কার্ক ডগলাস

উইকিপিডিয়া, মুক্ত বিশ্বকোষ থেকে
পরিভ্রমণে ঝাঁপ দিন অনুসন্ধানে ঝাঁপ দিন
কার্ক ডগলাস
Kirk douglas photo signed.JPG
কার্ক ডগলাস, আনু. ১৯৫৫
স্থানীয় নাম
Kirk Douglas
জন্ম
ইসুর দানিয়েলোভিচ

(1916-12-09) ৯ ডিসেম্বর ১৯১৬ (বয়স ১০২)

কার্ক ডগলাস (ইংরেজি: Kirk Douglas; জন্ম: ইসুর দানিয়েলোভিচ, ৯ ডিসেম্বর ১৯১৬) হলেন একজন মার্কিন অভিনেতা, প্রযোজক, পরিচালক ও লেখক। তিনি মার্কিন চলচ্চিত্র শিল্পের স্বর্ণযুগের সর্বশেষ জীবিত তারকাদের একজন।[১] অভিবাসিত পিতামাতা ও ছয় বোন নিয়ে নিঃসম্বল শৈশব কাটানোর পর ১৯৪৬ সালে বারবারা স্ট্যানউইকের বিপরীতে দ্য স্ট্রেঞ্জ লাভ অব মার্থা আইভার্স (১৯৪৬) দিয়ে তাঁর চলচ্চিত্রে আত্মপ্রকাশ ঘটে। ১৯৫০-এর দশকে তিনি সেরা বক্স-অফিস তারকা হয়ে ওঠেন এবং গম্ভীর নাট্যধর্মী, পশ্চিমা ধাঁচ ও যুদ্ধভিত্তিক চলচ্চিত্রে অভিনয়ের জন্য প্রসিদ্ধি অর্জন করেন। কর্মজীবনে তিনি নব্বইয়ের অধিক চলচ্চিত্রে অভিনয় করেন।

ডগলাস চ্যাম্পিয়ন (১৯৪৯) চলচ্চিত্রে বক্সিং হিরো চরিত্রে শ্রেষ্ঠাংশে অভিনয়ের মধ্য দিয়ে ইতিবাচক প্রতিক্রিয়া লাভ করেন ও আন্তর্জাতিক খ্যাতি অর্জন করেন। এই কাজের জন্য তিনি শ্রেষ্ঠ অভিনেতা বিভাগে একাডেমি পুরস্কারের মনোনয়ন লাভ করেন। তাঁর অভিনীত শুরুর দিকের অন্যান্য চলচ্চিত্রসমূহ হল লরেন বাকলডোরিস ডের বিপরীতে ইয়ং ম্যান উইথ আ হর্ন (১৯৫০); জ্যান স্টার্লিংয়ের বিপরীতে এইস ইন দ্য হোল (১৯৫১), এবং ডিটেকটিভ স্টোরি (১৯৫১)। তিনি দ্য ব্যাড অ্যান্ড দ্য বিউটিফুল (১৯৫২) ছবিতে তাঁর নাট্যধর্মী অভিনয়ের জন্য তাঁর দ্বিতীয় অস্কার এবং লাস্ট ফর লাইফ (১৯৫৬) ছবিতে ভিনসেন্ট ভ্যান গখ চরিত্রে অভিনয় করে তৃতীয় অস্কারের মনোনয়ন লাভ করেন।

অভিনেতা ও মানবহিতৈষী হিসেবে ডগলাস তিনটি একাডেমি পুরস্কারের মনোনয়ন, একটি একাডেমি সম্মানসূচক পুরস্কার, এবং প্রেসিডেনশিয়াল মেডেল অব ফ্রিডম অর্জন করেন। লেখক হিসেবে তিনি দশটি উপন্যাস ও স্মৃতিকথা রচনা করেন। আমেরিকান ফিল্ম ইনস্টিটিউট তাদের করা ধ্রুপদী হলিউড চলচ্চিত্র শিল্পের সেরা পুরুষ তারকা তালিকায় তাঁকে ১৭তম হিসেবে স্থান দিয়েছে। ২০১৬ সালের ৯ই নভেম্বর তাঁর বয়স ১০০ বছর পূর্ণ হয়।[২]

তথ্যসূত্র[সম্পাদনা]

  1. ভেলেন্টি, জ্যাক (২০০৭)। This Time, This Place: My Life in War, the White House, and Hollywood। ক্রাউন পাবলিশিং। 
  2. ব্র্যাডশ, পিটার (৯ ডিসেম্বর ২০১৬)। "Kirk Douglas at 100: a one-man Hollywood Mount Rushmore"দ্য গার্ডিয়ান (ইংরেজি ভাষায়)। সংগ্রহের তারিখ ৯ ডিসেম্বর ২০১৮ 

বহিঃসংযোগ[সম্পাদনা]