শ্রীদেবী

উইকিপিডিয়া, মুক্ত বিশ্বকোষ থেকে
পরিভ্রমণে ঝাঁপ দিন অনুসন্ধানে ঝাঁপ দিন
শ্রীদেবী
Sridevi09.jpg
২০১৩ সালে শ্রীদেবী
স্থানীয় নামश्री देवी
জন্মশ্রী আম্মা ইয়াঙ্গের আয়্যাপান[১]
(১৯৬৩-০৮-১৩)১৩ আগস্ট ১৯৬৩
শিবাকাসি, তামিলনাড়ু, ভারত
মৃত্যু২৪ ফেব্রুয়ারি ২০১৮(২০১৮-০২-২৪) (৫৪ বছর)
দুবাই, সংযুক্ত আরব আমিরাত[২]
মৃত্যুর কারণহৃদক্রিয়া বন্ধ[৩]
জাতীয়তাভারতীয়
নাগরিকত্বভারত
পেশাঅভিনেত্রী, প্রযোজক
কার্যকাল১৯৬৭–১৯৯৭, ২০১২–২০১৮
উল্লেখযোগ্য কাজনিচে দেখুন
আদি শহরমুম্বই
দাম্পত্য সঙ্গী
সন্তানজাহ্নবী কাপুর, খুশি কাপুর
আত্মীয়অর্জুন কাপুর (সৎ ছেলে) অনশুলা কাপুর (সৎ মেয়ে)
অনিল কাপুর (ভাসুর)
সঞ্জয় কাপুর (ভাসুর)
পুরস্কারপদ্মশ্রী (২০১৩)

শ্রীদেবী কাপুর (জন্মনাম শ্রী আম্মা ইয়াঙ্গের আয়্যাপান;[১][৪] ১৩ আগস্ট ১৯৬৩ - ২৪ ফেব্রুয়ারি ২০১৮)[৫] একজন ভারতীয় চলচ্চিত্র অভিনেত্রী যিনি তামিল, তেলুগু, হিন্দি, মালয়ালম এবং কিছু সংখ্যক কন্নড় চলচ্চিত্রে কাজ করেছেন।[৬] তিনি হিন্দি চলচ্চিত্রে প্রথম নারী সুপারস্টার বিবেচিত হন।[৭][৮][৯][১০][১১]

বিনোদন শিল্পে তার অবদানের জন্য ২০১৩ সালে ভারত সরকার তাকে দেশটির চতুর্থ সর্বোচ্চ বেসামরিক সম্মাননা পদ্মশ্রী পদকে ভূষিত করে। এছাড়া তিনি তামিল নাড়ু, অন্ধ্র প্রদেশ ও কেরালা রাজ্য সরকারের পক্ষ থেকে সম্মানসূচক পুরস্কার লাভ করেন। ভারতীয় চলচ্চিত্রের শতবর্ষপূর্তি উপলক্ষ্যে ২০১৩ সালে সিএনএন-আইবিএনের এক জরিপে তিনি '১০০ বছরে ভারতের সেরা অভিনেত্রী' হিসেবে নির্বাচিত হন। তিনি ছিলেন চলচ্চিত্র প্রযোজক বনি কাপুরের স্ত্রী।

প্রাথমিক ও ব্যক্তিগত জীবন[সম্পাদনা]

শ্রীদেবী তামিলনাড়ুতে ১৯৬৩ সালের ১৩ আগস্ট জন্মগ্রহণ করেন।[৪] তার বাবা ছিলেন একজন আইনজীবী। তার এক বোন ও ২ সৎ ভাই আছে।[১২][১৩] ১৯৯৬ সালে তিনি চলচ্চিত্র প্রযোজক বনি কাপুরকে বিয়ে করেন। তাদের দুই মেয়ে জানভি এবং খুশি।

অনেক সূত্র জানা যায় যে, শ্রীদেবী'র সাথে অভিনেতা মিঠুন চক্রবর্তীর প্রণয়ের সম্পর্ক ছিল। ১৯৮৬ থেকে ১৯৮৭ সালের মধ্যে এ সম্পর্ক বজায় ছিল যা শ্রীদেবী পরবর্তীতে সম্পর্ক ছেদ করেন। এর প্রধান কারণ ছিল - প্রথম স্ত্রী যোগীতা বালীকে মিঠুন কর্তৃক বিবাহ-বিচ্ছেদ না ঘটানো। তাঁরা অত্যন্ত গোপনে বিয়ে করেছিলেন বলে জানা যায়, যদিও তা পরবর্তীতে অস্বীকার করা হয়।[১৪]

কর্মজীবন[সম্পাদনা]

১৯৮৩-১৯৮৭: বলিউডে অভিষেক[সম্পাদনা]

১৯৭৯ সালে সোলভা সাওয়ান চলচ্চিত্র দিয়ে শ্রীদেবীর হিন্দি চলচ্চিত্রে অভিষেক হয়।[১৫] চার বছর পর তিনি জিতেন্দ্রর বিপরীতে হিম্মতওয়ালা চলচ্চিত্রে চুক্তিবদ্ধ হন। চলচ্চিত্রটি ১৯৮৩ সালে মুক্তি পায় এবং সে বছরের অন্যতম সেরা ব্লকবাস্টার চলচ্চিত্র হয়ে ওঠে।[১৬][১৭] হিম্মতওয়ালা চলচ্চিত্রের "ন্যায়নোঁ মেঁ সাপনা" গানটি জনপ্রিয় হয়ে ওঠে।[১৮] এই চলচ্চিত্রের সাফল্যের ফলে শ্রীদেবী বলিউডে প্রতিষ্ঠিত শিল্পীর মর্যাদা লাভ করেন এবং তার বিখ্যাত "থান্ডার থাইস" উপনাম অর্জন করেন।[১৯]

১৯৮৩ সালে সাদমা চলচ্চিত্রটি দিয়ে শ্রীদেবী সমালোচকদের প্রশংসা অর্জন করেন।[২০] এটি তার অভিনীত তামিল চলচ্চিত্র মুনড্রাম পিরাই চলচ্চিত্রের বলিউডি পুনর্নির্মাণ। সাদমা চলচ্চিত্রটি আইডিভার করা "১০ অবশ্য দৃশ্য চলচ্চিত্র যা ব্লকবাস্টার হয় নি" তালিকায় স্থান করে নেয়।[২১] পরের বছর তার অভিনীত তোহফা মুক্তি পায় এবং ১৯৮৪ সালের অন্যতম হিট চলচ্চিত্রের তকমা লাভ করে।[২২] এই চলচ্চিত্র দিয়ে তিনি বলিউডের অন্যতম সেরা প্রধান চরিত্রে অভিনেত্রী হিসেবে প্রতিষ্ঠা লাভ করেন।[১০] ফিল্মফেয়ার ম্যাগাজিন তাকে তাদের প্রচ্ছদে "প্রশ্নাতীতভাবে ১ নম্বর" বলে অভিহিত করে।[২৩]

১৯৮৩ থেকে ১৯৮৮ সালের মধ্যে জিতেন্দ্র ও শ্রীদেবী জুটি একত্রে ১৬টি চলচ্চিত্রে অভিনয় করেন, যার মধ্যে ১৩টি হিট এবং ৩টি ফ্লপ হয়। হিট চলচ্চিত্রসমূহ হল হিম্মতওয়ালা, জানি দোস্ত (১৯৮৩), জাস্টিস চৌধুরী (১৯৮৩), মাওয়ালী (১৯৮৩), আকালমন্দ (১৯৮৪), বলিদান (১৯৮৫), সুহাগন (১৯৮৬), ঘর সংসার (১৯৮৬), ধর্ম অধিকারী (১৯৮৬), অউলাদ (১৯৮৭), সোনে পে সুহাগা (১৯৮৮)। ৩টি ফ্লপ চলচ্চিত্র হল সারফারোশ (১৯৮৫), আগ অউর শোলা (১৯৮৬) ও হিম্মত অউর মেহনত (১৯৮৭)।[২৪][২৫]

শ্রীদেবী রাজেশ খান্নার সাথে জুটি বেঁধেও সফল ছিলেন। এই জুটির উল্লেখযোগ্য চলচ্চিত্র হল নয়া কদম (১৯৮৪), মকসদ (১৯৮৪), মাস্টারজি (১৯৮৫) এবং নজরানা (১৯৮৭)।

১৯৮৬ সালে শ্রীদেবীকে সর্প বিষয়ক কাল্পনিক চলচ্চিত্র নাগিনায় অভিনয় করতে দেখা যায়। এতে তিনি "ইচ্ছাধারী নাগিন" চরিত্রে অভিনয় করেন, যে সাপ থেকে নারীতে পরিণত হতে পারে। এটি ছিল সে বছরের দ্বিতীয় সর্বোচ্চ আয়কারী চলচ্চিত্র[২৬][২৭] এবং বক্স অফিস ইন্ডিয়া তাকে "অবিসংবাদিত এক নম্বর" বলে অভিহিত করে।[১০] ইয়াহু! ছবিটিকে অন্যতম সেরা সর্প বিষয়ক কাল্পনিক চলচ্চিত্র বলে উল্লেখ করে।[২৮] দ্য টাইমস অব ইন্ডিয়ার "শীর্ষ ১০ সর্প বিষয়ক হিন্দি চলচ্চিত্র" তালিকায় নাগিনা ছবিটি অন্তর্ভুক্ত হয়।[২৯] শ্রীদেবীর "মেঁ তেরি দুশমন" গানের নৃত্য বলিউডের অন্যতম সেরা সর্প নৃত্য[৩০] বলে উল্লেখ করে দেশি হিট্‌স লিখে, "এটি শ্রীদেবীর অন্যতম সেরা প্রতীকী নৃত্য... যা এখনো ভক্তদের গায়ের লোম দাঁড় করিয়ে দেয়"[৩১] এবং আইডিভা লিখে, "এটি চলচ্চিত্র কিংবদন্তীর একটি উদাহরণ।"[৩২]

নাগিনা ছাড়াও ১৯৮৬ সালে শ্রীদেবী অভিনীত সুভাষ ঘাই পরিচালিত কর্ম এবং ফিরোজ খান পরিচালিত জানবাজ চলচ্চিত্র বক্স অফিসে হিট হয়। সিএনএন-আইবিএন বলিউড ব্লকবাস্টার অনুসারে, "শ্রীদেবীর জনপ্রিয়তা এতই বৃদ্ধি পেয়েছিল যে জানবাজ চলচ্চিত্রে অতিথি চরিত্রে অভিনয় করেও তিনি ছবিটির প্রধান চরিত্রে অভিনেত্রী ডিম্পল কাপাডিয়াকেও ছাড়িয়ে যান।"[৩৩]

১৯৮৭-১৯৯৬: সাফল্য ও পরিচিতি[সম্পাদনা]

নাগিনা ছবির সাফল্যের পর ১৯৮৭ সালে শ্রীদেবী মিস্টার ইন্ডিয়া চলচ্চিত্রে অপরাধ তদন্তকারী সাংবাদিক চরিত্রে অভিনয় করেন। রেডিফ ছবিটিকে সেই সময়ের অন্যতম আইকনিক চলচ্চিত্র বলে অভিহিত করে।[৩৪] শেখর কাপুর পরিচালিত চলচ্চিত্রটি সে বছরের অন্যতম আয়কারী চলচ্চিত্র হয় এবং হিট তকমা লাভ করে। এটি হিন্দুস্তান টাইমসের 'হিন্দি চলচ্চিত্রের সেরা ১০ দেশাত্মবোধক চলচ্চিত্র' তালিকায় অন্তর্ভুক্ত হয়।[৩৫][৩৬] রেডিফ বলে, "শ্রী এই চলচ্চিত্রে সম্পূর্ণ কৃতিত্ব লাভের অধিকারী",[৩৪] অন্যদিকে দ্য টাইমস অব ইন্ডিয়া শ্রীদেবীর চার্লি চ্যাপলিনকে অনুকরণের অংশটুকুকে "তার অভিনীত সবচেয়ে প্রফুল্ল কাজ" বলে উল্লেখ করে।[৩৭] রেডিফ তাদের 'সুপার সিক্স কৌতুক অভিনেত্রী' তালিকায় শ্রীদেবীর নাম অন্তর্ভুক্ত করে লিখে, "তার গতিশীল মুখাভঙ্গী জিম ক্যারির রাতের ঘুম হারাম করতে পারে" এবং "তার সবচেয়ে বড় দিক হল ক্যামেরার সামনেও সম্পূর্ণ একাকীত্বের মত করে অভিনয় করার দক্ষতা।"[৩৮]

এই চলচ্চিত্রের "হাওয়া হাওয়াই" গানের নৃত্যটিকে দ্য টাইমস অব ইন্ডিয়া "শ্রীদেবীর অন্যতম স্মরণীয় নৃত্য" বলে উল্লেখ করে।[৩৯] এছাড়া "কাটে নহী কাট তে" গানেও তাকে দেখা যায়, ফিল্মফেয়ার এই গানে শ্রীদেবীকে "নীল শাড়িতে সত্যিকারের দেবীর মত লাগছিল" বলে উল্লেখ করে।[৪০][৪১] রেডিফ তাদের 'সেরা ২৫ শাড়ি দৃশ্য' তালিকায় এই গানটিকে অন্তর্ভুক্ত করে এবং শ্রীদেবীর "মাথা থেকে পা পর্যন্ত ঢেকে রেখেও নিজেকে যৌন আবেদনময়ী দেখানোর সামর্থ্যের" প্রশংসা করে।[৪২] বক্স অফিস ইন্ডিয়া অনুসারে মিস্টার ইন্ডিয়া ছবির সফলতা শ্রীদেবীকে তার সমসাময়িক জয়া প্রদামীনাক্ষী শেষাদ্রির উপর কর্তৃত্ব স্থাপন করছিলেন।[১০]

মৃত্যু[সম্পাদনা]

তিনি ২০১৮ সালের ২৪ ফেব্রুয়ারি দুবাইয়ের জুমেইরাহ এমিরেটস টাওয়ারের বাথরুমের বাথটাবের পানিতে দম আটকে মৃত্যু হয়। বিশেষজ্ঞদের মতে, এটি ছিল শুধুই একটি দুর্ঘটনা।[৪৩]

চলচ্চিত্রের তালিকা[সম্পাদনা]

পুরস্কার ও সম্মাননা[সম্পাদনা]

২০১৩ সালে কলা বিভাগে বিশেষ অবদানের জন্য মহারাষ্ট্র রাজ্যের সুপারিশে পদ্মশ্রী পুরস্কারে সম্মানিত করা হয়।

তথ্যসূত্র[সম্পাদনা]

  1. "Sridevi Bio - Sridevi News, Wallpapers, Gossip, Movies, Pics : Spice Zee"জি নিউজ (ইংরেজি ভাষায়)। সংগ্রহের তারিখ ২৫ ফেব্রুয়ারি ২০১৮ 
  2. "Sridevi dies at 55"দ্য হাফিংটন পোস্ট (ইংরেজি ভাষায়)। সংগ্রহের তারিখ ২৫ ফেব্রুয়ারি ২০১৮ 
  3. "চলে গেলেন অভিনেত্রী শ্রীদেবী"দৈনিক কালের কণ্ঠ। সংগ্রহের তারিখ ২৫ ফেব্রুয়ারি ২০১৮ 
  4. "The Hindu : Talk of the Town" (ইংরেজি ভাষায়)। দ্য হিন্দু। সংগ্রহের তারিখ ২৫ ফেব্রুয়ারি ২০১৮ 
  5. Brahmbhatt, Preetee। "This week in entertainment history" (ইংরেজি ভাষায়)। রেডিফ। সংগ্রহের তারিখ ২৫ ফেব্রুয়ারি ২০১৮ 
  6. "Sridevi" (ইংরেজি ভাষায়)। Tamilnadu.com। ১৮ ডিসেম্বর ২০১২। সংগ্রহের তারিখ ২৫ ফেব্রুয়ারি ২০১৮ 
  7. "From actors to demigods; the first superstars of cinema"সিএনএন-আইবিএন (ইংরেজি ভাষায়)। সংগ্রহের তারিখ ২৫ ফেব্রুয়ারি ২০১৮ 
  8. "Indian cinema @100: Defining moments you chose –"এনডিটিভি (ইংরেজি ভাষায়)। সংগ্রহের তারিখ ২৫ ফেব্রুয়ারি ২০১৮ 
  9. "100 Years of Indian Cinema: 50 Iconic Heroines"সিএনএন-আইবিএন (ইংরেজি ভাষায়)। সংগ্রহের তারিখ ২৫ ফেব্রুয়ারি ২০১৮ 
  10. "Top Actress"বক্স অফিস ইন্ডিয়া (ইংরেজি ভাষায়)। সংগ্রহের তারিখ ২৫ ফেব্রুয়ারি ২০১৮ 
  11. "Bollywood's Best Actresses Ever"Rediff (ইংরেজি ভাষায়)। সংগ্রহের তারিখ ২৫ ফেব্রুয়ারি ২০১৮ 
  12. "Know all about Sridevi"জি নিউজ (ইংরেজি ভাষায়)। ২৩ জুলাই ২০১৩ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ২৫ ফেব্রুয়ারি ২০১৮ 
  13. "Sridevi" (ইংরেজি ভাষায়)। koimoi.com। ৩ জুন ২০১৩ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ২৫ ফেব্রুয়ারি ২০১৮ 
  14. "The Truth About Mithun and Sridevi"। Stardust (ইংরেজি ভাষায়)। Stardust International। মে ১৯৯০।  অজানা প্যারামিটার |1= উপেক্ষা করা হয়েছে (সাহায্য)
  15. "Bollywood superstar Sridevi dies at 54" (ইংরেজি ভাষায়)। বিবিসি নিউজ। ২৪ ফেব্রুয়ারি ২০১৮। ২৪ ফেব্রুয়ারি ২০১৮ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ২৫ ফেব্রুয়ারি ২০১৮She debuted as a lead actress in a Bollywood film in 1978, soon becoming one of India's biggest film stars. 
  16. "Box Office 1983" (ইংরেজি ভাষায়)। বক্স অফিস ইন্ডিয়া। ১২ অক্টোবর ২০১২ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ২৫ ফেব্রুয়ারি ২০১৮ 
  17. "Himmatwala" (ইংরেজি ভাষায়)। বক্স অফিস ইন্ডিয়া। ৮ মার্চ ২০১৩ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ২৫ ফেব্রুয়ারি ২০১৮ 
  18. "Your Favourite Sridevi Avatar Onscreen?" (ইংরেজি ভাষায়)। রেডিফ। ১৫ ডিসেম্বর ২০১৫ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ২৫ ফেব্রুয়ারি ২০১৮ 
  19. "Sridevi Kapoor Biography" (ইংরেজি ভাষায়)। ওয়ান ইন্ডিয়া। ১৪ মে ২০১৩ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ২৫ ফেব্রুয়ারি ২০১৮ 
  20. "Sridevi, Happy Birthday!" (ইংরেজি ভাষায়)। বলিউড লাইফ। ১২ এপ্রিল ২০১৩ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ২৫ ফেব্রুয়ারি ২০১৮ 
  21. "10 Must Watch Movies That Weren't Blockbusters" (ইংরেজি ভাষায়)। আইডিভা। ২৩ অক্টোবর ২০১২ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ২৫ ফেব্রুয়ারি ২০১৮ 
  22. "Box Office 1984" (ইংরেজি ভাষায়)। বক্স অফিস ইন্ডিয়া। ১৮ সেপ্টেম্বর ২০১০ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ২৫ ফেব্রুয়ারি ২০১৮ 
  23. "Sridevi's 80's Magazine Covers" (ইংরেজি ভাষায়)। Pinkvilla। ৩ জুন ২০১৩ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ২৫ ফেব্রুয়ারি ২০১৮ 
  24. "On-Screen Lovers Whom We Love" (ইংরেজি ভাষায়)। ইন্ডিয়া গ্লিটজ। ১৭ ফেব্রুয়ারি ২০১৩ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ২৫ ফেব্রুয়ারি ২০১৮ 
  25. "Jodis that made it in Bollywood" (ইংরেজি ভাষায়)। দ্য সানডে ট্রিবিউন। ৪ মার্চ ২০১৬ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ২৫ ফেব্রুয়ারি ২০১৮ 
  26. "Box Office 1986" (ইংরেজি ভাষায়)। বক্স অফিস ইন্ডিয়া। ১২ অক্টোবর ২০১২ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ২৫ ফেব্রুয়ারি ২০১৮ 
  27. "Worth Their Weight In Gold!(80s)" (ইংরেজি ভাষায়)। বক্স অফিস ইন্ডিয়া। ১১ জানুয়ারি ২০১৬ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ২৫ ফেব্রুয়ারি ২০১৮ 
  28. "Meet Bollywood's celebrity snakes" (ইংরেজি ভাষায়)। ইয়াহু!। ২০ এপ্রিল ২০১৩ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ২৫ ফেব্রুয়ারি ২০১৮ 
  29. "Top Ten snake films" (ইংরেজি ভাষায়)। দ্য টাইমস অব ইন্ডিয়া। ৫ মে ২০১৩ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ২৫ ফেব্রুয়ারি ২০১৮ 
  30. "The best of Sridevi" (ইংরেজি ভাষায়)। মিড ডে। সংগ্রহের তারিখ ২৫ ফেব্রুয়ারি ২০১৮ 
  31. "Top 5 Bollywood Dancing Queens" (ইংরেজি ভাষায়)। দেশি হিটস। ১ ফেব্রুয়ারি ২০১৪ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ২৫ ফেব্রুয়ারি ২০১৮ 
  32. "Sridevi – The Dancing Queen" (ইংরেজি ভাষায়)। আইডিভা। ২৪ ফেব্রুয়ারি ২০১৩ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ২৫ ফেব্রুয়ারি ২০১৮ 
  33. "Bollywood Blockbusters:Scintillating Sridevi" (ইংরেজি ভাষায়)। সিএনএন-আইবিএন। ৯ মার্চ ২০১৪ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ২৫ ফেব্রুয়ারি ২০১৮ 
  34. "PIX: The Changing Faces of Sridevi" (ইংরেজি ভাষায়)। রেডিফ। ১৫ জানুয়ারি ২০১৩ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ৩ মার্চ ২০১৮ 
  35. "Box Office 1987" (ইংরেজি ভাষায়)। বক্স অফিস ইন্ডিয়া। ১২ অক্টোবর ২০১২ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ৩ মার্চ ২০১৮ 
  36. "Top 10 Patriotic Films" (ইংরেজি ভাষায়)। হিন্দুস্তান টাইমস। ৯ আগস্ট ২০১৩ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ৩ মার্চ ২০১৮ 
  37. "Top 10 Sridevi's avatar" (ইংরেজি ভাষায়)। দ্য টাইমস অব ইন্ডিয়া। ১১ জানুয়ারি ২০১৬ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ৩ মার্চ ২০১৮ 
  38. "What do Sridevi, Kajol and Preity have in common?" (ইংরেজি ভাষায়)। রেডিফ। ১৭ মে ২০১৩ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ৩ মার্চ ২০১৮ 
  39. "Magic of 'Mr India' is still on" (ইংরেজি ভাষায়)। দ্য টাইমস অব ইন্ডিয়া। সংগ্রহের তারিখ ৩ মার্চ ২০১৮ 
  40. "Rain over me!" (ইংরেজি ভাষায়)। ফিল্মফেয়ার। ৩১ অক্টোবর ২০১২ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ৩ মার্চ ২০১৮ 
  41. "Top Hot'n'Sexy Songs" (ইংরেজি ভাষায়)। দ্য টাইমস অব ইন্ডিয়া। ২২ জুন ২০১৩ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ৩ মার্চ ২০১৮ 
  42. "Top 25 Sari Moments" (ইংরেজি ভাষায়)। রেডিফ। ৭ মার্চ ২০১৩ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ৩ মার্চ ২০১৮ 
  43. "শ্রীদেবীর মৃত্যুর কারণ জানা গেছে"প্রথম আলো। ২৬ ফেব্রুয়ারি ২০১৮। সংগ্রহের তারিখ ২০১৮-০২-২৭ 

বহিঃসংযোগ[সম্পাদনা]