মোরিস শ্যভালিয়ে

উইকিপিডিয়া, মুক্ত বিশ্বকোষ থেকে
পরিভ্রমণে ঝাঁপ দিন অনুসন্ধানে ঝাঁপ দিন
মোরিস শ্যভালিয়ে
Maurice Chevalier-publicity.jpg
১৯৩০-এর দশকে শ্যভালিয়ে
স্থানীয় নাম
Maurice Chevalier
জন্ম
মোরিস ওগ্যুস্ত শ্যভালিয়ে

(১৮৮৮-০৯-১২)১২ সেপ্টেম্বর ১৮৮৮
মৃত্যু১ জানুয়ারি ১৯৭২(1972-01-01) (বয়স ৮৩)
প্যারিস, ফ্রান্স
পেশাঅভিনেতা
কার্যকাল১৯০৮-১৯৭০
দাম্পত্য সঙ্গীইভোন ভালে
(বি. ১৯২৭; বিচ্ছেদ. ১৯৩২)

নিটা রায়া
(বি. ১৯৩৭; বিচ্ছেদ. ১৯৪৬)

মোরিস ওগ্যুস্ত শ্যভালিয়ে (ফরাসি: Maurice Auguste Chevalier; ১২ সেপ্টেম্বর ১৮৮৮ - ১ জানুয়ারি ১৯৭২) ছিলেন একজন ফরাসি অভিনেতা ও কাবারে গায়ক।[১] তিনি তার প্রথম মার্কিন হিট গান "লিভিন ইন দ্য সানলাইট", "ভ্যালেন্টাইন", "লুইস", "মিমি" ও "থ্যাংক হেভেন ফর লিটল গার্লস" গানের জন্য এবং তার অভিনীত দ্য লাভ প্যারেড, দ্য বিগ পন্ডলাভ মি টুনাইট চলচ্চিত্রের জন্য সর্বাধিক পরিচিত।

প্যারিসে জন্মগ্রহণকারী শ্যভালিয়ে সঙ্গীতধর্মী হাস্যরসাত্মক নাটকে অভিনয় করে তারকা খ্যাতি অর্জন করেন। এছাড়া তিনি জনসম্মুখে গান ও নৃত্য পরিবেশন করতেন। ১৯০৯ সালে তৎকালীন ফ্রান্সের সবচেয়ে জনপ্রিয় তারকা অভিনেত্রী ফ্রেহেলের সাথে তার জুটি গড়ে ওঠে। এই যুগলের সম্পর্ক স্বল্পকাল স্থায়ী হলেও তিনি মার্সেইয়ে লালকাজারে মিমিক ও গায়ক হিসেবে প্রতিষ্ঠা লাভ করেন। ফরাসি মঞ্চ সমালোচকগণ তার কাজের প্রশংসা করেন। ১৯১৭ সালে তিনি জ্যাজ ও র‍্যাগটাইম গানের সাথে পরিচিত হন এবং লন্ডনে গিয়ে প্যালেস থিয়েটারে নতুন আঙ্গিকে সফলতা অর্জন করেন।

পরবর্তীকালে তিনি মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রে সফরে যান এবং সেখানে মার্কিন সুরকার জর্জ গার্শউইন ও আরভিং বার্লিনের সাথে পরিচিত হন। ১৯২২ সালে তারা ব্রডওয়ে মঞ্চে অপেরেত্তা দেদে পরিবেশন করেন। তিনি অভিনয়ে আগ্রহী হয়ে ওঠেন এবং দেদে দিয়ে সফলতা অর্জন করেন। সবাক চলচ্চিত্রের আগমনের পর তিনি ১৯২৮ সালে হলিউডে আগমন করেন। সেখানে তিনি তার প্রথম মার্কিন চলচ্চিত্র ইনোসেন্টস্‌ অব প্যারিস-এ অভিনয় করেন। ১৯৩০ সালে তিনি দ্য লাভ প্যারেড (১৯২৯) ও দ্য বিগ পন্ড (১৯৩০) ছবিতে অভিনয়ের জন্য শ্রেষ্ঠ অভিনেতা বিভাগে একাডেমি পুরস্কারের মনোনয়ন লাভ করেন।

১৯৫৭ সালে তিনি প্রায় বিশ বছর পর আবার লাভ ইন দি আফটারনুন দিয়ে হলিউডে অভিনয় করেন। পরের বছর তিনি জিজি ছবিতে লেসলি ক্যারন ও লুইস জর্ডানের সাথে অভিনয় করেন। ১৯৬০-এর দশকের শুরুতে তিনি আরও আটটি চলচ্চিত্রে কাজ করেন। ১৯৭০ সালে ডিজনির দি অ্যারিস্টোক্যাটস-এ শিরোনাম গানে কণ্ঠ দেন, যা ছিল চলচ্চিত্রে তার শেষ কাজ। ১৯৭২ সালের ১লা জানুয়ারি তিনি প্যারিসে মৃত্যুবরণ করেন।

তথ্যসূত্র[সম্পাদনা]

  1. "Maurice Chevalier Dead; Singer and Actor Was 83"দ্য নিউ ইয়র্ক টাইমস (ইংরেজি ভাষায়)। ২ জানুয়ারি ১৯৭২। সংগ্রহের তারিখ ৪ জানুয়ারি ২০১৯ 

বহিঃসংযোগ[সম্পাদনা]