প্রথম মেনান্দ্রোস সোতের

উইকিপিডিয়া, মুক্ত বিশ্বকোষ থেকে
পরিভ্রমণে ঝাঁপ দিন অনুসন্ধানে ঝাঁপ দিন
প্রথম মেনান্দ্রোস সোতের
ইন্দো-গ্রিক রাজা
প্রথম মেনান্দ্রোস সোতেরের রৌপ্য মুদ্রায় তাঁর প্রতিকৃতি
রাজত্বকাল১৫৫ খ্রিস্টপূর্বাব্দ - ১৩০ খ্রিস্টপূর্বাব্দ
জন্মস্থানকলসি[১][২] পারোপামিসাদাই, ইন্দো-গ্রিক রাজ্য
মৃত্যু১৩০ খ্রিস্টপূর্বাব্দ
পূর্বসূরিদ্বিতীয় আন্তিমাখোস নিকেফোরোস
উত্তরসূরিপ্রথম জোইলোস দিকাইওস (পারোপামিসাদাই, আরাখোশিয়া)
আগাথোক্লেইয়া থেওত্রোপোস
(পাঞ্জাব)
রাণীআগাথোক্লেইয়া থেওত্রোপোস
সন্তানাদিপ্রথম স্ত্রাতোন
ধর্মবিশ্বাসবৌদ্ধ ধর্ম

প্রথম মেনান্দ্রোস সোতের (গ্রিক: Μένανδρος Α΄ ὁ Σωτήρς), যিনি পালি উৎসগুলিতে মিলিন্দ নামে পরিচিত, একজন ইন্দো-গ্রিক শাসক ছিলেন, যিনি আনুমানিক খ্রিস্টপূর্ব ১৫৫[৩] থেকে খ্রিস্টপূর্ব ১৩০ পর্য্যন্ত পারোপামিসাদাই, আরাখোশিয়াপাঞ্জাব[২] অঞ্চল শাসন করেন। তাঁর রাজ্য পশ্চিমে কাবুল নদী উপত্যকা হতে পূর্বে রাবী নদী পর্য্যন্ত এবং উত্তরে সোয়াট নদী উপত্যকা হতে দক্ষিণে আরাখোশিয়া পর্য্যন্ত বিস্তৃত ছিল। প্রাচীন ভারতীয় লেখকদের মতে, তিনি পূর্বদিকে গাঙ্গেয় নদী উপত্যকা বরাবর পাটলিপুত্র পর্য্যন্ত সেনা অভিযান করেন।

রাজত্ব[সম্পাদনা]

প্রথম মেনান্দ্রোস সোতের ইন্দো-গ্রিক রাজ্যের পারোপামিসাদাই অঞ্চলের অন্তর্ভুক্ত ককেশাসের আলেকজান্দ্রিয়ার নিকটবর্তী কলসি গ্রামে জন্মগ্রহণ করেন।[১][পা ১][পা ২] গ্রিক-ব্যাক্ট্রিয় রাজ্যের পূর্বদিকে পারোপামিসাদাই, আরাখোশিয়াউত্তরাপথের উত্তর-পশ্চিমাঞ্চল পর্য্যন্ত তাঁর রাজ্য বিস্তৃত ছিল। সগল নামক একটি সমৃদ্ধ নগর সম্ভবতঃ তাঁর রাজধানী ছিল। প্রথম মেনান্দ্রোস সোতের শুঙ্গ রাজধানী পাটলিপুত্র পর্য্যন্ত সেনা অভিযান করেন, কিন্তু এই সময় গ্রিক-ব্যাক্ট্রিয় শাসক প্রথম ইউক্রাতিদেস তাঁর রাজ্যের উত্তর-পশ্চিম সীমান্ত আক্রমণ করলে পাটলিপুত্র থেকে তাঁকে ফিরে যেতে হয়।[২] প্রথম ইউক্রাতিদেস তাঁর নিকট পরাজিত হয়ে নিজ রাজ্যে পশ্চাৎ-অপসারণ করএ বাধ্য হন। স্ত্রাবোন তাঁর জেওগ্রাফিকা গ্রন্থে প্রথম মেনান্দ্রোস সোতেরকে মহান আলেকজান্ডার অপেক্ষাও সফল সমরাধিনায়ক হিসেবে বর্ণনা করেছেন।[পা ৩] যেহেতু প্রথম জোইলোস দিকাইওসের মুদ্রার ওপর প্রথম মেনান্দ্রোস সোতের নিজের নাম উৎকীর্ণ করেন বলে প্রমাণ পাওয়া গেছে, তাই প্রথম মেনান্দ্রোস সোতেরের রাজত্বকালেই প্রথম জোইলোস দিকাইওস তাঁর রাজ্যের পশ্চিমাঞ্চল দখল করতে সক্ষম হন বলে মনে করেন।[৮]

মুদ্রা[সম্পাদনা]

প্রথম মেনান্দ্রোস সোতের প্রচুর রৌপ্য ও ব্রোঞ্জ মুদ্রা প্রচলন করেন। এই সকল মুদ্রায় গ্রিক ও ভারতীয় বৈশিষ্ট্যের সর্বাধিক সংযুক্তি ঘটে। এই সকল মুদ্রায় গ্রিক লিপিতে বাসিলেওস সোতেরোস মেনান্দ্রোউ ΒΑΣΙΛΕΩΣ ΣΩΤΗΡΟΣ ΜΕΝΑΝΔΡΟΥ এবং খরোষ্ঠী লিপিতে মহারাজাস ত্রাতারস মেনাদ্রস উৎকীর্ণ রয়েছে। অসমুন্ড বোপেয়ারাচ্চির মতে, তাঁর সামান্য সংখ্যক প্রথম দিককার রৌপ্য মুদ্রাগুলির এক পিঠে এথেনা ও অপর পিঠে পেঁচার চিত্র মুদ্রিত ছিল। এরপর তিনি মুদ্রাগুলিতে নিজের প্রতিকৃতি উৎকীর্ণ করান, যা পূর্বেকার ভারতীয় শাসকদের মধ্যে অপরিচিত রীতি ছিল। এই সকল মুদ্রার অপর পিঠে বজ্র নিক্ষেপরত এথেনার প্রতীক মুদ্রিত থাকত, যা পরবর্তীকালে তাঁর উত্তরাধিকারীরাও ব্যবহার করেন। এছাড়া তিনি শুধুমাত্র গ্রিক লিপিতেও কয়েকটি মুদ্রা প্রচলন করেন, যা সম্ভবতঃ ব্যাক্ট্রিয়া অঞ্চলে ব্যবহারের জন্য তৈরী করা হয়েছিল।[৯]

মিলিন্দপঞ্‌হ[সম্পাদনা]

প্রথম মেনান্দ্রোস সোতের ও নাগসেনের মধ্যে দার্শনিক আলোচনা

বৌদ্ধ ভিক্ষু নাগসেন ও প্রথম মেনান্দ্রোস সোতেরের মধ্যেকার দার্শনিক আলোচনা মিলিন্দপঞ্‌হ নামক পালি বৌদ্ধ গ্রন্থে লিপিবদ্ধ রয়েছে। এই গ্রন্থানুসারে, সগল নগরীর শাসনকর্তা মিলিন্দ (=প্রথম মেনান্দ্রোস সোতের) একজন বিদ্বান, জ্ঞানী, ধার্মিক ও বাক্‌পটু ব্যক্তি ছিলেন। তিনি সাংখ্য, যোগ, ন্যায়বৈশেষিক ইত্যাদি দর্শন, গণিত, সঙ্গীত, চিকিৎসাবিদ্যা, চতুর্বেদ, পুরাণ, জ্যোতিষ, সমরনীতি ও কাব্যশাস্ত্র ইত্যদি বিষয়ে পণ্ডিত ছিলেন। মিলিন্দপঞ্‌হ অনুসারে, তৎকালীন ভারতবর্ষে তাঁর মতো জ্ঞানী, শক্তিশালী ও সাহসী শাসক কেউ ছিলেন না।[পা ৪] নাগসেনের সঙ্গে আলোচনার পরে প্রথম মেনান্দ্রোস সোতের বৌদ্ধ ধর্ম গ্রহণ করেন।[পা ৫] এবং তাঁর পুত্রের হাতে রাজ্যভার সমর্পণ করে সংসার ত্যাগ করে অর্হত্ত প্রাপ্ত হন।[পা ৬]

মৃত্যু[সম্পাদনা]

প্লুতার্কের বর্ণনানুসারে, প্রথম মেনান্দ্রোস সোতের একটি সামরিক অভিযানের সময় তাঁর যুদ্ধশিবিরে মৃত্যুবরণ করেন। তাঁর মৃত্যুর পর তাঁর অস্থিভস্মের অধিকার নিয়ে তাঁর রাজ্যের বিভিন্ন শহরের অধিবাসীদের মধ্যে বিবাদ শুরু হয়। পরে ঠিক করা হয় যে, তাঁর অস্থিভস্ম সমান ভাবে ভাগ করে বিভিন্ন শহরে রেখে তাঁর ওপর স্মারক (?স্তূপ) নির্মাণ করা হবে।[পা ৭] মিলিন্দপঞ্‌হ গ্রন্থে বর্ণিত কাহিনীর সঙ্গে অবশ্য প্লুতার্কের বর্ণনা মেলে না।

পাদটীকা[সম্পাদনা]

  1. Menander king in India, known locally as Milinda, born at a village named Kalasi near Alasanda (Alexandria-in-the-Caucasus), and who was himself the son of a king. After conquering the Punjab, where he made Sagala his capital, he made an expedition across northern India and visited Patna, the capital of the Mauraya empire, though he did not succeed in conquering this land as he appears to have been overtaken by wars on the north-west frontier with Eucratides.[২]:১৫৫
  2. Menander (not to be confused with the more famous Greek dramatist of the same name) was born somewhere in the fertile area to the south of the Paropaisadae or present Hindu Kush Mountains of Afghanistan. The only reference to this location is in the semilegendary Milindapanha (first or second century A.D.), which says that he was born in a village called Kalasi near Alasanda, some two hundred yojanas (about eighteen miles) from the town of Sagala (probably Sialkot in the Punjab). The Alasanda refers to the Alexandria in Afghanistan and not the one in Egypt.[৪]:৭১৭
  3. The Greeks who caused Bactria to revolt grew so powerful on account of the fertility of the country that they became masters, not only of Ariana, but also of India, as Apollodorus of Artemita says: and more tribes were subdued by them than by Alexander-- by Menander in particular (at least if he actually crossed the Hypanis towards the east and advanced as far as the Imaüs), for some were subdued by him personally and others by Demetrius, the son of Euthydemus the king of the Bactrians; and they took possession, not only of Patalena, but also, on the rest of the coast, of what is called the kingdom of Saraostus and Sigerdis. In short, Apollodorus says that Bactriana is the ornament of Ariana as a whole; and, more than that, they extended their empire even as far as the Seres and the Phryni.- জেওগ্রাফিকা, স্ত্রাবোন[৫][৬][৭]
  4. King of the city of Sâgala in India, Milinda by name, learned, eloquent, wise, and able; and a faithful observer, and that at the right time, of all the various acts of devotion and ceremony enjoined by his own sacred hymns concerning things past, present, and to come. Many were the arts and sciences he knew--holy tradition and secular law; the Sânkhya, Yoga, Nyâya and Vaisheshika systems of philosophy; arithmetic; music; medicine; the four Vedas, the Purânas, and the Itihâsas; astronomy, magic, causation, and magic spells; the art of war; poetry; conveyancing in a word, the whole nineteen. As a disputant he was hard to equal, harder still to overcome; the acknowledged superior of all the founders of the various schools of thought. And as in wisdom so in strength of body, swiftness, and valour there was found none equal to Milinda in all India. He was rich too, mighty in wealth and prosperity, and the number of his armed hosts knew no end.[১০]
  5. May the venerable Nâgasena accept me as a supporter of the faith, as a true convert from to-day onwards as long as life shall last!"[১০]
  6. And afterwards, taking delight in the wisdom of the Elder, he handed over his kingdom to his son, and abandoning the household life for the houseless state, grew great in insight, and himself attained to
  7. But when one Menander, who had reigned graciously over the Bactrians, died afterwards in the camp, the cities indeed by common consent celebrated his funerals; but coming to a contest about his relics, they were difficultly at last brought to this agreement, that his ashes being distributed, everyone should carry away an equal share, and they should all erect monuments to him.- Moralia: Praecepta gerendae reipublicae, Plutarch[১১][১২][১৩][১৪]

তথ্যসূত্র[সম্পাদনা]

  1. "Menander"Encyclopædia Britannica OnlineEncyclopædia Britannica, Inc.। সংগ্রহের তারিখ ৮ সেপ্টেম্বর ২০১২ 
  2. Hazel, John (২০১৩)। Who's Who in the Greek World। Routledge। আইএসবিএন 9781134802241page=155 |আইএসবিএন= এর মান পরীক্ষা করুন: invalid character (সাহায্য) 
  3. O. Bopearachchi, Monnaies gréco-bactriennes et indo-grecques, Catalogue raisonné, Bibliothèque Nationale, Paris, 1991, 459 p., 69 pl.
  4. Magill, Frank Northen (২০০৩)। Dictionary of World Biography, Volume 1। Taylor & Francis। আইএসবিএন 9781579580407 
  5. Strabo (১৮৭৭)। "11.11.1"। Meineke, A.। Geographica (Greek ভাষায়)। Leipzig: Teubner। 
  6. Strabo (১৯২৪)। "11.11.1"। Jones, H. L.। Geographica 
  7. Strabo (১৯০৩)। "11.11.1"। Jones, H. L.। Geographica  At the Perseus Project.
  8. Senior R.C., MacDonald, D.: The Decline of the Indo-Greeks, Monographs of the Hellenic Numismatic Society, Athens (1998)
  9. "Monnaies Gréco-Bactriennes et Indo-Grecques, Catalogue Raisonné", Osmund Bopearachchi, 1991, Bibliothèque Nationale de France, আইএসবিএন ২-৭১৭৭-১৮২৫-৭.
  10. Questions of King Milinda, translated by Thomas William Rhys Davids, Sacred Books of the East, volumes XXXV & XXXVI, Clarendon/Oxford, 1890–94; reprinted by Motilal Banarsidass, Delhi Vol. 1, Vol. 2
  11. Plutarch। "28, 6"। Morals: Political Precepts (PDF)। The Online Library of Liberty। পৃষ্ঠা 147–148। 
  12. Bernardakis, Gregorius N., সম্পাদক (১৮৯৩)। "821d"। Moralia: Praecepta gerendae reipublicae (Greek ভাষায়)। Leipzig: Teubner। 
  13. Fowler, Harold North, সম্পাদক (১৯৩৬)। "28, 6"। http://www.perseus.tufts.edu/hopper/text?doc=Perseus%3Atext%3A2008.01.0333%3Asection%3D28  |শিরোনাম= অনুপস্থিত বা খালি (সাহায্য)
  14. Goodwin, William W., সম্পাদক (১৮৭৪)। "28, 6"। http://www.perseus.tufts.edu/hopper/text?doc=Perseus%3Atext%3A2008.01.0334%3Asection%3D28  |শিরোনাম= অনুপস্থিত বা খালি (সাহায্য)

আরো পড়ুন[সম্পাদনা]

প্রথম মেনান্দ্রোস সোতের
রাজত্বকাল শিরোনাম
পূর্বসূরী
দ্বিতীয় আন্তিমাখোস নিকেফোরোস
ইন্দো-গ্রিক শাসক
১৫৫ খ্রিস্টপূর্বাব্দ - ১৩০ খ্রিস্টপূর্বাব্দ
উত্তরসূরী
প্রথম জোইলোস দিকাইওস
(পারোপামিসাদাই, আরাখোশিয়া)
উত্তরসূরী
আগাথোক্লেইয়া থেওত্রোপোস
(পাঞ্জাব)

টেমপ্লেট:Hellenistic rulers