পীতজ্বর

উইকিপিডিয়া, মুক্ত বিশ্বকোষ থেকে
সরাসরি যাও: পরিভ্রমণ, অনুসন্ধান
পীতজ্বর
YellowFeverVirus.jpg
একটি পীতজ্বর ভাইরাসের ট্রান্সমিশন ইলেকট্রন মাইক্রোস্কপিক চিত্র। (234,000X magnification)
শ্রেণীবিভাগ এবং বহিঃস্থ সম্পদ
সমার্থকশব্দ yellow jack, yellow plague,[১] bronze john[২]
বিশিষ্টতা সংক্রামক ব্যাধি
আইসিডি-১০ A৯৫
আইসিডি-৯-সিএম ০৬০
ডিজিসেসডিবি ১৪২০৩
মেডলাইনপ্লাস ০০১৩৬৫
ইমেডিসিন med/2432 emerg/৬৪৫
মেএসএইচ D০১৫০০৪ (ইংরেজি)


পীতজ্বর (ইংরেজি: Yellow fever) বা ইয়েলো ফিভার একটি ভাইরাসঘটিত রোগ।[৩] অধিকাংশ ক্ষেত্রে লক্ষণসমূহ হলো জ্বর, ক্ষুধামন্দা, বমিভাব, মাংসপেশিতে ব্যথা (বিশেষ করে পিঠে), ও মাথাব্যথা[৩] লক্ষণগুলো সাধারণত পাঁচ দিনের মধ্যে সেরে যায়।[৩] কারো কারো ক্ষেত্রে লক্ষণগুলো উন্নতি হওয়ার একদিনের মধ্যে পুনরায় জ্বর হতে পারে, পেটব্যথা শুরু হয় ও যকৃৎ ক্ষতিগ্রস্ত হয়ে জন্ডিস হতে পারে ও শরীর হলুদ হয়ে যায়। এইজন্য এই রোগের নাম পীতজ্বর রাখা হয়েছে।[৩] জন্ডিস হলে রোগীর রক্তক্ষরণ ও কিডনি ফেইলিওরের সম্ভাবনা বাড়ে।[৩]

যে ভাইরাসের মাধ্যমে এই রোগ ছড়ায় তা ইয়েলো ফিভার ভাইরাস নামে পরিচিত। [৩] Aedes aegypti প্রজাতির মশা এই ভাইরাসের বাহক।[৩] এটি ফ্ল্যাভিভাইরাস গণের অন্তর্ভুক্ত একটি আরএনএ ভাইরাস।[৪] প্রাথমিক অবস্থায় অন্যান্য রোগ থেকে এটাকে পৃথক করা কঠিন।[৩] এই ভাইরাসের উপস্থিতি নিশ্চিত করতে রক্ত নমুনা নিয়ে পলিমারেজ চেইন রিয়াকশন নামক পরীক্ষা করতে হয়।[৫]

এই রোগ প্রতিরোধের জন্য কার্যকর ও নিরাপদ টিকা বিদ্যমান।[৩] টিকার পাশাপাশি বাহক মশার বংশবৃদ্ধি ব্যাহত করতে হবে।[৩] যেসব এলাকায় পীতজ্বর হয় কিন্তু টিকার ব্যবস্থা নাই সেখানে মহামারী ঠেকানোর জন্য প্রাথমিক অবস্থায় রোগ নির্ণয় ও টিকাদানের ব্যবস্থা করা খুব জরুরি।[৩] উপসর্গ অনুযায়ী চিকিৎসা প্রদান করতে হয়, সুনির্দিষ্ট কার্যকর কোনো অ্যান্টিভাইরাল ওষুধ নেই।[৩][৬]

প্রতিবছর দুই লক্ষ লোক পীতজ্বরে আক্রান্ত হয় ও প্রায় ত্রিশ হাজার মৃত্যুবরণ করে।[৩] প্রায় নব্বই শতাংশ রোগীই আফ্রিকার[৩][৫] দক্ষিণ আমেরিকা ও আফ্রিকার গ্রীষ্মমণ্ডলীয় এলাকায় এই রোগের প্রাদুর্ভাব অনেক বেশি হলেও এশিয়াতে খুব একটা দেখা যায় না।[৩][৭] ১৯৮০ সাল থেকে পীতজ্বর রোগীর সংখ্যা ক্রমশ বৃদ্ধি পাচ্ছে।[৩][৮] এর জন্য জলবায়ুর পরিবর্তন, লোকজনের অধিক ভ্রমণ, শহরে বসবাসের প্রবণতা ও পর্যাপ্ত টিকার ব্যবস্থা না থাকাকে দায়ী করা হয়। সপ্তদশ শতাব্দীতে দাস বাণিজ্যের ফলে এই রোগ আফ্রিকা থেকে দক্ষিণ আমেরিকায় ছড়িয়ে যায়।[১] সপ্তদশ শতাব্দী থেকে আমেরিকা, আফ্রিকা ও ইউরোপে বেশ কয়েকবার মহামারী দেখা দেয়।[১] অষ্টাদশ ও ঊনবিংশ শতাব্দীতে পীতজ্বরকে অন্যতম ভয়ানক সংক্রামক ব্যাধি হিসেবে গণ্য করা হত।[১] ১৯২৭ সালে সকল ভাইরাসের মধ্যে ইয়েলো ফিভার ভাইরাসকেই প্রথমবারের মতো পৃথক করা সম্ভব হয়েছিল।[৪][৯]

উপসর্গ[সম্পাদনা]

পীতজ্বরের সুপ্তাবস্থা তিন থেকে ছয় দিন।[১০] অধিকাংশ ক্ষেত্রে লক্ষণসমূহ হলো জ্বর, ক্ষুধামন্দা, বমিভাব বা বমি, মাংসপেশিতে ব্যথা (বিশেষ করে পিঠে), পেটব্যথা, ক্লান্তি, মাথাব্যথা ও জন্ডিস।[১১]

কারণ[সম্পাদনা]

ইয়েলো ফিভার ভাইরাস
ভাইরাসের শ্রেণীবিন্যাস
গ্রুপ: ৪র্থ গ্রুপ ((+)ssRNA)
বর্গ: Unassigned
পরিবার: Flaviviridae
গণ: Flavivirus
প্রজাতি: Yellow fever virus

ইয়েলো ফিভার ভাইরাস নামক RNA ভাইরাস এই রোগের জন্য দায়ী।

তথ্যসূত্র[সম্পাদনা]

  1. Oldstone, Michael (২০০৯)। Viruses, Plagues, and History: Past, Present and Future। Oxford University Press। পৃ: 102–4। আইএসবিএন 9780199758494 
  2. Bazin, Hervé (২০১১)। Vaccination : a history from Lady Montagu to genetic engineering। Montrouge: J. Libbey Eurotext। পৃ: ৪০৭। আইএসবিএন 9782742007752 
  3. "Yellow fever Fact sheet N°100"World Health Organization। মে ২০১৩। সংগৃহীত ২৩ ফেব্রুয়ারি ২০১৪ 
  4. Lindenbach, B. D. (২০০৭)। "Flaviviridae: The Viruses and Their Replication"। in Knipe, D. M.; P. M. Howley। Fields Virology (5th সংস্করণ)। Philadelphia, PA: Lippincott Williams & Wilkins। পৃ: ১১০১। আইএসবিএন 0-7817606-0-7 
  5. Tolle MA (এপ্রিল ২০০৯)। "Mosquito-borne diseases"। Curr Probl Pediatr Adolesc Health Care 39 (4): 97–140। ডিওআই:10.1016/j.cppeds.2009.01.001পিএমআইডি 19327647 
  6. "Frequently Asked Questions About Yellow Fever"CDC। আগস্ট ২১, ২০১৫। সংগৃহীত ১৮ মার্চ ২০১৬ 
  7. "CDC Yellow Fever"। সংগৃহীত ২০১২-১২-১২ 
  8. Barrett AD, Higgs S (২০০৭)। "Yellow fever: a disease that has yet to be conquered"। Annu. Rev. Entomol. 52: 209–29। ডিওআই:10.1146/annurev.ento.52.110405.091454পিএমআইডি 16913829 
  9. Sfakianos, Jeffrey; Hecht, Alan (২০০৯)। Babcock, Hilary, সম্পাদক। West Nile virus। Foreword by David Heymann (2nd সংস্করণ)। New York: Chelsea House। পৃ: ১৭। আইএসবিএন 9781604132540 
  10. "CDC: Yellow fever—Symptoms and treatment"। সংগৃহীত ২০১০-১১-১০ 
  11. "Yellow fever"। WHO। সংগৃহীত ২০০৯-০৮-১৩ 

আরো পড়ুন[সম্পাদনা]

বহিঃসংযোগ[সম্পাদনা]