শাহরুখ খান

উইকিপিডিয়া, মুক্ত বিশ্বকোষ থেকে
Jump to navigation Jump to search
শাহরুখ খান
শাহরুখ খান
২০১৭ সালে জব হ্যারি মেট সেজলের প্রচারণায় শাহরুখ
স্থানীয় নাম शाहरुख खान
জন্ম শাহরুখ খান
(১৯৬৫-১১-০২) ২ নভেম্বর ১৯৬৫ (বয়স ৫২)
নয়া দিল্লি, ভারত[১]
বাসস্থান বান্দ্রা, মুম্বাই, মহারাষ্ট্র, ভারত [২]
জাতীয়তা ভারত ভারতীয়
অন্য নাম
  • কিং খান
  • বাদশাহ খান
  • কিং অফ বলিউড
  • কিং অফ রোমান্স
নাগরিকত্ব ভারতীয়
শিক্ষা স্নাতক (গণ যোগাযোগ)
শিক্ষা প্রতিষ্ঠান জামিয়া মিলিয়া ইসলামিয়া
পেশা
  • অভিনেতা
  • প্রযোজক
  • টেলিভিশন উপস্থাপক
কার্যকাল ১৯৮৮–বর্তমান
উল্লেখযোগ্য কাজ নির্বাচিত চলচ্চিত্রের তালিকা
আদি শহর মুম্বাই
মোট সম্পত্তি বৃদ্ধি ইউএস $৬০০ মিলিয়ন (২০১৬)[৩]
উচ্চতা ৫ ফুট ৮ ইঞ্চি (১.৭৩ মিটার)
দাম্পত্য সঙ্গী গৌরী খান (বি. ১৯৯১)
সন্তান
পুরস্কার নিচে দেখুন
স্বাক্ষর
শাহ রুখ খানের স্বাক্ষর

শাহরুখ খান (হিন্দি: शाहरुख़ ख़ान, ইংরেজি: Shah Rukh Khan; আ-ধ্ব-ব: /ʃɑːhrux xɑːn/; জন্ম শাহরুখ খান; নভেম্বর ২, ১৯৬৫),[৪] অনানুষ্ঠানিকভাবে এসআরকে হিসাবে ডাকা হয়, একজন বিখ্যাত ভারতীয় অভিনেতা, প্রযোজক, টেলিভিশন উপস্থাপক এবং মানবপ্রেমিক। ১৯৮০ এর শেষের দিকে বেশ কিছু টেলিভিশন সিরিয়ালে অভিনয়ের মাধ্যমে তাঁর অভিনয় জীবন শুরু করেন। ১৯৯২ সালে মুক্তিপ্রাপ্ত দিওয়ানা চলচ্চিত্রের মাধ্যমে তিনি চলচ্চিত্র জগতে প্রবেশ করেন। এরপর তিনি অসংখ্য বাণিজ্যিকভাবে সফল চলচ্চিত্রে অভিনয় করেন এবং খ্যাতি অর্জন করেন। শাহরুখ খান চৌদ্দবার ফিল্মফেয়ার পুরস্কার লাভ করেন। এর মধ্যে আটটিই সেরা অভিনেতার পুরস্কার। তিনি বলিউডের অন্যতম সফল অভিনেতা। হিন্দি চলচ্চিত্রে অসাধারণ অবদানের জন্য ২০০২ সালে ভারত সরকার শাহরুখ খানকে পদ্মশ্রী পুরস্কারে ভূষিত করে।

বর্তমানে শাহরুখ খান পৃথিবীর সফল চলচ্চিত্র তারকা।[৫] তাঁর প্রায় ৩.২ বিলিয়ন ভক্ত এবং তাঁর মোট অর্থসম্পদের পরিমাণ ২৫০০ কোটি রুপি-এরও বেশি।[৬] ২০০৮ সালে নিউজউইক তাঁকে বিশ্বের ৫০ ক্ষমতাশীল ব্যক্তির তালিকায় স্থান দেয়।[৫] ওয়েলথ-এক্স সংস্থার বিচারে বিশ্বের সবথেকে ধনী হলিউড, বলিউড তারকার তালিকায় শাহরুখ খান দ্বিতীয় স্থান পেয়েছেন। এক্ষেত্রে তিনি হলিউড তারকা ব্রাড পিট, টম ক্রুজ, জনি ডেপ-দের পিছনে ফেলে দিয়েছেন। অভিনেতা হিসেবে বৈশ্বিক অবদানের জন্য শাহরুখ খানকে সম্মানসূচক ডক্টরেট উপাধিতে ভূষিত করেছে স্কটল্যান্ডের প্রাচীন বিশ্ববিদ্যালয় এডিনবরা বিশ্ববিদ্যালয়।[৭]

প্রাথমিক জীবন এবং পটভূমি[সম্পাদনা]

২০১২ সালে স্ত্রী গৌরীর সাথে খান; তিনি চলচ্চিত্র জীবন শুরু করার আগেই বিয়ে করেন।

খান ১৯৬৫ সালে একটি মুসলিম[৮] পরিবারে জন্ম গ্রহণ করেন পিতা নতুন দিল্লি, ভারতের পাঠান বংশদ্ভুত।[৯] তাঁর পিতা তাজ মোহাম্মদ খান একজন ভারতীয় স্বাধীনতা কর্মী ছিলেন। খানের মতে, তার দাদা ছিল প্রকৃতভাবে একজন আফগানিস্তান নাগরিক।[১০] তাঁর মা, লতিফ ফাতিমা, ছিল মেজর জেনারেল শাহ নওয়াজ খান জানজুয়া রাজপুত জাতি, ভারতীয় আজাদ হিন্দ ফৌজ সুভাষচন্দ্র বোস এর দত্তক মেয়ে।[১১] খানের পিতা ভারত বিভাগ হওয়ার আগে কিসা খাওয়ানি বাজার, পেশাওয়ার থেকে নয়া দিল্লি চলে আসেন।[১২] যখন তার মায়ের পরিবার রাওয়ালপিন্ডি, ব্রিটিশ ভারত থেকে এসেছিলেন।[১৩] খানের শেহনাজ নামে একজন বড় বোন আছে।[১৪] তাঁর জন্ম নাম শাহরুখ (অর্থ "রাজ মুখ") ছিল নির্দিষ্ট, কিন্তু পছন্দ করে তার নাম শাহ রুখ খান লিখিত হয়, এছাড়াও সাধারণত এসআরকে হিসাবে উল্লেখ করা হয়।[৪]

বেড়ে ওঠা রাজেন্দ্র নগর এলাকার মধ্যে ৷[১৫] খান ২৫ অক্টোবর,১৯৯১ সালে গৌরী খান এর সাথে বিবাহ বন্ধনে আবদ্ধ হন ৷ তাদের প্রথম সন্তান আরিয়ান খান ৷ তাদের কন্যা সুহানা খান এবং সর্বশেষ আব্রাম খান ৷ খান ইসলাম ধর্ম পালন করলেও তিনি তার স্ত্রীর ধর্ম হিন্দু কে সম্মান করেন ৷ তার সন্তানেরাও দুটি ধর্মই পালন করে৷ শাহরুখ খানের উচ্চতা পাঁচ ফুট আট ইঞ্চি।[১৬]

চলচ্চিত্র কর্মজীবন[সম্পাদনা]

অভিনেতা[সম্পাদনা]

১৯৮৮ সালে ফৌজী টেলিভিশন সিরিয়ালে কমান্ডো অভিমন্যু রাই চরিত্রের মাধ্যমে অভিনেতা হিসেবে তিনি আত্মপ্রকাশ করেন।[১৭] এরপর ১৯৮৯ সালে সার্কাস সিরিয়ালে তিনি কেন্দ্রীয় ভূমিকায় অভিনয় করেন,[১৮] যেটি ছিল একজন সাধারণ সার্কাস অভিনেতার জীবন নিয়ে রচিত। একই বছর তিনি অরুন্ধতী রায়ের In Which Annie Gives it Those Ones টেলি-চলচ্চিত্রে গৌণ চরিত্রে অভিনয় করেন। তার পিতা-মাতার মৃত্যুর পর নতুন জীবন শুরু করার লক্ষ্যে শাহরুখ নয়াদিল্লী ছেড়ে মুম্বাই পাড়ি জমান।[১৯]

ফৌজীতে অভিনয়ের মাধ্যমে তিনি হেমা মালিনীর চোখে পড়েন যিনি শাহ রুখ খানকে তার অভিষেক ছবি দিল আশনা হ্যায়তে অভিনয়ের সুযোগ দেন। দিওয়ানা (১৯৯২) ছবির মাধ্যমে তিনি চলচ্চিত্রের জগতে যাত্রা শুরু করেন। এ ছবিতে তার বিপরীতে ছিলেন দিব্যা ভারতী। ছবিটি ব্যবসাসফল হয় এবং তিনি বলিউডে আসন গাড়তে সক্ষম হন।[২০] আসলে তার প্রথম ছবি হওয়ার কথা ছিল দিল আশনা হ্যায় কিন্তু দিওয়ানা প্রথমে মুক্তি পায়। একই বছরে তিনি আরও কিছু ছবি যেমন চমৎকার, বিতর্কিত আর্ট ফিল্ম মায়া মেমসাবে অভিনয় করেন।

১৯৯৩ সালে বাজীগরডর ছবিতে খলচরিত্রে অভিনয় করে তিনি বিপুল খ্যাতি পান। ডর ছবিতে শাহরুখ একজন অপ্রকৃতস্থ প্রেমিক এর ভূমিকায় অভিনয় করেন, ছবিটি খুব সাফল্য লাভ করে এবং তিনি তারকা খ্যাতি পান। বাজিগর ছবির জন্য তিনি তার ক্যারিয়ারের প্রথম ফিল্মফেয়ার শ্রেষ্ঠ অভিনেতা পুরস্কার লাভ করেন। এছাড়া তিনি কাভি হাঁ কাভি না ছবিতে একজন ব্যর্থ যুবক ও প্রেমিকের চরিত্রে অভিনয় করেন যার কারনে তিনি সমালোচকদের রায়ে শ্রেষ্ঠ অভিনেতা নির্বাচিত হন।

১৯৯৪ সালে তিনি আঞ্জাম ছবিতে অভিনয় করেন যেটি ব্যবসাসফল হয়নি। তবে সাইকোপ্যাথ হিসেবে তার অভিনয় সমাদৃত হয় এবং তিনি ১৯৯৫ সালে ফিল্মফেয়ার শ্রেষ্ঠ ভিলেন পুরস্কার লাভ করেন।

১৯৯৫ ছিল তার জন্য খুব সাফল্যের বছর। দিলওয়ালে দুলহানিয়া লে যায়েঙ্গে বক্স অফিস রেকর্ড ভাঙ্গে[২১] এবং এর সব কৃতিত্ব পান তিনি। ছবিটি ৫২০ সপ্তাহের বেশি প্রদর্শিত হয়। ভারতের সর্বাধিকবার প্রচারিত ছবি হিসেবে যাকে তুলনা করা যায় শোলের সাথে যা ২৬০ সপ্তাহ চলেছিল। ছবিটি বর্তমানে বারো বছর ধরে প্রদর্শিত হচ্ছে এবং প্রায় ১২ বিলিয়ন রুপির চেয়েও বেশি অর্থ আয় করেছে।[২২]

খান স্বদেশ ছবির চিত্রায়নের জন্য নাসায় ২০০৪

দিলওয়ালে দুলহানিয়া লে যায়েঙ্গের পর তিনি বেশ কটি ছবিতে সাফল্য পান, যার অধিকাংশই ছিল প্রেম-কাহিনী। যশ চোপড়া এবং করন জোহরের সাথে মিলে তিনি বলিউডে সফলতা পেতে থাকেন। এসব চলচ্চিত্রের মধ্যে উল্লেখযোগ্য হচ্ছেঃ পরদেশ, দিল তো পাগল হ্যায় (১৯৯৭), কুছ কুছ হোতা হ্যায় (১৯৯৮), মোহাব্বতে (২০০০), কাভি খুশি কাভি গাম... (২০০১), কাল হো না হো (২০০৩) এবং বীর-জারা(২০০৪)।[২৩] এছাড়া অন্যান্য পরিচালক যেমন, আজিজ মির্জার ইয়েস বস (১৯৯৭), মনসুর খানের জোশ (২০০০) এবং সঞ্জয় লীলা বনসালির দেবদাস (২০০২) ব্যবসা সফল হয়।

আঞ্জাম (১৯৯৪), দিল সে (১৯৯৮), স্বদেশ (২০০৪) ও পহেলি (২০০৫) ছবির জন্য শাহ রুখ খান সমালোচকদের দৃষ্টি আকর্ষন করেন।[২৩]

২০০৬ সালে করন জোহরের কভি আলবিদা না কেহনা (২০০৬) ছবিটি ভারতে মোটামুটি ব্যবসা করলেও বিদেশে ব্যবসাসফল হয়।[২৪] একই বছরে ডন ছবিতে অভিনয় করেন যেটিও ব্যবসাসফল হয়েছিল।[২৫]

২০০৭ সালে শাহরুখের প্রথম মুক্তিপ্রাপ্ত ছবি ছিল চাক দে! ইন্ডিয়া। বাণিজ্য সফল এই ছবিতে অভিনয়ের জন্য শাহরুখ সপ্তমবারের জন্য ফিল্মফেয়ার সেরা অভিনেতার পুরস্কার পান। তাঁর অন্য মুক্তিপ্রাপ্ত ছবি ওম শান্তি ওম ২০০৭ সালের সবচেয়ে বাণিজ্য সফল ছবি।[২৬]

২০০৮ সালে শাহরুখের রব নে বানা দি জোড়ি ছবিটি খুব ভাল ব্যবসা করে ।

বর্তমানে সারা বিশ্বে বলিউডের জনপ্রিয়তম ব্যাক্তিত্বদের মধ্যে শাহরুখ খান অন্যতম। তাঁর অভিনীত হে রাম,দেবদাস এবং পহেলি ভারত থেকে অস্কার এ পাঠানো হয়েছিল। শাহরুখ-কাজল জুটি বলিউডের অন্যতম সেরা জুটি হিসেবে স্বীকৃত। কাজলের সাথে তাঁর অভিনীত বাজীগর,দিলওয়ালে দুলহানিয়া লে যায়েঙ্গে, করন অর্জুন, কুছ কুছ হোতা হ্যায়, কাভি খুশি কাভি গাম...। এই ৫টি ছবিই ব্যবসা-সফল হয়। রা.ওয়ান ছবিতেও অর্জুন রামপালের বিপক্ষে অভিনয় করেও ব্যাপক সাফল্য লাভ করেন। এবং সর্বশেষ কাজলের সাথে তাঁর অভিনীত দিলওয়ালে মুভিটি বলিউডে ব্যাপক সাড়া জাগিয়েছে। ২৩ বছরের অভিনয়জীবনে তিনি ভারতের সর্বকালের সর্বশ্রেষ্ঠ ও জনপ্রিয়দের কাতারে অমিতাভ বচ্চন-এর পরবর্তীস্থান এর শক্ত দাবিদার। [[চিত্|thumb|খান, কারিনা কাপুর ও অর্জুন রামপাল রা.ওয়ান ছবির প্রিমিয়ারে লন্ডন ২০১১।]]

প্রযোজক[সম্পাদনা]

শাহরুখ খান বিভিন্ন ছবি প্রযোজনাতেও হাত দিয়েছেন। তবে এখানে তার সাফল্য মিশ্র প্রকৃতির। ১৯৯৯ সালে তিনি পরিচালক আজিজ মির্জা ও অভিনেত্রী জুহি চাওলার সাথে তিনি ড্রিমজ আনলিমিটেড নামে একটি চলচ্চিত্র প্রযোজনা প্রতিষ্ঠান স্থাপন করেন। এই প্রতিষ্ঠানের প্রথম দুটি ছবি ফির ভি দিল হ্যায় হিন্দুস্তানি (২০০০) এবং অশোকা (২০০১) ব্যবসাসফল হয়নি।[২৭][২৮].

তার প্রযোজিত তৃতীয় ছবি চলতে চলতে (২০০৩) ব্যবসাসফল হয়,[২৯] ২০০৪ সালে তিনি আরেকটি প্রতিষ্ঠান স্থাপন করেন রেড চিলিস এন্টারটেনমেন্ট নাম দিয়ে এবং এখান থেকে ম্যায় হুঁ না (২০০৪) চলচ্চিত্রটি প্রযোজনা করেন যা বলিউডে দারুন ব্যবসা করে।[৩০] ২০০৫ সালে তিনি কল্পকাহিনী নিয়ে পহেলি চলচ্চিত্রটি নির্মাণ করেন যা অ্যাকাডেমি পুরস্কারের জন্য ভারত থেকে মনোনয়ন পায়, তবে পুরস্কার জিততে পারেনি। ভারতের চলচ্চিত্র জগতে পহেলি তেমন সফলতা পায়নি।[৩১] একই বছর তিনি কাল নামে একটি চলচ্চিত্র সহ-প্রযোজনা করেন। এ ছবিতে তিনি অভিনয় না করলেও একটি আইটেম গানের দৃশ্যে মালাইকা অরোরা খানের সাথে অভিনয় করেন। কাল মোটামুটি সফলতা পায়।[৩১]

রেড চিলিস এন্টারটেনমেন্ট থেকে নির্মিত পরের ছবি ওম শান্তি ওম ২০০৭ সালের সবচেয়ে সফল ছবি। এইছবিতে ৩০ জনের বেশি নামী অভিনেতা একটি গানের দৃশ্যে অভিনয় করেছেন।

অন্যান্য কর্ম[সম্পাদনা]

টেলিভিশন[সম্পাদনা]

খান জি কার্নিভাল সান সিটি, সিঙ্গাপুর ২০০৮.

জনপ্রিয় ব্রিটিশ গেম শো হু ওয়ান্টস টু বি আ মিলিয়নিয়ার? এর হিন্দি সংস্করন কৌন বনেগা ক্রোড়পতি এ তিনি সঞ্চালকের ভূমিকা পালন করেছেন।[৩২] এক্ষেত্রে তিনি সাবেক উপস্থাপক অমিতাভ বচ্চনের কাছ থেকে দায়িত্ব নেন যিনি ২০০০ সাল থেকে ২০০৫ সাল পর্যন্ত এটি উপস্থাপনা করে জনপ্রিয়তা পেয়েছিলেন। ভারতের টেলিভিশনের ইতিহাসে এটি অন্যতম জনপ্রিয় অনুষ্ঠান। ২০০৭ সালের ২২ জানুয়ারি সোমবার শাহরুখ খান কেবিসি এর তৃতীয় মরশুম শুরু করেন। এই মরশুম শেষ হয় ২০০৭ সালের ১৯ এপ্রিলে।[৩৩] ২৫ এপ্রিল ২০০৮ থেকে শাহরুখ আর ইউ স্মার্টার দ্যান আ ফিফথ গ্রেডার? এর হিন্দি সংস্করণ ক্যা আপ পাঁচবি পাস সে তেজ হ্যায়? এর সঞ্চালকের ভুমিকায় অবতীর্ণ হয়েছেন। [৩৪]

মঞ্চ অনুষ্ঠান[সম্পাদনা]

আইপিএল ক্রিকেট দলের মালিকানা[সম্পাদনা]

খানের সাথে সাবেক KKR-এর অধিনায়ক সৌরভ গাঙ্গুলীগৌরী খান

শাহরুখ খান, তাঁর রেড চিলিস এন্টারটেনমেন্ট এর মাধ্যমে, ইন্ডিয়ান প্রিমিয়ার লীগ এর দল কলকাতা নাইট রাইডার্সের অন্যতম মালিক। তিনি এবং তাঁর বন্ধু ও সহ-অভিনেত্রী জুহি চাওলার স্বামী জয় মেহতা এই দলটিকে কিনে নেন।[৩৫] প্রসংগত উল্লেখ্য যে শাহরুখ, কলকাতা ছাড়াও দিল্লী, মুম্বাই, চন্ডীগড় এবং জয়পুরের জন্য দরপত্র দিয়েছিলেন।[৩৬]

মানবাতাবাদি কারণ[সম্পাদনা]

শিল্পদক্ষতা[সম্পাদনা]

সম্পদ এবং জনপ্রিয়তা[সম্পাদনা]

শাহরুখ খানের প্রায় ৩.২ বিলিয়ন ভক্ত এবং তাঁর মোট অর্থসম্পদের পরিমাণ ২৫০০ কোটি রুপি-এরও বেশি।[৭] ২০০৮ সালে নিউজউইক তাঁকে বিশ্বের ৫০ ক্ষমতাশীল ব্যক্তির তালিকায় স্থান দেয়।[৬] ওয়েলথ-এক্স সংস্থার বিচারে বিশ্বের সবথেকে ধনী হলিউড, বলিউড তারকার তালিকায় শাহরুখ খান দ্বিতীয় স্থান পেয়েছেন। এক্ষেত্রে তিনি হলিউড তারকা ব্রাড পিট, টম ক্রুজ, জনি ডেপ-দের পিছনে ফেলে দিয়েছেন।

প্রচার মাধ্যমে[সম্পাদনা]

নির্বাচিত চলচ্চিত্রের তালিকা[সম্পাদনা]

বছর চলচ্চিত্র চরিত্র টীকা
১৯৯২ দিওয়ানা রাজা সাহাই ফিল্মফেয়ার শ্রেষ্ঠ অভিষেক পুরস্কার
১৯৯৩ বাজীগর অজয় শর্মা / ভিকি মালহোত্রা ফিল্মফেয়ার শ্রেষ্ঠ অভিনেতা পুরস্কার
১৯৯৪ কাভি হাঁ কাভি না সুনীল সেরা কৃতীত্বের জন্য ফিল্মফেয়ার সমালোচক পুরস্কার
১৯৯৪ আঞ্জাম বিজয় অগ্নিহোত্রী ফিল্মফেয়ার শ্রেষ্ঠ খলনায়ক পুরস্কার
১৯৯৫ দিলওয়ালে দুলহানিয়া লে যায়েঙ্গে রাজ মালহোত্রা ফিল্মফেয়ার শ্রেষ্ঠ অভিনেতা পুরস্কার
১৯৯৭ দিল তো পাগল হ্যায় রাহুল ফিল্মফেয়ার শ্রেষ্ঠ অভিনেতা পুরস্কার
১৯৯৮ কুছ কুছ হোতা হ্যায় রাহুল খান্না ফিল্মফেয়ার শ্রেষ্ঠ অভিনেতা পুরস্কার
২০০০ মোহাব্বতে রাজ আরিয়ান মালহোত্রা ফিল্মফেয়ার শ্রেষ্ঠ অভিনেতা সমালোচক পুরস্কার
২০০২ দেবদাস দেবদাস মুখার্জি ফিল্মফেয়ার শ্রেষ্ঠ অভিনেতা পুরস্কার
২০০৪ স্বদেশ মোহন বারগাভা ফিল্মফেয়ার শ্রেষ্ঠ অভিনেতা পুরস্কার
২০০৭ চাক দে! ইন্ডিয়া কবির খান ফিল্মফেয়ার শ্রেষ্ঠ অভিনেতা পুরস্কার
২০১০ মাই নেম ইজ খান রিজওয়ান খান ফিল্মফেয়ার শ্রেষ্ঠ অভিনেতা পুরস্কার

পুরস্কার এবং মনোনয়ন[সম্পাদনা]

ফিল্মফেয়ার পুরস্কার[সম্পাদনা]

বিশেষ পুরস্কার

  • ২০০২ - ফিল্মফেয়ার বিশেষ পুরস্কার সুইস কনস্যুলেট ট্রফি
  • ২০০৩ - ফিল্মফেয়ার শক্তি পুরস্কার (যৌথভাবে - অমিতাভ বচ্চনের সাথে)
  • ২০০৪ - ফিল্মফেয়ার শক্তি পুরস্কার

অন্যান্য চলচ্চিত্র পুরস্কার[সম্পাদনা]

  • স্টার স্ক্রীন অ্যাওয়ার্ডস - ৭
  • ইন্টারন্যাশনাল ইন্ডিয়ান ফিল্ম অ্যাকাডেমি অ্যাওয়ার্ডস - ২
  • জি সিনে পুরস্কার - ৬
  • বলিউড মুভি অ্যাওয়ার্ডস - ৪
  • গ্লোবাল ইন্ডিয়ান ফিল্ম অ্যাওয়ার্ডস - ২
  • রুপা সিনেগোয়ার পুরস্কার - ১০
  • সানসুই ভিউয়ার'স চয়েস মুভি পুরস্কার - ৬
  • আফজা পুরস্কার - ২
  • আশীর্বাদ পুরস্কার - ১
  • ডিজনি কিডস চ্যানেল পুরস্কার - ১
  • এম.টি.ভি. পুরস্কার - ১
  • স্পোর্টস ওয়ার্ল্ড পুরস্কার - ১
  • সাহারা ওয়ান সঙ্গীত পুরস্কার - ১ (আপুন বোলা গানের জন্য শ্রেষ্ঠ নায়ক ও গায়ক)

জাতীয় সম্মাননা[সম্পাদনা]

  • ১৯৯৭ - শ্রেষ্ঠ ভারতীয় নাগরিক
  • ২০০২ - রাজীব গান্ধী পুরস্কার
  • ২০০৫ - পদ্মশ্রী পুরস্কার, ভারতের চতুর্থ সর্বোচ্চ সরকারি সম্মান
  • ২০০৭ - আওয়াদে আহমেদ ফারাহ

অন্যান্য[সম্পাদনা]

  • ২০০১ - জেড ম্যাগাজিন (Jade Magazine) পুরস্কার এশিয়ার সবচেয়ে যৌনাবেদনময়ী পুরুষ
  • ২০০৪ - এশিয়ান গিল্ড (Asian Guild) পুরস্মডবলিউডের যুগের শ্রেষ্ঠ তারকাgvhhgb
  • ২০০৪ - পেপসি সবচেয়ে প্রিয় তারকা পুরস্কার
  • ২০০৪ - 'এফ-পুরস্কার' ভারতীয় ফ্যাশন তারকা মডেল
  • ২০০৪ - ছোট কা ফুন্ডা পুরস্কার
  • ২০০৪ - টাইম ম্যাগাজিনের প্রচ্ছদ
  • ২০০৪ - সবচেয়ে তেজ বছরের শ্রেষ্ঠ পারসোনালিটি
  • ২০০৪ - এম.এস.এন. বছরের শ্রেষ্ঠ সার্চ পারসোনালিটি পুরস্কার
  • ২০০৫ - ন্যাশনাল জিওগ্রাফি ম্যাগাজিনের প্রচ্ছদ
  • ২০০৬ - "হামীর-ই-হিন্দ" খেতাব, "দেশভক্ত" সংবাদপত্র থেকে

আরও দেখুন[সম্পাদনা]

পাদটীকা[সম্পাদনা]

তথ্যসূত্র[সম্পাদনা]

  1. Chopra 2007, পৃ. 27: "born on November 2, 1965 at Talwar Nursing Home, in New Delhi"
  2. "Bandra, where the Big Stars live"Rediff.com। ৭ আগস্ট ২০০৬। সংগ্রহের তারিখ ৪ ফেব্রুয়ারি ২০১২ 
  3. Kim, Susanna (২২ মে ২০১৪)। "The Richest Actors in the World Are Not Who You Expect"ABC Good Morning America। সংগ্রহের তারিখ ২২ মে ২০১৪ 
  4. James, Randy (২০০৯-০৮-১৮)। "2-Min. Bio: Bollywood Star Shah Rukh Khan"। TIME। সংগ্রহের তারিখ ২০১১-১২-১৫ 
  5. "The Global Elite – 41: Shahrukh Khan"Newsweek। ২০ ডিসেম্বর ২০০৮। সংগ্রহের তারিখ ২৪ ডিসেম্বর ২০০৮ 
  6. "Shah Rukh Khan's net worth is 2500 crore"Times of India। ২১ অক্টোবর ২০০৯। সংগ্রহের তারিখ ২০১০-০২-১২ 
  7. http://m.bdnews24.com/bn/detail/glitz/1040971
  8. "Bollywood Gets Political"Foreign Policy In Focus। ২৪ অক্টোবর ২০০৮। 
  9. "The Rediff Interview / Shah Rukh Khan"। Rediff। সংগ্রহের তারিখ ৫ জুলাই ২০০৬ 
  10. 2009 interview with an Afghan movie director on Afghan TV channel, Shahrukh Khan states that his father's father (grandfather) is from Afghanistan.
  11. "Badshah at durbar and dinner"The Telegraph। Kolkota, India। সংগ্রহের তারিখ ১২ মার্চ ২০০৭ 
  12. "Rediff News Gallery: The Shahrukh Connection" 
  13. A Hundred Horizons by Sugata Bose, 2006 USA, p136
  14. "Shahrukh Khan – Journey"। Movies.indiatimes.com। ১১ সেপ্টেম্বর ২০০৩। সংগ্রহের তারিখ ১০ সেপ্টেম্বর ২০১০ 
  15. SRK to run for Delhi TNN, The Times of India, 30 September 2009. "I was born here, in Talwar Nursing Home. I lived here for more than two decades in Rajinder Nagar"
  16. "ছোট হয়েও বড় যারা"। সংগ্রহের তারিখ ১৬ জুন ২০১৭ 
  17. The camera chose Shah Rukh Khan
  18. Shahrukh goes global
  19. Asia's Heroes
  20. BoxOfficeIndia.Com
  21. http://www.boxofficeindia.com/alltime.htm
  22. "´DDLJ´ Enters The Twelfth Year At The Theaters!"planetbollywood.com। সংগ্রহের তারিখ ১৪ জানুয়ারি ২০০৭ 
  23. http://www.boxofficeindia.com/shahrukhkhan.htm
  24. [১]
  25. http://www.boxofficeindia.com/2006.htm
  26. http://www.boxofficeindia.com/showProd.php?itemCat=214&catName=MjAwMA BOI 2007
  27. http://www.boxofficeindia.com/2001.htm.
  28. http://www.boxofficeindia.com/2001.htm
  29. http://www.boxofficeindia.com/2003.htm
  30. http://www.boxofficeindia.com/2004.htm
  31. http://www.boxofficeindia.com/2005.htm
  32. http://www.iht.com/articles/ap/2007/01/18/arts/AS-A-E-TV-India-Millionaire-Show.php
  33. http://www.businessofcinema.com/2007/22jan/shahrukh_kbc.htm
  34. http://www.tvnext.in/news/151/ARTICLE/1429/2008-05-29.html TVNext
  35. http://www.hindu.com/2008/03/12/stories/2008031259452300.htm IPL:Unveiling of KKR
  36. http://economictimes.indiatimes.com/Shah_Rukh_Khan_bids_for_5_IPL_teams/articleshow/2722426.cms SRK bids for 5 teams

গ্রন্থতালিকা[সম্পাদনা]

বহিঃসংযোগ[সম্পাদনা]