হাওয়ার্ড হক্‌স

উইকিপিডিয়া, মুক্ত বিশ্বকোষ থেকে
পরিভ্রমণে ঝাঁপ দিন অনুসন্ধানে ঝাঁপ দিন
হাওয়ার্ড হক্‌স
Howard Hawks
Howard Hawks head shot.jpg
১৯৪০-এর দশকে হক্‌স
জন্ম
হাওয়ার্ড উনচেস্টার হক্‌স

(১৮৯৬-০৫-৩০)৩০ মে ১৮৯৬
মৃত্যুডিসেম্বর ২৬, ১৯৭৭(1977-12-26) (বয়স ৮১)
পাম স্প্রিংস, ক্যালিফোর্নিয়া, মার্কিন যুক্তরাষ্ট্র
জাতীয়তামার্কিন
মাতৃশিক্ষায়তনকর্নেল বিশ্ববিদ্যালয়
পেশা
  • চলচ্চিত্র পরিচালক
  • প্রযোজক
  • চিত্রনাট্যকার
কর্মজীবন১৯১৬-১৯৭০
দাম্পত্য সঙ্গীঅ্যাথোল শিয়ারার
(বি. ১৯২৮; বিচ্ছেদ. ১৯৪০)

স্লিম কিথ
(বি. ১৯৪১; বিচ্ছেদ. ১৯৪৯)

ডি হার্টফোর্ড
(বি. ১৯৫৩; বিচ্ছেদ. ১৯৬০)
সন্তান৩, কিটি হক্‌স-সহ
আত্মীয়

হাওয়ার্ড হক্‌স (৩০ মে ১৮৯৬ - ২৬ ডিসেম্বর ১৯৭৭) ছিলেন একজন মার্কিন চলচ্চিত্র পরিচালক, প্রযোজক এবং লেখক। তিনি হলিউড চলচ্চিত্রের ধ্রুপদী যুগের অন্যতম ব্যক্তিত্ব। সমালোচক লিওনার্ড ম্যালটিন তাকে "সেরা মার্কিন পরিচালক যিনি পরিচিত নাম ছিলেন না" বলে অভিহিত করেন।

বৈচিত্রময় চলচ্চিত্র পরিচালক হক্‌স হাস্যরসাত্মক, নাট্যধর্মী, গ্যাংস্টার, বিজ্ঞান কল্পকাহিনি, নোয়া চলচ্চিত্র, যুদ্ধভিত্তিক ও পশ্চিমা ধারা-সহ বিভিন্ন ধারার চলচ্চিত্র পরিচালনা করেছেন। তার সবচেয়ে জনপ্রিয় চলচ্চিত্রসমূহ হল স্কারফেস (১৯৩২), ব্রিংগিং আপ বেবি (১৯৩৮), অনলি অ্যাঞ্জেলস্‌ হ্যাভ উইংস (১৯৩৯), হিজ গার্ল ফ্রাইডে (১৯৪০), টু হ্যাভ অর হ্যাভ নট (১৯৪৪), দ্য বিগ স্লিপ (১৯৪৬), রেড রিভার (১৯৪৮), দ্য থিং ফ্রম অ্যানাদার ওয়ার্ল্ড (১৯৫১), জেন্টলম্যান প্রেফার ব্লন্ডিজ (১৯৫৩), ও রিও ব্র্যাভো (১৯৫৯)। তার চলচ্চিত্রসমূহে বলিষ্ঠ নারী চরিত্রগুলোকে হক্‌সিয়ান ওম্যান" নামে ডাকা হত।

১৯৪২ সালে হক্‌স সার্জেন্ট ইয়র্ক চলচ্চিত্রের জন্য শ্রেষ্ঠ পরিচালনা বিভাগে একাডেমি পুরস্কারের মনোনয়ন লাভ করেন। ১৯৭৪ সালে তাকে একাডেমি সম্মানসূচক পুরস্কার প্রদান করা হয় এবং একাডেমির ওয়েবসাইটে লেখা হয়, "একজন দক্ষ মার্কিন চলচ্চিত্র নির্মাতা যার সৃজনশীল কর্মগুলো বিশ্ব চলচ্চিত্রে আলাদাভাবে স্থান অর্জন করেছে।" তার কর্মগুলো অনেক জনপ্রিয় ও শ্রদ্ধাভাজন পরিচালকদের অনুপ্রাণিত করেছে, তন্মধ্যে রয়েছেন মার্টিন স্করসেসি, রবার্ট আল্টম্যান, জঁ-লুক গদার, জন কার্পেন্টার, ও কোয়েন্টিন টারান্টিনো। হক্‌স ক্যালিফোর্নিয়ার পাম স্প্রিংসে পড়ে গিয়ে মৃত্যুবরণ করেন।

হাওয়ার্ড হক্‌স

প্রারম্ভিক জীবন[সম্পাদনা]

হাওয়ার্ড উইনচেস্টার হক্‌স ১৮৯৬ সালের ৩০শে মে ইন্ডিয়ানা অঙ্গরাজ্যের গোশেন শহরে জন্মগ্রহণ করেন। তিনি তার পিতামাতার প্রথম সন্তান। তার পিতা ফ্র্যাংক উইনচেস্টার হক্‌স (১৮৬৫-১৯৫০) ছিলেন একজন ধনাঢ্য কাগজ প্রস্তুতকারক এবং তার মাতা হেলেন ব্রাউন (বিবাহপূর্ব হাওয়ার্ড; ১৮৭২-১৯৫২) ছিলেন একজন ধনাঢ্য শিল্পপতির কন্যা। তার পূর্বপুরুষ জন হক্‌স ১৬৩০ সালে ইংল্যান্ড থেকে ম্যাসাচুসেট্‌স আগমন করেছিলেন। তার পরিবার গোশেনে বসতি স্থাপন করে এবং ১৮৯০-এর দশকের মধ্যে গোশেন মিলিং কোম্পানি দিয়ে মিডওয়েস্টের অন্যতম ধনাঢ্য পরিবারে পরিণত হয়।[২]

হক্‌সের মাতামহ সি. ডব্লিউ. হাওয়ার্ড (১৮৪৫-১৯১৬) ১৮৬২ সালে ১৭ বছর বয়সে উইসকনসিনের নিনাহ শহরে বসতবাড়ি স্থাপন করেন। পরবর্তী ১৫ বছরের মধ্যে তিনি কাগজকল ও অন্যান্য উৎপাদন শিল্পের মধ্য দিয়ে সফলতা অর্জন করেন।[৩] ফ্র্যাংক হক্‌স ও হেলেন হাওয়ার্ড ১৮৯০-এর দশকের শুরুর দিকে একে অপরের সাথে পরিচিত হন এবং ১৮৯৫ সালে বিবাহ বন্ধনে আবদ্ধ হন। হাওয়ার্ড হক্‌স তার পাঁচ ভাইবোনের মধ্যে সর্বজ্যেষ্ঠ। তার অন্যান্য ভাইবোনেরা হলেন কেনেথ নিল হক্‌স (১২ আগস্ট ১৮৯৮ - ২ জানুয়ারি ১৯৩০), উইলিয়াম বেলিঞ্জার হক্‌স (২৯ জানুয়ারি ১৯০১ - ১০ জানুয়ারি ১৯৬৯), গ্রেস লুইস হক্‌স (১৭ অক্টোবর ১৯০৩ - ২৩ ডিসেম্বর ১৯২৭), এবং হেলেন বার্নিস হক্‌স (১৯০৬ - ৪ মে ১৯১১)। ১৮৯৮ সালে তাদের পরিবার উইসকনসিনের নিনাহ শহরে চলে যায়, যেখানে ফ্র্যাংক হক্‌স তার শ্বশুরের হাওয়ার্ড পেপার কোম্পানিতে কাজ শুরু করেন।[৪]

কর্মজীবন[সম্পাদনা]

প্রারম্ভিক সবাক চলচ্চিত্র (১৯৩০-১৯৩৪)[সম্পাদনা]

১৯৩০ সালে হাওয়ার্ড হিউজ হক্‌সকে শিকাগোর মবস্টার আল কাপোনের খানিক জীবনী অবলম্বনে গ্যাংস্টার চলচ্চিত্র স্কারফেস নির্মাণের জন্য আমন্ত্রণ জানান। ১৯৩১ সালের সেপ্টেম্বর মাসে চলচ্চিত্রটির নির্মাণ সম্পন্ন হয়, কিন্তু হেস কোডের সেন্সরশিপের কারণে চলচ্চিত্রটির মুক্তি বাধাগ্রস্থ হয়। হক্‌স ও হিউজ হেস অফিসে এক বছর ধরে বিষয়টি নিষ্পত্তি করেন, এবং ১৯৩২ সালে চলচ্চিত্রটি মুক্তি পায়। স্কারফেস চলচ্চিত্রে হক্‌স প্রথমবারের মত চিত্রনাট্যকার বেন হেচের সাথে কাজ করেন। এই কাজের পর তারা ঘনিষ্ঠ বন্ধুতে পরিণত হন এবং তারা আরও ২০ বছর একত্রে কাজ করেন।[৫]

সবাক চলচ্চিত্রে সাফল্য (১৯৩৫-১৯৭০)[সম্পাদনা]

১৯৩৮ সালে হক্‌স আরকেও পিকচার্সের ব্যানারে উদ্ভট হাস্যরসাত্মক ব্রিংগিং আপ বেবি চলচ্চিত্র নির্মাণ করেন। এতে শ্রেষ্ঠাংশে অভিনয় করেন ক্যারি গ্র্যান্টক্যাথরিন হেপবার্ন। ডুডলি নিকোলস ও হ্যাগার ওয়াইল্ডের চিত্রনাট্যে নির্মিত চলচ্চিত্রটিকে চলচ্চিত্র সমালোচক অ্যান্ড্রু স্যারিস "সবচেয়ে উদ্ভট স্কুবল কমেডি" বলে অভিহিত করে। গ্র্যান্টকে এতে একজন ক্ষীণদৃষ্টি সম্পন্ন জীবশ্মবিদ চরিত্রে দেখা যায় যিনি অভিজাত হেপবার্নের প্রতি অনুরাগের কারণে বারবার অপদস্ত হন।[৫] ব্রিংগিং আপ বেবি ছবিতে হক্‌সের শৈল্পিক পরিচালনা গ্র্যান্ট ও হেপবার্নের মধ্যকার সহজাত রসায়ন উপস্থাপন করে। চলচ্চিত্রটি মুক্তির পর বক্স অফিসে ব্যর্থ হয়, ফলে আরকেও বিপুল পরিমাণ লোকসানের দরুণ হক্‌সকে বরখাস্ত করে। তবে চলচ্চিত্রটিকে হক্‌সের অন্যতম শ্রেষ্ঠ কর্ম বলে গণ্য করা হয়।[৬] এরপর হক্‌স ১৯৫১ সাল পর্যন্ত টানা ১১টি ব্যবসাসফল চলচ্চিত্র নির্মাণ করেন, যার শুরু হয় ১৯৩৯ সালে ক্যারি গ্র্যান্ট অভিনীত কলাম্বিয়া পিকচার্সের অনলি অ্যাঞ্জেলস্‌ হ্যাভ উইংস দিয়ে।[৭] এতে আরও অভিনয় করেন জিন আর্থার, টমাস মিচেল, রিটা হেওয়ার্থ, ও রিচার্ড বার্থেলমেস[৫]

তথ্যসূত্র[সম্পাদনা]

  1. কিড, চার্লস (১৯৮৬)। "Howard Hawks and Mary Astor"Debrett Goes to Hollywoodবিনামূল্যে নিবন্ধন প্রয়োজন। নিউ ইয়র্ক: সেন্ট মার্টিন্‌স প্রেস। পৃষ্ঠা ৬৭। আইএসবিএন 978-0-312-00588-7 
  2. ম্যাকার্থি ১৯৯৭, পৃ. ১৮-১৯।
  3. ম্যাকার্থি ১৯৯৭, পৃ. ২৫।
  4. ম্যাকার্থি ১৯৯৭, পৃ. ২৭-২৯।
  5. ওয়েকম্যান ১৯৮৭, পৃ. ৪৪৬-৪৫১।
  6. লাহাম ২০০৯, পৃ. ২৭-২৯।
  7. ম্যাকার্থি, টড। "At 100, Hawks remains ever modern, ever a master"। ডেইলি ভ্যারাইটি। পৃষ্ঠা ৬৩।

বহিঃসংযোগ[সম্পাদনা]