমিন মিয়া কাদেরী বরকাতী

আলিগড় মুসলিম বিশ্ববিদ্যালয়ের উর্দু বিভাগের অধ্যাপক, মারেহরা শরীফের সুফি দরগাহ ও খানকা-এ-বরকাতীয়ার সাজ্জাদানশীন এবং জামিয়া আল বরকাত আলিগড়ের সভাপতি।

  • অধ্যাপক সৈয়দ লিয়াকত হোসেন মঈনী

আজমীর শরীফ দরগাহের গদীনশীন, আলীগড় মুসলিম বিশ্ববিদ্যালয়ের ইতিহাস বিভাগের প্রাক্তন অধ্যাপক।

লক্ষ্য ও উদ্দেশ্য[সম্পাদনা]

এমএসও এর ওয়েবসাইট অনুসারে নিম্নলিখিত লক্ষ্য এবং উদ্দেশ্য রয়েছে:[৭]

  • যুবকদের মধ্যে ইসলামী মিশনারি কাজ করা
  • যুবকদের সক্রিয় সহায়তায় সমাজের বিভিন্ন অংশের মধ্যে শিক্ষার বিস্তার করা
  • শিক্ষার্থীদের সম্প্রদায় এবং দেশে সক্রিয় অবদানকারী হিসাবে প্রস্তুত করা
  • ইসলামী নৈতিকতা ও আধ্যাত্মিকতার উপর ভিত্তি করে সমাজ গঠন করা
  • ভারতের মুসলমানদের জন্য বুদ্ধিমান নেতৃত্ব গড়ে তোলা

বিস্তারণ[সম্পাদনা]

  • ২০১৮ সালের আগস্টে, এমএসও কর্ণাটক রাজ্যে ইউনিট গঠন করে দক্ষিণ ভারতে তার সাংগঠনিক শিকড় তৈরি করেছিল।
  • ২০১৭ সালের ফেব্রুয়ারীতে, জেএনইউ ক্যাম্পাস থেকে নাজিব নিখোঁজ হওয়া এবং দলিত কর্মী রোহিথ ভেমুলার বিতর্কিত আত্মহত্যার বিরুদ্ধে এমএসও রাজস্থানে প্রতিবাদ সভার আয়োজন করেছিল।[২]
  • ২০১৩ সালের জানুয়ারিতে, এমএসও'র জাতীয় নির্বাহী কেরালা রাজ্যের ক্যালিকট ইসলামিক সেন্টারে একটি বিশেষ সভা করেছিল। ২০টি রাজ্য থেকে দুটি সংস্থার আধিকারিকরা বৈঠকে অংশ নেন।[৯]
  • জাতীয় নির্বাহী ক্যাম্প ৮জুন'১৩ শনিবার গুজরাট রাজ্যের আহমেদাবাদ, হোটেল লে মেরিডিয়ানে অনুষ্ঠিত হয়েছিল। দেশের ২০টি রাজ্যের জাতীয় নির্বাহী সদস্যরা এতে অংশ নিয়েছিল। ক্যাম্পটিতে এমএসও রাজ্য কমিটি, জেলা কমিটি, স্থানীয় ও ক্যাম্পাস কমিটি গঠন, সদস্যপদ প্রচার ও হোস্টেল প্রতিষ্ঠাসহ পুরো বছরের পরিকল্পনা উপস্থাপন করা হয়। সভায় এমএসও পরিকল্পনা বোর্ড গঠনেরও ঘোষণা করা হয়েছিল সৈয়দ মুহাম্মদ কাদেরীকে সভাপতি পদে অব্যাহত রেখে কেরালার আর.পি. হোসাইনকে নতুন সাধারণ সম্পাদক হিসাবে ঘোষণা করা হয়েছিল।[১০]
  • ২০১৩ সালের জুনে বেরেলি সিটিতে আয়োজিত এক সভায় এমএসও উত্তর অঞ্চল উত্তর প্রদেশ, দিল্লি এবং রাজস্থান রাজ্যের জন্য তার নেতাদের নির্বাচিত করেছিল।[১১]
  • জুলাই ২০১৩-তে এমএসও বেঙ্গালুরুর আলসুরের খাইখা মিলনায়তনে কেরালা, কর্ণাটক, তামিলনাড়ু, লক্ষদ্বীপ এবং আন্দামান নিকোবর দ্বীপপুঞ্জের রাজ্য নেতাদের জন্য একটি কর্মশালা করেছিল। কর্ণাটক রাজ্য ওয়াকফ বোর্ডের পরিচালক শফি সাদি কর্মশালার উদ্বোধন করেছিলেন। এই সমস্ত রাজ্যের রাজ্য কমিটি গঠন করা হয়েছিল এবং এমএসওর জাতীয় কর্মসূচিতে কাজ করার জন্য বার্ষিক পরিকল্পনা তৈরি করা হয়েছিল। [১২]

জাতীয় ছাত্র সম্মেলন ২০১২ সালের ২৬ এপ্রিল থেকে ২৮ এপ্রিল দক্ষিণ ভারতের কেরালার এর্নাকুলামে অনুষ্ঠিত হয়েছিল, যেখানে ভারতের ২০টি রাজ্যের কমপক্ষে ৫০ জন জাতীয় প্রতিনিধি উপস্থিত ছিলেন।[১৩]

  • ২০১০ সালে এমপি ক্লাব নয়াদিল্লিতে সুন্নি মারকাজের উপাচার্য ড. হোসাইন সাকাফি, পরিচালক ড. আবদুল হাকিম আজহারীর উপস্থিতিতে একটি জাতীয় সভা অনুষ্ঠিত হয়েছিল এবং দিল্লী সংখ্যালঘু কমিশনের চেয়ারম্যান কামাল ফারুকীও উপস্থিত ছিলেন এবং সভাপতিত্ব করেন দিল্লি থেকে সুন্নি আলেম ড. মুফতি মোকাররম আহমদ। শত শত স্বেচ্ছাসেবক এতে অংশ নিয়েছিল।

কার্যক্রম ও অনুষ্ঠান[সম্পাদনা]

প্রধানত, এমএসও সারা দেশে তার বিভিন্ন ইউনিটের মাধ্যমে নিম্নলিখিত কর্মসূচির আয়োজন করে[১৪][১৫]

  • সাপ্তাহিক দরস-ই-কুরআন।
  • কর্মজীবন এবং কাজের নির্দেশিকা ইভেন্ট।
  • বার্ষিক আজমতে-ই-রসুল (দ.) সম্মেলন এবং মওলিদ সম্মেলন।
  • গ্রীষ্মকালীন ইসলামিক সম্মেলন।
  • মেধাবী শিক্ষার্থীদের পুরষ্কার অনুষ্ঠান।

আন্তর্জাতিক ইস্যুতে অবস্থান[সম্পাদনা]

জাতীয় ইস্যুতে অবস্থান[সম্পাদনা]

ধর্মীয় কার্যক্রম[সম্পাদনা]

শিক্ষামূলক কার্যক্রম[সম্পাদনা]

অফিস আধিকারিকের তালিকা[সম্পাদনা]

তথ্যসূত্র[সম্পাদনা]

  1. SFI makes comeback at AMU Eram Agha, TNN | timesofindia.com | 4 May 2015 ".....the Barelvi outfit Muslim Student Organisation (MSO)."
  2. Mahaboob Kakkad। "Welcome to SSFmalappuram.com (The online gateway to Sunni news and events)"। Ssfmalappuram.com। ২০১৫-০৯-২৪ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ২০১৫-০৮-১৬ 
  3. "MSO holds annual meet in Ajmer, vows to work for peace in society"। TwoCircles.net। ২০১২-০৫-১৭। সংগ্রহের তারিখ ২০১৫-০৮-১৬ 
  4. "SFI makes comeback at AMU - The Times of India"। Timesofindia.indiatimes.com। ২০১৫-০৫-০৪। সংগ্রহের তারিখ ২০১৫-০৮-১৬ 
  5. "MSO holds annual meet in Ajmer, vows to work for peace in society"। TwoCircles.net। ২০১২-০৫-১৭। সংগ্রহের তারিখ ২০১৫-০৮-১৬ 
  6. MSO of India: Policy and Program ওয়েব্যাক মেশিনে আর্কাইভকৃত ২৪ ডিসেম্বর ২০১৩ তারিখে
  7. https://web.archive.org/web/20131224110257/http://www.msoofindia.net/p/about-us.html। ২৪ ডিসেম্বর ২০১৩ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ১৬ জুলাই ২০১৫  |শিরোনাম= অনুপস্থিত বা খালি (সাহায্য)
  8. https://web.archive.org/web/20160202125142/http://www.themuslim500.com/dld.php?y=2014&r=Low&t=download_token। ২ ফেব্রুয়ারি ২০১৬ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ১৬ আগস্ট ২০১৫  |শিরোনাম= অনুপস্থিত বা খালি (সাহায্য)
  9. "National Executive of MSO meets in Calicut"। Muslim Mirror। ২০১৩-০১-০৫। ২০১৬-০২-০৫ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ২০১৫-০৮-১৬ 
  10. "MSO plans to strengthen moral values at colleges, varsities"। Muslim Mirror। ২০১৩-০৬-১১। সংগ্রহের তারিখ ২০১৫-০৮-১৬ 
  11. "MSO elects state leaders in UP, Rajasthan"। Muslim Mirror। ২০১৩-০৬-২৬। সংগ্রহের তারিখ ২০১৫-০৮-১৬ 
  12. "MSO holds leadership workshop for its South Zones"। Muslim Mirror। ২০১৩-০৭-১২। সংগ্রহের তারিখ ২০১৫-০৮-১৬ 
  13. "MSO delegation leaves for Kerala"। Hueiyenlanpao.com। ১৯৬৩-০৮-২৮। সংগ্রহের তারিখ ২০১৫-০৮-১৬ 
  14. "India News, Latest Sports, Bollywood, World, Business & Politics News"The Times of India। ২০১৩-১২-২৪ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ২০১৫-০৮-১৬ 
  15. "Job Mela for Muslim students"। Noorifoundation.com। সংগ্রহের তারিখ ২০১৫-০৮-১৬ 

বহিঃসংযোগ[সম্পাদনা]