অণুজীব

উইকিপিডিয়া, মুক্ত বিশ্বকোষ থেকে
পরিভ্রমণে ঝাঁপ দিন অনুসন্ধানে ঝাঁপ দিন
১০,০০০ গুণ পরিবর্ধিত E. coli

অণুজীব হলো সেই সকল ক্ষুদ্র এককোষী জীব যাদেরকে খালি চোখে দেখা যায় না। এরা আদিকেন্দ্রিকসুকেন্দ্রিক উভয় প্রকার হতে পারে। সকল প্রকার ব্যাক্টেরিয়া, আরকিয়া, প্রোটোজোয়া, এককোষী শৈবাল এবং ছত্রাক অণুজীবের অন্তর্গত।

কোষীয় গঠন[সম্পাদনা]

অণুজীব খালি চোখে দেখা যায় না। এদের নির্দিষ্ট কেন্দ্রিকাযুক্ত কোষ নেই। অণুজীব থেকেই সৃষ্টির শুরুতে জীবনের সূত্রপাত হয়। এদের আদিজীবও বলা হয়। ভাইরাস অণুজীবটির কোনো কোষ নেই। তাই ভাইরাস অকোষীয় অণুজীব। ব্যাকটেরিয়া অণুজীবটি আদিকোষী। এদের সুগঠিত কেন্দ্রিকা নেই। শৈবাল, ছত্রাক অণুজীবগুলো প্রকৃত কোষ। এদের কোষের কেন্দ্রিকা সুগঠিত।

শ্রেণিবিন্যাস[সম্পাদনা]

অণুজীব জগৎ তিনটি রাজ্যে বিভক্ত। যথা :

৹ এক্যারিওটা বা অকোষীয়

৹ প্রোক্যারিওটা বা আদিকোষী

৹ ইউক্যারিওটা বা প্রকৃত কোষী

▪︎এক্যারিওটা বা অকোষীয়ঃ এসব অণুজীব এতই ছোট যে তা সাধারণ আলোক অণুবীক্ষণ যন্ত্রের নিচেও দেখা যায় না। এদের দেখতে ইলেকট্রন অণুবীক্ষণ যন্ত্র এর প্রয়োজন হয়। যেমন, ভাইরাস

▪︎প্রোক্যারিওটা বা আদিকোষীঃ যেসব অণুজীবের কোষ এর কেন্দ্রিকা সুগঠিত নয় তারাই প্রোক্যারিওটা বা আদিকোষী রাজ্যের সদস্য। সুগঠিত কেন্দ্রিকা না থাকায় এদের কোষকে আদিকোষ বলা হয়। যথা- ব্যাকটেরিয়া

▪︎ইউক্যারিওটা বা প্রকৃতকোষীঃ যেসব অণুজীব কোষ এর কেন্দ্রিকা সুগঠিত তাদেরই প্রকৃত কোষ বলে। যথা- শৈবাল, ছত্রাকপ্রোটোজোয়া

বিবর্তন[সম্পাদনা]

বংশগতি[সম্পাদনা]

বাস্তুসংস্থান[সম্পাদনা]

শারীরতত্ত্ব[সম্পাদনা]

ব্যবহারিক প্রয়োগ[সম্পাদনা]