জ্ঞান (ভারতীয় দর্শন)

উইকিপিডিয়া, মুক্ত বিশ্বকোষ থেকে

জ্ঞান (সংস্কৃত: ज्ञान) সংস্কৃত শব্দ এবং এর অর্থ জানা। জ্ঞানীয় ঘটনার উপর জ্ঞান কেন্দ্রের ধারণা যা অভিজ্ঞ হলে স্বীকৃত হয়। এটি বাস্তবতার সম্পূর্ণ অভিজ্ঞতা, বিশেষ করে সম্পূর্ণ বা ঐশ্বরিক বাস্তবতা (ব্রহ্ম) থেকে অবিচ্ছেদ্য জ্ঞান।[১] এই জ্ঞান পূর্ণ সত্যস্বরূপ[২] এবং জাগতিক অভ্যন্তরে অবস্থিত সর্বোচ্চ সত্ত্বার সঙ্গে অভিন্ন।[৩]

হিন্দুধর্মে[সম্পাদনা]

বেদে জ্ঞান বলতে বোঝায় জীবের আত্মা ও সর্বোচ্চ সত্য ব্রহ্মের পূর্ণ একত্বের অনুভূতিকে। এই জ্ঞানকে বলা হয় "আত্মজ্ঞান"। আত্মজ্ঞান ব্রহ্মজ্ঞানের সঙ্গে ওতোপ্রতোভাবে জড়িত। প্রকৃত জ্ঞান হল সেই জ্ঞান যা জীবকে ব্রহ্মের (যিনি পরমাত্মা বা ভগবান নামেও পরিচিত) পথে চালিত করে। অন্যদিকে জাগতিক জ্ঞান, যা মানুষকে জাগতিক সুখ-সাচ্ছন্দ্যের দিকেই নিয়ে যায় তাকে অজ্ঞান বলা হয়।

বেদান্ত[সম্পাদনা]

প্রজ্ঞানং ব্রহ্ম (प्रज्ञानम् ब्रह्म), মহাবাক্যগুলোর একটি, মোটামুটি অর্থ "অন্তর্দৃষ্টি ব্রহ্ম" বা "ব্রহ্মই অন্তর্দৃষ্টি"।[৪]

সাহুরের মতে জ্ঞান,

প্রজ্ঞানং ইতি ব্রহ্ম - জ্ঞানই হলেন সেই পরমাত্মা। "প্রজ্ঞান" বলতে সেই স্বজ্ঞাত সত্যকে বোঝায় যাকে যুক্তি দ্বারা প্রমাণ করতে হয়। এটি বুদ্ধির উচ্চতর অবস্থা, যে অবস্থায় "সত-চিত-আনন্দ"-এর "সত"-কে অনুভব করা যায়। প্রকৃত জ্ঞানী বা "প্রাজ্ঞ" ব্রহ্মজ্ঞান অর্জন করেন। এই ভাবেই তিনি প্রজ্ঞানং ইতি ব্রহ্ম, মহাবাক্যটি প্রমাণ করে।[৪]

ডেভিড লয়ের মতে জ্ঞান,

ব্রহ্মজ্ঞান বলতে ব্রহ্ম-অনুভূতি বোঝায় না, ব্রহ্মকেই বোঝায়।[৫]

যোগ[সম্পাদনা]

জ্ঞানযোগ হল সেই তিনটি প্রধান সাধনমার্গের একটি, যেগুলি জীবকে মোক্ষ লাভে সাহায্য করে। অন্যদুটি মার্গ হল কর্মযোগভক্তিযোগরাজযোগে নানা যোগ ব্যবস্থার সমন্বয় ঘটেছে। এই যোগকেও হিন্দুরা মোক্ষ লাভের উপযোগী মনে করেন। হিন্দুদের মতে, ব্যক্তির চারিত্রিক বৈশিষ্ট্য অনুসারে এক এক যোগ উপযুক্ত হয়।

বৌদ্ধধর্মে[সম্পাদনা]

তিব্বতি বৌদ্ধধর্মে, জ্ঞান বলতে বিশুদ্ধ সচেতনতাকে বোঝায় যা ধারণাগত দায়মুক্ত, এবং এর বিপরীতে আছে বিজ্ঞান, যার অর্থ ‘খণ্ডিত জ্ঞান’ বা 'বিভক্ত জানার মুহূর্ত'। ঝানা (বোধিসত্ত্ব ভূমি) দশটি পর্যায়ে প্রবেশ, এবং অগ্রগতি একজনকে সম্পূর্ণ জ্ঞান ও নির্বাণের দিকে নিয়ে যাবে।[৬]

থেরবাদ বৌদ্ধধর্মে বাস্তবের প্রকৃত প্রকৃতির অন্তর্দৃষ্টির পথে বিভিন্ন বিপ্সন-নান বা "অন্তর্দৃষ্টি জ্ঞান" রয়েছে।[৭] একজন ব্যক্তি ধ্যান করার সাথে সাথে এই নানসমূহ বা "জ্ঞান" ক্রমানুসারে অনুভূত হবে। প্রত্যেকের অভিজ্ঞতা সংক্ষিপ্ত হতে পারে বা বছরের পর বছর স্থায়ী হতে পারে এবং প্রতিটির বিষয়গত তীব্রতা পরিবর্তনশীল। প্রতিটি নানকে ঝানা হিসেবেও বিবেচনা করা যেতে পারে যদিও অনেকগুলি স্থির নয় এবং মনের অভিজ্ঞতার মধ্যে অনুবিদ্ধ থাকার কোনো উপায় নেই। সমস্ত নানাদের অভিজ্ঞতা জ্ঞানার্জনের চারটি পর্যায়ের প্রথম দিকে নিয়ে যাবে তারপর চক্রটি সূক্ষ্ম স্তরে শুরু হবে।[৭]

আরও দেখুন[সম্পাদনা]

পাদটীকা[সম্পাদনা]

  1. "jnana (Indian religion) - Britannica Online Encyclopedia"। Britannica.com। সংগ্রহের তারিখ ২০১২-০৫-১৫ 
  2. উদ্ধৃতি ত্রুটি: <ref> ট্যাগ বৈধ নয়; brittanica on jnana নামের সূত্রটির জন্য কোন লেখা প্রদান করা হয়নি
  3. "The tantra: its origin, theories, art, and diffusion from India to Nepal, Tibet, Mongolia, China, Japan, and Indonesia" by Victor M. Fic, available online at books.google.com here, http://books.google.com/books?id=g5DxR29F-iYC&dq=tantra&source=gbs_navlinks_s
  4. Sahu 2004, পৃ. 41।
  5. Loy 1997, পৃ. 62।
  6. Gampopa's "Jewel Ornament of Liberation", especially the ten bhumis, where the absorption state or non-dual state, which characterizes all ten bhumis, in this well-respected traditional text, is equated to the state of jnana
  7. The Progress of Insight: (Visuddhiñana-katha), by The Venerable Mahasi Sayadaw, translated from the Pali with Notes by Nyanaponika Thera (1994; 33pp./99KB)

তথ্যসূত্র[সম্পাদনা]

  • Anna Dallapiccola, Dictionary of Hindu Lore and Legend (আইএসবিএন ০-৫০০-৫১০৮৮-১)
  • Loy, David (১৯৯৭), Nonduality. A Study in Comparative Philosophy, Humanity Books 
  • Sahu, Bhagirathi (২০০৪), The New Educational Philosophy, Sarup & Sons 

বহিঃসংযোগ[সম্পাদনা]