আগ্নেয়গিরির অগ্ন্যুৎপাতের প্রকারভেদ

উইকিপিডিয়া, মুক্ত বিশ্বকোষ থেকে
Stromboli Eruption.jpg
Lava forms.jpg

গবেষকগন আগ্নেয়গিরি অগ্ন্যুৎপাত এর সময় নির্গত লাভা, ছাই, গ্যাস এর ধরনের উপর নির্ভর করে অগ্নুৎপাতকে বিভিন্ন প্রকারে ভাগ করেছেন। এগুলোর নামকরণের ক্ষেত্রে সাধারণত পূর্বের কোন অগ্নেয়গিরির নাম অনুসরণ করা হয়েছে যেটাতে ওই ধরনের অগ্ন্যুৎপাত সংঘটিত হয়েছে। কিছু কিছু আগ্নেয়গিরিতে শুধুমাত্র একধরনের অগ্ন্যুৎপাত সংঘটিত হয় পক্ষান্তরে কিছু কিছুতে সময়ের ক্রমানুসারে একাধিক ধরনের অগ্ন্যুৎপাত সংঘটিত হয়। আগ্নেয়গিরি অগ্নুৎপাতকে ৩ ভাগে ভাগ করা হয়।

  1. ম্যাগমাটিক অগ্ন্যুৎপাত।
  2. প্রিটোম্যাগমেটিক অগ্ন্যুৎপাত।
  3. প্রিয়াটিক অগ্ন্যুৎপাত।dig g fo telecom pac

অগ্নুৎপাত প্রক্রিয়া[সম্পাদনা]

তিনটি মূল প্রক্রিয়ার মাধ্যমে আগ্নেয়গিরির অগ্নুৎপাত হয়ে থাকে।

  • ভূগর্ভস্থ গ্যাসের চাপ কমে গ্যাস নির্গত হওয়ার মাধ্যমে ম্যাগমাটিক অগ্নুৎপাত হয়।
  • তাপীয় সংকোচনের ফলে প্রিটোম্যাগমাটিক অগ্নুৎপাত হয়।
  • বাষ্পীয় উদগিরনের সময় নির্গত ধাতব কনার ফলে প্রিয়াটিক অগ্নুৎপাত হয়।

আগ্নেয়গিরির বিস্ফোরন ক্ষমতা[সম্পাদনা]

আগ্নেয়গিরির বিস্ফোরন ক্ষমতা হল একটি পরিমাপক যেটার মাধ্যমে আগ্নেয়গিরির বিদ্ধংশী ক্ষমতা পরিমাপ করা হয়।যেটা ০-৮ মান ধারা প্রকাশ করা হয়। স্মিথসোনিয়ান ইন্সটিটিউশন প্রাগৈতিহাসিক ও ঐতিহাসিক অগ্নেয়গিরি গুলোর ক্ষয়-ক্ষতি, প্রভাব ও লাভা নিঃসরণের পরিমান হিসেব করতে গ্লোবাল ভলকানিসম প্রোগ্রামে এই পরিমাপক ব্যবহার করে থাকে। এটি ভুমিকম্প পরিমাপক রিকটার স্কেল এর মতোই কাজ করে। প্রতি একক মান বৃদ্ধির সাথে আগ্নেয়গিরির অগ্নুৎপাতে ক্ষমতা ১০গুন বৃদ্ধি নির্দেশ করে।

আগ্নেয়গিরির বিস্ফোরন ক্ষমতার তালিকা

VEI Plume height Eruptive volume * Eruption type Frequency ** Example
<১০০ মি (৩৩০ ফু) ১,০০০ মি (৩৫,৩০০ ঘনফুট) Hawaiian ক্রমাগত Kilauea
১০০–১,০০০ মি (৩০০–৩,৩০০ ফু) ১০,০০০ মি (৩,৫৩,০০০ ঘনফুট) Hawaiian/Strombolian Fortnightly Stromboli
১–৫ কিমি (১–৩ মা) ১০,০০,০০০ মি (৩,৫৩,০০,০০০ ঘনফুট) Strombolian/Vulcanian মাসিক Galeras (১৯৯২)
৩–১৫ কিমি (২–৯ মা) ১,০০,০০,০০০ মি (৩৫,৩০,০০,০০০ ঘনফুট) Vulcanian ৩ মাসিক Nevado del Ruiz (1985)
১০–২৫ কিমি (৬–১৬ মা) ১০,০০,০০,০০০ মি (০.০২৪ মা) Vulcanian/Peléan ১৮ মাস Eyjafjallajökull (২০১০)
>২৫ কিমি (১৬ মা) ১ কিমি (০.২৪ মা) Plinian ১০–১৫ বছর Mount St. Helens (১৯৮০)
>২৫ কিমি (১৬ মা) ১০ কিমি (২ মা) Plinian/Ultra-Plinian ৫০–১০০ বছর Krakatoa (১৮৮৩)
>২৫ কিমি (১৬ মা) ১০০ কিমি (২০ মা) Ultra-Plinian ৫০০–১০০০ বছর Tambora (১৮১৫)
>২৫ কিমি (১৬ মা) ১,০০০ কিমি (২০০ মা) Supervolcanic ৫০,০০০+ বছর[১][২] Lake Toba (74 k.y.a.)
* This is the minimum eruptive volume necessary for the eruption to be considered within the category.
** Values are a rough estimate. They indicate the frequencies for volcanoes of that magnitude OR HIGHER
There is a discontinuity between the 1st and 2nd VEI level; instead of increasing by a magnitude of 10, the value increases by a magnitude of 100 (from 10,000 to 1,000,000).

ম্যাগমাটিক অগ্নুৎপাত[সম্পাদনা]

সংকোচিত গ্যাস বিস্ফোরনের মাধ্যমে ম্যাগমাটিক অগ্নুৎপাতে গলিত লাভা উদগীরন করে। অপেক্ষাকৃত ছোট উদগীরন এর প্রবলতা হয় প্রায় ৩০ কিঃমিঃ উচু হয়ে থাকে। যেটি খ্রিস্টপূর্ব ৭৯ সালে পম্পেই নগরী ধংসকারী মাউন্ট ভিসুভিয়াস এর উদগীরন এর চেয়ে বেশি। কিছু

প্রিটোম্যাগমেটিক অগ্নুৎপাত[সম্পাদনা]

যে অগ্নুৎপাত পানি ও লাভার মধ্যকার পারস্পরিক ক্রিয়ার মাধ্যমে সৃষ্টি হয় তাকে প্রিটোম্যাগমেটিক অগ্নুৎপাত বলে। তাপ সংকোচনের কারণে এমন ঘটে থাকে। কিছু প্রিটোম্যাগমেটিক আগ্নেয়গিরি:

প্রিয়াটিক অগ্নুৎপাত[সম্পাদনা]

বাষ্প সম্প্রসারণের মাধ্যমে যে অগ্নুৎপাত সংঘঠিত হয় তাকে প্রিয়াটিক অগ্নুৎপাত বলে। যখন ঠান্ডা বাতাস অথবা ভূগর্ভস্থ পানি উত্তপ্ত শিলার সংস্পর্শে আসে তখন শিলা অত্যধিক উত্তপ্ত হয়ে বিষ্পোরিত হয় এবং পার্শবর্তী শিলাকে চূর্ণবিচূর্ণ করে পানি, ধোয়া আগ্নেয় গোলা, আগ্নেয় শিলা আকারে উদগীরন হয়। কিছু প্রিয়াটিক আগ্নেয়গিরি হল:

আরো দেখুন[সম্পাদনা]

তথ্যসূত্র[সম্পাদনা]

  1. Dosseto, A., Turner, S. P. and Van-Orman, J. A. (editors) (২০১১)। "Timescales of Magmatic Processes: From Core to Atmosphere"। Wiley-Blackwell। আইএসবিএন 978-1-4443-3260-5 
  2. Rothery, David A. (২০১০)। "Volcanoes, Earthquakes and Tsunamis"। Teach Yourself।