জাতীয়তা

উইকিপিডিয়া, মুক্ত বিশ্বকোষ থেকে
পরিভ্রমণে ঝাঁপ দিন অনুসন্ধানে ঝাঁপ দিন

জাতীয়তা হচ্ছে একজন ব্যক্তি এবং রাষ্ট্রের মধ্যে [১] আইন গত সম্পর্ক। জাতীয়তা রাষ্ট্রকে কোনো ব্যক্তির উপর আইনগত অধিকার এনে দেয় এবং ব্যক্তিকে এনে দেয় রাষ্ট্রের সুরক্ষা। এসব অধিকার এবং দায়িত্ব কি তার তারতম্য ঘটে রাষ্ট্র থেকে রাষ্ট্রে।[২]

আন্তর্জাতিক প্রথাগত আইন এবং আন্তর্জাতিক রীতি অনুযায়ী, এটি প্রত্যেক রাষ্ট্রের অধিকার যা নির্ধারণ করে কারা সেই রাষ্ট্রের নাগরিক হবে।[৩] এই নির্দেশক গুলো জাতীয়তা আইনের অংশ। কিছু ক্ষেত্রে জাতীয়তার নির্দেশক গুলোও নিয়ন্ত্রিত হয় সরকারী আন্তর্জাতিক আইন দ্বারা। উধাহরনস্বরূপ,রাষ্ট্রহীনতার উপর চুক্তিপত্র এবং জাতীয়তা বিষয়ক ইউরোপীয় সম্মেলন

জাতীয়তা, নাগরিকতা থেকে কারিগরি এবং আইনগত ভাবে পৃথক, যা বাক্তি এবং দেশের মধ্যে পৃথক ধরনের আইনগত সম্পর্ক। জাতীয়তা বিশেষ্য পদটি নাগরিক এবং অনাগরিক উভয়কেই বোঝাতে পারে । নাগরিকের সবচেয়ে সাধারন পার্থক্যকারি বৈশিষ্ট্য হচ্ছে নাগরিক রাষ্ট্রের রাজনৈতিক জীবনে অনশগ্রহণ করতে পারে, যেমন ভোট দেয়ার মাধ্যমে অথবা নির্বাচনে প্রতিযোগিতা করে। যাইহোক, আধুনিক দেশে সকল মানুষই রাষ্ট্রের নাগরিক এবং পূর্ণ নাগরিকরা রাষ্ট্রের বাধ্যগত। [১][৪]

ইংরেজি এবং কিছু অন্য ভাষাতে, জাতীয়তা শব্দটিকে ব্যবহার করা হয় জাতিগত গোষ্ঠী নির্দেশ করার জন্য। জাতিগত গোষ্ঠী হচ্ছে, মানুষের একটি দল যারা একই জাতীয় পরিচিতি, ভাষা, সংস্কৃতি, ইতিহাস এবং আরও অনেক কিছু ভাগাভাগি করে। জাতীয়তার এই সংজ্ঞাটি রাজনৈতিক সীমানা বা পাসপোর্ট মালিকানার ভিত্তিতে দেয়া হয় নি এবং যেসব জাতির স্বাধীন রাষ্ট্র নেই (যেমন স্কট, ওয়েলস, ইংলিশ, কুরদ, তামিল, শিখ ইত্যাদি) তাদেরকেও অন্তর্ভুক্ত করে।[তথ্যসূত্র প্রয়োজন]

যারা বড় কোন সরকার থেকে স্বায়ত্তশাসন এর ক্ষমতা অর্জন করেছে তাদেরকেও নাগরিক বলা যেতে পারে।

আন্তর্জাতিক আইন[সম্পাদনা]

আন্তর্জাতিক আইনে জাতীয়তা হচ্ছে একটি অবস্থা অথবা সম্পর্ক যা একটি জাতিকে পৃথক একটি জাতি থেকে রক্ষা করার অধিকার প্রদান করে।[৪] কূটনীতিক এবং অধিনায়কীয় সুরক্ষা নির্ভর করে ব্যক্তি এবং রাষ্ট্রের এই সম্পর্কের উপর।[৪] একজন ব্যক্তির নাগরিকতার এই অবস্থা একটি দেশের আইনের সংঘাতের সমস্যার সমাধান করে।[৫]

নাগরিকতা এমন একটি অবস্থা যা একটি জাতিকে কোন ব্যক্তি উপর অধিকার প্রদান ঈবং বিধি নিষেধ প্রদান করে।[৪] বেশিরভাগ ক্ষেত্রে রাষ্ট্র স্বয়ংক্রিয় কোন অধিকার বা বিধিনিষেধ দেয় না যদিও কোন ধরনের অধিকার পেতে চাইলে এই অবস্থাটির প্রয়োজন হয়।[৫]

কিছু আন্তর্জাতিক আইন এবং চুক্তির মাধ্যমে রাষ্ট্র স্বাধীন ভাবে নির্ধারণ করতে পারে কে সেই রাষ্ট্রের জাতি হবে।[৪] যাইহোক নটবহম ঘটনার পর থেকে একজন সত্যিকার সামাজিক বন্ধনের ভিত্তিতে গরে ওঠা একজন নাগরিককে রক্ষার জন্য শুধুমাত্র প্রয়োজন চাওয়ার সম্মান কে বজায় রাখা।[৪] দ্বৈত নাগরিকতার ক্ষেত্রে দুই রাষ্ট্র ঠিক করবে কোন রাষ্ট্রীয় আইন তার জন্য কার্যকরী হবে।[৫] একজনের জাতীয়তা বাতিলের ক্ষেত্রেও কিছু সীমাবদ্ধতা রয়েছে। মানবাধিকারের সর্বজনীন ঘোষণার ১৫ তম অনুচ্ছেদে বলা হয়েছে " সবার নাগরিক হওয়ার অধিকার আছে," এবং " সাধারন ভাবে কোন বাক্তিকেই তার নাগরিকতা থেকে বঞ্চিত করা এবং নাগরিকতা পরিবর্তনের অধিকার বাতিল যাবে না।"

জাতীয় আইন[সম্পাদনা]

নাগরিক যে দেশের সাধারনত সে দেশে প্রত্যাবর্তন করা বা প্রবেশের অধিকার আছে। অধিবাসী ছাড়াও একটি রাষ্ট্রের নাগরিককে পাসপোর্ট দেয়া হয়, কারন পাসপোর্ট হচ্ছে কোন দেশে প্রবেশের জন্য ভ্রমন কাগজ পত্র। যাইহোক, পাসপোর্ট প্রদানের পর কারো চিরদিনের জন্য কোন দেশে বসবাসের অধিকার থাকে না।

জাতীয়তা বনাম নাগরিকত্ব[সম্পাদনা]

জাতীয়তা নাগরিকতা থেকে আইনগত ভাবে একটি পৃথক ধারনা। ধারনাগত দিক থেকে নাগরিকত্ব একটি রাষ্ট্রের অভ্যন্তরীণ রাজনৈতিক জীবন কেন্দ্রিক, এবং জাতীয়তা আন্তর্জাতিক বিষয় সমন্ধীয়। [৬]

আধুনিক যুগে পূর্ণ নাগরিকত্ত শুধু মাত্র কার্যকরী রাজনৈতিক অধিকারকেই নিশ্চিত করে না এটি পূর্ণ সভ্য এবং সামাজিক অধিকারও প্রদান করে।[৪] জাতীয়তা একটি বা অন্য রাষ্ট্রের ভেতরে রাজনৈতিক অধিকারের জন্য প্রয়োজনীয় তবে যথেষ্ট নয়।[১] জাতীয়তা পূর্ণ নাগরিকত্ত পাওয়ার জন্য প্রয়োজন এবং কিছু জনগনের পূর্ণ নাগরিকত্ত ছাড়া জাতীয়তা আছে। যে ব্যক্তির পূর্ণ অধিকার বাতিল করা হয়েছে সাধারনত তাকে দ্বিতীয় শ্রেণীর নাগরিক বলা হয়।

ঐতিহাসিকভাবে একজন জাতীয় ও নাগরিকের মধ্যে সবচেয়ে গুরুত্বপূর্ণ পার্থক্য হচ্ছে নাগরিকের প্রতিনিধি নির্বাচন করার এবং নিরবাচিত হওয়ার অধিকার আছে। [৪] অন্য কিছুর সাথে পূর্ণ নাগরিকত্বের এই পার্থক্য প্রাচীনকাল থেকে খুব কম দেখা যায়। ১৯শ এবং ২০তম শতক পর্যন্ত খুবই কম সংখ্যক মানুষের জন্য এটা সাধারন ছিল যে তারা পূর্ণ নাগরিক হওয়ার জন্য কোন শহর বা রাষ্ট্রে অবস্থান করেছেন। পূর্বে বেশিরভাগ মানুষকে নাগরিকত্ব থেকে বাতিল করা হয়তো লিঙ্গ, আর্থসামাজিক অবস্থান, ধর্ম এবং অন্যান্য কিছুর ভিত্তিতে। যাইহোক তারা আধুনিক যুগের জাতীয়তার ধারনার সাথে খুবই কাছাকাছি সম্পর্ক বজায় রেখেছে।[৪]

মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রের জাতীয়তা আইনে দূরবর্তী এলাকার যার জন্ম যুক্তরাষ্ট্রে তাকে জাতীয় বলা হয় তবে নাগরিক নয়। ব্রিটিশ জাতীয়তা আইনে ৬ শ্রেণীর ব্রিটিশ জাতীয় রয়েছে যার মধ্যে "ব্রিটিশ নাগরিক একটি শ্রেণি " যাদের যুক্তরাজ্যে বসবাসের অধিকার আছে। একইভাবে, চীন প্রজাতন্ত্রে , সাধারনভাবে যা তাইওয়ান নামে পরিচিত, জাতীয়তা বসতবাড়ির নিবন্ধন ছাড়া অবস্থাটি তাদের ক্ষেত্রেই প্রযোজ্য যাদের চীন প্রজাতন্ত্রের জাতীয়তা আছে, তবে স্বয়ংক্রিয় ভাবে তাইওয়ান এলাকায় প্রবেশ বা বসবাসের অধিকার নেই এবং সেখানে নাগরিক অশিকার বা দায়িত্ব নেই। জাতীয়তা আইন অনুসারে মেক্সিকো, কলম্বিয়া,এবং আরও কিছু লাতিন আমেরিকার দেশে অধিবাসীরা ১৮ বছরের পূর্বে নাগরিক হতে পারে না।

জাতীয়তা বনাম জাতিভুক্তি[সম্পাদনা]

জাতীয়তা মাঝে মাঝে ব্যবহার করা হয় জাতিভুক্তি অথবা জাতীয় উদ্ভব এর পরিবর্তে, যেমন কিছু মানুষ মনে করেন জাতীয়তা এবং নাগরিকতা একই বিষয়।[৭] বর্তমান সরকার এবং রাষ্ট্রের সাথে সম্পর্কের পরিবর্তে কিছু দেশে,নাগরিকতার জন্য সমজাতিও শব্দ হিসাবে যা আঞ্চলিক ভাষা জাতিভুক্তি অথবা পরিবার কেন্দ্রিক নির্দেশক হিসাবে বোঝা হয়। উধাহরনস্বরূপ কিছু কুর্দি দাবি করে কে তাদের কুর্দিও জাতীয়তা আছে যদিও ইতিহাসে কোন স্বাধীন কুর্দি রাষ্ট্র পাওয়া যায় না।

একটি তৎকালীন সোভিয়েত জন্ম সনদ যেখানে উভয় অভিভাবক কে ইহুদি হিসাবে উল্লেখ করা হয়েছে. এই কাগজ পত্র গুলো কোন বাচ্চার জাতিভুক্তি নির্ণয়ের জন্য ব্যবহার করা হয় যেভাবে অভ্যন্তরীণ পাসপোর্টে উল্লেখ থাকে।

সোভিয়েত সংঘে এবং তৎকালীন যুগোস্লাভিয়া সমাজতান্ত্রিক প্রজাতন্ত্রে, "জাতীয়তা" শব্দটি প্রায়ই ব্যবহার করা হয় রাশিয়ান nacional'nost' এবং সারবো ক্রোয়েশিয়ান narodnost এর আভিধানিক অর্থ হিসাবে, এই শব্দ গুলো সেই সব রাষ্ট্রের জাতিভুক্ত গোষ্ঠীকে নির্দেশ করতো। সোভিয়েত সংঘে পূর্বে এরূপ ১০০ এরও বেশি দল পাওয়া যায়। এইসব দলের সদস্যতা সোভিয়েত অভ্যন্তরীণ পাসপোর্টে চিহ্নিত করা হয় এবং রাশিয়া এবং যুগোস্লাভিয়া উভয় রাষ্ট্রের আদমশুমারিতে এদেরকে অন্তর্ভুক্ত করা হয়। সোভিয়েত সংঘের প্রথম বছরগুলোতে, জাতিভুক্তি সাধারনত নির্ধারণ করা হোতো ব্যক্তির জন্মগত ভাষা এবং কিছু ক্ষেত্রে ধর্ম বা সাংস্কৃতিক বিষয় এর ভিত্তিতে যেমন বস্ত্র ।[৮] যেসব বাচ্চাদের জন্ম অভভুথানের পর হয়েছিল তাদেরকে শ্রেণিভুক্ত করা হয়েছিল তাদের অভিভাবক দের জাতীয়তা ভুক্তি অনুসারে। এইসব জাতিভুক্তি অনেক গোষ্ঠী এখনও রাশিয়া এবং অন্যান্য দেশে পরচিত আছে।

একইভাবে, চীনের জাতীয়তা শব্দটি নির্দেশ করে চীনের জাতিভুক্ত এবং সাংস্কৃতিক দলগুলোকে। স্পেইন এমন একটি দেশ যা নাগরিক দিয়ে গঠিত এবং যারা রাজনৈতিক ভাবে রাষ্ট্র দ্বারা পরিচিত নয়, তবে স্প্যানিশ রাষ্ট্রের ভিতর ছোট রাষ্ট্র হিসাবে ধরা যেতে পারে। স্প্যানিশ আইন আন্দালুসিয়া, আরাগন, বালেয়ারিক দ্বীপ, ক্যানারি দ্বীপ, কাতালনিয়া, ভালান্সিয়া, গালিসিয়া, এবং বস্ক দেশকে জাতি হিসাবে গণ্য করে। (nacionalidades)

জাতীয়তা বনাম জাতীয় পরিচয়[সম্পাদনা]

জাতীয় পরিচয় হচ্ছে একজন ব্যক্তির কোন রাষ্ট্রে অবস্থানের বস্তূগত বিবেচনা। একজন ব্যক্তি একটি রাষ্ট্রের জাতীয় হতে পারে এই বিবেচনায় যে রাষ্ট্রের সাথে তার আনুষ্ঠানিক কোন সম্পর্ক আছে এর সাথে বস্তূগত বা আবেগপ্রবন না হয়ে। বিপরীত পক্ষে কোন ধরনের আইন গত সম্পর্ক ছাড়া একজন ব্যক্তি মনে করতে পারে সে সেই রাষ্ট্রের একজন। উধাহরনস্বরূপ যেসব বাচ্চাকে অল্প বয়সে বেআইনি ভাবে যুক্তরাষ্ট্রে আনা হয় এবং নিজেদের অভিবাসি অবস্থার কথা না জেনে বড় হতে থাকে তারা নিজেদেরকে আমেরিকান মনে করতে শুরু করে যদিও তারা অন্য কোন রাষ্ট্রের নাগরিক।

দ্বৈত জাতীয়তা[সম্পাদনা]

দ্বৈত জাতীয়তা হচ্ছে একজন ব্যক্তির দুইটি পৃথক স্বাধীন রাষ্ট্রের সাথে সম্পর্ক।[৬] এটা ঘটতে পারে উধাহরনস্বরূপ যখন একজন ব্যক্তির অভিভাবক দুইটি রাষ্ট্রের জাতীয়তা প্রাপ্ত এবং মা ও বাবার দেশ যদি সকল সন্তানকে তাদের দেশের নাগরিক হিসাবে দাবি করে।

জাতীয়তা, ঐতিহাসিকভাবে যার উদ্ভব হয়েছিল স্বাধীন রাজতন্ত্রের মাধ্যমে সত্যকার ভাবে যাকে দেখা যেত নির্দিষ্ট, উত্তরাধিকারীও, অপরিবর্তনীয় শর্ত হিসাবে এবং পরবর্তীতে যখন রাজতন্ত্রের মধ্যে পরিবর্তন সম্মতি পায় তখন একটি রাষ্ট্রের সাথে এই কঠোর সম্পর্কটি করার জন্য অন্য একটি রাষ্ট্রের জাতীয়তা প্রত্যাখ্যান করার প্রয়োজন পরে।[৬]

দ্বৈত জাতীয়তা একটি সমস্যা ছিল যা দুটি রাষ্ট্রের মধ্যে সংঘর্ষের সূত্রপাত করতো এবং মাঝে মাঝে এইরূপ ব্যক্তির উপর পারস্পরিক সমঝোতার মাধ্যমে বিশেষ নিয়ম আরোপ করা হ্ত, যেমন একই সাথে দুই দেশের সামরিক বাহিনীতে কর্মরত থাকলে। ২০ শতকের মধ্যভাগ থেকে অনেক আন্তর্জাতিক সংস্থা দ্বৈত নাগরিকতার সম্ভাবনা কমানোর দিকে নজর দেন, এরপর থেকে দ্বৈত জাতীয়তার উপর অনেক চুক্তি স্বাক্ষরিত হয়েছে।[৬]

রাষ্ট্রহীনতা[সম্পাদনা]

রাষ্ট্রহীনতা এমন একটি অবস্থা যেখানে একজন ব্যক্তির কোন রাষ্ট্রের সাথেই আনুষ্ঠানিক সুরক্ষাভিত্তিক সম্পর্ক থাকে না। উদাহরণস্বরূপ এটা ঘটতে পারে যদি একজন ব্যক্তির পিতামাতা পৃথক রাষ্ট্রের জাতীয় হয়ে থাকেন এবং মায়ের দেশ বাবা পৃথক রাষ্ট্রের হওয়ার কারনে সকল সন্তানের জাতীয়তা প্রত্যাখ্যান করে, একইভাবে বাবার দেশ পৃথক দেশের মায়ের সকল সন্তান প্রত্যাখ্যান করে। যদিও এই ব্যক্তির আবেগ প্রণোদিত জাতীয় পরিচয় থাকতে পারে আইনগত সে কোন রাষ্ট্রের জাতীয় নয়।

আরও দেখুন[সম্পাদনা]

তথ্যসূত্র[সম্পাদনা]

  1. Vonk, Olivier (মার্চ ১৯, ২০১২)। Dual নাগরিকতা in the European Union: A Study on Changing Norms in Public and Private International Law and in the Municipal Laws of Four EU Member States। Martinus Nijhoff Publishers। পৃষ্ঠা 19–20। আইএসবিএন 90-04-22720-2 
  2. Weis, Paul. নাগরিকতা and Statelessness in International Law. BRILL; 1979 [cited 19 August 2012]. আইএসবিএন ৯৭৮৯০২৮৬০৩২৯৫. p. 29–61.
  3. Convention on Certain Questions Relating to the Conflict of নাগরিকতা Laws. The Hague, 12 April 1930. Full text. Article 1, "It is for each State to determine under its own law who are its nationals...".
  4. Kadelbach, Stefan (২০০৭)। "Part V: Citizenship Rights in Europe"। Ehlers, Dirk। European Fundamental Rights and Freedoms। Berlin: De Gruyter Recht। পৃষ্ঠা 547–548। আইএসবিএন 9783110971965 
  5. von Bogdandy, Armin; Bast, Jürgen, সম্পাদকগণ (২০০৯)। Principles of European Constitutional Law. (2nd সংস্করণ)। Oxford: Hart Pub.। পৃষ্ঠা 449–451। আইএসবিএন 9781847315502 
  6. Turner, Bryan S; Isin, Engin F. Handbook of Citizenship Studies. SAGE; 2003-01-29. আইএসবিএন ৯৭৮০৭৬১৯৬৮৫৮০. p. 278–279.
  7. Oommen, T. K. (১৯৯৭)। Citizenship, নাগরিকতা, and ethnicity: reconciling competing identities। Cambridge, UK: Polity Press। পৃষ্ঠা 6। আইএসবিএন 0-7456-1620-8 
  8. Slezkine, Yuri (Summer 1994) "The USSR as a Communal Apartment, or How a Socialist State Promoted Ethnic Particularism" Slavic Review Vol. 53, No. 2, pp. 414-452

অতিরিক্ত পড়ুন[সম্পাদনা]

টেমপ্লেট:সারবজনিন মানব অধিকার আইন টেমপ্লেট:নিরদিস্ত মানব অধিকার টেমপ্লেট:নৃগোষ্ঠীটা

টেমপ্লেট:মালিক দারা নিয়ন্ত্রণ