শাম্মী কাপুর

উইকিপিডিয়া, মুক্ত বিশ্বকোষ থেকে
পরিভ্রমণে ঝাঁপ দিন অনুসন্ধানে ঝাঁপ দিন
শাম্মী কাপুর
Signed photo of Indian actor Shammi Kapoor (2).jpg
জন্ম
শমশের রাজ কাপুর

(১৯৩১-১০-২১)২১ অক্টোবর ১৯৩১
মুম্বই, মহারাষ্ট্র, ভারত
মৃত্যু১৪ আগস্ট ২০১১(2011-08-14) (বয়স ৭৯)
মুম্বই, মহারাষ্ট্র, ভারত[১]
জাতীয়তাভারতীয়
অন্য নামভারতের এলভিস প্রিসলি
জাতিসত্তাপাঞ্জাবি[২]
কার্যকাল১৯৫২ - ২০১১
উচ্চতা৬ ফু ০ ইঞ্চি (১.৮৩ মি) [৩]
দাম্পত্য সঙ্গীগীতা বালি (১৯৫৫ - ১৯৬৫)
নীলা (১৯৬৯ - ২০১১)
সন্তানআদিত্য রাজ কাপুর
কাঞ্চন দেশাই
পিতা-মাতাপৃথ্বীরাজ কাপুর
রামস্বামী কাপুর
আত্মীয়রাজ কাপুর (ভাই)
শশী কাপুর (ভাই)
উর্মিলা কাপুর (বোন)
দেখুন: কাপুর পরিবার
স্বাক্ষর
Shammi Kapoor.svg

শমশের রাজ কাপুর (মারাঠি: शम्मी कपूर; জন্ম: ২১ অক্টোবর, ১৯৩১ - মৃত্যু: ১৪ আগস্ট, ২০১১) মুম্বইয়ে জন্মগ্রহণকারী ভারতীয় চলচ্চিত্র শিল্প জগতের নায়ক এবং চলচ্চিত্র পরিচালক ছিলেন। ১৯৫০ ও ১৯৬০-এর দশকে হিন্দি সিনেমা অঙ্গনে তিনি ছিলেন অত্যন্ত জনপ্রিয়, চিত্রতারকা শিল্পী ও প্রভাবশালী ব্যক্তিত্ব। তার পিতা পৃথ্বীরাজ কাপুর ছিলেন বিশিষ্ট চলচ্চিত্র তারকা এবং থিয়েটারের অভিনেতা। তিন ভাইয়ের মধ্যে তার অবস্থান ছিল দ্বিতীয়। বড় ভাই রাজ কাপুর ও ছোট ভাই শশী কাপুর। ভাইত্রয় প্রত্যেকেই তাদের পিতার মতো বলিউডে সফলতম অভিনেতা হিসেবে পরিচিতি পেয়েছিলেন। বাবা চলচ্চিত্র ও থিয়েটারের সঙ্গে যুক্ত ছিলেন বিধায় শৈশবের অনেকখানি সময়ই অতিবাহিত করেন কলকাতায়। সেখানে তিনি কিন্ডার গার্টেনে ভর্তি হন। মুম্বইয়ে ফিরে প্রথমে ওয়াদালা'র সেন্ট জোসেফ কনভেন্ট এবং পরে মাতুঙ্গা'র ডন বস্কো বিদ্যালয়ে ভর্তি হন। হিউজেস রোডের নিউ এরা বিদ্যালয়ের মাধ্যমে বিদ্যালয় পর্ব সমাপণ করেন শাম্মী।

শাম্মী কাপুর ছিলেন হিন্দি চলচ্চিত্র জগতের চীর সবুজ তারকাদের একজন।

প্রাথমিক জীবন ও চলচ্চিত্রে প্রবেশ[সম্পাদনা]

মুম্বইয়ের (সাবেক বোম্বে) মাতুঙ্গার রুইয়া কলেজে স্বল্পকালীন পড়াশোনা করেছিলেন শাম্মী কাপুর। সেখানে তিনি বাবার প্রতিষ্ঠিত পৃথ্বী থিয়েটারে যোগদান করেন। ১৯৪৮ সালে সিনেমা জগতে প্রবেশ করেন একজন নবীনতম শিল্পী হিসেবে। মাসিক ১৫০ রূপী বেতনে পৃথ্বী থিয়েটারে পরবর্তী চার বছরকাল ছিলেন। ১৯৫২ সালে থিয়েটার থেকে শেষ বেতন উত্তোলন করেন ৩০০ ভারতীয় রূপি। ১৯৫৩ সালে মুক্তিপ্রাপ্ত 'জীবন জ্যোতি' ছবিতে অভিনয়ের মাধ্যমে বলিউডে নিজেকে আত্মপ্রকাশ করেন। ছবিটির পরিচালক ছিলেন - মহেশ কাউল এবং শাম্মী'র প্রথম নায়িকা চান্দ উসমানী

চলচ্চিত্র জীবন[সম্পাদনা]

গুরুত্বপূর্ণ চলচ্চিত্রের মাধ্যমে রূপালী জগৎ শুরু করলেও নাসির হুসাইনের পরিচালনায় তুমসা নাহি দেখা (১৯৫৭) ও দিল ডেকে দেখো (১৯৫৯) এর মাধ্যমে সকলের দৃষ্টি আকর্ষণ করেন। ছবি দু’টোয় তার বিপরীতে নায়িকা হিসেবে অভিনয় করেন যথাক্রমে অমিতা এবং আশা পারেখ। উষ্ণ হৃদয়, নজরকাড়া আকর্ষণ, লম্বা, প্রাণবন্ত, নীলাভ আঁখি, আকর্ষণীয় বৈশিষ্ট্যের কারণে তিনি ছিলেন সকলের হৃদয়ের মণি। এবং তার সুন্দর দৃষ্টিভঙ্গী ও শারীরিক অঙ্গভঙ্গীও এ বৈশিষ্ট্যের জন্য দায়ী।

জংলী (১৯৬১) চলচ্চিত্রের মাধ্যমে তিনি নতুনভাবে প্রতিষ্ঠিত হন এবং তার পরবর্তী চলচ্চিত্রগুলোও একই ধাঁচে তৈরী হয়। সচরাচর শাম্মী কাপুর নেপথ্য গায়ক হিসেবে হিন্দি সঙ্গীত ভুবনের অন্যতম ব্যক্তিত্ব মোহাম্মদ রফিকেই বেশী পছন্দ করতেন। প্রতিষ্ঠিত নায়িকাদের সাথে তিনি খুব কমই দ্বিতীয়বারের মতো অভিনয় করতেন। তেমনই একজন হচ্ছেন মধুবালা। তার সাথে তিনি রেল কি ডিব্বা (১৯৫৩) ছবিতে অভিনয় করেছিলেন। নতুন অভিনেত্রী হিসেবে আশা পারেখ, সায়রা বানু এবং শর্মিলা ঠাকুরের সাথেও জুটি বেঁধেছিলেন। পরবর্তী তারা প্রত্যেকেই চলচ্চিত্র শিল্পে অত্যন্ত জনপ্রিয় অভিনেত্রী হিসেবে প্রতিষ্ঠিত হয়েছিলেন।[৪] পরবর্তীতে শাম্মী বলেছিলেন যে, সকল নায়িকাদের মধ্যে শর্মিলা ঠাকুর, রাজশ্রী এবং আশা পারেখের সাথেই স্বাচ্ছন্দ্যের সাথে কাজ করেছিলেন।[৫] তিনি এবং আশা পারেখ চারটি ছবিতে অভিনয় করেছিলেন। তন্মধ্যে সবচেয়ে বেশী দর্শক সফল হয়েছিল মৃত্যুকাহিনী নির্ভর তিসরী মঞ্জিল (১৯৬৬) ছবিটি।

১৯৭০ এর দশকে শাম্মী কাপুরের শারীরিক কাঠামো ওজনজনিত সমস্যায় আক্রান্ত হয় ও সাফল্যের পথে বাঁধা হয়ে দাঁড়ায়। ফলে, আকর্ষণীয় নায়ক হিসেবে ইতি ঘটে। তার সর্বশেষ সফল ছবি ছিল আন্দাজ (১৯৭১)। এতে তিনি নায়কের ভূমিকায় অভিনয় করেছিলেন।

ব্যক্তিগত জীবন[সম্পাদনা]

শাম্মী কাপুর ১৯৫৫ সালে গীতা বালী'র সাথে রঙ্গীন রাতে ছবির মাধ্যমে পরিচিত হন। তখন তিনি ছিলেন শীর্ষস্থানীয় অভিনেতা এবং সহ-নায়িকা হিসেবে প্রতিষ্ঠিত ছিলেন গীতা। ঘটনাচক্রে তারা একে-অপরকে ভালবেসে ফেলেন। কিন্তু গীতা বালী ছিলেন তার চেয়ে ১ বছরের বড়। ঐ সময় শাম্মী তার বড় ভাই এবং বাবার সাথেও অভিনয় করতেন। তাদের প্রেমঘটিত বিষয়টি জানাজানি হবার ফলে পরিবারের সবাই বিস্মিত হয়ে যান ও স্তম্ভিত হয়ে পড়েন। বিয়ের প্রধান প্রত্যক্ষদর্শী ছিলেন হরি ওয়ালিয়া। কেবলমাত্র বিয়ের পরই পরিবারকে বিয়ের ব্যাপারটি জানানো হয়। চার মাস পর মুম্বাইয়ের ন্যাপিয়েন সী রোডের কাছাকাছি এলাকায় অবস্থিত বাঙ্গানা মন্দিরে শাম্মী-গীতা'র বিয়ে হয়।

পরবর্তী বছরগুলোতে শাম্মী কাপুর এবং গীতা বালি দম্পত্তি সুখে-শান্তিতে সংসার ধর্ম পালন করতে থাকেন। তাদের আদিত্য রাজ নামে একটি ছেলে রয়েছে। শাম্মী'র বিয়ের এক বছর পর তার জন্ম হয় ১লা জুলাই, ১৯৫৬ সালে মুম্বাইয়ের শীরোদকারস্‌ হাসপাতালে। পাঁচ বছর পর ১৯৬১ সালে কাঞ্চন নামে একটি মেয়েও হয়।

তিসরী মঞ্জিল ছবি চলাকালীন সময়ে ১৯৬৫ সালে হৃদয়বিদারক ঘটনার জন্ম হয়েছিল। গীতা বালী গুঁটি বসন্তে আক্রান্ত হয়ে শশী কাপুর ও তার দুই সন্তানকে রেখে মৃত্যুবরণ করেন।

১৯৬৮ সালে ব্রহ্মচারী ছবি চলাকালীন সময়ে মমতাজের সাথে সম্পর্কের গভীরতা ব্যর্থতায় পর্যবসিত হয়।

১৯৬৯ সালে তিনি গুজরাটের ভাবনগর এলাকার সম্ভ্রান্ত পরিবারের সন্তান নীলা দেবী গোহিলকে দ্বিতীয়বারের মতো বিয়ে করেন। হিন্দী চলচ্চিত্রের অন্যতম রোমান্টিক নায়ক হিসেবে তার সর্বশেষ সফলতম ছবি ছিল আন্দাজ (১৯৭১)।

যৌবনে চুলের কায়দাজনিত কারণে তিনি ভারতের এলভিস প্রেসলী নামে পরিচিতি পেয়েছিলেন।[৬]

২০০৬ সালে জানা যায় যে, তিনি সপ্তাহে তিনবার চিকিৎসার জন্য ডায়ালাইসিস করতেন। তারপর থেকেই তিনি মানসিক অবসাদ ব্যাধিতে আক্রান্ত হন। তারপরও তিনি ঈশ্বরকে ধন্যবাদ জানিয়েছেন যে, ব্যক্তিগত জীবনে তিনি অনেক কিছুই পেয়েছেন।[৭]

অভিনীত চলচ্চিত্রসমূহ[সম্পাদনা]

শাম্মী কাপুর সুদীর্ঘকাল যাবৎ অভিনয় কলার সাথে জড়িত ছিলেন। নিম্নে তার একটি সংক্ষিপ্ত তালিকা প্রদান করা হলো।[৮]

  • জীবন জ্যোতি (১৯৫৩)
  • রেল কা ডিব্বা (১৯৫৩)
  • থোকর (১৯৫৩)
  • লায়লা মজনু (১৯৫৩), নূতন
  • লড়কী (১৯৫৩)
  • গুল সানোবার (১৯৫৩)
  • খোঁজ (১৯৫৩)
  • শ্যামা পরোয়ানা (১৯৫৪)
  • মেহবুবা (১৯৫৪)
  • এহসান (১৯৫৪)
  • চোর বাজার (১৯৫৪)
  • টাঙ্গেওয়ালী (১৯৫৫)
  • নকব (১৯৫৫)
  • মিস কোকা কোলা (১৯৫৫)
  • ডাকু (১৯৫৫)
  • সিপাহসালার (১৯৫৬)
  • রঙ্গীন রাতে (১৯৫৬), মালা সিনহা
  • মেমসাহেব (১৯৫৬)
  • হাম সব চোর হ্যায় (১৯৫৬)
  • তুমসে নাহি দেখা (১৯৫৭), অমিতা
  • মহারাণী (১৯৫৭)
  • কফি হাউজ (১৯৫৭)
  • মীর্জা সাহেবান (১৯৫৭)
  • মুজরিম (১৯৫৮)
  • দিল ডেকে দেখো (১৯৫৮), আশা পারেখ
  • উজালা (১৯৫৯), মালা সিনহা
  • রাত কি রাহি (১৯৫৯)
  • মোহর (১৯৫৯)
  • বসন্ত (১৯৬০)
  • কলেজ গার্ল (১৯৬০), বৈজয়ন্তীমালা
  • সিঙ্গাপুর (১৯৬০), পদ্মিনী
  • বয়ফ্রেণ্ড (১৯৬১)
  • জাংলী (১৯৬১), সায়রা বানু
  • দিল তেরা দিওয়ানা (১৯৬২), মালা সিনহা
  • প্রফেসর (১৯৬২), কল্পনা
  • চায়না টাউন (১৯৬২), শাকিলা/হেলেন
  • ব্লাফ মাস্টার (১৯৬৩), সায়রা বানু
  • শহীদ ভগৎ সিং (১৯৬৩)
  • জব সে তুমহে দেখা হ্যায় (১৯৬৩)
  • পেয়ার কিয়া তো ডরনা কিয়া (১৯৬৩)
  • রাজকুমার (১৯৬৪), সাধনা
  • কাশ্মীর কি কালী (১৯৬৪), শর্মিলা ঠাকুর
  • জানোয়ার (১৯৬৫), রাজশ্রী
  • তিসরী মঞ্জিল (১৯৬৬), অনিল কুমার, আশা পারেখ​
  • প্রীত না জানে রীত (১৯৬৬)
  • বাদতমীজ (১৯৬৬)
  • এ্যান ইভ্‌নিং ইন প্যারিস (১৯৬৭), শর্মিলা ঠাকুর
  • লাট সাহেব (১৯৬৭), নূতন
  • ব্রহ্মচারী (১৯৬৮), রাজশ্রী
  • প্রিন্স (১৯৬৯), বৈজয়ন্তীমালা
  • তুম সে আচ্ছা কৌন হ্যায় (১৯৬৯), ববিতা
  • সাচ্চাই (১৯৬৯), সাধনা
  • পাগলা কাহিন কা (১৯৭০), আশা পারেখ/হেলেন
  • আন্দাজ (১৯৭১), হেমামালিনী/সিমি
  • জওয়ান মোহাব্বত (১৯৭১), আশা পারেখ
  • জানে আনজানে (১৯৭১), লীনা চন্দভারকার
  • পারভারিশ (১৯৭৩)
  • জামির (১৯৭৪)
  • মনোরঞ্জন (১৯৭৪), জিনাত আমান
  • ছোটে সরকার (১৯৭৪), সাধনা
  • শালিমার (১৯৭৮)
  • মীরা (১৯৭৯) .... রাজা বিক্রমজিৎ সিং সিসোদিয়া, হেমা মালিনী
  • প্রফেসর পেয়ারেলাল (১৯৮১)
  • রকি (১৯৮১)
  • নসীব (১৯৮১)
  • প্রেম রোগ (১৯৮২), সুষমা শেঠ
  • বিধাতা (১৯৮২)
  • দেশ প্রেমী (১৯৮২)
  • হিরো (১৯৮৩), উর্মীলা ভাট
  • বেতাব (১৯৮৩)
  • সোহনী মাহিওয়াল (১৯৮৪)
  • হুকুমত (১৯৮৭)
  • ইজাজত (১৯৮৮)
  • আজুবা (১৯৯১)
  • তাহেলকা (১৯৯২)
  • চমৎকার (১৯৯২)
  • সুখম সুখকরম (১৯৯৪) (মালয়ালম)
  • অউর প্যায়ার হো গ্যায়া (১৯৯৬)
  • কারিব (১৯৯৮)
  • জানম সমঝা করো (১৯৯৯)
  • ইষ্ট ইজ ইষ্ট (১৯৯৯)
  • ইয়ে হ্যায় জ্বালা (২০০২)
  • ওয়াহ! তেরা কিয়্যা ক্যাহনা (২০০২)
  • ভোলা ইন বলিউড (২০০৫)
  • স্যাণ্ডউইচ (২০০৬)
  • রকস্টার (২০১১)

পুরস্কার ও অন্যান্য স্বীকৃতি[সম্পাদনা]

পুরস্কার
সাল বিবরণ ছবির নাম
১৯৬২ ফিল্মফেয়ার: সেরা অভিনেতার পুরস্কার প্রফেসর[৯]
১৯৬৮ ফিল্মফেয়ার: সেরা অভিনেতার পুরস্কার ব্রহ্মচারী[১০]
১৯৮২ ফিল্মফেয়ার: সেরা পার্শ্ব অভিনেতার পুরস্কার বিধাতা[১১]
সম্মাননা
সাল বিবরণ প্রদানকারী কর্তৃপক্ষ
১৯৯৫ আজীবন সম্মাননা ফিল্মফেয়ার[১২]
১৯৯৮ ভারতীয় চলচ্চিত্রে অংশগ্রহণের জন্য বিশেষ পুরস্কার কলাকার[১৩]
১৯৯৯ আজীবন সম্মাননা পুরস্কার জি সিনে
২০০১ আজীবন সম্মাননা পুরস্কার স্টার স্ক্রিন
আজীবন সম্মাননা পুরস্কার আনন্দলোক
২০০২ ভারতীয় সিনেমায় অসামান্য অবদানের জন্য পুরস্কার আইআইএফএ[১৪]
২০০৫ আজীবন সম্মাননা পুরস্কার বলিউড অ্যাওয়ার্ডস[১৫]
২০০৭ জীবিত প্রতিভা পুরস্কার এফআইসিসিআই[১৬]
২০০৮ ভারতীয় সিনেমায় অসামান্য অবদানের জন্য আজীবন সম্মাননা পুরস্কার পিআইএফএফ[১৭]
২০১০ রাষ্ট্রীয় গৌরব পুরস্কার পরিবেশবিদ অজয় জৈন পুরস্কার[১৮]

দেহাবসান[সম্পাদনা]

শাম্মী কাপুরকে ৭ আগস্ট, ২০১১ সালে ব্রীচ ক্যান্ডি হাসপাতালে কিডনীজনিত রোগের কারণে ভর্তি করা হয়। তার অবস্থার দ্রুত অবনতি হতে থাকলে ভেন্টিলেটরের সাহায্য বাঁচিয়ে রাখার প্রাণান্তকর চেষ্টা চলে।[১৯] কিন্তু হিন্দি চলচ্চিত্রের অন্যতম সেরা অভিনেতাদের একজন হিসেবে শাম্মী কাপুর ১৪ আগস্ট, ২০১১ তারিখে ভারতীয় সময় সকাল ৫:১৫ ঘটিকায় ধরাধাম ত্যাগ করেন।[২০][২১]

আরও দেখুন[সম্পাদনা]

আরো পড়ুন[সম্পাদনা]

  • 'দ্য কাপুরস: দ্য ফার্স্ট ফ্যামিলি অব ইন্ডিয়ান সিনেমা', মধু জৈন, পেঙ্গুইন, ভাইকিং, ২০০৫। আইএসবিএন ০৬৭০০৫৮৩৭৮।

তথ্যসূত্র[সম্পাদনা]

  1. Veteran actor Shammi Kapoor passes away, CNN-IBN, ১৪ আগস্ট ২০১১, সংগ্রহের তারিখ ১৪ আগস্ট ২০১১ 
  2. Jain, Madhu (২০০৯)। The Kapoors: The First Family of Indian Cinema (Revised সংস্করণ)। Penguin Group India। আইএসবিএন 978-0-14306-589-0 
  3. [১]
  4. "সংরক্ষণাগারভুক্ত অনুলিপি"। ১ সেপ্টেম্বর ২০১০ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ২০ আগস্ট ২০১১ 
  5. "thirtymm.com - Celebrity Interviews - powered by React Media"। ২৯ সেপ্টেম্বর ২০১১ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ২০ আগস্ট ২০১১ 
  6. শাম্মী কাপুর চলে গেলেন - ডয়চে ভেলের প্রতিবেদন[স্থায়ীভাবে অকার্যকর সংযোগ]
  7. রাজশ্রী.কমের সাথে শাম্মী'র সাক্ষাৎকার
  8. "অভিনীত চলচ্চিত্রসমূহের তালিকা"। ৫ অক্টোবর ২০১১ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ১৭ আগস্ট ২০১১ 
  9. "The Nominations - 1962"। Filmfare Awards। সংগ্রহের তারিখ ১৫ ডিসেম্বর ২০১০ 
  10. "The Winners - 1968"। Filmfare Awards। সংগ্রহের তারিখ ১৫ ডিসেম্বর ২০১০ 
  11. "The Winners - 1982"। Filmfare Awards। সংগ্রহের তারিখ ১৫ ডিসেম্বর ২০১০ 
  12. "Lifetime Achievement (Popular)"। Filmfare Awards। সংগ্রহের তারিখ ১৫ ডিসেম্বর ২০১০ 
  13. "Kalakar Awards"। ২০ ফেব্রুয়ারি ২০০৮ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ১৭ আগস্ট ২০১১ 
  14. "IIFA : IIFA Awards - Past Awards - 2000 - Winners"। ১৬ আগস্ট ২০০৭ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ১৭ আগস্ট ২০১১ 
  15. Bollywood Awards | Bollywood Fashion Awards | Bollywood Music Awards
  16. "FICCI-Frames award for Kamal Haasan"। ২৫ মার্চ ২০০৭ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ১৭ আগস্ট ২০১১ 
  17. "Shammi Kapoor, Sharmila Tagore honoured at Pune International Film Fest- Hindustan Times"। ৮ জানুয়ারি ২০০৯ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ১৭ আগস্ট ২০১১ 
  18. "Environmentalist Ajay Jain awarded "Rashtriya Gaurav Award 2010""। i-Newswire। সংগ্রহের তারিখ ১৫ ডিসেম্বর ২০১০ 
  19. Shammi Kapoor's condition continues to be serious, Mid Day, ১৪ আগস্ট ২০১১, সংগ্রহের তারিখ ১৪ আগস্ট ২০১১ 
  20. Veteran film actor Shammi Kapoor passes away, Times of India, ১৪ আগস্ট ২০১১, সংগ্রহের তারিখ ১৪ আগস্ট ২০১১ 
  21. Legendary actor Shammi Kapoor passes away, Times of India, ১৪ আগস্ট ২০১১, সংগ্রহের তারিখ ১৪ আগস্ট ২০১১ 

বহিঃসংযোগ[সম্পাদনা]