উষ্ণপ্রস্রবণ

উইকিপিডিয়া, মুক্ত বিশ্বকোষ থেকে
পরিভ্রমণে ঝাঁপ দিন অনুসন্ধানে ঝাঁপ দিন
স্ট্রোককুর উষ্ণপ্রস্রবণ, আইসল্যান্ড

একটি উষ্ণপ্রস্রবণ হল এক ধরনের প্রস্রবণ যার বৈশিষ্ট্য হল, এব় ভেতব় থেকে কিছু সময় পব় পব় পানি এবং বাষ্পেব় উচ্চ চাপে নির্গমণ হয়। উষ্ণপ্রস্রবণ মোটামুটি বিরল ঘটনা কারণ এটা গঠন হয় পৃথিবীর কয়েকটি নির্দিষ্ট স্থানে শুধুমাত্র বিদ্যমান হাইড্রোজিয়োলজিক্যাল অবস্থার ফলে। সাধারণত সব উষ্ণপ্রস্রবণেব় স্থানগুলি সক্রিয় আগ্নেয়গিরির এলাকায় অবস্থিত, এবং উষ্ণপ্রস্রবণ ঘটে ম্যাগমার নিকটবর্তী হওয়ার কারণে। সাধারণত, পৃষ্ঠের জল প্রায় ২,০০০ মিটার (৬,৬০০ ফুট) গড় গভী্রে পৌঁছে যায় যেখানে এটি গরম পাথরের সংস্পর্শে আসে। ফলশ্রুতিতে, চাপযুক্ত পানি ফুটে উঠে এবং উষ্ণপ্রস্রবণেব় পৃষ্ঠতল হতে ছিটকে বের হয় (হাইড্রোথার্মাল বিস্ফোরণ)।

উষ্ণপ্রস্রবণ নলতন্ত্রের ভেতর খনিজ পদার্থ জমা হবার কারণে, কাছাকাছি গরম পানির ঝরনার সাথে কাজ বিনিময়, ভূমিকম্পের প্রভাব এবং মানব হস্তক্ষেপের ফলে উষ্ণপ্রস্রবণের উদ্‌গিরণ কার্যকলাপ পরিবর্তন বা বন্ধ হয়ে যেতে পারে । [১] অন্যান্য প্রাকৃতিক ঘটনার মতো, উষ্ণপ্রস্রবণ শুধু পৃথিবীতে ঘটে না । বহিরাগত সৌরজগতের বেশ কয়েকটি চাঁদে, পিচকারির-মত বিস্ফোরণ, যা ক্রায়োগেইজার্স নামে পরিচিত, পর্যবেক্ষণ করা হয়েছে। সল্প চারিপার্শ্বিক চাপের কারণে, এই উদ্‌গিরণ তরল পদার্থ ছাড়া শুধু বাষ্প বের হয়; এই উদ্‌গিরণের সাখে ধুলো এবং বরফ কণার উপরে উঠে আসে যার ফলে এগুলো আরো সহজে দেখা যায় । শনির চাঁদ এনেসেলাদাসের দক্ষিণ মেরু কাছাকাছি পানির বাষ্পের জেট দেখা গেছে, নেপচুনের চাঁদ ট্রাইটন-এ নাইট্রোজেনের উদ্‌গিরণ পর্যবেক্ষিত হয়েছে। মঙ্গলের দক্ষিণ মেরু বরফ চূড়া থেকে কার্বন ডাই অক্সাইড উদ্‌গিরণ লক্ষণ দেথা গেছে। পরবর্তী দুই ক্ষেত্রে, ভূতাত্ত্বিক শক্তি দ্বারা চালিত হওয়ার পরিবর্তে, উদ্‌গিরণগুলি একটি কঠিনাবস্খা গ্রিনহাউস প্রভাবের মাধ্যমে সৌর উত্তাপনের উপর নির্ভর করে বলে মনে করা হয়।

উষ্ণপ্রস্রবণের কর্মপ্রক্রিয়ার প্রস্থচ্ছেদ

ব্যুৎপত্তি[সম্পাদনা]

১৮০০ শতাব্দীর শেষের দিকে 'গেইসার' শব্দটি আইসল্যান্ডের গেসির থেকে শুরু করে, যা আইসল্যান্ডের একটি বিশেষ বসন্তের নাম। এটি আইসল্যান্ডীয় শব্দ গিয়াস 'টু গাশ' এর সাথে সম্পর্কিত।[২]

গঠন[সম্পাদনা]

Water and steam erupting from rocky, barren ground. Fir trees in the background.
ইয়েলোস্টোন ন্যাশনাল পার্কের স্টিমবোট গেইসার

উষ্ণপ্রস্রবণ একটি অস্থায়ী ভূতাত্ত্বিক বৈশিষ্ট্য।উষ্ণপ্রস্রবণ সাধারণত আগ্নেয়গিরি এলাকার আসেপাশে দেখা যায়।[৩] উষ্ণপ্রস্রবণের ভেতর যখন পানি ফুটে উঠে, তখন উষ্ণপ্রস্রবণের নলতন্ত্রের ভেতর চাপ বেরে যায় এবং ফলশ্রুতিে নলতন্ত্রের ভেতর থেকে বাষ্প এবং পানি, একটি কলাম আকারে বের হয়ে আসে। গিয়ারের গঠন হতে তিনটি ভূতাত্ত্বিক অবস্থার সমন্বয় প্রয়োজন যা বিশেষত আগ্নেয়গিরির ভূখণ্ডে পাওয়া যায়।[৩]

উষ্ণপ্রস্রবণ গঠনের জন্য যে তাপটি প্রয়োজন তা পৃথিবীর পৃষ্ঠের কাছাকাছি থাকা ম্যাগমা থেকে আসে। [৪] উত্তপ্ত জলের একটি উষ্ণপ্রস্রবণ তৈরির জন্য, ফাটল, চিড়, ছিদ্রযুক্ত শূণ্যস্থান এবং কখনও কখনও গহ্বর দিয়ে তৈরি নলতন্ত্রের প্রয়োজন। এর সাথে পানি গরম হবার সময় তা ধরে রাখতে একটি জলাধার থাকতে হয়। উষ্ণপ্রস্রবণ সাধারণত ফাটল বরাবর তৈরি হয়। [৩]

উদ্গিরণ[সম্পাদনা]

Geyser exploding 1 large.jpgGeyser exploding 2 large.jpg
Geyser exploding 4 large.jpgGeyser exploding 3 large.jpg
স্ট্রোককুর উষ্ণপ্রস্রবণ উদ্গিরণ (ঘড়ির কাটার দিকে, উপরের বা দিক থেকে)
  1. বাষ্প গরম পানি থেকে উঠে
  2. পানি উপরে দিকে একটু পর পর ফেপে উঠে
  3. পানি পৃষ্ঠতল থেকে উপরে উঠে
  4. বের হওয়া পানি ছিটকে উপরে উঠে এবং আবার নলের মধ্যে গিয়ে পড়ে

উষ্ণপ্রস্রবণের কার্যপদ্ধতি, সমস্ত গরম পানির ঝরনার মত, পৃষ্ঠ জল ধীরে ধীরে মাটির নিচে চুয়ে চুয়ে ম্যাগমা দ্বারা উত্তপ্ত পাথরের সংশ্পর্শে আসে। ভূতাত্ত্বিকভাবে উত্তপ্ত পানি তারপর ফাটল এবং ছিদ্রযুক্ত পাথরের মধ্য দিয়ে পরিচলন পদ্ধতিতে পৃষ্ঠের দিকে উঠে আসে। উষ্ণপ্রস্রবণের ভূগর্ভস্থ কাঠামো, অবিস্ফোরণশীল গরম পানির ঝরনার থেকে ভিন্ন; অধিকাংশই গঠিত হয় চাপে আঁটা পাথর এবং পৃষ্ঠের ছোট ছোট ফাঁক দিয়ে যা এক বা একাধিক সংকীর্ণ নল দিয়ে ভূগর্ভস্থ জলাশয়ের সাখে যুক্ত। [৫]

গেইসার ভরাট হয়ে গেলে, কলামের উপরের অংশে পানি ঠান্ডা হয়ে যায়, তবে প্রণালীর সংকীর্ণতার কারণে জলাধারের পানির শীতলকরণ সম্ভব হয় না। উপরে শীতল জল নিচের গরম জলকে চাপা দেয়, এটি চাপ চুল্লীর ঢাকনার বিপরীত রুপে কাজ করে, ফলে জলাধারের জল অত্যধিক গরম হয়ে ওঠে, তাই মান চাপ স্ফুটনাঙ্ক তাপমাত্রার উপরের তাপমাত্রায় জল তরল থাকে। [৫]

অবশেষে, উষ্ণপ্রস্রবণের তলের তাপমাত্রা যখন স্ফুটনাঙ্কে উঠে আসে তখন তা বাষ্পের বুদবুদ উপরে উঠতে বাধ্য করে। উষ্ণপ্রস্রবণের পানি এভাবে ফেটে বেরিয়ে যাওয়ার ফলে, কিছু পানি উপচে বা ছিটকে যায়, ফলে পানির কলামের ওজন এবং এইরূপে নীচের পানির উপর চাপ হ্রাস করে। এই চাপ মুক্তির সাথে, অতিউষ্ণ জল মুহূর্তে বাষ্পে পরিণত হয় যা কলাম জুড়ে তীব্রভাবে ফুটতে খাকে। এই প্রসারিত হতে থাকা বাষ্প এবং গরম পানির ফেনা ফলে উষ্ণপ্রস্রবণের মুখ থেকে ফিনকি দিয়ে বের হয়। [৩][৬]

উষ্ণপ্রস্রবণের কাছাকাছি পাথরে পাওয়া গেসেরাইট নামক একটি উপাদান উষ্ণপ্রস্রবণের কার্যক্রম সমর্থ করার জন্য গুরুত্বপূর্ণ। গেসেরাইট -বেশিরভাগ সিলিকন ডাই অক্সাইড (SiO2), পাথর থেকে দ্রবীভূত হয় এবং উষ্ণপ্রস্রবণের নলতন্ত্রের প্রাচীর এবং পৃষ্ঠের উপর জমা হয়। জমে খাকা গেসেরাইটগুলি পৃষ্ঠে পানি নিয়ে যাওয়া প্রণালীগুলিকে চাপে আঁটসাঁট করে রাখতে পারে। সর্বোপরি এটি এই চাপকে বজায় রেখে উপরের দিকে নিয়ে যেতে পারে এবং উষ্ণপ্রস্রবণের এলাকার নীচে সাধারণত যে আলগা কাঁঠাল বা মাটি থাকে তা দিয়ে বের হয়ে যেতে দেয় না। [৫]

অবশেষে উষ্ণপ্রস্রবণের অবশিষ্ট পানি স্ফুটনাঙ্ক থেকে ঠান্ডা হয় এবং উদ্গিরণ শেষ হয়; উত্তপ্ত ভূগর্ভস্থ পানি জলাধারে চুইয়ে ফিরে আসতে শুরু করে এবং পুরো চক্র আবার শুরু হয়। উদ্গিরণের মধ্যে বিরতির সময় উষ্ণপ্রস্রবণ অনুযায়ী ব্যাপকভাবে পরিবর্তিত হয়; আইসল্যান্ডের স্ট্রোক্কুর প্রতি কয়েক মিনিট পর পর কয়েক সেকেন্ডের জন্য প্রবাহিত হয়, যখন মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রে গ্র্যান্ড গেইসার প্রতি ৮-১২ ঘন্টায় ১০ মিনিট সময় পর্যন্ত উদ্গিরিত হয়।[৫]

সাধারণ শ্রেণীকরণ[সম্পাদনা]

দুটি ধরনের উষ্ণপ্রস্রবণ রয়েছে: ফাউন্টেন উষ্ণপ্রস্রবণ যার পানি জলাধার থেকে, সাধারণত তীব্র এমনকি প্রবল বিস্ফোরণের মাধ্যমে বের হয়; এবং শঙ্কু উষ্ণপ্রস্রবণ যা শঙ্কু বা সিলিকাস সিন্টার (গেসেরাইট সহ) এর ঢিবি দিয়ে, সাধারণত কয়েক সেকেন্ড থেকে কয়েক মিনিট পর্যন্ত টানা ফিনকি দিয়ে বের হয়। ইয়েলোস্টোন ন্যাশনাল পার্কের সম্ভবত সবচেয়ে সুপরিচিত উষ্ণপ্রস্রবণ, ওল্ড ফেইথফুল হল একটি শঙ্কু উষ্ণপ্রস্রবণ। পৃথিবীর সবচেয়ে উচু পূর্বাভাসযোগ্য উষ্ণপ্রস্রবণ গ্র্যান্ড গেইসার (যদিও আইসল্যান্ডের উষ্ণপ্রস্রবণ বেশি উচু, ওটি পূর্বাভাসযোগ্য নয়), ইয়েলোস্টোন ন্যাশনাল পার্কে একটি ফাউন্টেন উষ্ণপ্রস্রবণের উদাহরণ। [9]

Geyser একটি পুল থেকে বিচূর্ণ আপ এবং বিস্ফোরণ।
জলের উচ্চ গিয়ার sparsely গাছপালা পৃথিবী থেকে উদ্ভূত হয়।
(বামে) ফাউন্টেন গেইসার জলাধার থেকে উদ্গিরিত হচ্ছে এবং (ডানে) ইয়েলোস্টোন ন্যাশনাল পার্কএ ওল্ড ফেইথফুল উষ্ণপ্রস্রবণ (সিলিকাস সিন্টার এর ঢিবি থেকে উদ্ভূত শঙ্কু উষ্ণপ্রস্রবণ) যা প্রায় ৯১ মিনিট সময় ধরে উদ্গিরিত হয় ।

বিশ্বের অনেক আগ্নেয়গিরির এলাকা রয়েছে যেখানে উষ্ণ ঝর্ণা, মাড পট এবং ধূয়া নিঃসারক ফাটল রয়েছে, কিন্তু খুব অল্প সংখ্যক উষ্ণপ্রস্রবণ দেখা যায়। তার মূল কারণ হল উষ্ণপ্রস্রবণ তৈরি হতে হলে একাধিক ক্ষণস্থায়ী শক্তি তীব্রভাবে একযোগে থাকতে হবে। উদাহরণস্বরূপ, এমনকি যখন অন্যান্য প্রয়োজনীয় অবস্থা বিদ্যমান থাকেও, শিলা কাঠামোটি যদি ঢিলা হয়, তবে উদ্গিরণের ফলে প্রণালীগুলি ক্ষয়ে যাবে এবং দ্রুতগতিতে কোন নতুন উষ্ণপ্রস্রবণকে নষ্ট করে দেয়।

ফলস্বরূপ, বেশিরভাগ উষ্ণপ্রস্রবণ এমন জায়গায় তৈরি হয় যেখানে অগ্নিকুণ্ডের রাইওলাইট রয়েছে যা গরম জলের মধ্যে দ্রবীভূত হয় এবং খুব চিকন প্রণালীর অভ্যন্তরে সিলিকাস সিন্টার বা গিজারাইট নামক খনিজ পদার্থের প্রলেপ গঠন করে। সময়ের সাথে সাথে, এই প্রলেপ অভ্যন্তরের পাখর শক্তভাবে জুড়ে রেখে প্রণালীরগুলির প্রাচীরকে শক্তিশালী করে, উষ্ণপ্রস্রবণকে টিকে থাকতে সক্ষম করে, যা পূর্ববর্তী বিভাগে উল্লেখ করা হয়েছে।

উষ্ণপ্রস্রবণ ভঙ্গুর ঘটনা এবং যদি অবস্থার পরিবর্তন হয়, তারা নিষ্ক্রিয় বা বিলুপ্ত হয়ে যেতে পারে। অনেকে উষ্ণপ্রস্রবণ নষ্ট হয়ে গেছে কেবল তাদের মধ্যে ময়লা নিক্ষেপ করার ফলে, আবার কিছু উষ্ণপ্রস্রবণ ভূতাত্ত্বিক বিদ্যুৎকেন্দ্রের কারণে পানি কমে যাওয়ায় উদ্গিরণ বন্ধ করেছে। যাইহোক, আইসল্যান্ডের উষ্ণপ্রস্রবণগুলো কিছু সময় নিষ্ক্রিয় খাকে এবং পরে কিছু সময় সষ্ক্রিয় হয়। দীর্ঘকাল নিষ্ক্রিয় থাকলে, পানিতে সার্ফ্যাক্টান্টকে যোগ করে কখনও কখনও কৃত্রিমভাবে উদ্গিরণ করা হয়-প্রায়শ কোন বিশেষ উপলক্ষ্যে।

জীবতত্ত্ব[সম্পাদনা]

Surreal blue pool surround by orange border on a purple ground.
হাইপারথার্মোফিলিস, গ্র্যান্ড প্রিজম্যাটিক স্প্রিং এর উজ্জ্বল রং তৈরি করে, ইয়েলোওস্টোন ন্যাশনাল পার্ক

দৃশ্যত কঠোর অবস্থার সত্ত্বেও, উষ্ণপ্রস্রবণে (এবং অন্যান্য উষ্ণ স্থানে) থার্মোফাইলিক প্রোক্যারিয়োটসের আকারে প্রাণের অস্তিত্ব পাওয়া যায় যেখান থেকে এর নির্দিষ্ট রংগুলি আসে। কোন কোন ইউক্যারিওট ৬০ ডিগ্রি সেলসিয়াস (১৪০ ডিগ্রি ফারেনহাইট) পর্যন্ত বেঁচে থাকতে পারে। [৭]

১৯৬০ এর দশকে যখন উষ্ণপ্রস্রবণের জীববিজ্ঞান নিয়ে প্রথম গবেষণা শুরু হয়, তখন বিজ্ঞানীরা সাধারণত নিশ্চিত ছিলেন যে সর্বোচ্চ ৭৩ ডিগ্রি সেলসিয়াস (১৬৩ ডিগ্রি ফারেনহাইট) উপরে কোনও প্রাণী বেঁচে থাকতে পারে না-যা সায়ানোব্যাকটিরিয়ার বেঁচে থাকার জন্য সর্বোচ্চসীমা কারণ এর উপরে সেলুলার প্রোটিন এবং ডিয়োক্সোরিবোনিউক্লিক অ্যাসিড (ডিএনএ) ধ্বংস হয়ে যায়। থার্মোফাইলিক ব্যাকটেরিয়ার জন্য অনুকূল তাপমাত্রা আরও কম বলে ধারনা ছিল, গড় ৫৫ ডিগ্রি সেলসিয়াস (১৩১ ডিগ্রী ফারেনহাইট)। [৭]

যাইহোক, পর্যবেক্ষণ প্রমাণ করে যে এত উচ্চ তাপমাত্রায় জীবন আসলেই সম্ভব এবং কিছু ব্যাকটেরিয়া এমনকি পানির স্ফুটনাঙ্কের চেয়ে বেশি তাপমাত্রায় থাকতে পছন্দ করে। একাধিক এমন ব্যাকটেরিয়া সম্পর্কে পরে জানা যায়। [৮] থার্মোফিলিস ৫০ থেকে ৭০ ডিগ্রি সেলসিয়াস (১২২ থেকে ১৫৮ ডিগ্রি ফারেনহাইট) তাপমাত্রা পছন্দ করে, হাইপারথার্মোফিলিস ৮০ থেকে ১১০ ডিগ্রি সেলসিয়াস (১৭৬ থেকে ২৩০ ডিগ্রী ফারেনহাইট) তাপমাত্রায় ভাল বাড়ে। উচ্চ তাপমাত্রায়ও তাদের কার্যকলাপ বজায় রাখার মত তাপ-স্থিতিশীল এনজাইম থাকার কারণে, এদের থার্মোস্টেবল সরঞ্জাম তৈরির উৎস হিসাবে ব্যবহার করা হয়, যা ঔষধ এবং জৈব প্রযুক্তিতে গুরুত্বপূর্ণ,[৯] উদাহরণস্বরূপ, এন্টিবায়োটিক, প্লাস্টিক, ডিটারজেন্ট(তাপ-স্থিতিশীল এনজাইম লাইপেসেস, পুলুলানাসেস এবং প্রোটিয়াজ ব্যবহার করে), এবং গাঁজন পণ্য (উদাহরণস্বরূপ ইথানল উৎপাদন) তৈরি। এর মধ্যে, সর্ব প্রথম এবং জৈবপ্রযুক্তিতে সবচেয়ে গুরুত্বপূর্ণ আবিষ্কার হল থার্মাস আকুয়াটিকাস। [১০]

মুখ্য উষ্ণপ্রস্রবণের ক্ষেত্র এবং তাদের অবস্থান[সম্পাদনা]

চিত্র:World geyser distribution.gif
বিশ্বের প্রধান উষ্ণপ্রস্রবণের অবস্থান.

উষ্ণপ্রস্রবণ খুব বিরল ঘটনা, এতে জল, তাপ, এবং নলতন্ত্রের দৈবাৎ সমন্বয় প্রয়োজন। এই সংমিশ্রণটি পৃথিবীর অল্প কয়েকটি স্থানে বিদ্যমান। [১১][১২]

ইয়েলোস্টোন ন্যাশনাল পার্ক, ইউ. এস[সম্পাদনা]

ইয়েলোস্টোন বৃহত্তম উষ্ণপ্রস্রবণের অকুস্থল, হাজার হাজার গরম পানির ঝরণা এবং প্রায় ৩০০ থেকে ৫০০ উষ্ণপ্রস্রবণ রয়েছে। শুধু এখানেই রয়েছে নয়টি উষ্ণপ্রস্রবণ বেসিনে বিশ্বের মোট উষ্ণপ্রস্রবণের সংখ্যার অর্ধেক। এটি বেশিরভাগই মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রে ওয়াইমিংয়ে অবস্থিত, মন্টানা এবং আইডাহোতে কিছু অংশ আছে । [১৩] ইয়েলোস্টোনে পৃথিবীর সবচেয়ে উচু সক্রিয় উষ্ণপ্রস্রবণ রয়েছে (নরিস গেইসার বেসিনের স্টিমবোট গেইসার), সেইসাথে সুপরিচিত ওল্ড ফেইথফুল গেইসার, বেহাইভ গেইসার, জায়ান্টেস গেইসার, লায়ন গেইসার, প্লাম গেইসার, অরাম গেইসার, কাসল গেইসার, সমিল গেইসার, গ্র্যান্ড গেইসার, অবলং গেইসার, জায়েন্ট গেইসার, ডেজি গেইসার, গ্রোটটো গেইসার, ফ্যান অ্যান্ড মর্টার গেইসার, এবং রিভারসাইড গেইসার, সব আপার গেইসার বেসিনে রয়েছে, যাতে প্রায় ১৮০টি গেইসার রয়েছে। [১২]

উষ্ণপ্রস্রবণের উপত্যকা, রাশিয়া[সম্পাদনা]

রাশিয়ার কামচটকা উপদ্বীপে অবস্থিত উষ্ণপ্রস্রবণের উপত্যকা (রাশিয়ান ভাষায় "দোলিনা গিজরোভ") ইউরেশিয়াতে একমাত্র উষ্ণপ্রস্রবণের ক্ষেত্র এবং পৃথিবীর দ্বিতীয় বৃহত্তম উষ্ণপ্রস্রবণের কেন্দ্রস্থল। ১৯৪১ সালে তাতিয়ানা উস্তিনোভা এই এলাকা আবিষ্কার এবং অনুসন্ধান করেন। প্রায় ২00 টি উষ্ণপ্রস্রবণের পাশাপাশি এখানে গরম পানির ঝরণা এবং চিরস্থায়ী স্পাউটার বিদ্যমান। এলাকাটি একটি জোরালো অগ্ন্যুত্পাতের কারণে গঠিত হয়েছিল। অদ্ভুত রকমের অগ্ন্যুত্পাত, এই উষ্ণপ্রস্রবণগুলির একটি গুরুত্বপূর্ণ বৈশিষ্ট্য। বেশিরভাগ উষ্ণপ্রস্রবণ একটু বাকা ভাবে উদ্গিরিত হয় এবং উষ্ণপ্রস্রবণের কোণ পৃথিবীর অন্যান্য ক্ষেত্রের উষ্ণপ্রস্রবণে খুবই কম থাকে। [১২] ৩ জুন, ২০০৭ সালে, উপত্যকার দুই তৃতীয়াংশ একটি বড় মাডফ্লো প্রভাবিত করে। [১৪] পরে জানা যায় যে উপত্যকার উপরে একটি তাপীয় হ্রদ গঠিত হট্ছিল। [১৫] কিছুদিন পরে পানি কিছুটা কমে গেলে কিছু ডুবে থাকা আকৃতি ও বৈশিষ্ট্য প্রকাশ পায়। ভেলিকান উষ্ণপ্রস্রবণ, সবচেয়ে বড় উষ্ণপ্রস্রবণের একটি, মাডফ্লোতে দেবে যায়নি এবং সম্প্রতি এটি সক্রিয় হতে দেখা গেছে। [১৬]

এল তাইতো, চিলি[সম্পাদনা]

এল তাইতোর একটি উষ্ণপ্রস্রবণ ক্ষেত্রে বুদ্বুদ উঠছে

"এল তাইতো" শব্দটি কুয়াচুয়া ভাষার একটি শব্দ থেকে এসেছে যার অর্থ ওভেন। এল তাইতো, দক্ষিণ আমেরিকার চিলি দেশের আন্ডিস পর্বতমালার সক্রিয় আগ্নেয়গিরি দ্বারা বেষ্টিত একটি উচ্চ উপত্যকায় অবস্থিত যা সমুদ্রের সমতল থেকে প্রায় ৪,২০০ মিটার (১৩,৮০০ফুট) উচু। উপত্যকায় বর্তমানে প্রায় ৪০ উষ্ণপ্রস্রবণ রয়েছে। নিউজিল্যান্ডের উষ্ণপ্রস্রবণ (নীচে দেখুন) ধ্বংস হয়ে যাওয়ায় এটি এখন দক্ষিণ গোলার্ধে বৃহত্তম উষ্ণপ্রস্রবণের ক্ষেত্র এবং বিশ্বের তৃতীয় বৃহত্তম উষ্ণপ্রস্রবণের ক্ষেত্র। এই উষ্ণপ্রস্রবণগুলোর প্রধান বৈশিষ্ট্য হল তাদের উদ্গিরণের উচ্চতা খুব কম, সর্বোচ্চ উচ্চতা মাত্র ছয় মিটার (২০ ফুট), কিন্তু বাষ্প কলামগুলির উচ্চতা ২০ মিটারের (৬৬ ফুট) বেশি হতে পারে। এল তাইতোর উষ্ণপ্রস্রবণের গড় উদ্গিরণের উচ্চতা ৭৫০ মিলিমিটার (৩০ ইঞ্চি)। [১২][১৭]

টাউপো আগ্নেয় বলয়, নিউজিল্যান্ড[সম্পাদনা]

টাউপো আগ্নেয় অঞ্চল নিউ জিল্যান্ডের উত্তর দ্বীপে অবস্থিত। এটি ৩৫০ কিলোমিটার (২১৭ মাইল) দীর্ঘ ও ৫০ কিলোমিটার (৩১ মাইল) দীর্ঘ এবং এটি ভূত্বকে একটি সাবডাকশন জোনের উপর অবস্থিত। এটির দক্ষিণ-পশ্চিমাঞ্চলের শেষ রুয়াপিহু পর্বত চিহ্নিত করে, সমুদ্রগর্ভস্থ ওয়াকটানে আগ্নেয়গিরি ( হোয়াইট দ্বীপের ৮৫ কিলোমিটার বা ৫৩ মাইল পরে) তার উত্তর-পূর্বাঞ্চলীয় সীমা হিসাবে বিবেচিত হয়। [১৮] ভূ-তাপীয় উণ্নয়ন এবং জলবিদ্যুত জলাধারের কারণে এই অঞ্চলের অনেকগুলি উষ্ণপ্রস্রবণ ধ্বংস হয়ে গেছে, তবে কয়েক ডজন উষ্ণপ্রস্রবণ এখনও বিদ্যমান। বিংশ শতকের শুরুতে, সর্বকালের সব থেকে বড় উষ্ণপ্রস্রবণ বলে পরিচিত, ওয়াইমুঙ্গু উষ্ণপ্রস্রবণ এই অঞ্চলে বিদ্যমান ছিল। ১৯০০ সালে এটির উদ্গিরণ শুরু হয় এবং ভূমিধসে স্থানীয় ভুজলতল পরিবর্তন হবার আগ পর্যন্ত পর্যায়ক্রমে চার বছর ধরে উদ্গিরিত হয়। ওয়াইমুঙ্গুর উদ্গিরণ সাধারণত ১৬০ মিটার (৫২০ ফুট) পর্যন্ত পৌঁছাতো এবং কিছু সুপারবার্স্ট ৫০০ মিটার (১,৬০০ফুট) পৌঁছেছে বলে জানা যায়। [১২] সাম্প্রতিক বৈজ্ঞানিক গবেষণা ইঙ্গিত দিচ্ছে যে জোনটির নীচে ভূত্বক ৫ কিলোমিটার (৩.১ মাইল) পুরু হতে পারে ও এটির নীচে ৫০ কিলোমিটার (৩০ মাইল) চওড়া এবং ১৬০ কিলোমিটার (১০০ মাইল) দীর্ঘ একটি ম্যাগমার স্তর রয়েছে। [১৯]

আইসল্যান্ড[সম্পাদনা]

উষ্ণপ্রস্রবণের ক্ষেত্র

আইসল্যান্ডের আগ্নেয়গিরির সংখ্যা বেসি হবার কারণে এখানে বিশ্বের কিছু বিখ্যাত উষ্ণপ্রস্রবণ রয়েছে। উষ্ণপ্রস্রবণ এবং গরম পানির ঝরনা সমস্ত দ্বীপ জুড়ে বিদ্যমান। হকডেলে অনেক উষ্ণপ্রস্রবণ রয়েছে। উষ্ণপ্রস্রবণ, এই দ্বীপে অন্তত ডজন খানেক এলাকায় বিদ্যমান আছে বলে জানা যায়। দ্য গ্রেট গেইসির, যা প্রথম চৌদ্দশ শতাব্দীতে আবির্ভূত হয়েছিল, গেইসার শব্দটির উত্থাপন করে। ১৮৯৬ সাল নাগাদ, উষ্ণপ্রস্রবণটি প্রায় সুপ্ত হয়ে পরে, একটি ভূমিকম্পের ফলে এটির উদ্গিরণ আবার শুরু হয়, যা দিনে একাধিকবার ঘটত, কিন্তু ১৯১৬ সালে, সমস্ত উদ্গিরণ বন্ধ হয়ে যায়। ২০ শতকের বেশির ভাগ সময়ই ভূমিকম্পের পর সময়ে সময়ে উদ্গিরণ ঘটে। কিছু মনুষ্যসৃষ্ট উন্নতি সাধন করা হয় এবং বিশেষ অনুষ্ঠানগুলিতে সাবান ব্যবহার করে উদ্গিরণ করা হত। ২০০০ সালের জুনে ভূমিকম্পের পরবর্তীকালে কিছু সময়ের জন্য এই দানবীয় উষ্ণপ্রস্রবণ উদ্গিরণ করেছিল কিন্তু বর্তমানে এটি নিয়মিত উষ্ণপ্রস্রবণ করছেনা। নিকটবর্তী স্ট্রোককুর উষ্ণপ্রস্রবণের দৈর্ঘ্য প্রায় ৩০ মিটার (৯৮ ফুট) উচ্চতায় প্রতি ৫-৮ মিনিট। [১২][২০]

বিলুপ্ত এবং নিষ্ক্রিয় উষ্ণপ্রস্রবণের ক্ষেত্র[সম্পাদনা]

নেভাদা-বেওওয়ে এবং স্টামবোট স্প্রিংস দুটি বৃহত উষ্ণপ্রস্রবণের ক্ষেত্র ছিল- কিন্তু কাছাকাছি ভূতাত্ত্বিক বিদ্যুৎ কেন্দ্র স্থাপনের ফলে তারা ধ্বংস হয়ে যায়। বিদ্যুত্শক্তি উত্পাদনের কারখানায়, ভূতাত্ত্বিক তুরপুন উপলব্ধ তাপমাত্রা কমিয়ে দেয় এবং স্থানীয় ভুজলতলকে এতই হ্রাস করে যে উষ্ণপ্রস্রবণের কার্যকলাপ আর স্থায়ী হতে পারে না।[১২]

গত শতাব্দীতে মানুষের দ্বারা নিউ জিল্যান্ডের উষ্ণপ্রস্রবণের অনেকগুলি ধ্বংস করা হয়েছে। বেশ কয়েকটি নিউ জিল্যান্ড উষ্ণপ্রস্রবণের প্রাকৃতিকভাবে নিষ্ক্রিয় বা বিলুপ্ত হয়ে গেছে। অবশিষ্ট প্রধান ক্ষেত্রটি রোটুরুয়ার হোয়াকারওয়্যারওয়্যারে। [২১] ওরাকি কোরাকোতে দুই তৃতীয়াংশ উষ্ণপ্রস্রবণের পানি ১৯৬১ সালে ওহাকুরি জলবিদ্যুৎ বাঁধের ফলে প্লাবিত হয়েছিল। ১৯৫৮ সালে ভূতাত্ত্বিক বিদ্যুৎকেন্দ্রের ফলে ওয়াইরাকি ক্ষেত্রটি নষ্ট হয়ে গিয়েছিল। ওয়াইকাতো নদীপথ যখন ১৯৫০-এর দশকে ইচ্ছাকৃতভাবে পরিবর্তিত হয় তখন টাউপো স্পা ক্ষেত্রটি নষ্ট হয়ে যায়। ১৮৮৬ সালে মাউন্ট টারাওয়ারের অগ্ন্যুৎপাতের ফলে রোটোমাহানা এলাকাটি ধ্বংস হয়ে যায়।

ভুলভাবে নামকৃত উষ্ণপ্রস্রবণ[সম্পাদনা]

স্বাভাবিক বাষ্পের উষ্ণপ্রস্রবণ ছাড়াও বিভিন্ন রকমের উষ্ণপ্রস্রবণ রয়েছে। এইসব উষ্ণপ্রস্রবণ শুধুমাত্র তাদের উদ্গিরণের ধরন ভিন্ন নয় বরং তাদের উদ্গিরণের কারনও পৃথক।

কৃত্রিম উষ্ণপ্রস্রবণ[সম্পাদনা]

ভূ-তাপীয় কার্যকলাপ যেখানে হয় সেরকম বেশ কয়েকটি স্থানে মাটি গর্ত করে জলাভেদ্য খাপ দিয়ে সজ্জিত করা হয়েছে যার ফলে তারা উষ্ণপ্রস্রবণের মত উদ্গিরণের করে। এমন উষ্ণপ্রস্রবণের মুখ কৃত্রিম হয়, কিন্তু প্রাকৃতিক জল-তাপীয় ব্যবস্থার সাথে যুক্ত থাকে। এই তথাকথিত কৃত্রিম উষ্ণপ্রস্রবণ, যা কর্যত ভূ-তাপীয় কুপ উদ্গিরণ হিসাবে পরিচিত, আসলে প্রকৃত উষ্ণপ্রস্রবণ নয়। ক্যালিফোর্নিয়ার ক্যালিস্টগার লিটল ওল্ড ফিথফুল উষ্ণপ্রস্রবণ এটির উদাহরণ। গেইসার ১৯০০ শতকের শেষের দিকে একটি মাটিতে ফুটো করা কুপ থেকে উদ্গিরণ করে। ড. জন রাইনহার্টের বই এ গাইড টু গেইসার গোজিং (১৯৭৬ পৃষ্ঠা ৪৯) অনুযায়ী, একজন মানুষ পানির সন্ধানে মাটিতে ফুটো করেছিলেন। সে আসলে একটি মৃত উষ্ণপ্রস্রবণ আবার খুলে ফেলেছিল। [২২]

চিরস্থায়ী স্পাউটার[সম্পাদনা]

এটি একটি স্বাভাবিক গরম পানির ঝরনা যা আবার ভরে উঠা ছাড়াই তীব্রবেগে পানি নির্গমন। এদেরকে ভুলভাবে উষ্ণপ্রস্রবণ বলা হয়, কিন্তু যেহেতু এরা পর্যায়ক্রমিকভাবে উদ্গিরণ হয় না তাই এদের সত্যিকারের উষ্ণপ্রস্রবণ হিসাবে বিবেচনা করা হয় না। [২৩]

বাণিজ্যিকীকরণ[সম্পাদনা]

Bystanders watch a nearby geyser erupting.
আইসল্যান্ডের স্ট্রোককুর উষ্ণপ্রস্রবণ – একটি পর্যটন কেন্দ্র

উষ্ণপ্রস্রবণ বিভিন্ন কাজের জন্য যেমন বিদ্যুত উৎপাদন, উত্তাপন এবং পর্যটন কেন্দ্র হিসাবে ব্যবহার করা হয়। সারা বিশ্বে অনেক ভূ-তাপীয় মজুদ পাওয়া যায়। আইসল্যান্ডের উষ্ণপ্রস্রবণ ক্ষেত্র বিশ্বের সবচেয়ে বাণিজ্যিকভাবে কার্যকর। ১৯২০ সাল থেকে উষ্ণপ্রস্রবণের গরম পানি ব্যবহার করা হতো গ্রীনহাউস গরম করার জন্য এবং খাদ্য উৎপাদনের জন্য, যা অন্যথায় আইসল্যান্ডের অস্বাভাবিক জলবায়ুতে চাষ করা সম্ভব হত না। উষ্ণপ্রস্রবণ থেকে আসা বাষ্প এবং গরম পানি. ১৯৪৩ সাল থেকে আইসল্যান্ডে ঘর গরম করার জন্যও ব্যবহার করা হচ্ছে। ১৯৭৯ সালে মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রের শক্তি বিভাগ (ডিওই) সক্রিয়ভাবে বিভিন্ন গবেষণামূলক কার্যক্রম এবং জিওথার্মাল লোন গ্যারান্টি কার্যক্রমের মাধ্যমে ক্যালিফোর্নিয়ার ক্যালিস্টগার কাছাকাছি অবস্থিত "গেইসার্স-ক্যালিস্টগা নোন জিওথার্মাল রিসোর্স এরিয়া" (কেজিআরএ) -এর ভূ-তাপীয় শক্তির ব্যবহার উন্নয়নে প্রচার করেছে। [২৪] বিভাগটি ভূ-তাপীয় বিকাশের পরিবেশের উপর সম্ভাব্য প্রভাব মূল্যায়ন করার জন্য আইন দ্বারা দায়বদ্ধ। [২৫]

ক্রায়োগেইসার[সম্পাদনা]

সৌরজগতের অনেক জায়গা রয়েছে যেখানে পিচকারি-এর মতো উদ্গিরণ হয় বা হয় বলে বিশ্বাস করা হয়, এদেরকে প্রায়শ "ক্রায়োগেইসার" ("ক্রিও" অর্থ "বরফ শীতল") বলে অভিহিত করা হয় । এই নাম হওয়া সত্বেও পৃথিবী উষ্ণপ্রস্রবণের মত তরল উদ্গিরণ হয়না বরং ধুলো ও বরফ কণার উদ্গিরণ করে। এর কার্যপদ্ধতি যে উষ্ণপ্রস্রবণের মতো তার কোন প্রমাণ নেই। এই প্লুমগুলি ফিউমারোলের অনুরূপ হতে পারে।

  • এনসেলাদাস

শনিগ্রহের চাদ এনসেলাদাসের দক্ষিণ মেরু অঞ্চলের "টাইগার স্ট্রিপস" এর নির্গমনপথ থেকে বরফ কণা এবং অল্প পরিমাণে অন্যান্য উপাদান (যেমন কার্বন ডাই অক্সাইড, নাইট্রোজেন, অ্যামোনিয়া, হাইড্রোকার্বন এবং সিলিকেটস) সহ বাষ্পের প্লুম উদ্গিরিত হতে ক্যাসিনি অরবিটার দিয়ে দেখা গেছে। এই প্লুমগুলি তৈরি হবার প্রক্রিয়ার কারন অনিশ্চিত, তবে চাঁদ ডায়িওনের সাথে ২:১ গড়-গতির কক্ষপথের অনুরণনের কারণে কক্ষপথের উৎকেন্দ্রতা তৈরি হয় যার ফলে জোয়ার উত্তাপনের কারণে এটি আংশিক ভাবে চালিত হয় বলে মনে করা হয়। [২৬][২৭]

  • ইউরোপা

২০১৩ এর ডিসেম্বরে, হাবল স্পেস টেলিস্কোপ বৃহস্পতির গ্যালিলিয়ান চাঁদের একটি, ইউরোপার দক্ষিণ মেরু অঞ্চলে উপরে জলীয় বাষ্পের প্লুম সনাক্ত করে। মনে করা হয় যে ইউরোপা লিনিয়া থেকে এই জলের বাষ্প বের হয়, এনসেলাদাস অনুরূপ প্রক্রিয়া ঘটে। [২৮]

  • মঙ্গলগ্রহ

প্রতি বসন্তে মঙ্গলগ্রহের দক্ষিণ মেরু চুড়া থেকে সৌর-তাপ-চালিত জেটগুলির অনুরূপ কার্বন ডাই অক্সাইডের পিচকারি উদ্গিরণ হয়। যদিও এই উদ্গিরণগুলি সরাসরি পর্যবেক্ষণ করা হয়নি তবে তারা শুষ্ক বরফের উপরে কাল দাগ এবং হালকা পাখার আকারের দাগ দেখা গেছে, যা বালি এবং ধুলো উদ্গিরণের দ্বারা উঁচুতে উঠেছে এটা চিত্রিত করে, এবং এর নিচে বহির্মুখী গ্যাসের দ্বারা মাকড়সা-মত খাঁজ তৈরি হয়। [২৯]

  • ট্রাইটন

১৯৮৯ সালে ভয়জার ২ এর এক বিস্ময়কর ঘটনা ছিল নেপচুন গ্রহের চাঁদ ট্রাইটনে উদ্গিরণের আবিষ্কার। জ্যোতির্বিজ্ঞানীরা দেথেন পৃষ্ঠের উপরে প্রায় ৮ কিমি উঁচুতে কাল প্লুম উঠছে এবং বাতাস প্রবাহের দিকে প্রায় ১৫০ কিলোমিটার দুরে নিয়ে ফেলে। [৩০] এই প্লমগুলি ধুলো মিশ্রিত গ্যাসীয় নাইট্রোজেনের অদৃশ্য জেটকে চিন্হিত করে। এদের ট্রাইটন এর সুর্যের আলোর যেখানে থাড়াভাবে পরে তার কাছাকাছি হতে দেথা গেছে যা নির্দেশ করে যে এগুলো সৌর-তাপ-চালিত উদ্গিরণ। ধারণা করা হয় যে ট্রাইটন পৃষ্ঠের সম্ভবত একটি গাঢ় নিম্নস্তরের উপরে হিমায়িত নাইট্রোজেনের আধা-স্বচ্ছ স্তর রয়েছে যা একটি "কঠিন গ্রিনহাউস প্রভাব" তৈরি করে, বরফ পৃষ্ঠের নীচের অংশটি উত্তপ্ত এবং বাষ্পীয়করণ করে, যতক্ষন না চাপের ফলে একটি উদ্গিরণের শুরুতে পৃষ্ঠ ভেঙে যায়। ভয়জারের চিত্রগুলিতে ট্রাইটনের দক্ষিণ গোলার্ধে গেইসারের ক্রিয়াকলাপের জন্য কাল পদার্থের অনেকগুলি দাগ দেখা যায়। [৩১]

ট্রাইটনে উষ্ণপ্রস্রবণের ফলে জমা হওয়া কাল দাগ
এনসেলাদাসের পৃষ্ঠে হওয়া উদ্গিরণকে উষ্ণপ্রস্রবণ বলে মনে করা হয়
ঠান্ডা উষ্ণপ্রস্রবণের নকশা– ক্রায়োআগ্নেয়গিরির জন্য একটি প্রস্তাবিত ব্যাখ্যা [২৬]

টীকা[সম্পাদনা]

  1. The geysers of Yellowstone (3rd সংস্করণ)। University Press of Colorado। আইএসবিএন 087081365X 
  2. "geyser | Definition of geyser in English by Lexico Dictionaries"Lexico Dictionaries | English 
  3. "Conditions needed for the formation of geysers"www.wyojones.com 
  4. Erickson, Jon (২০১৪-০৫-১৪)। Quakes, Eruptions, and Other Geologic Cataclysms: Revealing the Earth's Hazards (ইংরেজি ভাষায়)। Infobase Publishing। আইএসবিএন 9781438109695 
  5. Krystek, Lee। "Weird Geology: Geysers]"। Museum of Unnatural Mystery। সংগ্রহের তারিখ ২০০৮-০৩-২৮ 
  6. Lewin, Sarah। "Instant Egghead: How do geysers erupt over and over?"। সংগ্রহের তারিখ ২০১৫-০৫-১৭ 
  7. Lethe E. Morrison, Fred W. Tanner; Studies on Thermophilic Bacteria Botanical Gazette, Vol. 77, No. 2 (Apr., 1924), pp. 171-185
  8. Michael T. Madigan and Barry L. Marrs; Extremophiles atropos.as.arizona.edu Retrieved on 2008-04-01
  9. Vielle, C.; Zeikus, G.J. Hyperthermophilic Enzymes: Sources, Uses, and Molecular Mechanisms for Thermostability. Microbiology and Molecular Biology Reviews. 2001, 65(1), 1-34.
  10. Industrial Uses of Thermophilic CellulaseUniversity of Delaware, Retrieved on 2008-03-29 ওয়েব্যাক মেশিনে আর্কাইভকৃত ২০০৭-১০-১০ তারিখে
  11. Glennon, J.A. and Pfaff R.M. 2003; Bryan 1995
  12. Glennon, J Allan "World Geyser Fields" ওয়েব্যাক মেশিনে আর্কাইভকৃত ৩০ জুন ২০০৭ তারিখে Retrieved on 2008-04-04
  13. "Yellowstone geysers" nps.gov Retrieved on 2008-03-20
  14. Mehta, Aalok (২০০৮-০৪-১৬)। "Photo in the News: Russia's Valley of the Geysers Lost in Landslide"National Geographic। সংগ্রহের তারিখ ২০০৭-০৬-০৭ 
  15. Harding, Luke (২০০৭-০৬-০৫)। "Mudslide fully changes terrain in Kamchatka's Valley of Geysers"Guardian Unlimited। সংগ্রহের তারিখ ২০০৮-০৪-১৬ 
  16. Shpilenok, Igor (২০০৭-০৬-০৯)। "June 2007 Special release - The Natural Disaster at the Valley of the Geysers"। এপ্রিল ১২, ২০০৮ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ২০০৮-০৪-১৬ 
  17. Glennon, J.A. and Pfaff. R.M., 2003
  18. Gamble, J. A.; Wright, I. C.; Baker, J. A. (১৯৯৩)। "Seafloor geology and petrology in the oceanic to continental transition zone of the Kermadec-Havre-Taupo Volcanic Zone arc system, New Zealand"New Zealand Journal of Geology and Geophysics36 (4): 417–435। doi:10.1080/00288306.1993.9514588। ২০০৮-১১-২২ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। 
  19. Central North Island sitting on magma film Paul Easton, The Dominion Post, 15 September 2007. Retrieved 2008-04-16
  20. Gardner Servian, Solveig "Geysers of Iceland" Retrieved on 2008-04-16
  21. "Whakarewarewa, The Thermal Village" Retrieved 2008-04-04
  22. Jones, Wyoming "Old Faithful Geyser of California" WyoJones' Geyser Pages Retrieved on 2008-03-31
  23. WyoJones "Thermal Feature Definitions" WyoJones Retrieved on 2008-04-03
  24. "Geothermal energy and the land resource: conflicts and constraints in The Geysers-Calistoga KGRA"। DOE–SciTech। 14 July 1980। সংগ্রহের তারিখ October 2015  এখানে তারিখের মান পরীক্ষা করুন: |সংগ্রহের-তারিখ= (সাহায্য)
  25. Kerry O’Banion and Charles Hall Geothermal energy and the land resource: conflicts and constraints in The Geysers- Calistoga KGRA osti.gov Retrieved on 2008-04-12
  26. "Enceladus "Cold Geyser" Model"NASA। ৩ সেপ্টেম্বর ২০০৬। 
  27. Porco, C. C.; Helfenstein, P.; Thomas, P. C.; Ingersoll, A. P.; Wisdom, J.; West, R.; Neukum, G.; Denk, T.; Wagner, R. (১০ মার্চ ২০০৬)। "Cassini Observes the Active South Pole of Enceladus"। Science311 (5766): 1393–1401। doi:10.1126/science.1123013PMID 16527964বিবকোড:2006Sci...311.1393P 
  28. Cook, Jia-Rui C.; Gutro, Rob; Brown, Dwayne; Harrington, J.D.; Fohn, Joe (১২ ডিসেম্বর ২০১৩)। "Hubble Sees Evidence of Water Vapor at Jupiter Moon"NASA 
  29. Burnham, Robert (২০০৬-০৮-১৬)। "Gas jet plumes unveil mystery of 'spiders' on Mars"Arizona State University web site। সংগ্রহের তারিখ ২০০৯-০৮-২৯ 
  30. "Triton (Voyager)"। NASA (Voyager The Interstellar Mission)। জুন ১, ২০০৫। সংগ্রহের তারিখ ২০০৮-০৪-০৩ 
  31. Kirk, R.L., Branch of Astrogeology "Thermal Models of Insolation-driven Nitrogen Geysers on Triton" Harvard Retrieved 2008-04-08

তথ্যসূত্র[সম্পাদনা]

  • Bryan, T. Scott (1995). The geysers of Yellowstone. Niwot, Colorado: University Press of Colorado. আইএসবিএন ০-৮৭০৮১-৩৬৫-X
  • Glennon, J.A., Pfaff, R.M. (2003). The extraordinary thermal activity of El Tatio Geyser Field, Antofagasta Region, Chile, Geyser Observation and Study Association (GOSA) Transactions, vol 8. pp. 31–78.
  • Glennon, J.A. (2007). About Geysers, University of California, Santa Barbara. Originally posted January 1995, updated June 4, 2007. Accessed 8 June 2007.
  • Kelly W.D., Wood C.L. (1993). Tidal interaction: A possible explanation for geysers and other fluid phenomena in the Neptune-Triton system, in Lunar and Planetary Inst., Twenty-Fourth Lunar and Planetary Science Conference. Part 2: 789-790.
  • Rinehart, J.S. (1980) Geysers and Geothermal Energy. Springer-Verlag, 223 p.
  • Schreier, Carl (2003). Yellowstone's geysers, hot springs and fumaroles (Field guide) (2nd ed.). Homestead Pub. আইএসবিএন ০-৯৪৩৯৭২-০৯-৪
  • Soderblom L.A., Becker T.L., Kieffer S.W., Brown R.H., Hansen C.J., Johnson T.V. (1990). Triton's geyser-like plumes — Discovery and basic characterization. Science 250: 410-415.
  • Allen, E.T. and Day, A.L. (1935) Hot Springs of the Yellowstone National Park, Publ. 466. Carnegie Institution of Washington, Washington, D.C., 525 p.
  • Barth, T.F.W. (1950) Volcanic Geology: Hot Springs and Geysers of Iceland, Publ. 587. Carnegie Institution of Washington, Washington, D.C., 174 p.
  • Rhinehart, J.S. (1972) Fluctuations in geyser activity caused by variations in earth tidal forces, barometric pressure, and tectonic stresses. Jour. Geophys. Res. 77, 342-350.
  • Rhinehart, J.S. (1972) 18.6-year tide regulates geyser activity. Science 177, 346-347.
  • Rhinehart, J.S. (1980) Geysers and Geothermal Energy. Springer-Verlag, 223 p.
  • Silver, Paul G. and Valette-Silver, Nathalie J. (1992) Detection of Hydrothermal Precursors to Large Northern California Earthquakes. Science 257, 1363-1368.
  • White, D.E. (1967) Some principles of geyser activity mainly from Steamboat, Nevada. Amer. Jour. Sci. 265, 641-684.
  • M.K. Bhat. Cellulases and related enzymes in biotechnology. Biotechnology Advances. 2000, 18, 355-383.
  • Haki, G.D.; Rakshit, S.K. Developments in industrially important thermostable enzymes: a review. Bioresource Review. 2003, 89, 17-34.
  • Vielle, C.; Zeikus, G.J. Hyperthermophilic Enzymes: Sources, Uses, and Molecular Mechanisms for Thermostability. Microbiology and Molecular Biology Reviews. 2001, 65(1), 1-34.
  • Schiraldi, C.; De Rosa, M. The production of biocatalysts and biomolecules from extremophiles. Trends in Biotechnology. 2002, 20(12), 515-521.
  • Hreggvidsson, G.O.; Kaiste, E.; Holst, O.; Eggertsson, G.; Palsdottier, A.; Kristjansson, J.K. An Extremely Thermostable Cellulase from the Thermophilic Eubacterium Rhodothermus marinus. Applied and Environmental Microbiology. 1996, 62(8), 3047-3049.
  • Crennell, S.J.; Hreggvidsson, G.O.; Karisson, E.N. The Structure of Rhodothermus marinus Cel12A, A Highly Thermostable Family 12 Endoglucanase, at 1.8Å Resolution. J. Mol. Biol. 2002, 320, 883-897.
  • Hirvonen, M.; Papageorgiou, A.C. Crystal Structure of a Family 45 Endoglucanases from Melanocarpus albomyces: Mechanist Implications Based on the Free and Cellobiose-bound Forms. J. Mol. Biol. 2003, 329, 403-410.
  • Iogen doubles EcoEthanol Capacity. April 28, 2003. (accessed May 17, 2003).
  • Pelach, M.A.; Pastor, F.J.; Puig, J.; Vilaseca, F.; Mutje, P. Enzymic deinking of old newspapers with cellulase. Process Biochemistry. 2003, 38, 1063-1067.
  • Dienes, D.; Egyhazi, A.; Reczey, K. Treatment of recycled fiber with Trichoderma cellulases. Industrial Crops and Products. 2004, article in press.
  • Csiszar, E.; Losonczi, A. Szakacs, G. Rusznak, I.; Bezur, L.; Reicher, J. Enzymes and chelating agent in cotton pretreatment. Journal of Biotechnology. 2001, 89, 271-279.
  • Ryback and L.J.P. Muffler, ed., Geothermal Systems: Principles and Case Histories (New York: John Wiley & Sons, 1981), 26.
  • Harsh K. Gupta, Geothermal Resources: An Energy Alternative (Amsterdam: Elsevier Scientific Publishing, 1980), 186.
  • The Earth Explored: Geothermal Energy, 19857 videocassette.
  • Brimner, Larry Dane. Geysers. New York: Children's Press, 2000.
  • Downs, Sandra. Earth's Fiery Fury. Brookfield, CT: Twenty-First Century Books, 2000.
  • Gallant, Roy A. Geysers: When Earth Roars. New York: Scholastic Library Publishing, 1997.

বাহ্যিক লিঙ্ক[সম্পাদনা]